বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী সদর দপ্তর প্রকাশিত যুদ্ধ ইস্তেহার

Posted on Posted in 11
শিরোনামসূত্রতারিখ
৪। বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী সদর দপ্তর প্রকাশিত যুদ্ধ ইস্তেহারবাংলাদেশ আর্কাইভস, মুজিবনগরআগস্ট-ডিসেম্বর,

১৯৭১

 

 

ট্রান্সলেটেড বাইঃ Razibul Bari Palash

<১১, ৪, ৫০-১৭৪>

 

বাংলাদেশ বাহিনীর সদর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগে

আগস্ট ১৫, ১৯৭১

 

১। পাক বাহিনী, রাজাকার এবং তাদের বেসামরিক এজেন্টদের উপর মুক্তিবাহিনীর তীব্রতর কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। বাংলাদেশ এলাকার মধ্যে তাদের প্রচারণা-সেতু, টেলিফোন লাইন, পাওয়ার সাপ্লাই ধ্বংস, রেল লাইনের অপসারণ, পাকবাহিনীর যোগাযোগ ব্যাহত করার কাজ সারা বছর চলছে।

 

২। ১৪ আগস্ট রিপোর্ট অনুযায়ী জানা যায় যে বিভিন্ন সেক্টরে ৩১৪ পাকসৈন্য নিহত ও ৭৩ জন আহত হয়েছে মুক্তিবাহিনীর একশনে। মুক্তিবাহিনী ৫০ জন রাজাকার নিহত ও ৮ জনকে গ্রেপ্তার করে। কমপক্ষে ১৩ জনসহযোগিতাকারিও নিহত হয়। তারা ৪২ রকম বিভিন্ন ধরনের অস্ত্র দখল করে। পাক বাহিনী দ্বারা ব্যবহৃত ৫ টি গাড়ি তারা ধ্বংস করে। এছাড়া তারা ৫টি সড়ক সেতু, ৫টি রেল সেতু, ৫টি বৈদ্যুতিক পাইলন এবং ৫ স্থানে বৈদ্যুতিক সাবস্টেশন, অপসারিত রেললাইন ধ্বংস এবং অধিকৃত এলাকার ৫ জায়গায় টেলিফোন লাইন ধ্বংস করে। তারা সিলেট জেলার দিরাই এলাকার কাছাকাছি ২১ জনের একটি ডাকাত দলকে হানা দেয় এবং তাদের সবাইকে হত্যা করে। তারা ১ টি এলএমজি, ৮ টি রাইফেল, ২১ টি শট বন্দুক, ৪ টি গ্রেনেড ও গোলাবারুদের একটি বৃহৎ পরিমাণ জব্দ করে। স্থানীয় মানুষ তাদের কার্যক্রমে নিশ্চিন্ত ও নির্ভার ছিল। ঢাকা শহরের মধ্যে তারা একটি চেকপোস্ট করে এবং ৫ জন পাকসেনাকে হত্যা করে। এছাড়া মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর একটি জিপ মাইনে ধ্বংস করে।

 

আরও বিস্তারিত বর্ণনা নিচে দেওয়া হল:-

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

 

৮ আগস্ট মুক্তিবাহিনী বাদলগাছিতে তিনটি বিদ্যুৎ পাইলন ধ্বংস করে।

 

পত্নীতলা-মহাদেবপুরে এক পাক গাড়ির মাইন বিস্ফোরণের ছয় পাকসৈন্য নিহত ও তিন জন আহত হয়। বগুড়া এলাকায় ১১ জুলাই থেকে ১৮ আগস্ট এর মধ্যে গেরিলা হামলা চালায়।

 

তারা বগুড়া ও গাবতলীর মধ্যে রেলসেতু ক্ষতিগ্রস্থ করে। তারা শীকরকান্দি পুলিশ স্টেশনে আক্রমণ করে এক অফিসার এবং ৪ রক্ষির প্রাণনাশ করে। দুই সেনা ট্রাক মাইনে বিস্ফোরিত হয়। বগুড়া-রংপুর রোডে আলিতলায় তারা হ্যান্ড গ্রেনেড বিস্ফোরণ করে পেট্রোল পাম্প ধ্বংস করে। সোনাতলায় মাইনে একটি মাল ভর্তি ওয়াগন বিস্ফোরিত হয়।

 

২৪ জুলাই থেকে ৩০ জুলাই এর মধ্যে মুক্তিবাহিনী বগুড়ায় অনেক গেরিলা আক্রমণ করে। বগুড়া গাবতলি সড়কে আর্মি জিপে তারা গ্রেনেড নিক্ষেপ করে এবং ২ জন পুলিশ কনস্টেবল ও চার পাক সমর্থকদের হত্যা করে। ১০ আগস্টে তারা মাছক্ষরিয়ার তিন বিশিষ্ট জামাত নেতাদের হত্যা করে।

 

৯ আগস্ট মুক্তিবাহিনী দানিয়ারিতে দুই পাকসেনা হত্যা করে এবং একজনকে আহত হয়।

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর

৯ আগস্ট মুক্তিবাহিনী শ্যামনগর রাজাকার দপ্তরে আক্রমণ করে একজন বিখ্যাত রাজাকার জনাব মাওলানা আবদুল সাত্তার রাজাকারসহ তিনজন রাজাকারকে হত্যা হয়। তারা ৩ রাজাকারকেও গ্রেফতার করে এবং দুটি রাইফেল জব্দ করে।

 

১১ আগস্ট চন্দরবাসে মুক্তিবাহিনী রাইফেল ও গোলাবারুদসহ ৫ জন রাজাকার বন্দী করে। একই দল জবানাথপুরে অ্যামবুশ করে ৩ পাকসৈন্য ও তিন রাজাকার হত্যা করে।

 

১০ আগস্ট তারা গোদাগাড়ীতে ১ জন পিস কমিটির সদস্যকে হত্যা করে।

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর

 

১০ আগস্ট মুক্তিবাহিনী মরভাতালি এলাকায় পাক বাহিনীর সাথে গুলি বিনিময় করে এবং ৫ পাকসেনা নিহত হয়।

 

১২ আগস্ট তারা মন্দভাগ বাজারে আক্রমণ করে ৫৫ পাকসেনাকে হত্যা করে।

 

৫ আগস্ট মুক্তিবাহিনী সাতকানিয়া কলেজ এলাকায় পাক বাহিনীর উপর অভিযান চালায় যেখানে পাক বাহিনীর ৪০ জন হতাহত হয়েছে।

 

৩ আগস্ট তারা একজন বিশিষ্ট পাকসহযোগী মোঃ আব্দুল কুয়াইরকে হত্যা করে-তিনি প্রিন্সিপাল ছিলেন সাতকানিয়া কলেজের। তারা একই এলাকায় একটি সড়ক সেতু ধ্বংস করে।

 

আগস্ট মাসের প্রথম সপ্তাহে তারা পটিয়া এলাকায় ১০ পাকসহযোগীরা হত্যা করে।

 

৫ আগস্ট তারা মেহাব বাজারে মধ্যে সেতু ধ্বংস করে। তারা একই এলাকায় একটি ক্যাম্পে অভিযান চালায় এবং ৩ জন পাকসেনাকে হত্যা করে এবং পাঁচ জন আহত হয়।

 

৯ আগস্ট মুক্তিবাহিনী কোতেশর পাক অবস্থানের উপর মর্টার দিয়ে আক্রমণ করে এবং ৬ জনকে হত্যা করে।

 

৭ আগস্ট তারা হরিমঙ্গলে ২ পাকসেনাকে হত্যা করে ও ৩ জনকে আহত হয়।

 

৭ অগাস্ট তারা কসবা এলাকায় ৩ জন পাকসেনাকে হত্যা করে।

 

৯ আগস্ট বিজয় নগরে ৯ রাজাকার হত্যা এবং তিন জনকে আহত হয়।

 

২১ জুলাই বোয়ালিয়া গ্রামে এক বিশিষ্ট শান্তি কমিটির সদস্যকে হত্যা করে।

 

৯ অগাস্ট কামাল্পুরে ৩ জন পাকসৈন্য হত্যা করে।

 

২ আগস্ট মুক্তিবাহিনী দুটি টেলিফোনের খুঁটি ভেঙ্গে ও টেলিফোন লাইন বিচ্ছিন্ন করে। ভৈরববাজার এবং ঢাকার মধ্যে বিভিন্ন জায়গায় এ (রেল এবং সিভিল) কার্যক্রম চালায়।

 

২৬ জুলাই তারা নারায়াণঙ্গঞ্জ এলাকায় রেলসেতু ধ্বংস করে।

 

১২ জুলাই তারা গদনাইলে যন্ত্রপাতি ও বিল্ডিং বা বৈদ্যুতিক সাব স্টেশন ধ্বংস করে। এর জন্য কাছাকাছি মিলের পাওয়ার সাপ্লাই বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

 

৪ আগস্ট তারা গদনাইলে পাট গুদামএ আগুণ দ্যায়। প্রায় তিন মণ পাট পুড়ে যায়। গুদামঘর বিল্ডিং পুড়ে যায়।

 

৩০ জুলাই ও ৫ আগস্টএর মধ্যে মুক্তিবাহিনী ঢাকার চারপাশে নিম্নলিখিত গেরিলা কার্যক্রম সম্পন্ন করে। তারা সড়ক সেতু ও এই এলাকায় দুটি রেল সেতু ধ্বংস করে। একটি গাড়ী মাইনে মিরপুর-ঢাকা রোডে বিস্ফোরিত হয়। ঢাকার পাক চেক পোস্টে আক্রমণ করে ৫ পাকসৈন্য নিহত ও চার জন আহত হয়। তারা ঢাকায় পাকসেনাদের প্রতিষ্ঠিত ২ টি দোকান আক্রমণ করে এবং এতে এক ব্যক্তি আহত হয়। ৩০ জুলাই আশুগঞ্জ প্রধান গ্রিড লাইনের বাংকা শিবপুর থানায় ২ টি বৈদ্যুতিক পাইলন ধ্বংস করে। এতে ঢাকা-আশুগঞ্জ মধ্যে ইলেকট্রিকসাপ্লাই দরুন ব্যাহত হয়। একই দল একই এলাকায় ১০০০কেভি গ্রিড লাইন ধ্বংস করে।

 

 

ময়মনসিংহসিলেটমৌলভীবাজার সেক্টর

 

 

১০ আগস্ট মুক্তিবাহিনী শ্রীমঙ্গল এবং কোমল গঞ্জের মধ্যে তিনটি স্থানে রেললাইন উপড়ে ফেলে।

 

১০ আগস্ট তারা কালীঘাট-মতিগঞ্জ রাস্তার উপর একটি সড়ক সেতু ধ্বংস করে।

 

৯ আগস্ট আলীনগর এক রাজাকার হত্যা করে।

 

১০ অগাস্ট কানাইঘাট এলাকায় পাক বাহিনীর সাথে গুলি বিনিময় ও এক পাকসেনা হত্যা করে।

 

৮ আগস্ট চরখারি-গোপালগঞ্জ এর মধ্যে টেলিফোন লাইন ধ্বংস করে। একই এলাকায় ২ জন রাজাকার হত্যা করে।

 

১১ আগস্ট সমশের নগরের কাছাকাছি একটি সড়ক সেতু ধ্বংস করে

 

১১ আগস্ট সুরমা নদী এলাকায় অ্যামবুশে পাক স্কাউট এবং রাজাকারদের আক্রমণ করে। এবং দুই জন আহত হয়।

 

৭ আগস্ট সিলেট শহর ও এর উপকণ্ঠে সেনা গাড়ির উপর একটি গ্রেনেড ছুড়ে ফেলে তিন পাকসেনা হত্যা করে।

 

১৩ জুলাই কোম্পানিগঞ্জের দক্ষিণে তুকার গাওয়ে পাকসৈন্যদের আক্রমণ করে। এক অফিসার এবং খাইবার রাইফেলসের অন্য র‍্যাঙ্ক এর ৭ জনকে হত্যা করে। তারা একটি রাইফেল জব্দ করে।

 

১০ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী দিরাই এলাকায় ডাকাতদের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয় এবং ২১ ডাকাত নিহত হয়। তারা এছাড়াও ১ টি হালকা মেশিন গান, আটটি রাইফেল, ২১ টি শট গান, চারটি গ্রেনেড এবং কিছু গোলাবারুদ জব্দ করে। অভিযান চালিয়ে দিরাই এলাকায় একটি পাক সমর্থকের বাড়ি ধ্বংস করে।

 

১২ আগস্ট কমলাপুরে পাক অবস্থানে আক্রমণ করে এক পাকসেনাদল এবং

দুই জনকে আহত হয়।

 

২০ থেকে ২৬ জুলাই কটিয়াদি, পাকুন্দিয়া ও গাচিহাতায় নিম্নলিখিত গেরিলা অপারেশন সম্পন্ন হয়। তারা কটিয়াদি নদীর পাঁচ মাইল দক্ষিণ পশ্চিমে দুই লঞ্চে পাকসৈন্যদের (ঢাকা থেকে দরগাপুর গামী) আক্রমণ করে ৪০ পাকসৈন্য হত্যা এবং ৪৫ জন আহত এবং একটি লঞ্চ ধ্বংস করে। প্রায় ৫০০পাকসৈন্যকে তারা ৫ টি লঞ্চে আক্রমণ করে। প্রচণ্ড যুদ্ধ সংঘটিত হয়েছিল এবং ৫ দিন ধরে চলে। এবং প্রচুর হতাহত হয়-প্রায় ১০০পাকসৈন্য জখম হয়। ভৈরব-ময়মনসিংহ রেল লাইনে গাছিপারা স্টেশনে এক ট্রুপ পাকসেনা ভর্তি একটি রেল মাইনে আক্রান্ত হয়। এতে ২০ পাকসৈন্য, ১০ পাঞ্জাবি পুলিশ ও দুই ইঞ্জিন ড্রাইভার নিহত হয়।

 

২৫ জুলাই মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ পুলিশ লাইনে গ্রেনেড ছুড়ে মারে। আরেকটি গ্রুপ রাজাকার ও পাক সমর্থকদের ঘর উপর গ্রেনেড ছুড়ে। তারা ময়মনসিংহে কতভ্যালি থানা ধ্বংস করে। এর প্রতিশোধে পাকসেনারাতেন্তাল বাজার, ফুলপুর জ্বালিয়ে দেয়। ময়মনসিংহ কাছাকাছি কলপারা ঘর পুড়িয়ে দেয় এবং বাইতামারিতে ধানক্ষেতের সাধারণ মানুষকে মেরে ফেলে।

 

১১ আগস্ট দরবাস্ত-কানাইহাঁট রাস্তায় আক্রমণে ৩ পাকসৈন্য নিহত ও ২ জন আহত হয়।

 

১০ আগস্ট কানাইরহাট অভিযান চালিয়ে ৩ রাজাকার হত্যা করে।

 

৯ আগস্ট দিলকুশা এলাকায় দুজন পাক সমর্থকদের হত্যা করে।

 

১০ আগস্ট তারা সিলেটীপারা ও মেওয়া র মধ্যে ২ টি টেলিফোনের খুঁটি এবং টেলিফোন লাইন ধ্বংস করে। এতে বড়্গ্রাম ও সেলিয়ার মধ্যে টেলিযোগাযোগ ব্যাহত হয়।

তারা বিয়ানীবাজারএ গ্রেনেড ছুড়ে ফেলে দুই রাজাকার হত্যা করে।

 

২ আগস্ট তারা ছাতকের কাছাকাছি পাক গাড়ির ওপর অতর্কিত হামলা করে ৫ জন আহত করে। ৪ আগস্ট সুরমা নদীতে স্পিড বোটে আক্রমণ করে ২ পাকসেনা নিহত ও ২ জন আহত হয়।

 

১২ আগস্ট গোসগাও এলাকায় আক্রমণ করে তিন রাজাকার হত্যা ও চার জন আহত হয়।

 

২৬ জুলাই ময়মনসিংহ পেট্রোল পাম্প দিকে গ্রেনেড ছুড়ে এক প্রহরীর প্রাণনাশ ও একজন আহত হয়।

বাংলাদেশ বাহিনীর সদর দপ্তর মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

আগস্ট ১৬

যুদ্ধ বুলেটিন

 

মুক্তিবাহিনী পাকসৈন্যদের হতাহত করতে তাদের কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। রাজাকার ওসহযোগীদেরকেও। সকল ক্ষেত্রে তারা পাকসেনাকে হয়রানির শিকার করছে। পাকবাহিনীর যোগাযোগের ব্যাহত করা ছাড়াও অধিকৃত এলাকায় যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে তারা ৪ কর্মকর্তাসহ ১৪৬ পাকসেনা হত্যা করেছে এবং ৬১ জন যখন করেছে। তারা ৭০ রাজাকার নিহত ও ১৪ জন বন্দী করেছে। তারা ৩৮ রকমের অস্ত্র জব্দ করে। তারা ৩ টি পাক যান ধ্বংস করে যেগুলো সৈন্য বহন করতে ব্যবহৃত হত। ৫টি সড়ক ও রেল সেতু ক্ষতিগ্রস্ত বা ধ্বংস করা হয়েছে।

