নিরাপত্তা পরিষদে আগাশাহীর বিবৃতি

Posted on Posted in 7

৭.১১৭.২৬২ ২৬৭

শিরোনামঃ ১১৭। নিরাপত্তা পরিষদে আগাশাহীর বিবৃতি

সূত্রঃ জাতিসংঘ দলিলপত্র উদ্ধৃতিঃ বাংলাদেশ ডকুমেন্টস

তারিখঃ ৬ ডিসেম্বর, ১৯৭১

.

পাকিস্তানের প্রতিনিধি জনাব আগা সাই ৩ এর বক্তব্য

ডিসেম্বর ৬, ১৯৭১

মাত্র গতকাল, আমি নিরাপত্তা পরিষদের নিকট একটি প্রয়োজনীয় কাগজ হতে পাকিস্তান বিভাজন ঘটানোর এবং অপসরণকারী রাষ্ট্র বাংলাদেশ সৃষ্টিকে বৈধকরণে নিরাপত্তা পরিষদকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করার ভারতের পরিকল্পনা সম্পর্কিত সংগ্রহীত অংশ দ্বিতীয়বারের মত উদ্ধৃত করেছিলাম, যা ভারতীয় সরকারী বিভাগের নিকট সর্বাধিক গুরুত্ববহ বিবেচিত হচ্ছে। আমি নিশ্চিত যে আমি যা উদ্ধৃত করেছিলাম তা অবশ্যই পরিষদের সদস্যদের পরিষ্কার মনে আছে এবং আমি তা পুনরায় উদ্ধৃত করতে বিরত থাকছি।

মাত্র গতকাল এবং তার আগেরদিন, ভারতীয় প্রতিনিধি মন্তব্য করলেন যে এসব ছিল ভারতের তত্ত্ববাদী এবং সভ্য সুশীল সমাজের ধারণা, কিন্তু এখন এটি পরিষ্কার যে পরিকল্পনাটি নির্ভুল যথাযথতায় এগিয়েছে এবং ভারতীয় সরকার বাংলাদেশের স্বীকৃতি ঘোষণা করেছে।

শ্রীমতী গান্ধীর গতকালের বক্তব্য হতে ভারতীয় প্রতিনিধি পূর্ণদৈর্ঘে উদ্ধৃত করে পাকিস্তানের বিপক্ষে যুদ্ধে যাওয়ার কারণ প্রদর্শন করেছেন। তিনি বলেন যে এটি একটি সাহসী সংগ্রাম ছিল যা স্বাধীনতা আন্দোলনের ইতিহাসে একটি নতুন অধ্যায়ের উন্মোচন করেছে। এবং একথা উল্লেখ করা হোক যে এই নতুন অধ্যায়ের সূচনা হয়েছিল ধ্বংসযজ্ঞ এবং আগ্রাসনের মধ্য দিয়ে।

যদি পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি জাতীয় পরিষদের সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা হিসেবে শেখ মুজিবুর রহমানকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ঘোষিত করে, এবং যদি আমার দেশের অভ্যন্তরীন রাজনৈতিক দলগুলোর মতবিরোধের জের ধরে শেখ মুজিবুর রহমানের নিকট ক্ষমতা হস্তান্তরের পরিকল্পনা বাস্তবে রূপান্তরিত না হয়, তবে কি তা একটি প্রতিবেশী রাষ্ট্রের একটি সশস্ত্র সামরিক বিবাদ প্ররোচিত করা এবং পাকিস্তানের উপর উদ্দেশ্যমূলক হামলা করাকে ন্যায্যতা প্রতিপাদন করে? যদি একটি দেশে কোন রাজনৈতিক দলের, এমনকি সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতাকে সরকার গঠনের জন্যে কোন কমিশন দেয়া হয়ে থাকে, এবং কোন না কোন কারণে, সে কারণ ভুল-শুদ্ধ যাই হোক না কেন, তা যদি বাস্তবায়িত না হয়, তবে কি অন্য কোন রাষ্ট্র সেই রাষ্ট্রে স্বাধীনতা উন্নীত করতে আগ্রাসন এবং ধ্বংসযজ্ঞে নিযুক্ত হয়?

