প্রবাসী বাঙালীদের প্রতি আমেরিকাস্থ ইস্ট পাকিস্তান লীগ সভাপতির বক্তব্য

Posted on Posted in 4

<৪,১৩৫,২৪৯-২৫০>

অনুবাদকঃ দিব্য কান্তি দত্ত

শিরোনামসূত্রতারিখ
১৩৫। প্রবাসী বাঙালীদের প্রতি আমেরিকাস্থ ইস্ট পাকিস্তান লীগ সভাপতির বক্তব্যবাংলাদেশ লীগ অব আমেরিকার দলিলপত্র৩ মে, ১৯৭১

 

আমেরিকাস্থ পূর্ব পাকিস্তান লীগ, ইনক.

২৬৬৭ ব্রডওয়ে, নিউ ইয়র্ক, এন. ওয়াই. ১০০২৫।

৩ মে, ১৯৭১

প্রিয় বন্ধু,

   আপনি সম্ভবত ইতোমধ্যে অবগত হয়েছেন যে, বাংলাদেশের জাতীয় নেতাদের সাথে সাক্ষাত এবং সেখানকার বর্তমান অবস্থার ওপর সরাসরি পর্যবেক্ষণের জন্য ‘আমেরিকাস্থ পূর্ব পাকিস্তান লীগ, নিউ ইয়র্ক’ থেকে দুজন প্রতিনিধি পাঠানো হয়েছে। তাদের ভিতর একজন প্রতিনিধি, জনাব মাহবুব হুসাইন বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশনা নিয়ে মাত্রই ফিরে এসেছেন। জনাব হুসাইন গতকালের দলীয় সভার ওপর একটি বিস্তারিত প্রতিবেদন পেশ করেছেন। জনাব হুসাইন উল্লেখ করেছেন যে, দেশটি গেরিলা কৌশলে পারদর্শী হয়ে উঠছে এবং বর্তমানে দেশের একটি বড় এলাকা স্বাধীনতাকামী সৈন্যদলের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তিনি আরও উল্লেখ করেন যে, শত্রুপক্ষের সৈন্যদল দূর থেকে ভারী গোলাবর্ষণ, এলাকাভিত্তিক গোলাবর্ষণ ও বোমাবাজির পন্থা অবলম্বন করছে।এর ফলে অসহায় বাঙালী শরণার্থীর সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে চলেছে এবং ১৯৭১ সালের এপ্রিলের শেষ নাগাদ প্রায় ২৫ লক্ষ বাঙালী শরণার্থী সীমানা পেরিয়ে ভারতে অবস্থান নিয়েছে। শত্রুপক্ষকে উচ্ছেদ করার লক্ষ্যে গেরিলা আক্রমণ অব্যাহত রাখার জন্য বাংলাদেশ সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

 

সরকার পাকিস্তানের সাবেক সরকারী চাকুরীজীবি এবং অন্যান্য কর্মকর্তাদের নিয়ে কেন্দ্রীয় সচিব দফতর গঠন করেছে। জাতীয় এবং প্রাদেশিক সংসদের সদস্য, শিক্ষক এবং ছাত্রনেতাদের নিয়ে জনাব মিজানুর রহমান চৌধুরীর নেতৃত্বে মুক্তি ফৌজ (স্বাধীনতাকামী সৈন্যদল) এর প্রশিক্ষণ এবং প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সরবরাহের কাজটি সমন্বয়ের জন্য একটি উচ্চ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা গঠন করা হয়েছে। আমরা আমাদের চূড়ান্ত বিজয়ের ব্যাপারে নিশ্চিত এবং আমরা বাংলাদেশ সরকারকে নিরবচ্ছিন্নভাবে সহায়তা করার প্রস্তাব দিচ্ছি।

 

আমরা ২২ এপ্রিল, ১৯৭১ তারিখে পররাষ্ট্র মন্ত্রী খন্দকার মুস্তাক আহমেদের কাছ থেকে পাওয়া একটি চিঠির প্রতিলিপি আপনার প্রয়োজনীয় তথ্যের জন্য সংযুক্ত করছি। পররাষ্ট্র মন্ত্রী দলটিকে আমেরিকায় অবস্থানকারী বাংলাদেশীদের সংঘবদ্ধ করার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন এবং আমাদের অর্থসাহায্য ও খাদ্য, ওষুধ ইত্যাদি ত্রাণ সংগ্রহ, সমন্বয় এবং সরবরাহের জন্য অনুমোদন দিয়েছেন।

 

আমরা আপনাকে অবগত করার সুযোগ পেয়ে খুশি যে, বাংলাদেশ সরকার নিউ ইয়র্কে পাকিস্তানের সাবেক সহকারী উপদেষ্টা জনাব এ, এইচ, মাহমুদ আলীকে অত্র এলাকায় বাংলাদেশ মিশন স্থাপনের অনুমোদন দিয়েছেন। জনাব আলী বর্তমানে মিশন প্রতিষ্ঠা নিয়ে ব্যস্ত।

 

বাংলাদেশ সরকার কূটনৈতিক্, টেলিযোগাযোগ, মুক্তিযুদ্ধ, গণমাধ্যম এবং সম্প্রচার ইত্যাদি ক্ষেত্রে দক্ষ লোকবল সরবরাহের জন্য অনুরোধ করেছে।

 

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদের বিশেষ জরুরী মন্তব্য আমাদের অফিস থেকে অর্থসাহায্যের বিনিময়ে সরবরাহ করা হচ্ছে।

 

জয় বাংলা!

 

আপনার একান্ত  

এসডি      

(কাজী এস, আহমেদ)

সভাপতি