মুক্তিবাহিনীর উল্লেখযোগ্য কিছু সাফল্য নীচে বর্ণিত হল :-

 

১২ আগস্ট তারা কুমিল্লার নবীনগর এলাকা সাফ করে। এবং ১২টি রাইফেল, ৮ টি শট গান, ৩টি বেয়োনেট এবং প্রচুর গোলাবারুদ জব্দ করে।

 

তারা দিনাজপুর জেলার সাগুনি এলাকায় গুরুত্বপূর্ণ রেল সেতু ধ্বংস করে। এর দরুন দিনাজপুর-পীরগঞ্জ-ঠাকুরগাঁও মধ্যে এই রেল যোগাযোগ বিঘ্নিত হয়েছে। সেতু এখনও আউট অব কমিশন। ১২ আগস্ট তারা ফুলবাড়ী ও পার্বতিপুরের মাঝে একটি কাল্ভার্ট ধ্বংস করে।

 

প্রচুর সংখ্যক রাজাকার আত্মসমর্পণ করছে। তারা সব পাকিস্তানী কর্তৃপক্ষ কর্তৃক অবিশ্বাসী হচ্ছে বলে অভিযোগ করে। তারা পাকিস্তানী সৈন্যদের ক্যানন ফুডার হিসেবে ব্যাবহ্রিত হচ্ছে বলে মনে করে।

 

বিস্তারিত কার্যক্রম এর বিবরণ নিচে দেওয়া হল:

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

 

১৪ আগস্ট মুক্তিবাহিনীরতনপুরে এক রাজাকার এর বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাকে হত্যা করে। একই দিনে তারা ফুলবাড়ী এলাকায় অতর্কিতে আক্রমণ এবং তাদের ৯ জন হত্যা করে।

১৫ অগাস্ট ফুলবাড়ী এলাকায় কুহইহাট ফেরিতে অতর্কিতে আক্রমণ করে রাজাকারদের দুটি নৌকা ডুবিয়ে দেয়। এতে ১২ জন নিহত হয়। একই এলাকায় এছাড়া ১২ জন বন্দি হয়। পাক প্যাট্রোলে ১২ আগস্ট আক্রমণে একজন আহত হয়।

 

৬ অগাস্ট কাজিপারার এক স্থানে পাক বাহিনীর সঙ্গে গুলি বিনিময়ে ৩৮ জামাতি এবং এক স্থানে পাকসেনাদের উপর হয়রানি সম্পন্ন হয়। ১১আগস্ট সাত সৈন্য বহনকারী এক পাক জিপ মাইনে বিস্ফোরিত হয় এবং সবাই নিহত হয়। সেসময় পার্শবর্তী একটি যানে ৩৩ জন বেসামরিক নাগরিক আক্রান্ত হয়।

 

৬ আগস্ট মেগাবাইট ধর্মপুর এলাকায় কাঠের ব্রীজ ধ্বংস করে।

 

১২ অগাস্ট ফুলবাড়ী-পার্বতিপুর রেল যোগাযোগ ব্যাহত ও রেলওয়ে কালভার্ট ধ্বংস করা হয়।

 

১৩ অগাস্ট হরগোবিন্দপুর পাক প্যাট্রোলে অতর্কিতে আক্রমণ এবং ৩ পাকসৈন্যকে হত্যা করা হয়।

 

১৪ আগস্ট হিলি ও চরকাইএলাকার মধ্যে প্রায় ৪০ ফুট একটি রেলওয়ে ট্র্যাক ধ্বংস করা হয়। দুজন বিহারি হত্যা এবং তাদের কাছ থেকে দুটি শট গান জব্দ করা হয়।

 

১৫ অগাস্ট উত্তর খানপুরে ৪ জন নিহত ও ১২ জন আহত হয়।

 

১৫ অগাস্ট পাথরঘাটা এলাকায় পাক বাহিনীর সাথে গুলি বিনিময় চার পাকসেনা নিহত এবং শীতলডাঙ্গাগ্রামে দুই রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর

 

১৪ অগাস্ট উজিরপুরে পাকসৈন্যদের সাথে যুদ্ধে একজন অফিসারসহ ১১ পাকসেনা নিহত হয়।

১৫ আগস্ট ভোমরা এলাকায় পাক গাড়ি আক্রমণে এগারো পাকসেনা / রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর

 

১০ অগাস্ট পাক অবস্থান আমান্ডাঙ্গায় অভিযান চালিয়ে ১ অফিসারসহ কয়েকজন হত্যা করা হয়।

 

১৩ অগাস্ট নরমানে এলাকায় পাক বাহিনীর উপর মর্টার দিয়ে আক্রমণে ছয় জনকে আহত করা হয়।

 

১১ অগাস্ট ছয় টেলিফোনের খুঁটি ও কসবা ও মন্দভাগের মধ্যে একটি বৈদ্যুতিক পাইলন ধ্বংস করা হয়।

 

১২ অগাস্ট কসবা এলাকায় ১০০ গজ রেললাইন উপড়ে ফেলা হয়।

 

১৩ অগাস্ট কালীগঞ্জ এ মুক্তিবাহিনী রাজাকার ডঃ ফাশীঊদ করিম এবং জনাব গফুর বেপারী উভয়ের বাড়িতে গ্রেনেড ছুড়ে মারে। ফোলে ডঃ করিম গুরুতর আহত হয় এবং জনাব বেপারী নিহত হয়।

 

১৩ অগাস্ট মন্দবাগ এলাকায় ১০০ ফুট রেললাইন উপড়ে ফেলা হয়।

 

১৪ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী মন্দভাগে আক্রমন করে এবং সেখানে ৩ পাকসৈন্য নিহত হয়।

 

১৩ অগাস্ট নেপটার হাট এলাকায় দুটি বৈদ্যুতিক পাইলন উড়িয়ে দেয়া হয়।

 

১২ অগাস্ট ১২ টি টেলিফোনের খুঁটি ভেঙ্গে এবং মন্দভাগ-নাপ্তের হাট এর মধ্যে টেলিফোন যোগাযোগ ধ্বংস করা হয়।

 

১৩ অগাস্ট একই এলাকায় মুক্তিবাহিনী চার পাকসেনাকে হত্যা করে।

 

২০ থেকে ২৫ জুলাই এর মধ্যে ঘোড়াশাল রেলওয়ে স্টেশন ও জিনারদি রেলওয়ে স্টেশনএর মধ্যে বিভিন্ন স্থানে গ্যাস পাইপ লাইন ধ্বংস করা হয়।

 

৩১ জুলাই জিনারদি এলাকায় মুক্তিবাহিনী দুই সক্রিয় পাকসহযোগীদের হত্যা করে।

 

 

ময়মনসিংহসিলেটমৌলভীবাজার সেক্টর

 

১৪ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী শ্রীমঙ্গলএর কাছাকাছি হাসনাবাদ এলাকায় সড়ক সেতু ধ্বংস করে।

 

১৩ অগাস্ট কালীঘাট এলাকায় মুক্তিবাহিনী বৈদ্যুতিক তোরণ উড়িয়ে দেয়।

 

১৪ আগস্ট লুভা নদীর পশ্চিম তীরে পাক সৈন্যের উপর অতর্কিত আক্রমণে তিন রাজাকার আহত হয়।

 

১২ আগস্ট দক্ষিণারঞ্জন রেলস্টেশনে দুই পাকসেনা নিহত এবং রাজাকার আহত হয়।

 

১২ আগস্ট সোনারুপায় অভিযান চালিয়ে মুক্তিবাহিনী সাত পাকসেনাকে হত্যা করে।

 

১২ আগস্ট দুই কর্মকর্তা বহনকারী এক পাকবাহিনী জিপ জুড়ী-গোপালবাড়িতে মাইনে বিস্ফোরিত হয় এবং এতে ৩ জন পাকিস্তানী সৈন্য নিহত হয়।

 

৬ আগস্ট মুক্তিবাহিনী দ্বারা পাকসৈন্য ও রাজাকারদের জয়কালাস এলাকায় আক্রমণে এক পাকসেনা নিহত ও এক রাজাকার আহত হয়।

 

১৫ আগস্ট মুক্তিবাহিনী আহমেদনগর-সাকুচি এলাকার মধ্যে টেলিফোন লাইন ধ্বংস করে।

 

১৪ আগস্ট মুক্তিবাহিনী বাওরামারি-নুন্নি এলাকার মধ্যে টেলিফোন লাইন ধ্বংস করে।

 

৭ আগস্ট শ্রীমঙ্গলে ১২ রাজাকার ও ছয় সৈন্য গ্রেনেডে আক্রান্ত হয়ে নিহত হয়।

 

২৬ জুলাই ধলাই এলাকায় ৫ রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

৩০ জুলাই কমলগঞ্জএর কাছাকাছি মকাবিলে অভিযান চালিয়ে ১২ রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

১৪ আগস্ট পাকিস্তানের সৈন্য নারায়নপুরে মুক্তিবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হয় এবং গুলি বিনিময় হয়। ৬ জন পাকসেনা জখম হয়।

 

১২ অগাস্ট অভিযান চালিয়ে কানাইঘাট এলাকায় এক আনসার কমান্ডারের বাড়ি ধ্বংস করা হয়।

 

১৪ আগস্ট ডুপাতিলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩ পাকসেনা হত্যা এবং চার জনকে আহত করা হয়।

 

১৪ আগস্ট রাধানগরে অ্যামবুশে এক মিলিশিয়া ব্যক্তি নিহত হয়।

 

১২ অগাস্ট লালপুরে দুই রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

১৪ অগাস্ট ছাতকের কাছাকাছি পাক পোস্টে দুই পাকসেনাকে হত্যা করা হয়।

 

১২ আগস্ট পাকসৈন্য নবীগঞ্জ এলাকায় আক্রমণে ১২ রাইফেল, ৮ শট গান, তিনটি বেয়োনেট ও গোলাবারুদের একটি বৃহৎ পরিমাণ বন্দী করে।

 

১৪ আগস্ট বিজয়পুর-বিরিশিরিতে অ্যামবুশে পাক প্যাট্রোলের এক পাকসেনার প্রাণনাশ করা হয়।

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টরে

১৫ আগস্ট ১৯৭১ এর পাওয়া তথ্য মতে

 

পাকসেনারা বাবরাতে অনিয়মিতভাবে মুক্তিবাহিনীর উপর আক্রমন ও গুলি বিনিময় করে। এতে ১৩ আগস্ট ৩ জন পাকসেনা নিহত হয়। একই দিনে রাত্নি সেতুর কাছে পাক বাহিনীর সাথে গুলি বিনিময়ে এক পাকসেনা নিহত হয়।

 

৯ আগস্ট মুক্তিবাহিনী কাকিনা রাজাকার ক্যাম্পে আক্রমন করে, এতে ৪ জন পাকসেনা হয়। ১০ আগস্ট দামোদরপুর এলাকায় ৪ পাক সমর্থক নিহত ও নবাবগঞ্জে একজনকে হত্যা ও একটি রাইফেল উদ্ধার করা হয়।

 

১৩ অগাস্ট সেগুণই রেল সেতু ধ্বংস করা হয়।কেন্দ্রীয় জেটি সম্পূর্ণভাবে বন্ধ বিস্ফোরিত হয়। এতে দিনাজপুর-পীরগঞ্জ-ঠাকুরগাঁও রেল যোগাযোগ ব্যাহত হয়।

 

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর

 

৫ আগস্ট শীতলাই রেল সেতু উড়িয়ে দেয়া হয় ও ১৩ আগস্ট সম্মুখ যুদ্ধে ৪ রাজাকার পাকসেনা নিহত হয়। পালানর সময় আর ৪ জন জখম হয়।

 

১২ অগাস্ট গঙ্গাদাসপুর এলাকায় অতর্কিত আক্রমণে এক রেডিও অপারেটরসহ ১৫ জন আহত হয়।

 

মুক্তিবাহিনীর প্যাট্রোল এক মুসলিম লীগের সদস্য হত্যা করে। এবং বর্নি এলাকায় ১০ আগস্ট তাঁর কাছ থেকে কিছু গোলাবারুদ সঙ্গে একটি রাইফেল উদ্ধার করা হয়। তারা একই এলাকায় এক শান্তি বাহিনী সদস্যকে হত্যা করে।

 

আগস্ট ৯ থেকে ১৩ তারিখের মধ্যে মুক্তিবাহিনী নিম্নলিখিত গেরিলা কার্যক্রম সম্পন্ন করে:-

 

মুক্তিবাহিনী শ্রীগ্রামে শান্তি বাহিনী সম্পাদকের বাসায় আগুন দেয়। তারা দুলিরজুরি এলাকায় এক মুসলিম লীগের সদস্যকে হত্যা করে। তারা একই এলাকায় একটি ব্রিজ উড়িয়ে দেয়, পাহারার তিন রাজাকার হত্যা করে ও রাইফেল জব্দ করে। তারা একটি মুসলিম লীগ নেতার বাড়ি পুড়িয়ে দেয় পান্দিয়ের বানায়। তারা কুচিগ্রামে একটি পাক সমর্থকের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে দুটি বন্দুক উদ্ধার করে।

 

১২ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী জদাবপুর পাক অবস্থানের উপর আক্রমণ করে। এতে তিন জনের মৃত্যু এবং ৫ জন আহত হয়। অন্য একটিতে ১ জন পাকসেনা নিহত হয়।

 

আগস্ট ১০ থেকে ১২ তারিখে জদাবপুর, রাধাপুর মাদার তলা অঞ্চলে ২০ শান্তি বাহিনী সদস্যদের হত্যা করে। ছয়টি বন্দুক উদ্ধার করা হয়।

 

১ থেকে ৮ আগস্টে যশোর এলাকায় কয়েকটি গেরিলা অভিযান চলে। তারা মুক্তারপুর পোস্ট অফিস জ্বালিয়ে দেয় এবং স্টেশনারি ও সিল উদ্ধার করা হয়। মুক্তিবাহিনী দুই জামাত সদস্যদের হত্যা ও তাদের কাছ থেকে তিনটি বন্দুক উদ্ধার করে। মুক্তিবাহিনী উজিরপুরগামী ১৯ পাক বাহিনীর একটি নৌকায় আক্রমণ করে; এতে এক সৈনিক নিহত এবং অন্য জন আহত হয়। তারা পাঙ্কা এলাকায় একটি নৌকায় এম্বুশ করে ছয় জন পাকসেনা হত্যা করে।

 

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর

 

১১ অগাস্ট পাক অবস্থান কোটেশ্বরে মর্টার দিয়ে তিন পাকসেনাকে হত্যা করে। এছাড়া আর ও ৬ জনকে হত্যা করে।

 

৮ ও ১০ অগাস্ট রাজাপুরে পাক অবস্থানে মর্টার অভিযান চালিয়ে ১৩ জন জখম করে।

 

১১ অগাস্ট হরিমঙ্গলে অভিযান চালিয়ে ২০ জন হতাহত হয়।

১২ আগস্ট সেজামুরা এলাকায় পাক প্যাট্রোলে অতর্কিতে আক্রমণে ১ জন নিহত হয়।

 

১২ আগস্ট সুরমা এলাকায় সেনা বহনকারী এক পাক গাড়ি মাইনে উড়িয়ে দেয়া হয়। এতে ৮ জন নিহত, অনেক আহত হয়। গাড়িটি সম্পূর্ন ধ্বংস হয়।

 

৫ অগাস্ট নারায়ণগঞ্জে একটি পাটের গুদামে প্রায় ১০০০ বান্ডিল পাট জ্বালিয়ে দেয়।

 

 

ময়মনসিংহসিলেটমৌলভীবাজার সেক্টর

 

১১ অগাস্ট রাঘুরচাক এলাকায় এক পাকসহযোগীকে হত্যা ও ১২ আগস্ট একই এলাকায় তিন বিন্দুতে টেলিফোন লাইন ধ্বংস করা হয়।

 

১২ আগস্ট বড়লেখা এলাকার কাছাকাছি পাক প্যাট্রোল অতর্কিতে আক্রমণে ৩ পাকসৈন্য আহত হয়।

 

১০ অগাস্ট সাগারনাল পাক অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ছয় পাকসৈন্য নিহত করা হয়। ১০ অগাস্ট মুহম্মদপুর এলাকায় একটি সড়ক সেতু ধ্বংস করা হয়।

বাংলাদেশ বাহিনীর সদর দপ্তর মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগে

আগস্ট ১৭

যুদ্ধ বুলেটিন

 

১৭ আগস্ট প্রাপ্ত রীপোর্ট অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী এখানে নিয়মিত কার্যক্রম চালায়। এতে, এক মেজর, ১ ক্যাপ্টেন, ২ অফিসার, ২ জে শি ও এবং এক হাবিলদারসহ ১৭৩ পাকসৈন্য নিহত হয়। মুক্তিবাহিনী ৩৮ জন পাকসেনাআহত হয় এবং ৫১ রাজাকার ও ২৫ জনসহযোগীকেও হত্যা করে।