এখন, আমাদের বলা হয়েছে যে নিরাপত্তা পরিষদকে অবশ্যই বাস্তবতার মুল্যায়ন করতে হবে এবং ভারতীয় প্রতিনিধি মুক্তিবাহিনীর সাফল্য নিয়ে কথা বলে গেছেন। আবৃত বাস্তবতা হল এই যে মুক্তিবাহিনীর কেবলমাত্র ১২০০০ ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর সহায়ক যা পাকিস্তানের উপর সশত্র হামলা লেলিয়ে দিয়েছে। এটি কেবলমাত্র একটি সহায়ক ভুমিকাই পালন করতে পারে। মুক্তিবাহিনী এখানে শুধুই ভারতীয় সেনাবাহিনীর অধীনে কাজ করবে। এবং এটি দখলদার কর্তৃপক্ষের সরকারী প্রতিস্থাপনা যে নিরাপত্তা পরিষদের নিকট স্বীকৃতি না হলেও কোনরকমের মেনে নেয়ার প্রস্তাবনা আশা করা হচ্ছে।

আমাদেরকে গণতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা, স্বাধীনতা এবং আরও কত কিসের আড়ম্বরপূর্ণপ্রচারণাবলা হয়েছে। কিন্তু আমরা জানি যে বলা এবং করা সমতুল্য নয়। কতটা সংবিধানে, পৃথিবীর প্রতিটি দেশের কতগুলো মতবাদে এবং প্রচারণায় এসব শব্দের ব্যবহার নেই? আমাদের কি তবে শুধুমাত্র অলংকারশাস্ত্র এবং বাকপটুতা দ্বারা পথপ্রদর্শন করা হচ্ছে? ভারতেই গনতন্ত্র এর বিভিন্ন প্রদেশে কাজ করে না; তারা সরাসরি রাষ্ট্রপতি শাসনের অধীনে আছে। এবং ধর্মনিরপেক্ষতা পালনের চেয়ে লঙ্ঘনের ক্ষেত্রে বেশী মর্যাদা পায়। যুদ্ধরত দলসমূহকে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের হত্যা এবং জবাই করতে ছেড়ে দেয়া হয়-এবং আমাদেরকে বলা হয়েছে কৃতকর্মের জবাবদিহি করতে।

আমাদেরকে আরও বলা হয়েছে বাংলাদেশের বৈদেশিক সম্পর্ক এবং জোট-নিরপেক্ষতা সম্বন্ধে। ঐ সরকারের পরামর্শদাতা ইন্দো-সোভিয়েত সামরিক জোটের নিষ্পত্তিকরণের মাধ্যমে জোট-নিরপেক্ষতার উদাহরণ প্রতিষ্ঠা করেছেন।

ভারতীয় প্রতিনিধি বাংলাদেশের স্বাধীনতার কথা বলেন। ১৯০৫ সালে ঐ একই পূর্ব পাকিস্তান, যা কিনা বেঙ্গল প্রদেশের অন্তর্ভুক্ত ছিল, কলকাতার পুঁজিবাদী ও জাত হিন্দুদের দ্বারা অর্থনৈতিক শোষণ ও শাসনের শৃঙ্খল হতে মুক্ত হয়, এবং ভারতের একটি আলাদা প্রদেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়-যা ব্রিটিশ সরকার দ্বারা ১৯০৫ সালে সংঘটিত হয়েছিল। কিন্তু ভারতের ঐ একই পুঁজিবাদী, শিল্পপতি এবং জাত হিন্দুরা হত্যা, গুপ্তহত্যা এবং সন্ত্রাসের একটিবিরামহীন আন্দোলন পরিচালনা করে এবং ব্রিটিশ সরকারকে দ্বিবিভাজন খণ্ডিত করতে বাধ্য করে। ফলে দুই শতাব্দী ধরে ব্রিটিশ সরকার এবং পরবর্তীকালে ভারতের সুবিধাভোগী শ্রেণীসমূহ উভয়ের দ্বারা শোষিত হওয়ার পর ১৯০৫ সালে পূর্ব পাকিস্তানের যে পৃথকীকরণ হয়েছিল তা খণ্ডিত হয়ে যায় এবং পূর্ব পাকিস্তানকে আবারো বাংলার অংশ করে দেয়া হয় যাতে সুবিধাভোগী শ্রেণীর শাসন পুনরায় আরোপিত হয়। পাকিস্তানের রাজনৈতিক ধারার প্রভাবশালী অংশীদার এবং প্রভাবশালী অঙ্গ হিসেবেপাকিস্তানী জনগণ এবং তাদের শক্তিই এই ধরণের শাসনের পুনরায় আরোপ এবং পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের স্বাধীনতার উন্নয়নের মধ্যে এসে দণ্ডায়মান হয়।

