বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব বৃটিশ কলম্বিয়া কর্মকর্তার কাছে লিখিত মার্কিন সিনেটরদের চিঠি

Posted on Posted in 4

<৪,১৬৮,৩৩২-৩৩৩>

অনুবাদকঃ নাজিয়া বিনতে রউফ

শিরোনামসূত্রতারিখ
১৬৮। বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব বৃটিশ কলম্বিয়া কর্মকর্তার কাছে লিখিত মার্কিন সিনেটরদের চিঠিমার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিনেট৪-৭ অক্টোবর, ১৯৭১

 

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিনেট

শ্রম ও জনকল্যাণ কমিটি

ওয়াশিংটন, ডি.সি. ২০৫১০

ড. এ.এম. খান

সাধারণ সম্পাদক,

বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব ব্রিটিশ কলম্বিয়া

৯০৫-৫৫০ পশ্চিম ১২তম এভিনিউ

ভ্যাঙ্কুভার ৯, বি.সি., কানাডা

৪ঠা অক্টোবর,১৯৭১
প্রিয় ড. খান,

 পূর্ব পাকিস্তানের পরিস্থিতি সম্পর্কিত আপনার সাম্প্রতিক চিঠির জন্যে ধন্যবাদ।

 আমি পূর্ব পাকিস্তানে চলমান দ্বন্দ্বের ব্যাপারে আপনার মতই উদ্বিগ্ন। আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে আমাদের অবশ্যই এই যুদ্ধ-বিগ্রহ থামানোর জন্য ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে এবং একটি রাজনৈতিক সমাধানকে তরান্বিত করতে হবে। এই লক্ষ্য অর্জনের জন্যে আমি এস.কন.রেস.২১ এবং পররাষ্ট্র সহায়তা আইনের ১৫৯তম সংশোধনী বিলের সহ-পৃষ্টপোষক হিসেবে কাজ করছি। আমি সাম্প্রতিক একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তির কপি যুক্ত করছি যা এই বিষয়ে আমার মতামত সম্পূর্ণরুপে ব্যাখ্যা করছে।

 আন্তরিক শুভেচ্ছাসহ,

 আপনার অনুগত,

এসডি/-

গ্লেন বিয়েল, জুনিয়র

   

ড. এ.এম. খান

বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব ব্রিটিশ কলম্বিয়া

৯০৫-৫৫০ পশ্চিম ১২তম এভিনিউ

ভ্যাঙ্কুভার ৯, বি.সি., কানাডা

 

 

 

৬ই অক্টোবর,১৯৭১

প্রিয় ড. খান,

 পাকিস্তানে সাম্প্রতিক রক্তারক্তির ঘটনায় আমি আপনার মতোই ভয়ার্ত ও আতঙ্কিত এবং আমি করাচি সরকারকে অস্ত্র সহায়তা কমানোর ব্যাপারে আইন সমর্থন করবো বলে ঠিক করেছি।

 মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র সাহায্য এর প্রাপকরা প্রায়শই কতটা ঘৃণ্য অপব্যবহার করে তার আরো একটি উদাহরণ এটি। বন্ধুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রকে সম্ভাব্য কমিউনিস্ট আগ্রাসন থেকে আত্নরক্ষায় সাহায্য করার সুস্পষ্ট উদ্দেশ্যে আমরা যে অস্ত্র প্রদান করে থাকি, সেগুলো শেষ পর্যন্ত অভ্যন্তরীণ অসন্তুষ্টিকে মাটিচাপা দেয়ার কাজে ব্যবহৃত হয় যেমনটা কয়েক বছর আগের পাক-ভারত সীমান্ত যুদ্ধের সময়, শত্রুভাবাপন্ন প্রতিবেশীদের সাথে পুরোনো হিসাব চুকাতে ব্যবহৃত হয়।

 আমাদের সমস্ত অস্ত্র সহায়তা কর্মসূচী পুনর্বিবেচনার প্রয়োজন এবং আমি এক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করব বলে ঠিক করেছি।

 আপনাকে ধন্যবাদ আপনার গভীর উদ্বেগ আমার কাছে প্রকাশ করার জন্যে।

 

 বিনীত

এসডি/-

ভেন্স হার্টকি

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটর

   

 

৩.

ডক্টর এ.এম. খান, সাধারণ সম্পাদক

বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব বৃটিশ কলম্বিয়া

৯০৫-৫৫০ পশ্চিম ১২তম এভিনিউ

ভ্যাঙ্কুভার ৯, বৃটিশ কলম্বিয়া কানাডা

৭ই অক্টোবর, ১৯৭১

 

প্রিয় ডক্টর খান,

 পাকিস্তানে দুর্যোগপূর্ণ পরিস্থিতির ব্যাপারে আপনার চিঠির জন্যে ধন্যবাদ।

 পূর্ব পাকিস্তানে যুদ্ধের ফলস্বরুপ সকল আমেরিকানই গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। এটা স্পষ্ট যে জীবন ও সম্পদের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ অত্যন্ত ব্যাপক। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সরকার বারবার বলেছে যে, সাম্প্রতিক ঘটনাবলীর কারণে সৃষ্ট দুর্ভোগ লাঘব করতে যেকোন আন্তর্জাতিক মানবিক প্রচেষ্টাকে সাহায্য করতে এরা প্রস্তুত।

 সাম্প্রতিক অনেক প্রতিবেদনের বিপরীতে, মার্কিন পররাষ্ট্র বিভাগ দাবী করছে যে আমরা বর্তমানে পাকিস্তানকে কোন ধরণের বৃহদাকার সামরিক সাহায্য প্রদান কর্মসূচী পালন করছি না। সীমিত পরিমানে একটি সরবরাহ পাঠানো হয়েছিল কিন্তু পররাষ্ট্র বিভাগ আমাকে জানিয়েছে যে বর্তমান পরিস্থিতির উপর পর্যালোচনা মূলতবি থাকা অবস্থায় আর কোন সরঞ্জাম পাঠানো হবে না।

 এই গুরুতর পরিস্থিতির ব্যাপারে আপনার মতামত জানার সুযোগ পেয়ে আমি আনন্দিত। আপনি নিশ্চিন্তে থাকতে পারেন আপনি যে চিন্তা প্রকাশ করেছেন তা মাথায় রেখে এই ব্যাপারে ভবিষ্যত অগ্রগতিসমূহ আমি ঘনিষ্টভাবে পর্যবেক্ষণ করব।

 

আপনার অনুগত

এসডি/-

জোয়েন জি. টাওয়ার