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

 

১৩ আগস্ট মুক্তিবাহিনী সিঙ্গিমারি এলাকায় পাক প্যাট্রোলে অতর্কিতে আক্রমণ করে ৪ জনকে হত্যা করে। কিছু গোলাবারুদ সঙ্গে একটি রাইফেল উদ্ধার করা হয়।

 

১৪ আগস্ট পাটেশ্বরি এলাকায় মুক্তিবাহিনী ও পাকবাহিনীর সাথে সম্মুখ যুদ্ধে এক পাকসেনা নিহত ও দু’জন আহত হয়।

 

১৩ অগাস্ট নাগেশ্বরী ও গজলায় মুক্তিবাহিনী ২ জন শত্রুসেনা হত্যা এবং ৭ জনকে আহত হয়।

 

২৯ থেকে ৩১ জুলাই বগুড়া এলাকায় মুক্তিবাহিনী কয়েকটি গেরিলা অভিযান সম্পন্ন করে। তারা সারিকান্দি থানায় অভিযান চালিয়ে অফিসার-ইন-চার্জকে হত্যা করে। বগুড়া-গাবতলী রাস্তায় মাইনে এক পাকবাহিনী জিপ বিস্ফোরণে একজন অফিসারসহ এক জন আহত হয়। তারা ধুনট থানার পাঁচ পুলিশ কনস্টেবল নিহত ও সাত রাইফেল এবং একটি ১২ বোর বন্দুক জব্দ করে তারা শান্তি কমিটি সদস্য ইউনিয়ন কাউন্সিল চেয়ারম্যান জনাব মজাম্মেল হককে হত্যা করে। তারা চেয়ারম্যানের বাসা থেকে ১২ বোর বন্দুক উদ্ধার করে। আরও একটি তহশীল অফিস থেকে পায়।

 

১২ অগাস্ট গঙ্গা প্রসাদে মাইনে এক পাক জিপ আক্রমণে এক মেজর, এক ক্যাপ্টেন, এক হাবিলদার ও চার সিপাহী নিহত হয়।

 

১৪ অগাস্ট স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের দিন জয় মানিরহাট এলাকায় বোমা বিস্ফোরিত হয়। অবিলম্বে পাকসেনারা সেখানে যায় এবং ৫ জন নিহত ও ১০ জন আহত হয়।

 

১৩ আগস্ট শিঙ্ঘিচর ও ভুশ্মারি গ্রামে পাকসেনারা ঘর বাড়ি পুড়িয়ে দেয়। এই গ্রাম থেকে গ্রামবাসীদের ভারতে বামনহাট শরনার্থী রিসিপ্সন ক্যাম্পে যেতে বাধ্য করে। সেখানে ভারত ফেরতদের ধরার জন্য পাকসেনাদের ক্যাম্প ছিল।

 

১১ আগস্ট পানিমাছে পাক অবস্থানে মুক্তিবাহিনী আক্রমণ করে। এতে ৮ জন আহত হয়।

 

১০ অগাস্ট মারিয়াতে অভিযান চালিয়ে মুক্তিবাহিনী ৪ মুজাহিদ হত্যা করে।

 

১৩ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী দিনাজপুর থানায় গ্রেনেড ছুড়ে ও কাজীপুর এলাকায় তিন রাজাকার হত্যা করে।

 

১৩ আগস্ট লতলা-ঠাকুরগাঁও সড়কে মাইন বিস্ফোরণে এক পাকিস্তানী জিপ বিস্ফোরিত হয়; এতে, ২ পাকসেনা নিহত হয়।

 

১০ অগাস্ট আখানগর রেলওয়ে স্টেশনে এক জামাতি নেতা ও ৪ অবাঙ্গালি সহায়তাকারী নিহত হয়। এছাড়া জনাব সাকিকি নামে বিশিষ্ট জামাতি নেতা হারিন্দাতে নিহত হয়।

 

পার্বতিপুর-ফুলবাড়ী রেল ট্র্যাকে কাইদ্রায় পাক প্যাট্রোল রন্ধনরত থাকা অবস্থায় গ্রেনেড ছুড়ে মারা হয় এবং পাক প্যাট্রোল একটি রাইফেল এবং তাদের সরঞ্জামাদি রেখে দৌড়ে পালায়।

 

১৪ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী ঠাকুরগাঁও-পীরগঞ্জ রাস্তায় এক বৈদ্যুতিক পাইলন ধ্বংস করে।

 

১৫ অগাস্ট ভাটুরিয়ার কাছাকাছি পাকসৈন্যদের সঙ্গে গুলি বিনিময় হয় ও ৪ জন নিহত হয়।

১৪ অগাস্ট গোপাল নগরে তিন পাক সমর্থকদের হত্যা করা হয়। পরে তাদের বাড়ি জ্বালিয়ে দেয়া হয়।

 

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর

 

১৫ আগস্ট নবাবগঞ্জে ব্যাপক গেরিলা হামলা চলে। নয়টি রাজাকার ধরা হয় তাদের ক্যাম্পে আক্রমণ করে। এবং চারটি রাইফেল জব্দ করে। হরিপুরে একটি ৩০x৮ ফুট ব্রীজ উড়িয়ে দেয়া হয়।

 

জানা যায় যে ১০ থেকে ১৪ আগস্টে যশোরে একটানা গেরিলা কার্যক্রমের জন্য তাদের স্বাধীনতা দিবস পালিত হবেনা। এস এস সি পরীক্ষাও বাতিল ঘোষণা করা হয়। গেরিলা আক্রমনের সময় তারা এক অবাঙালি পাকসহযোগীকে নরঙ্গলি এলাকায় হত্যা করে। তারা ফরিদপুর এলাকায় একটি বৈদ্যুতিক পাইলন উড়িয়ে দেয় এবং যশোর অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়। তারা ফরিদপুরের তিন রাজাকার হত্যা করে।

 

১৫ অগাস্ট বুরিপন্তা এলাকায় পাক বাহিনীর ওপর হামলা চালায় এবং তিন পাকসৈন্য নিহত ও এক জন আহত হয়।

 

১১ অগাস্ট ডালটননগর কৃষি খামারে অভিযান চালিয়ে চার রাজাকার হত্যা করে। তারা ১৪ আগস্ট একই এলাকায় কালভার্ট উড়িয়ে দেয়।

 

১৩ অগাস্ট বুরিপন্তা এবং বারিবাঙ্কা অঞ্চলে পাক বাহিনীর সাথে গুলি বিনিময়ে দুই পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৩ অগাস্ট বাগ্বানে মুক্তিবাহিনী দুই পাকসেনাকে হত্যা এবং তিন জনকে আহত হয়।

 

১৩ অগাস্ট মাছুডাঙ্গা এলাকায় পাক বাহিনীর সাথে যুদ্ধে সতেরো পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৩ অগাস্ট বায়রা এলাকায় এক রাজাকার নিহত ও একটি রাইফেল উদ্ধার হয়।

 

১৪ অগাস্ট কানপুর এলাকায় পাকসৈন্য ও রাজাকারের সাথে মুক্তিবাহিনীর সম্মুখ যুদ্ধ হয়। এতে ২ পাকসৈন্য, আট রাজাকার ও ৫ পাক সমর্থক নিহত হয়।

 

২৯ জুলাই থেকে ৪ আগস্ট মাদারীপুর এলাকায় নিম্নলিখিত কার্যক্রম সম্পন্ন হয়। মুক্তিবাহিনী মাহান্দ্রাদি এলাকায় টেলিফোন লাইন বিচ্ছিন্ন করে। তারা কবিরাজপুর এক মুসলিম লীগের সদস্যের বাড়ি পুড়িয়ে দেয়। নৌকায় গ্রেনেড ছুড়ে তারা তিন রাজাকার হত্যা করে। নাগরদিতে এক মুসলিম লীগের সদস্যকে হত্যা করা হয়।

 

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর

 

১৪ আগস্ট রামগড় অভিযানে ছয় পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৪ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী পাক অবস্থান মোহনবাগান বাজারের উপর মর্টার চালিয়ে ৫ পাকসেনা হত্যা এবং কয়েক বাংকার ধ্বংস করে।

 

১০ আগস্ট পাক অবস্থান আন্ধারমানিকে মুক্তিবাহিনী আক্রমণ চালালে একজন কর্মকর্তাসহ পাঁচ পাকসৈন্য নিহত হয়।

 

১২ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী তাকিয়া এলাকায় দুটি বৈদ্যুতই পাইলন ধ্বংস করে।

 

১৪ আগস্ট মুক্তিবাহিনী পাক অবস্থান চাদ্গাজিতে অভিযান চালিয়ে ৫ পাকসেনা হত্যা করে।

 

১৫ অগাস্ট দেবপুরে এক পাক জেসিও এবং চার রাজাকার হত্যা করে।

 

১৩ আগস্ট মুক্তিবাহিনী জামবাড়ি এলাকায় পাক প্যাট্রোল অতর্কিতে আক্রমণ করে এবং ৩ পাকসেনা হত্যা করে।

 

১৪ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী আগাদির ও কুটির মধ্যে এক বৈদ্যুতিক পাইলন উড়িয়ে দেয়া

 

১৪ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী কসবা দক্ষিণে ৯ ফুট রেলপথ ট্র্যাক ধ্বংস করে।

 

১১ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী পাক অবস্থান মধুপুরে অভিযান চালিয়ে চার পাকসেনাকে হত্যা করে। ২৫ জুলাই সায়দাবাদে দুই পাকসহযোগীরা নিহত হয়।

 

১২ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী আলীনগর এলাকায় চার রাজাকার হত্যা করে।

 

১১ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী কামালপুর এলাকায় পাক প্যাট্রোলের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হয় এতে তিন পাকসেনা নিহত হয়।

 

১০ অগাস্ট পাক অবস্থান নওগাঁ আক্রমণে ৫ পাকসেনার প্রাণনাশ এবং এক জন আহত।

 

৩ অগাস্ট নবীগঞ্জ ২ জন সক্রিয়সহযোগীদের হত্যা করা হয়।

 

১২ অগাস্ট লক্ষ্মীপুর অ্যামবুশে তিন পাকসৈন্য নিহত ও নয়জন আহত হয়।

 

৩১ জুলাই মুক্তিবাহিনী বাজিতপুর এ পাক ন্যাশনাল ব্যাংক শাখায় অভিযান চালিয়ে কর্তব্যরত কোষাধ্যক্ষ এবং রক্ষিবাহিনীকে হত্যা করে।

 

৫ আগস্ট মুক্তিবাহিনী নারায়ণগঞ্জ এলাকায় এক পাট গুদামে আগুন দেয় ও পাট বাজারজাতকরণ এর এজেন্ট হত্যা করে।

 

১৪ আগস্ট মুক্তিবাহিনী পাক অবস্থান ছাগলনাইয়ায় আক্রমন চালিয়ে চার পাকসৈন্য হত্যা ও দুই বাংকার ধ্বংস করে।

 

১৪ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী আলীনগর দুটি বৈদ্যুতিক পাইলন ধ্বংস করে। একই এলাকায় একটি সড়ক সেতুতে পাহারারত ৫ পাকসৈন্যকে হত্যা করা হয়।

 

১৫ অগাস্ট কোটেশ্বর পাক অবস্থান উপর মর্টার দিয়ে হামলা করে ৫ পাকসেনাকে হত্যা করা হয়।

 

১৪ আগস্ট জামবাড়ি এলাকায় পাক চৌকি আক্রমণ করে মুক্তিবাহিনী একটি জেসিওসহ তিন পাকসৈন্য হত্যা করে।

 

১৫ অগাস্ট মন্দভাগ এলাকায় দুটি টেলিফোনের খুঁটি ধ্বংস করে। ১৪ আগস্ট মুকুন্দপুর পাক অবস্থানে অভিযান চালিয়ে মুক্তিবাহিনী দুই জন শত্রুসেনাকে হত্যা করে।

 

১৪ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী হরিণ খোলা ও চৌরাস্তায় মর্টার দিয়ে চার পাকসৈন্য হত্যা করে। পাক বাহিনী দ্বারা দখল করা বেসামরিক ঘরও ধ্বংস করে দেয়া হয়।

 

ময়মনসিংহসিলেটমৌলভীবাজার সেক্টর

 

এই সেক্টরে মুক্তিবাহিনী ৪২ জন শত্রুসেনাকে হত্যা ও ১৯ জনকে আহত হয়।

 

১৪ আগস্ট স্বাধীনতা দিবস পালনের খবরে কালীগঞ্জ এলাকায় মিটিং এর উপর তিন মুক্তিযোদ্ধা আক্রমণ করে। সভায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়। এতে ছয় রাজাকার নিহত ও কিছু পাকসেনা গুলিবিদ্ধ হয়।

 

১৪ আগস্ট পাকিস্তানের সৈন্য এবং রাজাকাররা কারাবালিয়া হামলা করার চেষ্টা করে এবং মুক্তিবাহিনীর সাথে যুদ্ধে লিপ্ত হয়। ফলে তাদের দখল চেষ্টা ব্যার্থ হয়। ৩ পাকসৈন্য আহত হয়।

 

১৩ আগস্ট পাক অবস্থান বড়গ্রামে তিন জনের মৃত্যু হয় এবং ৫ জন আহত হয়।

 

১৩ অগাস্ট কাংলি ফেরি এলাকায় দুটি নৌকা ধ্বংস করা হয়।

 

১৪ অগাস্ট রাজাকারদের সাথে একই এলাকায় একটি ব্রিজ পাহারার সময় মুক্তিবাহিনী সংঘর্ষে লিপ্ত হয়, এতে, ১ রাজাকার নিহত হয়।

 

১৪ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী বিয়ানীবাজার অভিযান চালিয়ে দুই রাজাকার হত্যা করে।

 

৮ আগস্ট মুক্তিবাহিনী গোলাপগঞ্জ থানা ধ্বংস করে।

 

১৪ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী তাঞ্জর এলাকায় পাক বাহিনীর সাথে যুদ্ধে দুই রাজাকার হত্যা করে।

 

১৪ অগাস্ট কামালপুর একটি সম্মুখযুদ্ধে ২৬ জন পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৪ অগাস্ট সাগরনলে পাক চৌকিতে আক্রমণে ২ পাকসৈন্য আহত হয়।

 

১৪ অগাস্ট সিলেটে জেলা সংগ্রাহকের অফিস এবং টাউন হলে বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করে মুক্তিবাহিনী।

 

১৪ আগস্ট ১২০ পাকসৈন্যরাতে ফারাঙ্গাপারা দখল করে।

 

১৫ আগস্ট প্রথম প্রহরে মুক্তিবাহিনী ফারাঙ্গাপারায় আক্রমণ করে এবং দুই রাজাকার হত্যা ও দুই জন পাকসেনা আহত হয়।

 

১৫ আগস্ট শানিবারই মিশন দখল এবং বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করা হয়।

 

১৫ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী চালপারার দিকে আগুয়ান পাকসৈন্যদের উপর অতর্কিত আক্রমণ চালিয়ে ১২ জন শত্রুসেনাকে হত্যা করে।

 

১৪ অগাস্ট গোবিন্দ-সৈয়দপুর রাস্তায় ৯০ ফুট দীর্ঘ ফলিয়া সড়ক সেতু ধ্বংস করা হয়।

 

১৫ অগাস্ট পাক অবস্থান কামালপুরে আক্রমন চালিয়ে ৮ পাকসৈন্য হত্যা করা হয়। মুক্তিবাহিনী বাংকার এবং ঘর ধ্বংস করে। একটি বেসামরিক বাস ভাংচুর করা হয়।

বাংলাদেশ বাহিনীর সদর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগে

যুদ্ধ বুলেটিনআগস্ট ১৮

 

মুক্তিবাহিনী পাকসৈন্য, রাজাকার ও তাদের দোসরদের উপর তীব্র আক্রমণ চালিয়ে যাচ্ছিল। সকল খাঁতে পাক বাহিনীর উপর হয়রানি ও হতাহতের কার্যক্রম তীব্রতর হয়েছে ।

 

রিপোর্ট মতে মুক্তিবাহিনী এখানে ১১০ জন পাকসেনাকে হত্যা এবং ৫৫ জন পাকসেনাকে আহত হয়। ৪৭ রাজাকার ও ১১সহযোগীকেও হত্যা করা হয়। অপারেশনের সময় ১০টি অস্ত্র দখল করে মুক্তিবাহিনী। ৩ টি সড়ক সেতু ধ্বংস করা হয়, তাতে অধিকৃত অঞ্চলের মধ্যে যোগাযোগ ব্যাহত হয়।

 

মুক্তিবাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ সাফল্য নিচে উল্লেখ করা হল:-

 