তারপর ভারতীয় প্রতিনিধি স্বায়ত্তশাসনের জন্য আন্দোলনের ইতিহাসে চলে যান, ছয় দফা দাবী নিয়ে কথা বলেন এবং শেখ মুজিবুর রহমানকে উদ্ধৃত করেন। এখানে, ছয় দফা দাবী নিয়ে আমি কিছু কথা বলি।

২৩শে মার্চ, বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দ্বারা রচিত অবাঙ্গালীদের হত্যাকাণ্ড দমনে ফেডারেল সেনাবাহিনী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে যাওয়ার দুইদিন আগে, বিচ্ছিন্নতাবাদীদের নেতাবৃন্দ, বা আওয়ামীলীগের নেতাবৃন্দ রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া খানের নিকট একটি খসরা ঘোষণাপত্র উপস্থাপন করেন এই মর্মে যে এটাই তাদের শেষ কথা এবং পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি চাইলে এটা মেনে নিতেও পারেন কিংবা নাও নিতে পারেন; এতে তারা এও বলেন যে পাকিস্তানকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে একটি সংঘ হতে হবে, এবং এটি একটি সংঘে রূপান্তরিত হতে যাচ্ছে। অপর রাজনৈতিক দলগুলো বিশ্বাস করে যে সংঘ হচ্ছে দুইটি সার্বভৌম রাষ্ট্রের একটি সমিতি, কোন এককের দুইটি প্রদেশ কিংবা রাজ্য নয়। নিশ্চিতভাবে, এটি একটি বৈধ দৃষ্টিকোণ ছিল যার কাছে কেউ সহমত প্রকাশ করতে পারে আবার নাও করতে পারে, কিন্তু এটি কিভাবে ভারতের উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়ালো? অন্যভাবে বলা যায়, পাকিস্তানকেদুইটি সার্বভৌম রাষ্ট্রের একটি সংঘতে রূপান্তর হওয়ার চূড়ান্ত প্রস্তাবনা মেনে নেয়ার কথাপাকিস্তান সরকারকে বলা হয়েছে। এবং এখনো, ভারতীয় প্রতিনিধি আমাদেরভাষণ দিচ্ছেন কিভাবে আমরা আমাদের সাংবিধানিক এবং রাজনৈতিক জীবন শৃঙ্খলাবদ্ধ হয়ে পরিচালনা করব। উনাকে আগে নিজের সংবিধান পড়তে দেয়া হোক এবং প্রদেশগুলোকে কতখানি স্বায়ত্তশাসন ক্ষমতা দেয়া আছে তা দেখতে দেয়া হোক। ভারতীয় সংঘে তার নিজের প্রদেশ পশ্চিম পাকিস্তানের কতটুকু স্বায়ত্তশাসন ক্ষমতা আছে? বাঙলা এবং আসামের পুঁজির কতখানিই বা ওইসব প্রদেশে ব্যয় করা হয়?

এছাড়াও, যেকোনো রকমের ভারতীয় প্রতিনিধিগণ পাকিস্তানী সশস্ত্রবাহিনী দ্বারা নিহত শত-সহত্র মানুষের পুনরাবৃত্তি করে থাকেন। অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য যে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দ্বারা নিহতদের জন্যে তাদের কোন মানবতা লক্ষ্য করা যায় না। তথাকথিত বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের মধ্যে এমন মানুষ ওখানে ছিল যারা কসাইখানা স্থাপিত করেছিল যেখানে সহস্র মানুষের হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হয় ২৫শে মার্চের আগে যখন সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপ করতে বাধ্য হয় এবং তারপরেও। এবং সেইসকল মানুষ এখন বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করতে আসে। এসব নৃশংসতার জীবন্ত প্রমান আছে, এবং যদি নিরাপত্তা পরিষদ প্রচারণা এবং কলামিস্টরা যা লিখছে তা হতে মুখ ফিরিয়ে নিজেরা খুঁজতে চায়, আমাদের উচিৎ তা করার মাধ্যম সরবরাহ করা।

ভারতীয় প্রতিনিধি সেদিন তার প্রতিনিধিদলের দেখানো চলচিত্রের কথা বলছিলেন। আমাদের কাছে এমন চলচিত্র আছে, কিন্তু আমরা আপনাদের অনুভূতিকে নিষ্কৃতি দিয়েছি। কিন্তু, আপনারা যদি চান তবে আপনাদের সেগুলো দেখতে আসতে স্বাগত জানাচ্ছি। পাকিস্তান মৃত এবং প্রোথিত তাই তার উৎসাহআমি বুঝতে পারি। আমি তাকে বলতে চাই, পাকিস্তান বেঁচে আছে এবং ভারতের হিংস্রতার পরেও বেঁচে থাকবে।

