বাংলাদেশের সংগ্রামের সমর্থনে আয়োজিত সমাবেশের বিজ্ঞপ্তিসহ মার্কিন জনগণের প্রতি সাহায্যের আবেদন

Posted on Posted in 4

<৪,১৫০,২৮১-২৮২>

অনুবাদকঃ ফাহমিদা আক্তার বৃষ্টি

শিরোনামসূত্রতারিখ
১৫০। বাংলাদেশের সংগ্রামের সমর্থনে আয়োজিত সমাবেশের বিজ্ঞপ্তিসহ মার্কিন জনগণের প্রতি সাহায্যের আবেদন“সেভ ইস্ট বেঙ্গল কমিটির” প্রচারপত্র৮ জুন, ১৯৭১

 

হত্যাকাণ্ড    –     গণহত্যা    –      রক্তগঙ্গা      –        আতঙ্ক

এবং এখন অনাহার

সবকিছুই একটি খেলার অংশ

পূর্ব-পাকিস্তানের শোকাবহ ঘটনা

(বাংলাদেশ)

যুদ্ধ, বন্যা, ঘূর্ণিঝড়সহ চলমান খাদ্য ঘাটতির কারণে তৈরি হওয়া ধ্বংস ও উৎখাতের ফলে সাড়ে সাত কোটি পূর্ব-পাকিস্তানি বাসিন্দাদের মধ্যে ১ থেকে ৩ কোটি মানুষ আগামী কয়েক মাসের মধ্যে অনাহারের সম্মুখীন হবে। একটি সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের বিয়োগান্তক পরিণতি ঠেকাতে হলে পশ্চিম পাকিস্তানি মুখপাত্রদের অমায়িক আশ্বাসের বিপরীতে এই প্রশ্নাতীতভাবে মরিয়া পরিস্থিতিতে এখন একটি বড় মাপের আন্তর্জাতিক ত্রাণ উদ্যোগের প্রয়োজন হবে। 

      অবস্থা স্বাভাবিক হতে যে কয় মাস প্রয়োজন, তা হয়তো মজুতকৃত খাদ্য দিয়ে জনসংখ্যাকে ধরে রাখতে পারার সময় অতিক্রম করে ফেলবে। যে কারণগুলো গণ দুর্ভিক্ষ চালিত করে সেগুলো একটি নির্দিষ্ট সীমার পর অপরিবর্তনীয়। যখন  অনাহারী পরিবারগুলোর প্রথম কাহিনী এবং ছবি ছাপা হবে, তখন এমন আরো হাজার পরিবারকে রক্ষা করবার জন্য অনেক দেরি হয়ে যাবে। তাৎক্ষণিক এবং শক্তিশালী আন্তর্জাতিক ভূমিকাই সম্ভবত একমাত্র প্রতিরক্ষা, যা পূর্ব বাঙলার জণগনের জন্য এখন আছে।

                               _________________

      ১২ই মে, পাকিস্তান রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া খান জাতিসংঘ মহাসচিবের পূর্ব-পাকিস্তানকে দেওয়া সহায়তার প্রস্তাব প্রত্যাখান করে।

      ইতিহাসের সবচেয়ে বড় রক্তগঙ্গাটি বইয়ে দেয়ার পর, তিনি এখন প্রতিরোধকারীদের অনাহারে মেরে ফেলার পরিকল্পনা করছেন।

     নভেম্বরে ছিলো এক ঘূর্ণিঝড় যা অনেক প্রাণ নষ্ট করেছিল। এর কারণ ছিলো প্রকৃতি। মার্চে বাংলাদেশ আরেকটি আক্রমণের শিকার হয়েছিলো, পরিকল্পিতভাবে দেশটির যুবসমাজ, বুদ্ধিজীবী এবং লাখো অসহায় মানুষকে শেষ করে দিচ্ছিলো। এর মূল হোতা ইয়াহিয়া খান।

                            ______________________

        বাংলাদেশের প্রয়োজন আমাদের সাহায্য সমাবেশ: শনিবার, জুন ১২

সাক্ষাৎ করুন পাকিস্তান দূতাবাসের সাথে ২ ই/ ৬৫ স্ট্রিট, কলাম্বাস সার্কেল প্রাঙ্গণে, অতঃপর ম্যাডিসন এভিনিউ; ৪২ স্ট্রিট ইউএন প্লাজার ফার্স্ট এভিনিউ, এবং স্ট্রিট ৪৭.

        বক্তাগণ: কংগ্রেস সদস্যবৃন্দ এবং অন্যান্য প্রধান নাগরিকগণ।

        বাংলাদেশের প্রয়োজন আপনাদের সাহায্য বৈঠক:

      বৃহস্পতিবার, জুন ১০,রাত দশটা, কমিউনিটি চার্চ, ৪০ই/ ৩৫ স্ট্রিট

        বক্তা: জয়প্রকাশ নারায়ণ

        বিষয়: বাংলাদেশে সংগ্রামের নৈতিক ও মানবিক দিক

আপনার কংগ্রেস সদস্য, সিনেটর এবং সভাপতির নিকট লিখুন বাংলাদেশকে সাহায্য করতে। অনুরোধ করুন পাকিস্তানকে সামরিক ও আর্থিক সহায়তা দেওয়া স্থগিতকরণের, যতোক্ষণ না বাংলাদেশের ভীত-সন্ত্রস্ত ও অনাহারি জনগণ মুক্তি ও স্বাধীনতা পায়।

    আপনাদের আর্থিক সহায়তা পূর্ব-পাকিস্তানকে সাহায্য করবে। এটি হবে করবিহীন। দয়া করে পূর্ব-পাকিস্তানের আমেরিকান লীগের নিকট প্রদানযোগ্য চেক সম্পাদন করুন। আপনার নাম ও ঠিকানাসহ মেইল করুন: সেইভ ইস্ট বেঙ্গল কমিটি ৩জে, ৫০ কেনিলওর্থ প্লেস, ব্রুকলিন, নিউ ইয়র্ক, এন. ওয়াই. ১১২১০.