মুক্তিবাহিনীর ঢাকা শহরের চারপাশে তাদের কার্যক্রম তীব্রতর করে। তারা সম্পূর্ণভাবে ঢাকা ও নরসিংদী মধ্যে ট্রাফিক ব্যাহত করে ঢাকা-নরসিংদী রাস্তার একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক সেতু ধ্বংস করে দেবার ফলে। যে উল্লেখ করা যেতে পারে রেলপথ যোগাযোগ ইতিমধ্যে ধ্বংস করা হয়েছে নানা পয়েন্টে এর ক্ষতি করে।

 

নরসিংদী পূবালী জুট মিলস ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। ঢাকার চারপাশে অনেক অন্যান্য কারখানা মুক্তিযোদ্ধারা ধ্বংস করে। সমগ্র পাকিস্তানের জামাত-ই-ইসলামেরসহ-সভাপতিকে তারা ঢাকায় মিটিং চলাকালে হত্যা করে। তারা রূপগঞ্জ, জিনারদি ও ঘোড়াশাল এলাকায় কিছু সক্রিয় পাকসহযোগীদের হত্যা করে।

১৭/১৮ অগাস্ট রাতে যশোর জেলার শার্শার কাছাকাছি ছুটিপুরে একটি পাক অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ১১ জন পাকসেনা হত্যা করে। তারা তাদের কাছ থেকে কিছু অস্ত্র এবং এক পদাতিক ওয়্যারলেস সেট জব্দ করে।

 

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

 

১৩ অগাস্ট গুলি বিনিময়ে ৪ পাকসৈন্য নিহত ও সাত জন আহত হয়।

 

১৫ অগাস্ট ডাঙ্গাপাড়া এলাকায় সাত রাজাকার নিহত ও ১টি শট গান জব্দ হয়। গনমতি এলাকায় পাক সমর্থক বাড়িতে অভিযান চালিয়ে দুই পাক সমর্থকদের হত্যা করা হয়।

 

১৬ অগাস্ট অন্ধ মাছখরিয়া এলাকায় অতর্কিত গুলি বিনিময়ে ছয় পাকসেনা আহত হয়।

 

১৪ অগাস্ট জগতপুরে রাজাকার ক্যাম্পের উপর আক্রমণ চালিয়ে তিন রাজাকার হত্যা এবং একটি রাইফেল উদ্ধার করা হয়।

 

১৪ অগাস্ট ভাবাল দিঘিতে মুক্তিবাহিনী অতর্কিত আক্রমণ করে; এতে ৩ পাকসৈন্য নিহত ও ৪ জন আহত হয় ।

 

১৬ আগস্ট কাজিপাড়ায় আক্রমণে তিন পাকসৈন্য নিহত ও চার জন আহত হয়।

 

১৬ অগাস্ট বাহমানিয়া এলাকায় পাক প্যাট্রোলের সঙ্গে সংঘর্ষে ৪ পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৫ অগাস্ট হিলি ও চরকির মধ্যে রেলওয়ে কালভার্ট ধ্বংস করা হয়।

 

১৪ অগাস্ট রসুল বিল অভিযান চালিয়ে দুই পাকসহযোগী হত্যা করা হয়।

 

১৩ অগাস্ট ফার্সিপারা-আঁটুরা রাস্তা কালভার্ট ধ্বংস করা হয়।

 

১৩ আগস্ট প্রথম হরিণ মারি এলাকায় মুক্তিবাহিনী এবং পাক বাহিনীর মধ্যে গুলি বিনিময়ে ৯ পাকসেনা নিহত এবং ১৫ জন আহত হয়।

 

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর

 

১৩ অগাস্ট আমঝুপু এলাকায় দুই রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

১৪ অগাস্ট চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর রাস্তায় দুটি বৈদ্যুতিক পাইলন ধ্বংস করা হয়।

 

১৪ আগস্ট নওগ্রাম ও চুয়াডাঙ্গার মধ্যে হাটপলিয়াতে অ্যামবুশে তিন রাজাকার হত্যা, চারটি রাইফেল উদ্ধার। একই এলাকায় একটি রাস্তা কালভার্ট ধ্বংস করা হয়।

 

১১ থেকে ১৫ আগস্ট লেবুতলা এলাকায় ২ পাক সমর্থকদের হত্যা করা হয়।

 

১৩ অগাস্ট পান্তাপারা ও জীবন নগর এলাকায় অ্যামবুশে তিন রাজাকার নিহত হয়।

 

১৬ আগস্ট ঘনা গ্রামে একটি ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যের বাড়ি ধ্বংস করা হয় এবং এক পুলিশ দফাদার নিহত হয়।

 

 

ঢাকাকুমিল্লা চট্টগ্রাম সেক্টর

 

আগস্টের মাঝামাঝি ঢাকার কাছাকাছি কোথাও একটি সভায় সমগ্র পাক জামাত-ই ইসলাম দলের ভাইস প্রেসিডেন্টকে হত্যা করে মুক্তিবাহিনী।

 

১৪ অগাস্ট চৌদ্দগ্রাম এলাকায় পাক বাহিনীর উপর মর্টার আক্রমণে ছয় পাকসেনা নিহত হয়।

 

১২ অগাস্ট অ্যামবুশে রিকশা চলন্ত অবস্থায় অতর্কিতে আক্রমণে ১ জন পাকসেনা নিহত ও ২ জন আহত হয়।

 

১৩ অগাস্ট একই এলাকায় অ্যামবুশে ছয় পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৪ আগস্ট কোটেশ্বরে গুলী বিনিময়ে তিন পাকসৈন্য নিহত হয়।

 

১২ আগস্ট এক সক্রিয় পাকসহযোগী রূপগঞ্জ এলাকায় নিহত হয়।

 

১৪ আগস্ট পাক অবস্থান আনন্দপুর আক্রমণে তিন পাকসেনা নিহত হয়।

 

১২ আগস্ট রসুলপুর এলাকায় রাজাকার ক্যাম্প অভিযান চালিয়ে ৫ রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

১৫ অগাস্ট সালদানদী পাক অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ৫ পাকসেনা হত্যা করা হয়।

 

১৩ অগাস্ট পাক অবস্থান মন্দভাগে মর্টার আক্রমণে তিন পাকসৈন্য নিহত ও একটি বাঙ্কার ধ্বংস হয়।

 

১৫ অগাস্ট একই এলাকায় পাক বাহিনীর সাথে গুলি বিনিময় হয় ও দুই শত্রুসেনা হত্যা করা হয়।

 

১৫ অগাস্ট নালুয়া এলাকায় চলন্ত পাকসৈন্যদের উপর অতর্কিতে আক্রমণ ও ১০ জন আহত।

 

১৫ অগাস্ট মিরসরাই এলাকায় দুই রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

১৫ আগস্ট সাল্ধার বাজার পাক বাহিনীর সঙ্গে গুলি বিনিময় ও দুই পাকসেনা নিহত হয়।

 

১২ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী নরসিংদী পূবালী জুট মিলস আগুন দেয় এবং এতে, প্রচুর ক্ষতি সাধন হয়।

 

১১ অগাস্ট ঘোড়াশাল এক পাকসহযোগী নিহত হয়।

 

১১ অগাস্ট সম্পূর্ণ ঢাকা-নরসিংদীর মধ্যে সড়ক সেতু ধ্বংস করা হয়।

 

 

 

ময়মনসিংহসিলেটমৌলভীবাজার সেক্টর

 

১৪ আগস্ট মুক্তিবাহিনী ওমরগাও গ্রামে পাক বাহিনী ও শান্তি কমিটির সভায় অভিযান চালায়। এতে, দুই পাকসেনা এবং ১০ রাজাকার নিহত হয়। কিছু গোলাবারুদ ও একটি রাইফেল উদ্ধার করা হয়।

১১ থেকে ১৬ আগস্টে সদরপুর এলাকায় গেরিলা কার্যক্রম চলে। এতে তিন পাকসৈন্য নিহত ও আট জন আহত হয়। সদরপুর এলাকায় ফেরি ধ্বংস করে মুক্তিবাহিনী তিন রাইফেল ও কিছু গোলাবারুদ উদ্ধার করে।

 

১০ অগাস্ট পারামারি ঘাটে পাকসৈন্য ভর্তি তিনটি মোটর লঞ্চ আক্রমণে ২ টি লঞ্চ ডুবে যায় এবং ১৩ জন পাকসেনা আহত হয়।

 

১৫ আগস্ট তারাপুর ঘাট আক্রমণে সাত পাকসৈন্য ও ১২ রাজাকার নিহত হয়।

 

১৫ অগাস্ট পত্রখাইয়া পাক প্যাট্রোলে অতর্কিতে আক্রমণে ২ জন আহত হয়।

 

১৫ আগস্ট অন্য একটিতে দুই পাকসেনা আহত হয়।

 

১২ অগাস্ট পুল তলা পাক অবস্থানে আক্রমণে এক পাকসৈন্য নিহত ও তিন জন আহত হয়।

একটি বাঙ্কার ধ্বংস করা হয়।

 

১৫ আগস্ট ডাটির গাও এক পাকসৈন্য নিহত।

 

১৬ আগস্ট ভারতীয় সীমানার মধ্যে প্রবেশের চেষ্টায় ৫ পাকসৈন্য নিহত।

 

———————————————————————–

বাংলাদেশ বাহিনীর সদর দপ্তর মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন১৯, আগস্ট

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

 

১৪ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী রংপুর মডেল হাইস্কুলে পাকসেনাদের ঘাঁটি মর্টার দিয়ে আক্রমণ করে। এতে ৭ জন পাকসেনা নিহত হয়।

১৭ অগাস্ট নাগেশ্বরবারী সেতু ধ্বংস করা হয়।

 

১৬ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী ভামানিয়া এলাকায় পাক মিশ্র প্যাট্রোলে অতর্কিত আক্রমণ করে এবং ছয় সৈন্যকে হত্যা করে। ১ টি ১২ বোর বন্দুক উদ্ধার করা হয়।

 

১৬ অগাস্ট কালাহারি এলাকায় রাজাকারের উপর মর্টার দিয়ে আক্রমণ করে মুক্তিবাহিনী। এতে, তিন রাজাকার নিহত হয়।

 

১০ অগাস্ট নওগাঁ এলাকায় ১ টি বৈদ্যুতিক পাইলন ধ্বংস করা হয়।

 

১৪ অগাস্ট পাকসৈন্যরা জোরপূর্বক কানসাট এলাকায় সাধারণ লোকদের সরিয়ে নিচ্ছিল। মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ৯ পাকসৈন্য ও ১৩ রাজাকার নিহত হয়। এতে মর্টার ব্যাবহার হয়।

 

১৬ অগাস্ট দিনাজপুর-ফুলবাড়ী রাস্তার কালভার্ট ধ্বংস করা হয়।

 

১৭ আগস্ট পাক অবস্থান রামসাগরে অভিযান চালিয়ে ৩ পাকসেনা নিহত, ২ জন আহত। পাক বাহিনীর ২ টি যান ধ্বংস করা হয়।

 

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর

 

১৮ আগস্ট মুক্তিবাহিনী গহনছড়াতে সাতটি পাট গুদাম জ্বালিয়ে দেয়।

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর

 

১৫ অগাস্ট রামগড় এলাকায় অ্যামবুশে ৫ পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৫ আগস্ট পাক অবস্থান হরিমঙ্গলে অভিযান চালিয়ে দুই কর্মকর্তাসহ ছয় সেনা নিহত হয়।

 

১২ আগস্ট বান্দুয়া দৌলতপুর এলাকায় আক্রমণে এক পাক সমর্থক নিহত ও মাইলনে ১ জন আহত হয়।

 

১২ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী ফুলগাজী এলাকায় প্রায় এক কিলোমিটার টেলিফোন তার নষ্ট করে।

 

১৪ অগাস্ট পাক অবস্থান দলধরে অভিযান চালিয়ে একজন কর্মকর্তাসহ ১৫ জন আহত। একই এলাকায় আরেকটি লড়াইয়ে একই দিনে পাক বাহিনীর ৫ জন আহত।

 

১৬ আগস্ট নাগাইস এলাকায় পাক প্যাট্রোলে অতর্কিতে আক্রমণে আট জন নিহত হয়।

 

১৫ আগস্ট একই এলাকায় পাক বাহিনীর সাথে আক্রমণে ৫ জন নিহত হয়।

 

১৫ অগাস্ট হামাইলে ৩ জন শত্রুসেনা নিহত হয়।

 

১৩ অগাস্ট কটক এলাকায় পাক বাহিনীর সাথে অভিযান ৫ পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৪ অগাস্ট বিবির বাজার পাক প্যাট্রোলে অতর্কিতে আক্রমণে ছয় জন আহত। একই এলাকায় ওপর একটি আক্রমণে ২ পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৪ অগাস্ট ফেনী-কুমিল্লা রাস্তায় চলন্ত পাক বাহিনীর উপর মর্টার দিয়ে আক্রমণে ৫ পাকসৈন্য নিহত এবং একজন আহত। আরেকটি স্থানে দুটি টেলিগ্রাফের খুঁটি ধ্বংস ও এই এলাকায় বিভিন্ন স্থানে টেলিফোন লাইন ধ্বংস করা হয়।

 

১১ অগাস্ট পাক অবস্থান নয়নপুরে রেলস্টেশনে অভিযান চালিয়ে ২৩ পাকসেনা নিহত হয়।

 

১০ ও ১৫ আগস্টের মধ্যে মুক্তিবাহিনী ঢাকা এলাকায় প্রায় ১০ ডাকাত হত্যা করে। পাক বাহিনী লুট ও ধর্ষন করার জন্য এসব ডাকাতদের নিযুক্ত করেছিল।

 

১৪ অগাস্ট ৪০০০ মণ ধারণকারী নরসিংদীর একটি পাটকল পুড়িয়ে দেয় মুক্তিবাহিনী।

 

 

ময়মনসিংহসিলেটমৌলভীবাজার সেক্টর

 

ফেঞ্চুগঞ্জ গ্রেনেড ছুড়ে মুক্তিবাহিনী দুই রাজাকার হত্যা করে।

 

১৬ অগাস্ট বয়ারাইনারী এবং নান্নির মধ্যে টেলিফোন লাইন ধ্বংস করে। তারা বদর বাহিনী সদস্যদের ওপর অতর্কিত হামলা এবং একই এলাকায় ৩ জন বদর বাহিনীর লোক হত্যা করে।

 

১৬ আগস্ট একটি পাক জিপে অতর্কিতে আক্রমণ করে ছয় পাকসৈন্য হত্যা করে।

 

১৭ অগাস্ট পাক অবস্থান আদিছড়া অভিযান চালিয়ে ১০ জন হতাহত হয়।

 

১০ অগাস্ট ফুলটন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৬ জন নিহত করা হয়।

 

১৩ আগস্ট পাক বাহিনীর উপর ধামাই এলাকায় মাইন আক্রমণে মেজর কামাল ও দুই পাকসেনাকে হত্যা করা হয়।

 

১৬ আগস্ট টাঙ্গাটিলা-ছাতক গ্যাস পাইপ লাইন উড়িয়ে দেয়া হয়। এজন্য ১৬ ০ ১৭ আগস্ট ছাতকে কোন আলো ছিল না।

 

১৩ আগস্ট সাইল এলাকায় পাক প্যারা মিলিটারি গ্রুপ ২৫ টি ঘর-বাড়ি জ্বালিয়ে দেয়, গ্রামবাসীদের উপর নির্যাতন করে, ধর্ষণ এবং লুটপাট করে।

 

১৭ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী কারিতলায় পাক অবস্থান আক্রমণ করে। এতে ২ পাকসেনারা, এক কুক এবং এক পাক সমর্থক নিহত হয়। একটি এলএমজি ধ্বংস হয়।

 

১৫ আগস্ট পাক অবস্থান বকশীগঞ্জএ আক্রমণে ৫ জন নিহত এবং দুটি যানবাহন ধ্বংস করা হয়।

 

দেরীতে প্রাপ্ত তথ্য মতে ৬ আগস্ট মুক্তিবাহিনী পাক পোস্ট বন্দরকটায় অভিযান চালিয়ে একজন কর্মকর্তাসহ ২০ জনকে আহত হয়।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তরে মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন,

২০ শে আগস্ট

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশের সকল সেক্টরে পাকসৈন্যদের উপর তাদের আক্রমণ অব্যহত রাখার কারনে ব্যাপক পাকসেনা হতাহত হয়।

 

নৌপথও তাদের কার্যক্রম বৃদ্ধি পায়। মুক্তিবাহিনী সফল ভাবে পাকসেনাদের নৌকা ধ্বংস করে দেয়।

 

১০ই আগস্ট মুক্তিবাহিনী মাটিকারা এলাকায় পাক বাহিনীর চারটি স্টিমারে অতর্কিত আক্রমণ করে। স্টিমারটি পালাতে চেষ্টা করলেও ব্যার্থ হয়। কিন্তু স্টিমারের এক সেনা কর্মকর্তা এবং ২০ জন লোক স্টিমারটি ফেলে রেখেই পালিয়ে যায়। সেখান থেকে মুক্তিবাহিনী ৫০০ বাক্সে গোলাবারুদ উদ্ধার করে ও পরে স্টিমারে আগুন ধরিয়ে দেয়।