তারপর, সে নিউইয়র্ক টাইমস থেকে কিছু একটা উদ্ধৃত করে। এটি হল কলামিস্ট অ্যান্টনি লেওয়িস এর একটি প্রবন্ধ। আমি ইতিপূর্বে তার অনেক প্রবন্ধ পড়েছি। কিন্তু, এটি হচ্ছে একজন ব্যাক্তির অভিমত মাত্র। সে কি চিত্রের অন্যপাশটি খুঁজে দেখার জন্য পাকিস্তান গিয়েছিল? যুক্তরাষ্ট্রের অর্ধ মিলিয়ন পাঠকের দ্বারা পঠিত একটি সংবাদপত্রে তার প্রবন্ধ ছাপানোর আগে সে কি আসল তথ্যগুলো সম্পর্কে অবগত হওয়ার জন্যে একটুও যত্নশীল হয়েছিল? সে কিসমানভাবে সম্মানিত অন্যান্য পত্রিকার সংবাদদাতাদের সাথে তথ্য মিলিয়ে তুলনা করেছিল, যেমন ম্যানচেস্টার গার্ডিয়ান যারা সম্পূর্ণ ভিন্নমত পোষণ করছে। এইধরনের প্রচারণাই ভারতীয় প্রতিনিধি অবলম্বন করে ভারতের আক্রমণ এবং আমাদের এলাকা দখল হতে পরিষদের মনোযোগ সরিয়ে দিতে। আমরা যদি সংবাদদাতাদের উদ্ধৃত করতে শুরু করি, তাহলে আমরা শেষ করব কোথায়? ঠিক আছে, আপনারা যদি সংবাদদাতাদের উদ্ধৃত করতে চান তবে আমি জেমস রেস্টনকে উদ্ধৃত করব যিনি গতকালের নিউইয়র্ক টাইমসে বলছেন,

 “প্রধানমন্ত্রী গান্ধীর পাকিস্তানের অসচ্চরিত্র ও অনর্থক আক্রমণ নিয়ে কথা বলা, যেখানে তার নিজের সরকারের সেনাবাহিনীরা সর্বক্ষণ পূর্ব পাকিস্তানের ভেতরে অবস্থান করছে, এবং তার সহকর্মীগণের পূর্ব পাকিস্তানের বিদ্রোহীদের প্রতি সহযোগিতাতে আর কোন গোপনীয়তা রাখেনি অথবা তাদের পূর্ব পাকিস্তানের পশ্চিম পাকিস্তান থেকে বিভক্ত হওয়া দেখার ইচ্ছা দেখা বিশ্বের বুদ্ধিমত্তার প্রতি প্রকাশ্যে অপমানজনক।

এবং ভারতীয় প্রতিনিধি তার বিশিষ্ট গোয়েন্দাবাহিনীকে ও অগাস্ট জমায়েতকে এতোটাই খাটো মনে করেন যে তিনি তার ভুল উপস্থাপনায়ই নিবিষ্ট আছেন। আমি উদ্ধৃতিটি অব্যাহত রাখছিঃ

“শ্রীমতী গান্ধী জাতিসংঘের পর্যবেক্ষকদের ভারত-পাকিস্তানের সীমান্তে কি চলছে তা দেখার অনুমতি দেয়ার কথা গ্রাহ্যও করেননি, যা কিনা আকর্ষণীয়, যেহেতু তিনি এখন এই যুদ্ধকে পাকিস্তানী আক্রমণকারীদের বিরুদ্ধে নৈতিক ধর্মযুদ্ধ হিসেবে সমর্থন করছেন।

ভারতীয় প্রতিনিধি পাকিস্তান সরকারকে সামরিক গুপ্তসভা ছাড়া কিছু সম্বোধন করতে পারেন না। বেশকিছু সদস্য রাষ্ট্র শাসিত হয়েছে—এবং এটি আমার কথা নয়, কিন্তু তার কথা—সামরিক গুপ্তসভা দ্বারা, এবং তিনি আরও বলেন,

“রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া খান নির্বাচনের ফলাফল জোরপূর্বক মুছে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।”

প্রথমত, যদি রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া খান গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার এবং উন্নীত করতে না চাইতেন তবে কেন তিনি নির্বাচন সংগঠিত করাতেন এবং কেন তা সংগঠিত হবে একটি স্বাধীন পরিবেশে যা তিনি নিজেই পরবর্তীতে আহ্বান করেন? বাঙালীদের আকাঙ্ক্ষা বিনষ্ট করা কি তার জন্যে নির্বাচনের আগেই সহজতর হত না, এতে পৃথিবীতে এতো নাকিকান্নার জন্মও হত না?

