পূর্ববাংলার নির্যাতন সম্পর্কে পাকিস্তানী দূত আগা হিলালীর বক্তব্য

Posted on Posted in 7

৭.৫২.১১৪ ১১৫

শিরোনামঃ ৫২। পূর্ব বাংলায় নির্যাতন সম্পর্কে পাকিস্তানী দূত আগা হিলালীর বক্তব্য 

সুত্রঃ এ.বি.সি. টিভির সাক্ষাৎকার, ওয়াশিংটন।

উদ্ধৃতিঃ বাংলাদেশ ডকুমেন্টস।

তারিখঃ ১৫ আগস্ট, ১৯৭১

 

পূর্ব বাংলার নির্যাতন সম্পর্কে পাকিস্তানী রাষ্ট্রদূত

আগা হিলালীর বক্তব্য

ওয়াশিংটন এর এ. বি. সি.  টিভি নেটওয়ার্ক এর সাক্ষাৎকার থেকে প্রতিলিপিটি বাছাই কৃত ।

১৫ই আগস্ট, ১৯৭১

 

        জনাব বব ক্লার্ক : আপনি কি স্বীকার করবেন যে আপনার সৈন্যরা অবাধে বেসামরিক জনতার হত্যার জন্য দায়ী ?

        জনাব আগা হিলালী : এমন কিছু হয়ে থাকলে তবে তা খুবই সামান্য।

        জনাব বব ক্লার্ক :খুবই সামান্য !!!

        জনাব আগা হিলালী : খুবই সামান্য,  যদি হয়ে থাকে । কারন আপনি দেখেছেন যখন কেন্দ্রীয় সরকার ঘোষণা করা হয়েছিল তখনই আমাদের বাহিনীর সশস্ত্র আক্রমণের সম্মুখীন হতে হয়েছিল; প্রায় একশ ষাট হাজার সশস্ত্র কর্মী যারা আওয়ামীলীগের জন্য প্রচারণা করছিল তাদের প্রতিহত করার জন্য কেন্দ্রীয় সরকার সৈন্যদের প্রেরণ করেছিল।

২৫ শে মার্চে এই একশ ষাট হাজার সশস্ত্র জনগণকে প্রতিহত করার জন্য সেনাবাহিনীকে বলা হয়েছিল। এখন তারা কিভাবে এটা করবে?  তাদের অবশ্যই শক্তি প্রয়োগ করতে হয়েছিল। আর এই শক্তি প্রয়োগকালে বেশ কিছু বেসামরিক জনতা গুলি বিনিময়ের মাঝে হতাহত হয়।  কিন্তু সামান্য কিছু বেসামরিক জনতার নিহত হবার ঘটনাটি সম্পূর্ণই সেনাবাহিনীর অনিচ্ছায় ঘটে। নিরস্ত্র জনতার বিরুদ্ধে সেনাবাহিনী যুদ্ধ ঘোষণা করেনি।

        জনাব বব ক্লার্ক : জনাব রাষ্ট্রদূত বিভিন্ন উৎস থেকে এই হত্যাযজ্ঞ বিষয়ে বিশদ আকারে প্রতিবেদন এসেছে – বিদেশী কূটনৈতিক, ধর্ম প্রচারক, সাংবাদিক যারা ঐ সময় ঘটনাস্থলে ছিল- তাদের প্রতিবেদন কি পাকিস্তান থেকে গণহারে বের হয়ে যাওয়া শরণার্থীদের বক্তব্যের বিশ্বস্ততাকেই সমর্থন করে না?

        জনাব আগা হিলালী : বৈদেশিক কূটনৈতিকরা ঢাকার কোথাও এই মাত্রার হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়েছে দেখতে পায়নি।

 

        জনাব টেড কোপেল : জনাব রাষ্ট্রদূত,যথোচিত সম্মানের সাথে বলছি ,আমি মার্চের সময় ঢাকাতে ছিলাম এবং যখন আক্রমন শুরু হয় তখন আমাকে অভ্যন্তরে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়নি, ২৫ শে মার্চ  রাতে গুরুতর নির্যাতনের প্রমান আমরা দেখেছি, বেসামরিক লোকের বিরুদ্ধে ট্যাঙ্ক ব্যাবহার করা হয়েছিল , বিশ্ববিদ্যালয়ের উপর ভারি কামান থেকে গোলাবর্ষণ করা হয়েছিল। আমার মনে হয় না এতো দৃষ্টান্তের পরও আপনি দাবী করবেন যে এটা কেবলমাত্র ইস্ট বেঙ্গল রাইফেলসের বিরুদ্ধে পশ্চিম পাকিস্তানী সৈন্যর লড়াই ছিল। ওখানে বেসামরিক লোক হত্যা করা হয়েছিল এবং তাদেরকে যখন হত্যা করা হয়েছিল তক্ষণ তাদের অক্রমণ প্রতিহত করার সুযোগও ছিল না।

        জনাব আগা হিলালী : হ্যাঁ, আমি বলিনি যে কোন বেসামরিক লোক হতাহত হয়নি।

গ্রামও ধ্বংস করা হয়নি। কিছু বাড়িঘর পোড়ান হয়েছে এবং ধ্বংস হয়েছে…………।।

        জনাব বব ক্লার্ক : প্রতিবেদনের দৃশ্য থেকে দেখা যায় যে সম্পূর্ণ গ্রাম ব্যাপকভাবে ধ্বংস করা হয়েছে।

        জনাব আগা হিলালী :দেখুন, আপনাদের সাথে আমরা ঘটনাটি ভিন্নভাবে দেখছি। এটা এতো ব্যাপক নয় যে পুনর্নির্মাণ করা যাবে না। কিছু নিশ্চিত ধ্বংস হয়েছে । কিন্তু তা ঐ মাত্রার নয় যা আমাদের পুনর্নির্মাণের ক্ষমতার বাইরে এবং আমরা শরণার্থীদেরও পুনর্বাসিত করতে পারব।