 

১২ আগস্ট একই এলাকায় মুক্তিবাহিনী পাকসৈন্যদের অ্যামবুশ করে। এতে ২০ জন পাকসেনা নিহত হয়। ১৩ আগস্ট আবারো এই এলাকায় এম্বুশ করে এবং ১৬ পাকসেনা নিহত হয়।

 

প্রতিবেদনে জানা যায় খুলনারতেরখাদায় মুক্তিবাহিনী সশস্ত্র রাজাকারদের সঙ্গে যুদ্ধ নিযুক্ত হয়। সেখানে ২৬ জন রাজাকার নিহত এবং ৭ জন গুরুতরভাবে আহত হয়। জানা যায় পাকসেনারা তাদের পাঠায়। তারা কঞ্চফু হাই স্কুলে অবস্থান করছিল। তারা সেখানে লুটপাট ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের ঘর পোড়ানোর শুরু করে। তারা এলাকার অন্যান্য মানুষের ঘরও পুড়িয়ে দেয়। এই তথ্য পেয়ে মুক্তিবাহিনী মানুষের সাহায্যে এগিয়ে আসেন এবং রাজাকারদের সাথে যুদ্ধ শুরু করে।

 

১৭ আগস্ট শ্যাম নগর থানায় অভিযান চালিয়ে ২ রাজাকার হত্যা করে এবং দুই রাইফেল (৩০৩) এবং ২০০ রাউন্ড গোলাবারুদ দখল করে নেয়।

 

১৫ ই আগস্ট পাকসৈন্যদের একটি লঞ্চে আক্রমণ করে। এতে, ৩০ জন পাকসেনা নিহত হয়। একই দিনে কপিল মুনি অঞ্চলে আরেকটি অ্যামবুশে ২৬ জন রাজাকার নিহত হয়।

 

বিবরণ নিচে দেওয়া হল:-

 

১৩ অগাস্ট কামাল পোখারি এলাকায় কালভার্ট ধ্বংস করা হয়।

১৯ আগস্ট গোমাথি-খেতির একটি সেতু ধ্বংস করা হয়।

 

১৮ অগাস্ট দাদুলে ছয় পাকসৈন্য নিহত ও দু’জন আহত করা হয়।

 

১৮ অগাস্ট রায়গঞ্জ ও নাগেশ্বরী মধ্যে ২০০ গজ টেলিফোন লাইন ধ্বংস করা হয়।

 

১৫ অগাস্ট দালমনিহাট কলেজে রাজাকার ও পাকসেনাদের স্বাধীনতা দিবস কার্যক্রমে আঘাত করে ২০ জনকে আহত করা হয়।

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর

 

১৫ অগাস্ট বদখানা এলাকায় কালভার্ট ধ্বংস করা হয় ও এক পাক সমর্থক নিহত হয়।

 

১৫ অগাস্ট সাবদান এলাকায় মর্টার আক্রমণে ছয় জনের মৃত্যু হয় এবং ৯ জন আহত হয়।

 

১৪ অগাস্ট পাবদা এলাকায় সড়ক কালভার্ট ধ্বংস করা হয়।

 

১২ আগস্ট মাগুরায় গেরিলা আক্রমণে নাহাটায় ৫ রাজাকার নিহত হয়। ৫ টী রাইফেল জব্দ হয়। পাখুরিয়াতে তিন পাক সমর্থকদের হত্যা এবং একটি বেয়নেট জব্দ হয়।

 

১৫ অগাস্ট একটি লঞ্চে আক্রমণ করে ৩০ জন পাকসেনা নিহত করা হয়। একই দিনে কাঁপিলমনিতে ২৬ জন রাজাকার হত্যা করে।

 

 

ময়মনসিংহসিলেটমৌলোভীবাজার সেক্টর

 

১৭ অগাস্ট রাধানগর অভিযান চালিয়ে ১১ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

 

১৯ আগস্ট পাচিম সাল্কনা এলাকায় মাইন বিস্ফোরণে ১ পাকসেনা নিহত হয়।

 

১২ অগাস্ট মাটিকাটা অ্যামবুশে ২০ জন পাকসেনা নিহত হয়।

 

১০ আগস্ট মাটিকাটা চারটি স্টিমার পাক কনভয় অতর্কিতে আক্রমণ। এক কর্মকর্তা এবং ২০ জন পালিয়ে যায়। ৫০০ বাক্সে গোলাবারুদ সংগৃহীত হয়। এবং স্টিমার আগুন লাগিয়ে দেয়া হয়।

 

১৩ অগাস্ট মাটিকাটা য় আক্রমণে ষোল পাকসেনা নিহত করা হয়।

 

১৮ আগস্ট কাটিয়ামাড়ায় পাক প্যাট্রোল আক্রমণে দুই রাজাকার আহত হয়।

 

১৬ আগস্ট আলিনগরে ২০০ গজ তার বিচ্ছিন্ন করা হয়।

 

সুনামগঞ্জ-সিলেটে হাফ মাইল টেলিফোন তার ধ্বংস করা হয়।

গেরিলারা অসংখ্য বিদেশী জাহাজ ডুবিয়ে দেয়

      

মুজিবনগর আগস্ট, ২২, এক সপ্তাহে গেরিলারা বাংলাদেশের বিভিন্ন পোর্টে এক ডজনেরও বেশী বড় জাহাজ ডুবিয়ে দেয়। এগুলো ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান ও পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশের জাহাজ। এগুলো অস্ত্র ও গোলাবারুদ বহন করত এবং আরো কৌশলগত জিনিশপত্র আনা-নেয়া করত, যার মূল্য পাকসেনাদের কাছে অত্যন্ত বেশী ছিল।

 

যানা যায় সেখানে লাইটেনিং নামে একটি সোমালিয়ান জাহজ এবং আল আব্বাস নামে পাক বাহিনীর জাহাজ ছিল। এটির ওজন ছিল ১৫,০০০ টন। এটি তৈরি করতে প্রায় ১০ কোটি রুপির প্রয়োজন হয়েছে। ১৯৬৮ সালে সালে আইয়ুব খানের আমলে এটি চালু করা হয়েছিল।

 

সরকারের একজন মুখপাত্র বলেছিলেন বাংলাদেশের জনগণের বিরুদ্ধে গণহত্যা, ধর্ষণ, নির্যাতন ও উচ্ছেদের মাধ্যমে যেকোন কার্যক্রম প্রতিরোধ করার জন্য জনগণ প্রস্তুত আছে। তাই ইসলামাবাদের সাথে সহায়তা করে পাঠানো যেকন সরঞ্জাম নিজ ঝুঁকিতে পাঠাতে বলা হয় বিভিন্ন দেশকে।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর

মুজিবনগর

জনসংযোগ দপ্তর

২৩ শে আগস্ট

 

মুক্তিবাহিনী বাংলাদেশ সীমানার মধ্যে নৌপথে প্রচুর আক্রমণ পরিচালনা করেছে। সেই সব গেরিলা অপারেশনের বর্ননা নিম্নে বর্নিত হল-

 

১৬ আগস্ট মুক্তিবাহিনী মংলা বন্দরে অপারেশন সম্পন্ন করে। ৬টি কার্গো শিপ ডুবে যায়-যার মধ্যে ২ টি আমেরিকান, ২ টি চীনা, জাপানি এবং এক পাকিস্তানি জাহাজ রয়েছে। এই জাহাজে পাকসেনাবাহিনীর জন্য অস্ত্র ও গোলাবারুদ বহন করা হয়। নালিয়নের মুক্তিযোদ্ধারা ২ টি পাক বন দপ্তর দখল করে নিলেন। এছাড়াও ৮ টি রাইফেল (৩০৩), ২ টি রিভলবার ও ২৬ টি শট গান জব্দ করা হয়।

 

রাতে একই তারিখের ‘ লাইটনিং’ ও ‘ সলায়মান’ জাহাজ ডুবানো হয়। ১৫/১৬ আগস্ট রাতে চট্টগ্রাম বন্দরে প্রচণ্ড কর্মকান্ড পরিচালনা করা হয়। আল-আব্বাস, ১৫০০০ টনের জাহাজ ডুবিয়ে দেয়। এই জাহাজে ১০ কোটি রুপি খরচ পড়েছিল। এটা ১৯৬৮ সালে আইয়ুব খানের সময় চালু হয়। ‘ফরমোছা’ নামে আরেকটি জাহাজ মুক্তিবাহিনী নিমজ্জিত করে। জেটি ১৩তে তারা একটি কার্গো নিমজ্জিত করে।

 

১৫/১৬ আগস্ট রাতে ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম রাস্তা র দাউদকান্দি ফেরিঘাটে গেরিলা কার্যক্রম সম্পন্ন হয়। মুক্তিবাহিনীর একটি ফেরী ডুবিয়ে দেয়। এতে ৮ টি বড় যানবাহন ঘরত। তারা স্টিমার ঘাট জেটি ও পন্টুন সম্পূর্ণ ধ্বংস করে। জ্বালানীর স্টোরেজ এবং বড় ড্রামস ধ্বংস করে। লঞ্চঘাট পন্টুন ও জেটি সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়েছে এবং এতে ১২ জন রাজাকার ও পুলিশ নিহত হয়।
১৬ আগস্ট নারায়ণগঞ্জ হার্বারে ৩ টিজাহাজ ডুবে যায়। একটি বড় কয়লা স্টিমার কাছে ডুবে গিয়েছিল।

 

৭ থেকে ১৬ আগস্ট লাখ্য নদীর উপর ৩ টি বড় মোটর লঞ্চ ধ্বংস এবং ১৫০ জন পাকসেনা নিহত হয়।
১৮ আগস্ট সিলেট জেলার দক্ষিণ দিরাই একটি স্টীমার ডুবে যায়।

 

১৩ আগস্ট চাতুল ফেরী ধ্বংস হয়।

 

১৫ আগস্ট সিলেট জেলার সুনামগঞ্জ মহকুমায় সাঞ্চা থেকে পাক কার্গো লঞ্চ ও বার্জ জব্দ হয়। তারা এছাড়া এক কার্গো লঞ্চ, মোটর ৮ টি, টানেন মটর লঞ্চ ১ টি ও কার্গো লঞ্চ বাসুনারা জব্দ করে। মটর লঞ্চ ব্যবহৃত হচ্ছে টাগ এস্কোর্টের জন্য। দুটিতে সিমেন্ট দিয়ে ও ১ টিতে গম ছিল। ৫ টি খালি বার্জ ছিল। এগুলো গুমঘাঁটের দিকে যাচ্ছিল। এছাড়া দোকান, বৈদ্যুতিক পণ্য, খাদ্য উপাদান ছিল। ৩০০০ এমডি এস গম ভর্তি পাকসেনাদের জাহাজ সাঞ্চানাতে জব্দ হয়।

 

১৯/২০ আগস্ট রাতে রংপুর বর্ডার আউটপোস্ট আক্রমণ করা হয়। ২০ জন পাকসেনা আহত ও ২ তও বাঙলার ধ্বংস হয়।

 

১৯ আগস্ট শ্যাম নগরে আক্রমণে ১৬ জন আহত হয়। কিছু যান ধ্বংস হয়।

১৬ থেকে ১৮ আগস্ট মন্দভাগে সালদানদীতে পাক অবস্থানে অভিযান চালিয়ে প্রায় ৮০ পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৯ আগস্ট আমালছিতে পাকসৈন্য ‘প্রচেষ্টা বানচাল এতে ১০ পাকসৈন্য, ২সহযোগী, ৮ পাক আধাসামরিক লোক নিহত হয়। আলামছি এখন মুক্তিবাহিনীর দখলে।

 

১৩ আগস্ট সিলেটের কাছাকাছি আনসার চেইনপ্স গ্রেনেড ছুড়ে; এতে, ১৩ পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৩ আগস্ট নেত্রকোনা মহকুমারকেন্দুয়া থানায় অভিযান চালিয়ে ৬ পাক পুলিশ হত্যা করা হয়। তারা ১৩ রাইফেল (৩০৩), ২ টি চীনা রাইফেল, ১৭ টি বেসামরিক বন্দুক এবং গোলাবারুদ জব্দ করে। তারা থানা এবং ২ টি ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়।

৮ আগস্ট পাকিস্তানের সৈন্য বহনকারী একটি বেসামরিক বাস ফেরী এলাকায় মাইনে উড়িয়ে দেয়। ২ জন জেসিওসহ ১৯ পাকসৈন্য নিহত হয় এবং ৩০ জন এই ঘটনায় আহত হয়।

 

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী ১৭ আগস্ট নারায়ণগঞ্জের মহকুমার নরসিংদী ও শিবপুর মধ্যে একটি সড়ক সেতু ধ্বংস করে।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর

মুজিবনগর

জনসংযোগ দপ্তর

২৪ শে আগস্ট

 

১। ২১ আগস্ট মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা সেক্টরের কানাস্থালায় পাকিস্তানি অবস্থানের উপর অভিযান চালিয়ে একজন কর্মকর্তাসহ ১৫ শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

২। ১৬ আগস্ট মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা সেক্টরের এলাকা মুরাদনগরে পাকিস্তানি সৈন্য অতর্কিতে আক্রমণ করে এক কর্মকর্তাসহ ৩০ শত্রুসৈন্য ৫ রাজাকার হত্যা করে এবং একটি রাইফেল ও কিছু চীনা গোলাবারুদ উদ্ধার করে।

 

৩। সামরিক আইন কর্তৃপক্ষ সাধারণ জনগণকে তাদের সাথে কাজে যোগদানের জন্য লিফলেট প্রচার করে। লিফলেটে বলায় হয় যে সেনাবাহিনী তাদের নিরাপত্তার জন্য মোতায়েন করা হয়েছে। লিফলেটে আরও বলা হয় অবিলম্বে তাদের সেবা নিশ্চিত করা হবে যদি তারা যোগদান করেন।

 

৪। বাংলাদেশ জাতীয় শ্রমিক লীগের একজন মুখপাত্র বলেন কোন বাঙ্গালী শ্রমিক তাদের জুট মিলস ও অন্যান্য কারখানায় যোগদান করেনি। এম এল কর্তৃপক্ষ অধিকৃত এলাকার জুট মিলস এবং অন্যান্য কারখানা চালাতে শমিক পেলনা-তাই পশ্চিম পাকিস্তান থেকে শ্রমিক আমদানি ছাড়া কিছু করার থাকল না। তিনি আরও বলেন বাঙ্গালী শ্রমিক তাদের জন্মভূমি থেকে হানাদার বাহিনীকে দূর করে ছাড়বে।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর

মুজিবনগর

জনসংযোগ দপ্তর

২৪ শে আগস্ট

 

প্রতিবেদনে জানা যায় মুক্তিবাহিনী বিভিন্ন সেক্টরে এক অফিসারসহ ৮৪ জন পাকসেনা নিহত করে এবং ৫৪ জন পাকসৈন্য আহত হয়েছে। মুক্তিবাহিনী ৪৯ জন রাজাকার হোটয়া এবং ৭ জন রাজাকারকে আহত হয়, ও ৮ প্রকার অস্ত্র দখল করে। তারা পাকসেনাদের একটি খাবারবাহী ও অন্যান্য সামগ্রী বহনকারী লঞ্চ দখল করে।

তাদের বিস্তারিত রিপোর্ট নিচে দেওয়া হল:-

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

 

২১ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী ফুলতলা এলাকায় পাক বাহিনীর উপর অভিযান চালায়। এতে, ৩ জন নিহত ও ৪ জন আহত হয়।

 

২০ আগস্ট বেলবাড়িতে একজন কর্মকর্তাসহ এবং ৯ জন নিহত হয় ও ৪ জন আহত হয়।

 

২১ আগস্ট মুক্তিবাহিনী ঠাকুরগাও ও রুহিতে ২০০ ফুট রেললাইন উড়িয়ে দেয়।

 

১৯ আগস্ট ১০ জন পাকসেনা নিহত হয়। চাক্রামে আরেকটি অভিযানে ছয় জন হতাহত হয় ৯ জন জখম হয়।

 

২১ অগাস্ট শান্তি বাহিনী সদস্যদের পাঁচটি ঘর অভিযান চালিয়ে এক ডবল বোর বন্দুক, চারটি সিঙ্গেল বোর বন্দুক এবং কিছু গোলাবারুদ জব্দ করে।

 

১৭ অগাস্ট পার্ভতিপুর ও ফুলবাড়ী রেলওয়ে কালভার্ট ধ্বংস করে।

 

২০ আগস্ট একই এলাকায় একটি টহল দল অ্যামবুশে পাক বাহিনীর চার জন আহত হয়।

 

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর

 

২২ আগস্ট ৩ পাকসেনা নিহত এবং পাঁচ জন আহত হয়।

 