তথাপি, ভালো এবং সৎ উদ্দেশ্যগুলো যদি অনুধাবন করতে বাঁধা দেয়া হয়, তখন সেগুলোই নিন্দিত হয় এবং অসৎ উদ্ধেশ্যগুলো আরোপিত হয়। এবং তারা আসে কোত্থেকে? ভারত থেকে। আমরা জানি যে আমরা ভারত থেকে স্থায়ী শত্রুতা ব্যাতিত কিছু আশা করতে পারি না।

সিনেটার গির্জা যা বলতে পারত সেই প্রসঙ্গে আমার অনুশোচনা এইখানে যে সিনেটার গির্জার পরাভবতা এবং আক্রমনতা নিয়ে কিছু বলার ছিল না। সে পাকিস্তানের পরিস্থিতির কিছু নির্দিষ্ট দিক নিয়ে মতামত প্রকাশ করেছে, কিন্তু এমন অনেক বিষয় নিয়ে সে নিশ্চুপ থাকা শ্রেয় মনে করেছে যেসব বিষয় নিয়ে আমরা নিরাপত্তা পরিষদে এইমুহূর্তে বিবেচনা করছি।

 

 

অবশেষে, ভারতীয় প্রতিনিধির উত্তর হিসেবে বলছি, তিনি অভিযোগ করেছেন যে পাকিস্তান আক্রমণের জন্যে চিৎকার করেছে এবং নিরাপত্তা পরিষদের সভা নিয়ে কোন দাবী তুলেনি। রাষ্ট্রদূত ভিঞ্চি অগাস্টে নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতি ছিলেন এবং একটি মধ্যস্থ প্রভাব চর্চার তাগিদে নিরাপত্তা পরিষদকে সচল করতে এবং উত্তেজনার হ্রাস উন্নীত করতে আমার সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী আমার প্রচেষ্টা সম্পর্কে অবগত আছেন। কিন্তু কেন নিরাপত্তা পরিষদের কোন সভার আয়োজন করা হল না? ভারতের বিরোধিতা এবং ভারতেরমিত্রদের জন্য। এবং এখন আমরা সকলেই জানি, যখন আমরা অবশেষে নিরাপত্তা পরিষদের সামনে আসি তখন তার পরিণাম কি-একটি নিষেধাজ্ঞা।সুতরাং নিরাপত্তা পরিষদের সামনে আসার কথা আমরা আর নাই বলি।

ভারতীয় প্রতিনিধি থেকে এবার আসা যাক সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রতিনিধি গতকাল এবং আজকে একটু আগে কি বলেছেন। আমি অবশ্যই তার সংশোধনীসমূহ নিয়ে মন্তব্য করব না, কারণ আমি বিশ্বাস করি ওরা আর আমাদের সামনে নেই খসড়া সমাধানের জন্য যার কাছে সংশোধনী হিসেবে জমা দেয়া অপসারিত হয়েছে। আমরা সেই খসড়া সমাধানের উত্থাপকদের তাদের প্রস্তাব অপসারণের জন্য ধন্যবাদ প্রদান করছি। কিন্তু এখানে, রাষ্ট্রদূত মালিক তার সংশোধনীসমূহ বর্ণনা করার সময় যা বলেছিলেন সেই প্রসঙ্গে বলছি যে আমি এই সুযোগটি দুইএকটি ক্ষেত্রে মন্তব্য না করে অগ্রসর হতেদিতে পারছি না। সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রতিনিধি বলেছেন যে নিরাপত্তা পরিষদের এই কার্যকলাপ নিশ্চয়ই হিন্দুস্তান উপমহাদেশের বাস্তব পরিস্থিতি অনুযায়ী করা হয়েছে। হিন্দুস্তান উপমহাদেশের বাস্তব পরিস্থিতি এখন ভারতের পরাভবতা, সশস্ত্র বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সহায়তা, সশস্ত্র হস্তক্ষেপ এবং হিংস্রতা এসবের সংঘটন। অন্যভাষায়, নিরাপত্তা পরিষদ কি এখনবৈধতা দিতে যাবে এই তথাকথিত বাস্তবতাকে, চিরস্থায়ী ভোগদখল এবং হিংস্রতার ফলের নিশ্চয়তা এবং শক্তির অবৈধ প্রয়োগকে?

সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রতিনিধি বলেছেন যে এই শত্রুতার নিবৃত্তি অবশ্যই সংঘটিত হতে হবে একটি রাজনৈতিক সমঝোতার মধ্য দিয়ে। অন্যভাবে বলা যায়, সোভিয়েত সংশোধনীসমূহ, সোভিয়েত  ইউনিয়ন প্রতিনিধির বর্ণনা অনুযায়ী, পাকিস্তানের পূর্ব পাকিস্তানের খণ্ডনে, পাকিস্তানের বিভাজনে এবং ঐ যুদ্ধ ও সামরিক ভোগদখলেঅবশ্যই দ্রুত সহমত হতে হবে।

আমি মন্তব্য করতে বাধ্য হচ্ছি যে সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রতিনিধির বক্তব্যে পাকিস্তানের রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে ক্রমাগত নিবিষ্টতা রয়েছে আজকে উপমহাদেশে যে পরিস্থিতি বিরাজ করছে, এবং সপ্তাহের পর সপ্তাহ এবং মাসের পর মাস ধরে বিরাজ করেছে তার সবকটি দিক বর্জন করে। এবং আমরা সর্বাধিক উদ্বিগ্ন এই নিয়ে যে নিরাপত্তা মতবাদের সাথে, যা আমি গতকাল উল্লেখ করেছিলাম, সোভিয়েত প্রতিনিধির ঘোষণাসমূহ মনে হচ্ছে আমার দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক ও সাংবিধানিক জীবনের নিষ্পত্তিকারী হিসেবে নিজেদের দাবী করছে।

আমি পরে খসড়া সমাধানের উপর মন্তব্য করব, কিন্তু আমি মনেকরি আমার উচিৎ  কিছু নির্দিষ্ট তথ্য লিপিবদ্ধ করা। আমি গতকাল এমনটি করা থেকে বিরত থেকেছি, কারণ আমি পরিষদ কর্তৃক গৃহীত সময় দীর্ঘায়িত করতে চাইনি, এর আগে খসড়া সমাধানের উপর একটি ভোট পেতে। আমি নিরাপত্তা পরিষদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই ভারতের একটি ভুল বিবৃতির প্রতি যা সেক্রেটারি জেনারেলের প্রতিবেদন অন্তর্ভুক্ত। ভারতের প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে একটি বার্তা অনুযায়ী, যে মৌখিক ভাবে মহা সচিব ব্যাক্ত করেন, যেখানে দাবী করা হয় যে পাকিস্তান বিমান বাহিনী ২রা ডিসেম্বর বিকেলে বিতর্কিত অঞ্চল জম্মু ও কাশ্মীর এর শ্রীনগর-পাঠান কোটে এবং অমৃতসরে অবস্থিত ভারতের সামরিক ঘাঁটি আক্রমণ করে। এটি সম্পূর্ণভুল। আমি এখন পর্যন্ত দাবিটির বিরোধিতা করিনি কারণ আমি সঠিক সত্য পরীক্ষণ করছিলাম। আমার সরকারের নির্দেশাবলী অনুযায়ী, এখন আমি বলতে চাই যে পাকিস্তান বিমান  ৩ রা ডিসেম্বর এই বিমান বাহিনীর বিরুদ্ধে পাল্টা ব্যবস্থা গ্রহণ, এবং শুধু মাত্র ভারতের ছয় বা সাত ঘণ্টা আগে পশ্চিমে ৫০০ মাইল দীর্ঘ সামনে বরাবর পাকিস্তানের বিপক্ষে সশস্ত্র আক্রমণ করার পর।

