পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশের প্রবাসী বুদ্ধিজীবীগণ কতৃক যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টারী প্রতিনিধিদলের কাছে প্রদত্ত স্মারকলিপি

Posted on Posted in 4

<৪,২১৪,৪৭০-৪৭২>

  অনুবাদকঃ সাদ্দিউন ফাহাদ জয়, নন্দন দেব

            শিরোনাম                  সূত্র                 তারিখ
২১৪। পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশের প্রবাসী বুদ্ধিজীবীগণ কতৃক যুক্তরাজ্যের  পার্লামেন্টারী প্রতিনিধিদলের কাছে প্রদত্ত স্মারকলিপিপশ্চিমবঙ্গে প্রবাসী বুদ্ধিজীবী২৯ জুন,১৯৭১

 

 

পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশের উদ্বাস্তু বুদ্ধিজীবীদের পক্ষে ব্রিটিশ সংসদীয় প্রতিনিধি দলের স্মারকলিপি

 

মহাশয়েরা,

সরকার মরিয়া প্রচেষ্টা মুখে। পাকিস্তান বিশ্ব সম্প্রদায়ের সামনে বাংলাদেশে তাদের জবরদস্ত সামরিক দখলদারিত্ব ন্যায্যতা এবং সেখানের গণহত্যা ঢাকতে চায়। আমরা আপনাদের মূল্যয়ন করছি এই সুযোগে। ব্রিটিশ পার্লামেন্টের মাননীয় সদস্য, পরিস্থিতিতে যার অধীনে বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক ও শান্তিপ্রিয় মানুষ তাদের দেশের স্বাধীনতা সুরক্ষিত করার জন্য সশস্ত্র সংগ্রামের পথে চালিত হয়।
২৫  মার্চ, ১৯৭১ পাকিস্তান সামরিক জান্তার মধ্যরাতে,  পাকিস্তানের তথাকথিত সরকার জনগণের গণতান্ত্রিক ইচ্ছা ডিসেম্বর ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনে এই নির্বাচনে মানুষ স্পষ্ট দিয়েছেন প্রকাশ পেশ বাংলাদেশ কঠিনভাবে আওয়ামী লীগকে ম্যান্ডেট লীগের ছয় দফা কর্মসূচির মাধ্যমে পশ্চিম পাকিস্তানের সঙ্গে পূর্ব বাংলার রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক পুনরায় সংজ্ঞায়িত। আওয়ামী লীগ ৩১৩টি হাউসের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে ১৬৯ টি আসন, যা জাতীয় পরিষদে এটা জন্য একটি স্পষ্ট সংখ্যাগরিষ্ঠতা বোঝানো ১৬৭ জিতেছে। আওয়ামী লীগের জনপ্রিয় সফল প্রার্থীরা বাংলাদেশে নিক্ষেপ ভোট ৮0% পেয়েছি।

