বাংলাদেশের ওপর পাকিস্তানী সৈন্যের আক্রমণের উদ্যেগ প্রকাশ করে ভারতের লোকসভার প্রস্তাব

Posted on Posted in 12
শিরোনামসূত্রতারিখ
১। বাংলাদেশের ওপর পাকিস্তানী সৈন্যের আক্রমণে উদ্বেগ প্রকাশ করে ভারতের লোকসভার প্রস্তাববাংলাদেশ ডকুমেন্টস – ১ম খণ্ড (পররাষ্ট্র দপ্তর প্রকাশিত)৩১ মার্চ, ১৯৭১

 

Razibul Bari Palash

<১২, ১, ১>

 

পার্লামেন্টে ৩১ মার্চ ১৯৭১ ভারতের প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাবিত রেজোল্যুশন থেকে

 

“পূর্ববঙ্গে সৃষ্ট সাম্প্রতিক অবস্থায় এই হাউজ গভীর ক্ষোভ ও উদ্বেগ প্রকাশ করছে। পশ্চিম পাকিস্তান থেকে পাঠানো সশস্ত্র বাহিনীর ব্যাপক হামলায় পূর্ব বাংলার সমগ্র জনগণের উপর দুর্যোগ নেমে এসেছে। তাদের ইচ্ছা ও দাবির বিরুদ্ধে সেখানে চলছে নানারকম কর্মকান্ড।

 

ডিসেম্বর ১৯৭০ সালে পাকিস্তানের নির্বাচনের মাধ্যমে মানুষ তাদের ইচ্ছা প্রকাশ করলেও সেটাকে সম্মান দেখানোর পরিবর্তে পাকিস্তান সরকার জনগণের ম্যান্ডেট  এর সাথে বিদ্রুপ করছেন।

 

পাকিস্তান সরকার আইনত নির্বাচিত প্রতিনিধিদের অস্বীকার করেছে। শুধুমাত্র তাই নয় তারা বিনা কারণে জাতীয় পরিষদের অধিবেশন বাতিল করেছে। এতে ঐ প্রতিনিধিদরা তাদের ন্যায়সঙ্গত এবং সার্বভৌম ভূমিকা রাখা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। পূর্ববাংলার জনগণের উপর চলছে শক্তির নগ্ন ব্যবহার। বেয়নেটের খোঁচায়, মেশিনগান, ট্যাংক, কামান ও বিমান দিয়ে তাদের দমন করা হচ্ছে।

 

ভারতের সরকার ও জনগণ সবসময় পাকিস্তানের সঙ্গে শান্তিপূর্ণ স্বাভাবিক এবং ভ্রাতৃসুলভ সম্পর্ক বজায় রাখতে চেয়েছে। ভারত উপ-মহাদেশের মানুষ শতাব্দীকালব্যাপী ইতিহাস, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের পুরনো বন্ধনে আবদ্ধ। এই হাউস আমাদের সীমান্তের কাছে ঘটতে থাকা কর্মকান্ড নিয়ে উদাসীন থাকতে পারেনা। আমাদের দেশের সমস্ত এলাকা জুড়ে সকল মানুষ সেখানকার নিরস্ত্র ও নিরীহ জনগণের ওপর নজিরবিহীন নৃশংসতার বিরুদ্ধে নিন্দা জ্ঞ্যাপন করছে।

 

এই হাউস পূর্ববাংলার জনগণের গণতান্ত্রিক জীবনসংগ্রামের সাথে গভীর মমত্ব ও সংহতি প্রকাশ করছে।

শান্তি প্রতিষ্ঠার শাশ্বত অভিপ্রায়ে ভারত মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা ও প্রতিরক্ষায় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। এই হাউজ অনতিবিলম্বে শক্তি প্রয়োগ করে অসহায় মানুষের উপর নিপীড়ন বন্ধের দাবি জানাচ্ছে। এই হাউজ পৃথিবীর সব দেশ ও তাঁর জনগণের কাছে এমন একটি গঠনমূলক পদক্ষেপ নেয়ার ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষন করছে যাতে তারা পাকিস্তান সরকারকে গণহত্যা বন্ধ করার ব্যাপারটি বোঝাতে সক্ষম হন।

 

এই হাউস গভীরভাবে বিশ্বাস করে পূর্ব বাংলার সাড়ে সাত কোটি মানুষের গণঅভ্যুত্থানের ঐতিহাসিক বিজয় হবে। হাউস তাদের আশ্বাস দিচ্ছে যে তাদের সংগ্রাম ও উতসর্গের পথে ভারতের জনগণের সহানুভূতি ও সমর্থন পাবেন।

 

বাংলাদেশের ঘটনাবলী সম্পর্কে ভারতের প্রথম প্রতিক্রিয়া ২৭ মার্চের লোকসভা ও রাজ্যসভার কার্যবিবরণীতে দ্রষ্টব্য।