২১ অগাস্ট প্রাগপুরে দুটি হত্যা ও তিন জনকে আহত হয়।

 

১৮ থেকে ১৯ আগস্ট যশোর এলাকায় সফল গেরিলা হামলা চালিয়ে তারা চন্দ্রপাড়ায় ২ জনকে হত্যা করে। ভবতপুরে রেলের দুই বগি লাইনচ্যুত করা হয় এবং মাথুরাপুরে রাজাকারদের আক্রমণ করা হয়।

 

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর

 

১৬ আগস্ট দুটি স্টিমার ও চাঁদপুরে পণ্যসম্ভার বহন করা একটি বড় বজরা ডুবিয়ে দেয়া হয়।

মুক্তিবাহিনী লঞ্চঘাট ও পন্টুন সেতু ক্ষতিগ্রস্ত করে।

 

১৮ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী দুটি বৈদ্যুতিক পাইলন এবং সাহাজিবাজার ও সিলেটের মধ্যে বিদ্যুতের লাইন ধ্বংস করে।

 

 

ময়মনসিংহসিলেটমৌলভীবাজার সেক্টর

 

১৯ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী কামালপুরের কাছাকাছি বলদ্মুড়া সড়ক সেতু ধ্বংস করে ৩ পাহারারত ৫ রাজাকারকে হত্যা করে।

 

১৯ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী কুশিয়ারা নদীর উত্তরে বাঁধ ধ্বংস করে।

 

২০ অগাস্ট বিজয়পুরে পাক পোস্ট ৫ জন পাকসেনা হত্যা এবং ৫ টি বাংকার ধ্বংস হয়।

 

১৪ থেকে ১৬ আগস্ট ময়মনসিংহ-ফুলবাড়িয়া রাস্তায় দাপুনিরে যুদ্ধে ১০ পাকসৈন্য নিহত ও চার জন আহত হয়। মুক্তিবাহিনী দাপুনির সেতুটি ধ্বংস করে।

 

২০ আগস্টে কামালপুরে অ্যামবুশে ১ জন পাকসেনা নিহত হয়।

২১ আগস্ট তানটার নামে এক পাক অবস্থানে অভিযান চালিয়ে মুক্তিবাহিনী দশ জন পাকসৈন্য হত্যা করে।

 

১৪ এবং ১৬ আগস্ট থেকে অ্যাকুয়া ব্রিজে পাক প্রহরীদের দিকে গ্রেনেড ছুড়ে ২ জন শত্রুসেনা হত্যা করে।

 

১৯ অগাস্ট লাঙলাতে পাকসৈন্যদের উপর অতর্কিত আক্রমণে দুই জন শত্রুসেনা আহত হয়।

 

১৯ অগাস্ট বড়লেখাতে দুই পাকসেনা নিহত এবং দু’জন আহত হয়। কাছাকাছি পাক অবস্থান ছোটা লাদাখে অভিযান চালিয়ে মুক্তিবাহিনী এক রাজাকার হত্যা করে।

 

২১ আগস্ট আমালসিদ এলাকায় পাক বাহিনীর সাথে গুলি বিনিময় শুরু হলে চার পাকসৈন্য নিহত হয়।

 

১৯ অগাস্ট শুটার কান্দির কাছাকাছি ফাইলাপুরে দুই পাকসেনা ও দুই পাক সমর্থকদের হত্যা করা হয়।

 

২০ আগস্ট রায়গ্রান এলাকায় পাক প্যাট্রোলে অতর্কিতে আক্রমণে এক পাকসৈন্য নিহত ও দুই জন আহত হয়েছে।

 

২১ অগাস্ট ঢাকা থেকে সিলেট গামী খাদ্য ও অন্যন্য মাল বাহী একটি কার্গো চাঁদপুরে জন্দ হয়। এর ধারণ ক্ষমতা ১২৫ টন। ক্রু ছিলেন ৯ জন। আনুমানিক পণ্য মূল্য প্রায় ৮৫০০০ টাকা।

 

১৯ অগাস্ট জাঁকিব বাড়ি বাজারে অভিযান চালিয়ে ১২ রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

২৫ আগস্ট মালিক বাড়িতে ১৬ রাজাকার নিহত হয়।

 

২৬ জুলাই ভালুবাতে অভিযান চালিয়ে চার জন পাকসেনা হত্যা করা হয়।

 

২৭ জুলাই মুক্তিবাহিনী আঙ্গরগারাতে অভিযান চালিয়ে চার রাজাকার হত্যা করে।

 

১৫ অগাস্ট ময়মনসিংহ এ পুলিশ লাইনে গ্রেনেড ছোড়ায় এক পুলিশ নিহত ও তিন জন আহত হয়।

 

১৬ আগস্ট লক্ষ্মীপুর রাজাকারদের সঙ্গে মুক্তিবাহিনীর এনকাউন্টারে তিন জন শত্রুসেনার মৃত্যু হয় এবং সাত জনকে গ্রেফতার করা হয়।

 

১৪ অগাস্ট তারাকান্দা বাজারে সাত রাজাকার নিহত ও চার জন আহত হয়। ৩ টি রাইফেল উদ্ধার করা হয়।

 

২০ অগাস্ট হালুয়াঘাট ও টেলিখালির মধ্যে টেলিফোন লাইন নষ্ট করা হয়।

 

২১ আগস্ট ও ২২ আগস্ট কামালপুর-বকশীগঞ্জের মধ্যে টেলিফোন লাইন নষ্ট করা হয়।

 

২২ অগাস্ট চালিপাড়ায় পাক বাহিনীর একটি নৌকার উপর মর্টার দিয়ে আক্রমণ করে ক্ষতিগ্রস্ত করা হয়। তানটারে আক্রমণে ১৬ জন পাকসৈন্য নিহত এবং ১৮ জন আহত হয়।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর

মুজিবনগর

জনসংযোগ দপ্তর

২৫ শে আগস্ট

 

মুক্তিবাহিনী সব খাতে তাদের গেরিলা অপারেশন করে যাচ্ছে এবং পাকসেনা, রাজাকার ও তাদের দোসরদের মারাত্মক ক্ষতি করে যাচ্ছিল। তথ্য থেকে জানা যায় ২ কর্মকর্তাসহ ১০২ পাকসেনা নিহত এবং ১৯ জন পাকসেনা আহত হয়েছে। এছাড়া ৪৯ রাজাকার নিহত এবং ৬সহযোগীকে বন্দী করা হয়েছে। অধিকৃত এলাকার পাঁচটি স্থানে টেলিফোন তার ধ্বংস বা ৫ টি সড়ক সেতু ক্ষতিগ্রস্ত করা হয়েছে।

 

উল্লেখযোগ্য সাফল্য নীচে বিবৃত করা হয়:

 

১৪, ১৫ ও ১৭ আগস্ট খুলনা জেলার কাবাল বাড়ি, ফেতুয়া, হাজীপুর, তালা ও পাইকগাছা অপারেশন সম্পন্ন হয়। এই লড়াইয়ে কালাবারি ২৫ রাজাকার, ফেতুয়া ১৫ রাজাকার, ও হাজীপুর এলাকায় ৩ রাজাকার ও পাক সমর্থক নিহত হয়। তালা ও পাইকগাছা বিমুক্ত হয়েছে বলে রিপোর্ট করা হয়।

 

২১ আগস্ট নোয়াখালীর খাঁয়ের বাজারে এবং লক্ষ্মীপুর থেকে শত্রুদের পিছু হটিয়ে দেয়া হয়।

 

২১ আগস্ট যশোর জেলার নোয়াপাড়ায় আট জন হতাহত হয়। পরে তারা এই এলাকা থেকে প্রত্যাহার করে নেয়।

 

২১ আগস্ট আয়েদপুর এলাকা শত্রুমুক্ত হয়।

 

৮ আগস্ট রাতে পাঞ্জাবি সৈন্য ও পাঠান সৈন্যদের মাঝে ভূরুঙ্গামারী এলাকায় বিতর্ক সৃষ্টি হয়। পাঞ্জাবি বাহিনী একজন পাঠান অধিনায়ককে এরেস্ট করে।

 

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

 

১৫ আগস্ট মুক্তিবাহিনী ফুলবাড়ী-পাহাড়ী ট্র্যাকে রেলওয়ে কালভার্ট ও দুই টি টেলিগ্রাফের খুঁটি ধ্বংস করে।

 

২১ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী ফুলতলা-ঠাকুরগাঁও রাস্তার উপর সড়ক সেতু ধ্বংস করে।

 

২০ অগাস্ট কুড়িগ্রাম এলাকায় ওয়াপদা কর্মকর্তা কলোনিতে আক্রমণ করে তিন পাক সমর্থকদের (অফিসার) হত্যা করে।

 

২২ আগস্ট কুড়িগ্রাম-লালমনিরহাট এলাকায় রাস্তা ক্ষতিগ্রস্ত করে।

 

২০ অগাস্ট নাগেশ্বরী-ধানি গাগ্লা এলাকায় দুটি সড়ক সেতু ক্ষতিগ্রস্ত করা হয়।

 

২২ আগস্ট রাত্নাই সেতু মহাইঘাটে রেললাইন উড়িয়ে দেয়া হয়।

 

১৮ আগস্ট রাতে ভূরুঙ্গামারী এলাকায় টহল রত পাঞ্জাবি এবং পাঠান বাহিনীর মধ্যে বিতর্ক হয়। পাঠান ক্যাপ্টেন এরেস্ট হন।

৬ আগস্ট সুখান পুকুরের কাছাকাছি দুটি কালভার্ট ধ্বংস এবং গাবতলীর কাছাকাছি এক পাকবাহিনী জিপে অতর্কিতে আক্রমণ করা হয়। এবং ৭ পাকসেনা হতাহত হয়।

 

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর

 

৭ ও ১৩ আগস্ট এর মধ্যে ঝিঙার গাছা এলাকায় অনেক গেরিলা অভিযান সম্পন্ন করা হয়। তারা আজিরপুরে ১ পাকসেনা হত্যা করে। মুহম্মদপুর এলাকায় অ্যামবুশে দুই জন পাকসেনা নিহত হয়। তারা আম্রিতবাজারে ইউনিয়ন পরিষদ অফিস এবং পোস্ট অফিস জ্বালিয়ে দেয় এবং সিল ও নথি উদ্ধার করে।

 

২২ আগস্ট কাশিম্পুরে ৫ পাকসেনা নিহত হয়।

 

স্থানীয় প্রতিরোধ গ্রুপ এবং মুক্তিবাহিনী নিম্নলিখিত কর্ম সম্পন্ন করে-

 

১৪ আগস্ট তারা ২৫ জন রাজাকার হত্যা করে। ১৫ আগস্টে তারা ফেতুয়াতে ১৫ রাজাকার হত্যা করে। ১৭ আগস্ট তারা হাজিপুরে ১ পাক সমর্থক ও ৩ রাজাকার হত্যা করে। এটা জানা যায় যে তালা ও পাইকগাছা মুক্তিবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে এসেছে।

আমবাড়িয়া এলাকায় ১০ আগস্ট ৩ টি বৈদ্যুতিক পাইলন ধ্বংস করা হয়।

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর

 

২০ অগাস্ট ছাগলনাইয়া-শুভপুরে মাইনের বিস্ফোরণে পাক যান ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

 

২০ অগাস্ট ছয় ঘরিয়া এলাকায় পাকসৈন্য বাহী দুই পাক বেসামরিক যানবাহন গ্রেনেড আক্রান্ত হয়। এতে ২ পাকসৈন্য আহত এবং যানবাহন ক্ষতি হয়।

 

১৮ আগস্ট আনন্দ পূর দক্ষিণে তিন পাকসেনা নিহত এবং ২ জন আহত হয়। ১৯ আগস্ট একই স্থানে আক্রমণে ৫ জন আহত হয়।

 

১৭ আগস্ট কানাস্থালাতা এলাকায় আক্রমণে ২ জন পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৯ অগাস্ট কানস্থ লতা এলাকায় অ্যামবুশে ২ পাকসৈন্য নিহত ও ১ জন আহত হয়।

 

২০ আগস্ট মুক্তিবাহিনী একই এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১১ পাকসেনা হত্যা করে। ২১ আগস্ট আবার একই এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১৫ পাকসেনাদল হত্যা করে একজন অফিসারসহ। ফলে পাকসেনারা খেইস বাজার এবং লক্ষ্মীপুর থেকে দূরে বিতাড়িত হয়।

 

২১ আগস্ট নোয়াপাড়া এলাকায় পাক বাহিনীর ৮ জন হতাহত হয় ও পরে তারা অবস্থান থেকে সরে যায়।

 

১৭ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী ইলিয়টগঞ্জের শান্তি কমিটির চেয়ারম্যানকে হত্যা করে।

 

১৬ অগাস্ট মুরাদ নগরে একটি দেশী নৌকায় আক্রমণে একজন কর্মকর্তা এবং ৫ রাজাকারসহ ত্রিশ পাকসৈন্য নিহত হয়। তারা একটি রাইফেল ও কিছু চীনা গোলাবারুদ দখল করে।

 

২১ আগস্ট রঘুরাম্পুরে ২০০ গজ টেলিফোন তার নষ্ট করা হয়।

 

২০ আগস্ট উশাম্পুরে মাইনে এক পাকসেনা নিহত ও ১ জন আহত হয়।

 

 

ময়মনসিংহসিলেটমৌলভীবাজার সেক্টর

 

কালীঘাট এলাকায় ২০ আগস্ট ২ পাকসেনা হত্যা ও তিন জন আহত হয়।

 

২১ অগাস্ট অ্যামবুশে ৩ জন আনসার আহত হয়।

 

২১ অগাস্ট ব্রহ্ম বাজার ২০০ গজ টেলিফোন লাইন ধ্বংস কর হয়।

আয়েদপুরে ৮ বর্গ মাইল এলাকায় থেকে এগুলো সংগ্রহ করা হয়।

 

২২ অগাস্ট রহিম পুরে দুই পাকসেনা নিহত এবং এক জন আহত হয়

 

২২ অগাস্ট চরবাঙ্গালীতে মাইন বিস্ফোরণে এক রাজাকার নিহত হয়।

 

২৩ আগস্ট জামালপুর-বকশীগঞ্জ ও হালুয়াঘাঁট-টেলিখালির মধ্যে টেলিফোন লাইন বিচ্ছিন্ন করা হয়।

 

২২ আগস্ট তানটার এলাকায় পাক চৌকি সমেত এলাকা আক্রমণে ২ পাকসৈন্য আহত হয়।

 

২০ আগস্ট ও ২১ আগস্ট টাঙাইলে আক্রমণে দুই পাকসেনা নিহত এবং চার জন আহত হয়।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর

মুজিবনগর

জনসংযোগ দপ্তর

২৬ শে আগস্ট

 

মুক্তিবাহিনীরা সব খাতে তাদের গেরিলা কার্যক্রম বজায় রেখেছে। তারা পাক বাহিনী, রাজাকার ওসহযোগীদের মারাত্মক ক্ষয়ক্ষতি করছে।

 

তাদের কিছু প্রশংসনীয় এবং বীরত্বপূর্ণ কার্যক্রম নিম্নে দেওয়া হল:-

 

১। ২২ আগস্ট অনিয়মিতসহ দুই পাক প্লাটুন ভামানিয়াতে মুক্তিবাহিনীর উপর হামলা করার চেষ্টা করে। এতে এক মেজর ও আনসারসহ ২৫ জন হতাহত হয়। পরবর্তীতে ২৬ আগস্ট তারা সৈন্য প্রত্যাহার করে। একই এলাকায় মাইনে একটি জিপ বিস্ফোরিত হয়। ৩ জন পাকসেনা নিহত এবং ২ জন আহত হয়েছে।

 

২। ২২ আগস্ট পাখুরিয়া স্কুল-যেখানে ২ প্লাটুন পাকসেনা ছিল-সেখানে আক্রমণ করা হয়। ৪৫ জন পাকসেনা নিহত ও ১৫ জন আহত হয়। স্কুল ভবনের ক্ষতি হয়।

 

৩। ২৪ আগস্ট মৃধার বাজারে অ্যামবুশে ৬ জন জখম হয়। প্রতিশোধমূলকভাবে তারা বেসামরিক ঘর-বাড়ি জ্বালিয়ে দেয়। ২১ আগস্ট অ্যামবুশে ৭ জন পাকসেনা নিহত ও ৪ জন আহত হয়। অবশিষ্ট সৈন্য পার্শবর্তী ঘরে আগুন লাগিয়ে পালিয়ে যায়।

 

৪। বৈদ্যুতিক পাইলন না থাকায় সিলেট শহরে একটি অংশ বিদ্যুৎহীন আছে। ১৫ আগস্ট ছাতক ও সিলেটে আরও ২ টি পাইলন ধ্বংস করা হয়।

 

৫। একটি নিশ্চিত প্রতিবেদন অনুযায়ী জানা যায় সিলেটে নাগরিক হাসপাতালে প্রায় ১৫০ জন আহত রাজাকার চিকিত্সা নিচ্ছে। এই হাসপাতালে প্রচন্ডভাবে পাকসৈন্য দ্বারা সুরক্ষিত।