আমি এই প্রসঙ্গে আরও বলতে চাই, আমিরাষ্ট্রদূতমালিককে অনুরোধজানাচ্ছি যে যখন তিনি আমার কোন মন্তব্য উদ্ধৃত করবেন, দয়া করে তাদের প্রেক্ষাপটে উদ্ধৃত করবেন, শুধু মাত্র এটাই বলতে চাই যে এটা পরিতাপের বিষয়যে, তিনি আবার গতকাল একটি বিবৃতি দিয়েছেন যা আমি একদিন আগেই সঠিক করিয়ে দিয়ে ছিলাম। সেটি ছিল পাকিস্তানে একটি অভ্যন্তরীণ সঙ্কটের অস্তিত্ব সম্পর্কে আমি যা বলেছিলাম সেই প্রসঙ্গে। রাষ্ট্র সমূহের রাজনৈতিক জীবনে, অভ্যন্তরীণ সংকট একটি বিরল ঘটনা নয়। কিন্তু সঙ্কট নিরসনভার ঐ দেশের জনগণের উপর ; এবং বিদেশী ক্ষমতা অভ্যন্তরীণ বিভাগের বর্ধিত করা , অপসরণ এবং সশস্ত্র বিদ্রোহ প্রচার, এবং অবশেষে সশস্ত্র হামলা চালানো ও অন্যান্য রাষ্ট্রের রাজনৈতিক জীবনে একটি অভ্যন্তরীণ সঙ্কটকে হস্তক্ষেপবাদী তত্ত্ব গুলোর জন্য যুক্তি হিসাবে ব্যবহার করার জন্য নয়।

উপরন্তু ,  আমি এই পরিষদের মনোযোগ আকর্ষণ করতে চাই গতকাল ভারতের একটি বিশ্রাম শোচনীয় কর্মের প্রতি। ৪ঠা ডিসেম্বর, সেক্রেটারিজেনারেল, একটি জরুরী টেলিফোনে বার্তার মধ্যদিয়ে আমাকে জাতিসংঘের কর্মী বৃন্দের নিরাপত্তার জন্য তার উদ্বেগ প্রকাশকরেন এবং তাদের ব্যাংককে সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত জানান। তিনি অনুরোধ করেন পাকিস্তান সরকার যাতে দেখে যে ৫ই ডিসেম্বর পূর্ব পাকিস্তানের সময় সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে ঢাকায় একটি যুদ্ধবিরতির ব্যবস্থা করা যেতেপারে কিনা এবং বিমানবন্দরে একটি বিমান অবতরণ করিয়ে জাতিসংঘের কর্মী বৃন্দকে নিরাপদ স্থানে পাঠানো যায় কিনা। মহাসচিব এছাড়াও জ্ঞাপিত যে তিনি ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি মহাসচিবকেও একই অনুরোধ করবেন। মহা সচিব অনুরোধ সবার সঙ্গে পাকিস্তান সরকারের কাছে জরুরি ভিত্তিতে পৌঁছে ছিল। এটা ইসলামাবাদে করা টেলিফোনে বার্তা সহ পাকিস্তান মিশন দ্বারা অনুসরণ করা হয়েছে। এটা বোঝা যায় যে পাকিস্তান ও ভারত উভয় সরকারই জাতিসংঘের কর্মীদের এবং বিদেশী কূটনীতিকদের সরিয়ে নেয়ার জন্য ৩টি নির্দিষ্ট দৈর্ঘ্যের সময়ের জন্য ঢাকায় একটি যুদ্ধ বিরতিকরতে রাজি হয়।  তবে, বিশ্ব এখন জানে যে ভারতের বিমান বাহিনী ঠিক জাতিসংঘের কর্মীদের উদ্বাসন মুহূর্তকেই ঢাকায় বেসামরিক বিমান বন্দরে আক্রমণ করতে বেছে নিয়েছে। এই আক্রমণের বিশ্বাসঘাতক প্রকৃতিকে সর্বাত্মক শক্তিশালী উপায়ে নিন্দা করতে হবে। এই মুহূর্তে কি ধরনের মনোভাব ভারতকে নিয়ন্ত্রণ করছে তা আমাদের বলা থেকে এটিই ভালো ভাবে প্রদর্শন করছে। ভারতের বিমানবাহিনী পাকিস্তান সীমানার ওপর আক্রমণ এমন সময়ে আরম্ভ করে যখন তারা জানে পাকিস্তানের বীরবাহিনী যুদ্ধবিরতি পর্যবেক্ষণ করতে প্রতিশ্রুতি বদ্ধ। এই ক্ষেত্রে নিরীহ আন্তর্জাতিক কর্মকর্তা বৃন্দ ও কূটনীতিকদের পরিস্থিতির শিকার হতে হয় এবং এটা একটি সৌভাগ্য যে দুর্ঘটনায় কোন প্রাণহানি ঘটেনি।