ইয়াহিয়া খান মধ্য মার্চে একটি রাজনৈতিক নিষ্পত্তির জন্য আওয়ামী লীগ নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে আলোচনা শুরু করেন কিন্তু আসলে শুধুমাত্র বাংলাদেশে পশ্চিম পাকিস্তান থেকে সামরিক প্রস্তুতি এবং সৈন্য প্রেরণের জন্য একটি কভার হিসাবে এই ব্যবহার। এই আলোচনার আশা অবশ্যই একটি ঐক্যবদ্ধ পাকিস্তানের কাঠামোর যা শেখ শেষ মুহূর্তে পাকিস্তান আর্মি তাড়িত পর্যন্ত চেষ্টা, বিশ্বাসঘাতকতা সমসাময়িক ইতিহাসে অতুলনীয় একটি আইন মধ্যে একটি নিষ্পত্তির জন্য উত্থাপিত হয় যখন। বন্দুক, ট্যাংক এবং প্লেন নিরস্ত্র বেসামরিক নাগরিকদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হয়। বাঙালিদের গণহত্যার একটি প্রোগ্রাম চালায়।
শত শত এবং হাজার হাজার মানুষ হত্যা করা হয়েছে, পুলিশ, ইস্ট পাকিস্তান রাইফেলস এর বাংলা সদস্য এবং পুরুষ ও ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের অফিসারদের একটি বীরত্বপূর্ণ প্রতিরোধের, যা পরে পুত্র ও বাংলাদেশ কন্যাগণ হাজার হাজার দ্বারা যোগদান করেন ।
এই পটভূমিতে দেখা যায় এটা পশ্চিম পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত প্রতিরোধ। বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র ১0 এপ্রিল ১৯৭১,জন্মগ্রহণ করে। এটা জনগণের অবিচ্ছেদ্য নিরাপদে বাস করার অধিকার, যা দ্বারা হুমকির সম্মুখীন হয়েছিল তার অনুমোদন আহরিত খারাপ বিশ্বাস ও ২৫ মার্চ রাতে আস্থাশীল  বাঙালির ওপর সামরিক জান্তার গণহত্যা হামলা। পাকিস্তান এখন মৃত এবং লাশের পাহাড়ের নীচে। বাংলাদেশে পাকিস্তানি সৈন্য দ্বারা হাজার হাজার মানুষ হত্যার কারনে পশ্চিম পাকিস্তান এবং তাদের জনগনের সাথে এক অভেদ্য দেয়াল তৈরি হয়েছে। ইয়াহিয়া খান এবং তার জান্তারাই পাকিস্তানের কবর খনন করে।

 

তাদের আদেশেই পশ্চিম পাকিস্তানি সৈন্যরা অমানষিক বর্বরতা এবং ধর্ষণ করে গেছে। পশ্চিম পাকিস্তানী সৈন্যরা তাদের কমান্ডারদের আদেশে সামরিক আইন ভঙ্গ করে এবং হত্যা, ধর্ষণ, লুটতরাজ, অগ্নিসংযোগ ও ধ্বংসের উত্সবে মেতে উঠে যা ইতিহাসে বিরল। বিদেশী সাংবাদিকদের বাংলাদেশ ছাড়তে বাধ্য করা হয় যাতে আন্তর্জাতিক মন্ডলে যুদ্ধের খবর না পৌছায়। কিন্তু কিছু সাংবাদিক তবুও থেকে যায় গনহত্যা এবং অমানবিক নৃশংসতার খবর সংগ্রহের জন্য। করাচি থেকে পাকিস্তানি সাংবাদিক এন্টনি মাসকার্নেহাস এর “দ্যা সানডে টাইমস” মাধ্যমে আমরা পাকিস্তান সেনাবাহিনীর জঘন্যতার খবর জানতে পারি। এইসব জঘন্য আচরন পরিস্কারভাবে নির্দেশ করে দুই জাতি এবং দেশের ধারনা অনেক আগে থেকেই ইয়াহিয়া এবং তার সহযোগীদের মনে ছিল যারা তাদের স্বজাতির সাথেও জঘন্য আচরন করতে দ্বিধা করত না। এইটা একটা অস্বাভাবিক সেনাবাহিনী যারা বাংলাদেশের প্রতি বর্ণবাদী ও ঘৃনাপূর্ন মনোভাব নিয়ে তাদের দমন করতে এবং ক্রীতদাস বানিয়ে রাখতে চেয়েছিল। এইকারনে বাংলাদেশের অবস্থা আমেরিকা সহ অন্যান্য দেশের গৃহযুদ্ধ থেকে সম্পূর্ন আলাদা ছিল। এই ক্ষেত্রে দুটি অংশের একাংশ একজাতির একটা ধারনার এখনও উপর পুনর্মিলন অর্জন করতে পারে ভেবে যুদ্ধ করছিল। জন্মলগ্ন থেকেই পাকিস্তান একটি অস্বাভাবিক দেশ হিসাবে আধুনিক ইতিহাসে অনন্য কারন তার দুটি অংশ আন্তর্জাতিক পরিসীমায় ১০০০ মাইলেরও বেশী দুরে। ভাষাগত ও সাংস্কৃতিকভাবে বাংলাদেশ পশ্চিম পাকিস্তান থেকে সম্পূর্ন আলাদা। 