 

৬। পাক কর্তৃপক্ষ ‘ঈগল ফোর্স ‘ নামে যশোরে একটি নতুন সংগঠন করেছে বলে জানা গেছে

 

৭। ২২ আগস্ট অভয় এলাকায় এম্বুশে ৩ টি পাক পেট্রোল পোস্ট আক্রান্ত হয়। দুটি পাক নৌকা ডুবে যায়। ১৫ জন পাকসৈন্য নিহত হয়।

 

 

মুক্তিবাহিনীর কার্যক্রম নিচে দেওয়া হল:-

 

২২ অগাস্ট রাত্নাই ও মোঘলাহাটে রেললাইন মেরামতের সময় দুই রাজাকার ও দুই শ্রমিক নিহত হয়। ২২ অগাস্ট মোঘলাহাটে মুক্তিবাহিনী পাক সমর্থকদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে ৫ সমর্থক হত্যা করে।

 

১৭ আগস্ট ওয়েস্ট ভুরুঙ্গামারী পাক প্যাট্রোল আক্রমণে এক পাকসৈন্য নিহত এবং ৫ জন আহত হয়।

 

১৮ আগস্ট আন্ধারিঝার খামার এ চার জন পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৮ অগাস্ট আন্ধারিঝার খামার এবং লালমনিরহাটের মধ্যে প্রায় ২০০ গজ টেলিফোন তার ছিন্ন করে।

২২ আগস্ট বড়বাড়ি তীর্ণাই সেতু ধ্বংস করা হয়।

 

২১ অগাস্ট বাদ্মিসএলাকায় ছয় পাকসেনা নিহত এবং চার জন আহত করা হয়।

 

২২ অগাস্ট যাবার হাট পাকসৈন্য ও আধা সামরিক বাহিনীর সদস্যদের ওপর অতর্কিত হামলা এবং ১০ জন আহত করা হয়।

 

১৯ অগাস্ট বারাতে এক শান্তি কমিটি সদস্য এবং বাগধানিতে আরেক সদস্য নিহত হয়।

 

২২ অগাস্ট বসুয়া এলাকায় মুক্তিবাহিনী গেরিলা আক্রমণ চালায়; এতে চার রাজাকার নিহত এবং দুই পিস কমিটির সদস্য বন্দী হয়। তিনটি রাইফেল ও দুটি বন্দুক জব্দ করা হয়। ইউনিয়ন পরিষদ অফিস জ্বালিয়ে দেয়া হয় এবং ইউনিয়ন পরিষদের কর্মকর্তার দুটি পরিচয়পত্র জব্দ করা হয়।

 

২৩ অগাস্ট বিদ্যাধরপুরে ৫ পাকসেনা নিহত এবং সাত জন আহত হয়। এক পাক সমর্থকও নিহত হয়।

১ থেকে ১৩ আগস্টে ফরিদপুরে গেরিলা কার্যক্রম সম্পন্ন। তারা কামালপুরে মুসলিম লীগের সমাবেশে ২০ পাকসেনা হত্যা করে। কাওলিকান্দার কাছাকাছি দিগনগরে পুলিশ স্টেশন ও রাজাকার কোর্ট পুড়িয়ে দেয়। তারা চার রাজাকার নিহত এবং ১৩ রাইফেল ও একটি বৃহৎ পরিমাণ গোলাবারুদের জব্দ করে।

 

২১ অগাস্ট তারা কিছু গোলাবারুদের সঙ্গে দুটি রাইফেল জব্দ করে। ১৭ অগাস্ট শ্যামনগর থানা অভিযান চালিয়ে দুই রাজাকার হত্যা করে। পাক পোস্ট সিক্রির অভিযান চালিয়ে ৫ জন হতাহত হয়।

 

১৮ আগস্ট কায়েমকলায় ১ রাজাকার ও দিয়ারাতে শান্তি বাহিনী চেয়ারম্যানকে হত্যা করে।

 

২৩ অগাস্ট মীরগঞ্জ অভিযান চালিয়ে ৫ পাকসৈন্য হত্যা করা হয়।

 

২২ অগাস্ট বিদ্যাধরপুরে ফেরী ধ্বংস করা হয়।

 

১২ আগস্ট বোয়ালিয়াতে মুসলিম লীগ নেতা হত্যা করা হয়।

 

নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে জানা যায় যে, ঈগল বাহিনী নামে একটি নতুন দল গঠন করা হয়েছে এবং যশোর এর কাজ চলবে।

 

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর

 

২০ আগস্ট সোনাগাজিতে সেনা বহনকারী তিনটি পাক যানবাহন আক্রমণে ১৫ জন পাকসেনা নিহত হয়। ২১ আগস্ট মধুগ্রামে ২ রাজাকার নিহত হয়।

 

২১ অগাস্ট সোনাগাজী এলাকায় রাজাকারসহ ২০ পাকসেনা নিহত করা হয়।

 

২১ অগাস্ট মীরধরবাজারে সাত পাকসেনা নিহত এবং চার জন আহত হয়

 

২৪ অগাস্ট প্রতিশোধমূলক হিসেবে পাকসৈন্যরা বেসামরিক ঘর পুড়িয়ে দেয়। ৬ জনকে হত্যা করে।

 

১৮ অগাস্ট চানগাজি বাজারে চার পাকসেনা নিহত হয়।

 

২১ অগাস্ট দেবীপুরে অ্যামবুশে চার পাকসেনা নিহত করা হয়।

 

১৯ আগস্ট রাজুরিয়াতে সাত পাকসৈন্য নিহত হয়।

 

২০ অগাস্ট মুক্তিবাহিনী এলাকায় তিন রাজাকার হত্যা করে।

২১ আগস্ট নোয়াপারা পাক অবস্থানে ছয় জন পাকসেনা নিহত হয়।

 

২১ অগাস্ট শ্রীপুরে এক রাজাকার হত্যা ও ১ জন আহত ও একটি রাইফেল উদ্ধার করা হয়।

 

১৮ অগাস্ট রামশিরাবরি এলাকায় মুক্তিবাহিনী পাক বাহিনীর উপর মর্টার নিক্ষেপ করলে ৮ জন পাকসেনা নিহত এবং ২৪ জন আহত হয়।

 

১৫ আগস্ট চার্নাল এলাকায় পাক প্যাট্রোলে অতর্কিতে আক্রমণে ৩ জন আহত হয়।

 

১৬ আগস্ট একই এলাকায় মুক্তিবাহিনী অতর্কিত হামল করলে আট পাকসৈন্য নিহত হয়।

 

নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা যায় চট্টগ্রামে ১৬ আগস্ট আল আব্বাস নামক ১৫০০০ টন ধারণ ক্ষমতার একটি জাহাজ মুক্তিবাহিনী ডুবিয়ে দেয়। আরেকটি প্রায় ১২৫০০ টন ধারণক্ষমতা পাক আর্মীদের জন্য খুচরা যন্ত্রাংশ বহনকারী জাহাজ ডুবিয়ে দেয়া হয়। এছাড়াও ৩ টি বৃহৎ পণ্যসম্ভার বার্জ ডুবিয়ে দেয়া হয়।

 

 

ময়মনসিংহসিলেটমৌলভীবাজার সেক্টর

 

১৮ অগাস্ট চানু-শমসেরনগর রাস্তার সেতু ধ্বংস করা হয়। একই এলাকায় পাকসৈন্য বহনকারী এক জিপে অতর্কিত আক্রমণ করে দুই জন পাকসেনাকে আহত করা হয়।

 

২৩ অগাস্ট বর্নিতে পাক বাহিনীর আটটি দেশী নৌকা জব্দ করা হয়।

 

১৫ অগাস্ট ছাতক ও সিলেটের মধ্যে দুটি পাইলন ধ্বংস করে মুক্তিবাহিনী। পাইলন মেরামতের অধীনে ছিল; তাই সিলেটের একটি অংশ বিদ্যুৎ ছাড়া ছিল।

 

নিশ্চিত রিপোর্ট অনুযায়ী প্রায় ১৫০ জন আহত রাজাকার সিলেটে নাগরিক হাসপাতালে চিকিত্সা পাচ্ছেন। সিলেটে অবস্থিত এই হাসপাতাল প্রচন্ডভাবে পাকসৈন্য দ্বারা সুরক্ষিত হয়।

 

২৩ অগাস্ট লরবাং আরসিসি সেতুর ৪০ ফুট দীর্ঘ দুটি স্তম্ভ উড়িয়ে দেয়। মুক্তিযোদ্ধারা গুলিবর্ষণ করলে আট রাজাকার পালিয়ে যায়।

 

২৪ আগস্ট মুক্তিবাহিনী নাকুচইতাল-আহমেদনগর এবং হালুয়াঘাট-চিখালির মধ্যাকার টেলিফোন লাইন বিচ্ছিন্ন করে দেয়।

 

২৩ অগাস্ট আটগ্রাম এলাকায় পাক বাহিনীর সাথে অভিজান চালিয়ে মুক্তিবাহিনী ৩ জন আনসার হত্যা করে।

 

২১ অগাস্ট সুলতানপুর অ্যামবুশে দুই আনসার নিহত ও এক পাকসৈন্য আহত হয়।

 

১৮ অগাস্ট পূর্বধলায় শান্তি কমিটির দুই সদস্য নিহত হয়।

 

১৯ আগস্ট আতাপাড়া থানায় মুক্তিবাহিনী ৩ ঘন্টা ধরে অভিযান চালানোর পর সেটি দখল করে, ৯ রাজাকার হত্যা করে। পুলিশ স্টেশনের কমান্ডিং অফিসারের আত্তসমর্পন করে এবং মুক্তিবাহিনী ২২ টি রাইফেল জব্দ করে। একই দিনে আতাপারা পোস্ট অফিস ধ্বংস এবং ডাকঘর থেকে চার টেলিফোন সেট উদ্ধার করা হয়।

 

২০ অগাস্ট আতাপারায় শান্তি কমিটির এক পাক আহ্বায়ক ও শান্তি কমিটির এক সচিব নিহত হয়।

 

২১ অগাস্ট বকশীগঞ্জ চারুয়া বাজারে চার বদর বাহিনী সদস্য, আট পাক সমর্থক এবং এক পাক পুলিশ ইন্সপেক্টর নিহত হয়।

বাংলাদেশ ওয়ার নিউজ

মুজিবনগর

২৮ শে আগস্ট

 

কুমিল্লা সেক্টর: দখলদার বাহিনীর জন্য মৃত্যু ফাঁদ

 

প্রাপ্ত রিপোর্ট অনুযায়ী গেরিলা ও কমান্ডো আক্রমণ প্রতিনিয়ত বাড়ছিল। এখন সরাসরি আঘাতের সময়। গত কয়েক দিনের মধ্যে প্রায় ৪ কর্মকর্তা এবং ২০০ ও আর এস মারা যায়। এছাড়া প্রচুর আহত হয়েছে। সংবাদদাতা থেকে পৌঁছনো প্রতিবেদনে জানা যায় দাউদকান্দিতে ৮ টি ভারী যানবাহন বহন সক্ষম একটি ফেরি ধ্বংস করা হয়। ফেরিঘাটে, স্টিমার ঘাট, জেটি ও পন্টুন, জ্বালানি ২৩/২৪ আগস্ট রাতে ধ্বংস করা হয়। ১২ রাজাকারদ নিহত হয়। পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশও নিহত হয়।

 

গত ২ মাস মুক্তিবাহিনী সালদানদী এলাকায় প্রায় ২০০ বর্গমাইল এলাকা দখলে রাখে। এখানে পাক হানাদার বাহিনী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে চরম শাস্তি পায়। এখানে শত্রু সর্বোচ্চ হতাহতের রেকর্ড গড়ে। কয়েকজন অফিসারসহ প্রায় ১৫০০ জন হতাহত হয় এই এলাকায়। মুক্তিবাহিনীর ক্ষয়ক্ষতি তুলনামূলকভাবে কম। শেষ মানুষের শেষ বুলেট পর্যন্ত এই অবস্থান ধরে রাখা হবে।

 

প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্য মতে গেরিলাদের কাজ বাংলাদেশের অনেক ভিতরেও চলতে থাকে। টাঙ্গাইলে সম্প্রতি এক দুর্ঘটনায় ২ পাকসৈন্য নিহত ও চার জন আহত হয়েছে। পরশুরাম থানা ফেনী মহকুমার সালদার ও সুবের বাজারে অপর একটি ঘটনায় মুক্তিবাহিনী শত্রুর উপর সাহসী আক্রমণ করে। ১ জন অফিসার ও ১৫ জন ও আর এস নিহত হয়। হানাদার বাহিনী ফিরে গেলে মুক্তিবাহিনী “জয় বাংলা” স্লোগান দিতে থাকে বাংলাদেশের পতাকা তুলে।

 

এতে প্রমাণিত হয় পশ্চিম পাকিস্তানের হানাদার বাহিনীর সাথে মুক্তিবাহিনীর লড়াইয়ের যোগ্যতা এখন পাকা পোক্ত।

 

—সৌজন্য-বাংলাদেশ আর্কাইভস, নিউজ ও ফিচার সার্ভিস।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর

মুজিবনগর

জনসংযোগ দপ্তর

৩০ শে আগস্ট

 

বিলম্বিত খবরে প্রকাশ-১৫ ও ১৬ আগস্ট রাতে চট্টগ্রাম বন্দরের সাত বড় জাহাজ এবং দুটি বার্জ মুক্তিবাহিনী গেরিলা আক্রমণে পানিতে ডুবে যায়।

 

১। এতে পাকসেনাদের মনোবল এতোটাই ভারাক্রান্ত হয় যে লেফটেন্যান্ট জেনারেল টিক্কা খান ১৮ আগস্ট, সেটি দেখতে পোর্ট পরিদর্শণে যান। তিনি সে সময়ে বন্দর এলাকায় ভারপ্রাপ্ত সিনিয়র ন্যাভাল অফিসার ও ধ্বংসের সময় দায়িত্বরত সব সেন্ট্রিকে গ্রেফতারের আদেশ দেন। ১৩ নং জেটির বিপরীতে একটি বজরা ডুবিয়ে পোর্ট অবরুদ্ধ করা হয়। পুরো এলাকায় কার্ফু জারি করে রাখা হয়।

 

২। ঢাকা থেকে প্রাপ্তি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, ১১ ও ১৪ ই আগস্টের মধ্যে ঢাকা সঙ্গীত কলেজ, সেগুনবাগিচায় অভিযানে ২ পাকসেনা নিহত ও ৫ জন আহত হয়।

 

৩। ১৩ আগস্ট রাতে পাকবাহিনী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক আবাসে অভিযান চালিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ক্লাবের সম্পাদকসহ বিভিন্ন বিভাগের ১১ জ্যেষ্ঠ শিক্ষককে আটক করা হয়।

 

৪। একটি প্রামাণিক উৎস থেকে জানা যায় ৮ হাজার ছাত্রের মাত্র ৩০ জন পরে ক্লাসে অংশ নেয়।

 

৫। জানা যায়, মনোবিজ্ঞান বিভাগের ৪৫০ জনের মাত্র ১ জন ক্লাসে আসে-যে ছিল পাকবাহিনীর মেজর ফরমান আলীর কন্যা।

৬। ঢাকা-ময়মনসিংহ রেল লাইনে রেল কালভার্টের পাশ দিয়ে পাকসেনারা অনেক বাংকার গড়ে তুলেছে।

 

৭। ৭ আগস্ট রাতে পাকসৈন্য মতিঝিল কলোনি ও ধানমন্ডি আবাসিক এলাকা আক্রমণ করে এবং প্রায় ৮০ ব্যক্তিকে বন্দি করে। তাদের হদিস আর জানা যায় নি।

 

 

                                        —–সিল, পাবলিক রিলেশন অফিসার, বাংলাদেশ বাহিনী।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ দপ্তর

যুদ্ধ বুলেটিন

৩০ আগস্ট

 

মুক্তিবাহিনী বাংলাদেশের অধিকৃত এলাকায় তাদের গেরিলা কার্যক্রম তীব্রতর করছে। তারা পাকসৈন্যদের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করে। জলপথও গেরিলা কার্যক্রম সমান তীব্রতর হয়েছে।

 

আজকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, এক অফিসারসহ ১৪৬ জন পাকসেনা নিহত হয় এবং ৩ অফিসারসহ ৭৩ জন আহত হয়-অধিকৃত এলাকায়। ১ পাক সৈনিক বন্দীও আছে।

 

৪৬ রাজাকার নিহত হয়েছে এবং ২১ পাক পুলিশসহ ২৬ জন ধরা হয়েছে। তারা তাদের অপারেশনের সময় বিভিন্ন ধরনের ৩৪ প্রকার অস্ত্র জব্দ করে। তারা ৪ স্থানে সড়ক সেতু, ২ স্থানে রেল সেতু, ২ স্থানে টেলিফোনের খুঁটি ধ্বংস এবং রেললাইন সরিয়েছে। ৪ জায়গায় টেলিফোন লাইন বিচ্ছিন্ন করে।