অবশেষে,  আমি একটি বিশেষ স্বত্বার এখানে আসার আমন্ত্রণ ব্যাপ্ত করণ প্রশ্নে সম্পর্কে বলতে চাই যে, আমি নির্দেশ করছি এটি শুধু মাত্র নিরাপত্তা পদ্ধতির শর্তাধীন নিয়ম ৩৯ এর লঙ্ঘনই হবেনা, এটি সনদেরও লঙ্ঘন হবে। যা অন্যদের মধ্যে আর্জেন্টিনার প্রতিনিধি দ্বারা যথেষ্ট শক্তি প্রয়োগ করে বের করে আনা হয়েছে। ভারতের ক্রিয়া গতকাল যাই হয়ে থাকুক না কেন যা পরিষদে উত্থাপনের প্রতি আহ্বান জানান হয়েছে তা কোনমতেই যুক্তির বল পরিবর্তন করা বুদ্ধিমানের নয়, এবং পরিষদের একটি বেআইনী কাজ করা উচিত কিনা এবং আমাদের বিবেচনা করা উচিত যে পাকিস্তান সরকার প্রতি একটি অসদাচরণ করা হচ্ছে।

যাতে সভার সময় আর নানিতে হয়, আমি ফ্রান্সের প্রতিনিধির তার চরিত্রগত বাগ্মিতা, নির্ভুলতা ও বৈধতা দ্বারা প্রস্তাবিত খসড়া রেজল্যুশন উপর আমার মতামত দিতে সংক্ষিপ্ত ভাবে চাই। আমরা তার প্রতিনিধি দলের এবং ব্রিটিশ প্রতিনিধিদলের উদ্বেগ নিয়ে সচেতন যে পরিষদের সম্পূর্ণ রূপে নিষেধাজ্ঞা দ্বারা না পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়ে কিছু ফলাফল অর্জন করা উচিত। তথাপি, আমরা যখন আপনাদের প্রশংসনীয় উদ্দেশ্যের প্রশংসাকরি , এবং শান্তির জন্য উদ্বেগ নিয়ে তাকে একটি প্রস্তাব করার অনুরোধ জানাই, আমরা বুঝতে বাধ্য হচ্ছি যে আগ্রাসনের প্রমাণিত সত্য সম্পর্কে কিছুই বলা হয়নি,  এবং বাস্তবতা এই যে, ভারত এই আগ্রাসন স্বীকার করেছে। পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের নিবৃত্তি এবং পরাভব এবং ভারত সশস্ত্রবিদ্রোহের উস্কানি সম্পর্কে কিছুই বলা হয়নি। উপরন্তু, খসড়া প্রস্তাবে সশস্ত্র ব্যক্তিদের কে এবং বাহিনী প্রত্যাহারে করা হয়নি। অন্য কথায়, দখল অব্যাহত থাকবে এবং তারপর, নিরাপত্তা পরিষদ যতক্ষণে পরিস্থিতি বিবেচনায় অগ্রসর হবে, পাকিস্তানকে তার নিজস্ব বিভাজন মেনে নিতে আহবান জানান হবে।

আমরা উল্লেখ করছি যে খসড়াটি পর্যবেক্ষণ করে যে পরিষদের আবার মিলিত হওয়া উচিৎ এই বিষয়ে সনদের কাঠামোর মধ্যে কি পদক্ষেপ হতে পারে তা বিবেচনার স্বার্থে যা শত্রুতার জন্ম দেয়। কিন্তু আমরা খুব ভালো করেই জানি যে দখলদার বাহিনী প্রত্যাহারের জন্য কোনো প্রস্তাব একটি নিষেধাজ্ঞা আকৃষ্ট করতে পারে। এবং নিরাপত্তা পরিষদ বাহিনী প্রত্যাহারের প্রশ্ন মোকাবেলা করার মত অবস্থানে থাকবে না। এক সঙ্গে যুদ্ধবিরতির এবং প্রত্যাহার প্রশ্নে একযোগে আচরণ না করে, পরিষদ সামরিক দখল দারিত্ব বৈধকরবে এবং এটা চিরস্থায়ী হবে।

এই কারণে, আমরা আশা করি যে পরিষদ বিবেচ্য বিষয় গুলো কে গুরুত্ব দিবে। আমি প্রতি আহ্বান জানাইয়েছি এবং সচেতনও হয়েছি যে যেহেতু শান্তি ও নিরাপত্তার জন্য যেমন এটির একটি দায়িত্ব আছে, একটি ভেটো ক্ষমতা নির্বিচারে প্রয়োগ করা হচ্ছে বলে জাতিসংঘ পুরো দায়িত্ব থেকে নিজেকে মুক্ত হতে পারবেনা।