 

বাংলাদেশের জনগন এসব সত্ত্বেও পাকিস্তানের কাঠামোর মধ্যে থেকে আওয়ামী লীগের ছয় দফা ফর্মুলার ভিত্তিতে স্বায়ত্তশাসন চেয়েছিল। কিন্তু পাকিস্তানের ঐক্য বজায় রাখার জন্য প্রচেষ্টার নামে বাংলাদেশের জনগণের একটি বড় অংশের উপর গণহত্যা চালায়। কোন কিছুই না পাবার একটি অবস্থানে পৌছায়। বাংলাদেশ এখন বিশ্বের মানচিত্রে সার্বভৌম ও স্বাধীন দেশ। ২৫ মার্চের আগেই সকল সম্ভবনা উড়িয়ে দিল বর্বোরচিত আক্রমণ, জনগণের উপর হত্যাকান্ড যাদের একমাত্র পাপ তারা সাংবিধানিক উপায়ে পাকিস্তানের ঔপনিবেশিক অবস্থার একটি পরিবর্তন দাবিতে ছিল।

 

গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের দ্বারা গঠিত হয়েছে যারা বৈধ, আইনি ও নৈতিকভাবে প্রতিনিধিত্ব করে।

 

পশ্চিম পাকিস্তানি সামরিক জান্তা যারা অবৈধ এবং অনৈতিকভাবে বাংলাদেশের শহর দখল করে তারা কখনোই বৈধ সরকার হিসেবে বিবেচিত হতে পারে না।

 

মানুষ ও গণতান্ত্রিক বিশ্বের সরকারদের উচিত ইয়াহিয়া এবং তার সামরিক জান্তার একনায়কতন্ত্রের বিরুদ্ধে দাড়িয়ে বাংলাদেশের গণতন্ত্রের পাশে দাড়ানো। ব্রিটেন, সংসদীয় গণতন্ত্রের জনক অবিলম্বে এ ব্যাপারে কাজ করবে এবং অন্যদের পথ দেখাবে। আমরা আপনাকে ও আপনার মাধ্যমে ব্রিটেন সরকারের কাছে নিম্নলিখিত বিষয়ে অবিলম্বে পদক্ষেপ নিতে আবেদন করছি,

 

১. গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারকে সমর্থন জানানো।

২. শেখ মুজিবুর রহমান সহ বাংলাদেশ এর অন্যান্য রাজনৈতিক বন্দীদের মুক্তিদানে ইসলামাবাদের উপর চাপ প্রয়োগ।

৩. স্বাধীনতা ও গণতন্ত্র রক্ষার জন্য বাংলাদেশে সব ধরনের সাহায্য দান।

৪. পাকিস্তানে সব সাহায্য বন্ধ রাখুন।

৫. পাকিস্তানের সঙ্গে বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বন্ধ রাখুন।

৬. ইয়াহিয়াকে গণহত্যা বন্ধ করতে চাপ প্রয়োগ করুন।

৭. পাকিস্তান সেনা কর্তৃক সংঘটিত গনহত্যা ও ধর্ষণের তদন্ত ও অপরাধীদের শাস্তির জন্য একটি আন্তর্জাতিক বিচার কমিশন প্রতিষ্ঠা করুন।

 

বনগাঁ

২৯ই জুন, ১৯৭১                                                              

 

                                                       আপনার বিশ্বত,

বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গে অবস্থিত

  বাংলাদেশ বুদ্ধিজীবীগণ ।