 

পাঞ্জাবি মেজর ও ক্যাপ্টেন বেলুচীর বিবাদ ও তথ্যে আসে। লুঠ বণ্টন নিয়ে এক পাঞ্জাবি মেজর ও একজন বেলুচী ক্যাপ্টেন মধ্যে লড়াইয়ের পরে তা সৈন্যদের মধ্যে ছড়ায়। এটি ঘটেছে ৮ আগস্ট। এই সংঘর্ষে পাঞ্জাবি দিকে ৬৫ জন নিহত এবং ৪৫ জন আহত এবং বেলুচী দিকে ১০ জন নিহত ও ৬ জন আহত হয়।

 

অন্য রিপোর্টে জানা যায়, ৯ আগস্ট মনহরদি থানার আক্রমণে ১ অফিসারসহ ২১ পুলিশ সদস্যদের বন্দী করা হয়। ১৫ টি রাইফেল জব্দ করা হয়। ১০ আগস্ট একটি পাকবাহিনী প্যাট্রোল অতর্কিতে আক্রমণ করে ২ জন আহত হয়।

 

চরগ্রানে রেল ব্রিজ ধ্বংসের জন্য লাটু এবং সরলেখার মধ্যে রেল যোগাযোগ নষ্ট হয়। ঢাকায় পাকিস্তানি ব্যবসায়ীদের মুক্তিবাহিনীর কারণে ব্যাবসা চালিয়ে যেতে অসুবিধা হয়। তাই তারা তাদের দোকান ও স্থাপনা বন্ধ করে পশ্চিম পাকিস্তানে ফিরে যেতে শুরু করেছেন বলে জানা গেছে।

 

অবাঙালি পাক সমর্থকরা মুক্তিবাহিনীর ভয়ে সন্ধ্যায় তাদের ঘর থেকে বের হয়না। ফলে তাদের মৃত্যু হার কমে গেছে।

 

 

রংপুরদিনাজপুর রাজশাহী সেক্টর

 

১৬ আগস্ট মুঘলহাটে দুই পাকসেনা নিহত এবং প্রচুর আহত হয়েছে।

 

১৬ অগাস্ট চারার হাটে দুই রাজাকার হত্যা ও ৭ জন আহত কর হয়।

 

১৭ আগস্ট রামপুরে চার পাক বাহিনী হত্যা করা হয়।

 

১৭ আগস্ট রানিসন্ধাইলে ৫ জন পাক বাহিনীর সৈন্য হতাহত হয়।

১৭ আগস্ট চারাডাঙ্গিতে অভিযান চালিয়ে দুই জন পাকসেনা হত্যা করা হয়।

 

১৭ অগাস্ট গৌরীপুরের কাছাকাছি তিন পাকসৈন্য নিহত ও দু’জন আহত করা হয়।

 

১০ আগস্ট আদমদীঘি-ভরতপুর মধ্যে রেললাইন উড়িয়ে দেয়া হয়।

 

৯ আগস্ট আদমদীঘি পোস্ট অফিস আক্রমণে দুটি রাইফেল, দুটি ১২ বোর বন্দুক ও চার টি টেলিফোন সেট উদ্ধার করা হয়। এবং

৫ রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর

 

৫ আগস্ট সারদা রোড জংশনে চার পাকসেনা নিহত এবং তিন জন আহত হয়েছে।

 

১৫ অগাস্ট লালপুর থানায় অভিযান চালিয়ে এক রাজাকার হত্যা ও একটি রাইফেল উদ্ধার করা হয়।

 

১৬ আগস্ট রাম নগরে ছয় পাকসেনা নিহত এবং তিন জন আহত।

 

১৫ অগাস্ট ৫ রাজাকার বন্দী ও একটি সিঙ্গেল বোর বন্দুক উদ্ধার করা হয়।

 

১৫ আগস্ট জাগতির কাছে যশোর-ঘিগাছার সড়ক সেতু ধ্বংস করা হয়।

 

১৫ আগস্ট চৌগাছাতে টেলিফোনের খুঁটি উড়িয়ে দেয়া হয়।

 

৪ আগস্ট তারাই ছড়া ২৬ জন রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর

 

সোনাগাজিতে ১৫ আগস্ট চার পাকসেনা কর্মকর্তাদের বহনকারী একটি জিপ মাইনে আক্রান্ত হয়ে এক অফিসার নিহত হন। বাকি ৩ জন গুরুতর জখম হন।

 

১৫ আগস্ট বসন্তপুরে পাঁচ পাকসেনা নিহত এবং এক জন বন্দী হয় যখন রাজাকারদের উপর আক্রমণ করা হয়।

 

১৬ অগাস্ট অভিযান চালিয়ে বাঘের এলাকায় দুই রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

১৭ ই আগস্ট, সশিদল এলাকায় অ্যামবুশে বারো পাকসেনা নিহত হয়। ১৬ আগস্ট একই এলাকায় আরেকটি অ্যামবুশে চার পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৬ অগাস্ট কোটনা এলাকায় ১০০ ফুট রেললাইন ধ্বংস করা হয়।

 

১৬ অগাস্ট চান্দলাতে ২ জন পাকসহযোগীরা হত্যা করে।

 

১৬ অগাস্ট নায়ানপুরে রেশন বহনকারী তিন পাক নৌকা অতর্কিতে আক্রমণ করা হয় এবং ১০ পাকসেনা নিহত হয়। নৌকা টি খুবই ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

 

জুলাই ৮ থেকে ২৫ কাপাসিয়া থানার এলাকায় ১২ সক্রিয় পাকসহযোগীরা হত্যা করে।

 

২৮ জুলাই লক্ষ্য নদীতে পাক সৈন্যের জন্য রেশন বহনকারী দুটি লঞ্চ মুক্তিবাহিনী অতর্কিতে আক্রমণ করে ও ধ্বংস করে দেয়। রেশন নদীতে ডুবে ছিল। ৩১ জুলাই অন্য এক অভিযানে পাকসৈন্যদের জন্য রেশন বহনকারী একটি মটরলঞ্চ লাখ্যা নদীতে মুক্তিবাহিনী আক্রমণ করে ধ্বংস করে।

 

৯ আগস্ট মনোহরদী থানায় অভিযান চলে। এতে কমান্ডিং অফিসারসহ ২১ পুলিশ সদস্য আটক ও ১৫ টি রাইফেল এবং গোলাবারুদ জব্দ হয়। দুই জন হতাহত হয়। ২ টি টেলিফোন খুঁটি ধ্বংস করা হয়।

২৮ মেগাবাইট নবীগঞ্জ থানায় মুক্তিবাহিনী অভিযান চালিয়ে ১০০ কিমির উপর যোগাযোগ করতে সক্ষম ১ টি রেডিও সেট উদ্ধার করে।

 

 

 

 

ময়মনসিংহসিলেটমৌলোভীবাজার সেক্টর

 

 

১১ আগস্ট সমশের নগর-কুর্মাছাড়া রাস্তায় মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে একটি সেতু ধ্বংস করা হয়।

 

১৮ অগাস্ট ছাড়্গ্রাম এলাকায় মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে রেলসেতু ধ্বংস হয়। এতে লাটু-বড়লেখার মধ্যে রেল যোগাযোগ ধ্বংস হয়।

 

১৭ অগাস্ট ছোটলেখায় মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে দুই পাকসেনা নিহত এবং তিন জন আহত হয়।

 

১৭ আগস্ট ছিলুয়া এলাকায় মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে একটি সড়ক সেতু ধ্বংস হয়।

 

১৩ অগাস্ট আলীনগর মুক্তিবাহিনী অভিযান চালিয়ে এক সুবেদার এবং দুই সৈন্যকে হত্যা করে।

 

১১ আগস্ট কুলাউড়ার কাছাকাছি সড়ক সেতু মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ধ্বংস করা হয়।

 

১২ আগস্ট শমসেরনগর মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে টেলিফোন লাইন ধ্বংস করা হয়।

 

১৩ অগাস্ট সুনামগঞ্জে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে তিনটি মোটরের ছয় বার্জ টাগ জব্দ ও চৌদ্দ কর্মী বন্দী করা হয়।

 

১৮ আগস্ট আহমেদনগর-কুন্নির মধ্যে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে টেলিফোন লাইন ধ্বংস করা হয়।

 

১৭ আগস্ট ধলাপাড়া নদীতে পারাপারের সময় মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে এক পাকসেনাদল হত্যা ও দু’জন আহত হয়।

 

১৭ আগস্ট একই এলাকায় পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযানে ৫ জন আহত হয়।

 

১৭ অগাস্ট কামালপুর এলাকায় পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে ৩ জনকে হত্যা করা হয়।

 

১৫ অগাস্ট নাওকুচিতে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে সাত পাকসৈন্য নিহত ও চার জন আহত হয়। একটি ব্যারাক ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

 

১৮ অগাস্ট কানাইরঘাট এলাকায় আনসার অভিযান চালিয়ে দুই জনকে হত্যা করা হয়।

 

১৮ আগস্ট দিল্কুশাতে পাক চৌকি আক্রমনে এক জনের প্রাণনাশ ও দু’জন আহত হয়।

 

১৮ অগাস্ট বারামারিতে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে তিন রাজাকার নিহত ও তিন জন আহত হয়।

 

১৫ অগাস্ট ফুলপুর-ময়মনসিংহ রাস্তার উপর কুদাল ধরে ৩০ ফুট দীর্ঘ আরসিসি ব্রীজ ধ্বংস করা হয়।

 

১৬ অগাস্ট তারাকান্দার মধ্যে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ৫ রাজাকার হত্যা করা হয় এবং সাত জন আহত হয়। তিনটি রাইফেল জব্দ করা হয়।

 

১৯ অগাস্ট তানটারে পাক অবস্থানে অভিযান চালালে কিছু পাকসৈন্য আহত হয়।

 

 

 

 

                                —-সিল, পিআরও

                                বাংলাদেশ ফোর্স।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

৩১ আগস্ট

 

 

সারা দেশেই সব সেক্টরে মুক্তিবাহিনীর কার্যক্রম তীব্র ভাবে এগিয়ে চলছিল। পাকবাহিনী, রাজাকার ও তাদেরসহযোগীরা প্রচুর ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়। তথ্য মতে ১৬ থেকে ২৯ আগস্টে তিন দিনের মধ্যে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ১০২ জন নিহত হয়েছে। নামকরা পাকসহযোগী জনাব ফখরুদ্দিন আহমেদ, সাবেক রাজস্ব মন্ত্রী ও সচিব বাংলাদেশ প্রাদেশিক মুসলিম লীগ-তিনিও নিহত হন। ১০২ জনের মধ্যে ৬১ জন পাকসৈন্য, ১৫ রাজাকার ও ২৬সহযোগী ছিল। এই সময়কালে ৪০ টির বেশী ট্রুপ্সে পাকসেনাদের উপর মুক্তিবাহিনীর আক্রমণ চলে। জনাব ফখরুদ্দিনকে ময়মনসিংহ জেলায় নিয়ে আসা হয়।

 

২৮ আগস্ট সিলেট জেলায় লামুকাটায় রাজাকার চৌকি সমেত অবস্থানে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ৩ জন রাজাকার নিহত হয়। ২৭ আগস্ট সিলেটে মনুর কাছাকাছি পাকসৈন্যদের উপরে অ্যামবুশে ৫ জন হতাহত হয়। একই দিনে ৩ মাইল উত্তরে তামার্জুনিতে রাজাকারদের টহল দলে অভিযানে ৬ জন হতাহত হয়। তাদের কাছ থেকে ২ টি রাইফেল উদ্ধার করা হয়। ২৭ আগস্ট কানাইরঘাটে পাক প্যাট্রোল অতর্কিতে আক্রমণে ৩ পাকসেনা আহত হয়। একই এলাকায় নৌকায় চলন্ত পাকবাহিনীর উপরে অতর্কিতে আক্রমণে ২ জন নিহত হয়। ১ জন আহত হয়। একই দিনে একটি পাক জিপ মাইনে আক্রমণে করা হয় জকিগঞ্জ-আতাগ্রাম রাস্তায়। এতে ২ পাকসৈন্য নিহত হয় এবং 3 জন আহত হয়। তাদের গাড়ির প্রচুর ক্ষতি হয়। একই দিনে শমসেরনগরের কাছাকাছি টেলিফোন লাইন ধ্বংস করে এই এলাকায় টেলি যোগাযোগ ব্যাহত করা হয়।

 

২৭ আগস্ট নোয়াখালীতে ফেনী-বিলোনিয়া এলাকায় পাক বাহিনীর জন্য সরবরাহ বহনকারী ১৫ টি পাক বেসামরিক যানবাহন অতর্কিতে মুক্তিবাহিনী আক্রমণ করে এবং প্রায় সব যানবাহন ভাংচুর করে। একই এলাকায় হাসানপুরের কাছাকাছি একটি সড়ক সেতু ধ্বংস এবং ক্ষতিগ্রস্ত করে ফেনী-বিলোনিয়ার মধ্যে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে।

 

২৬ আগস্ট নোয়াখালীর সোনাইছড়ি এলাকায় একটি ব্রিজে মুক্তিবাহিনী অভিযান চালিয়ে এক পাকসেনা ও ২ রাজাকার হত্যা করে।

কুমিল্লা জেলার মন্দভাগে পাক বাহিনীর উপর অভিযান চালিয়ে মুক্তিবাহিনী ৫ জন হতাহত হয়। একই দিনে তারা বিবির বাজার অভিযান চালিয়ে ২ পাকসৈন্য হত্যা করে।

 

২৬ আগস্ট শিরনহাটে ৪ টি পাকসৈন্যবাহী দেশী নৌকায় মুক্তিবাহিনী অতর্কিতে আক্রমণ করে এবং ২ টি নৌকা ক্ষতিগ্রস্ত করে। এতে ১০ জন আহত হয়।

 

২৭ আগস্টে দিনাজপুর জেলার হালিবান্দায় মুক্তিবাহিনী অভিযান চালিয়ে ২ জনকে আহত হয়। ২৫ আগস্ট একই এলাকায় রাজাকার অবস্থানে আক্রমণে ১৪ জন আহত হয়। ১৫ টি রাইফেল ও 8 জন রাজাকার বন্দী করা হয়। ২৮ আগস্ট রংপুর ভুরুংমারি পাক অবস্থানে মুক্তিবাহিনী আক্রমণ করে ২ জনকে আহত হয়।

 

২৭ আগস্ট উত্তরবঙ্গের নকুরগাছিতে মুক্তিবাহিনী আক্রমণ করে রেলওয়ে ট্র্যাক ধ্বংস করে। একই দিনে দারপুলে ৩ জন পাকসৈন্যকে আহত করা হয়। ২৬ আগস্ট ফুলতলা-ভবানীপুর রাস্তা আক্রমণে ধ্বংস হয় এবং এর ফলে উত্তরবঙ্গের মধ্যে সড়ক যোগাযোগ ব্যাহত হয়। একই দিনে দঙ্গরহাট এলাকায় পাক অবস্থানে মুক্তিবাহিনী অভিযান চালিয়ে ২ পাকসেনা হত্যা এবং ৪ জনকে আহত হয়।

 

২৭ আগস্ট কুষ্টিয়া জেলায় পটল্ডাঙ্গায় মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে পিস কমিটির চেয়ারম্যান নিহত হয়।

বারিনগর যশোরে ২৫ আগস্টে এক মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ৬ জন রাজাকার নিহত হয় ও ২ টি রাইফেল উদ্ধার হয়। আর ৩ জন আহত হয়।

 

——————সিল, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স, ৩১ আগস্ট, ১৯৭১

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

সেপ্টেম্বর

 

 

মুক্তিবাহিনী সারা বাংলাদেশ জুড়ে ব্যাপক গেরিলা কার্যক্রম চালাচ্ছে। তারা পাক বাহিনী, রাজাকার ওসহযোগীদের মারাত্মক ক্ষয়ক্ষতি করছিল।

 

প্রশংসনীয় কয়েকটি কার্যক্রমের কিছু নিচে উল্লেখ করা হল:

 

(১)মুক্তিবাহিনী কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টরের লেবুতলা, হাশিম্পুর ও রায়পুর স্বাধীন করে। এবং ১৪ আগস্ট থেকে ২৪ আগস্ট বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করে।

 

(২) ২৫ আগস্ট মুক্তিবাহিনী চুয়াডাঙ্গা থানায় আক্রমণ করে। ২৮ আগস্ট আরেকটি অ্যামবুশে ২ জন আহত হয়।

 

(৩) মুক্তিবাহিনী ২৬ আগস্ট জগন্নাথ দীঘিতে তিনটি টেলিফোনের খুঁটি ধ্বংস করে কুমিল্লা ও ফেনীর মধ্যে টেলিযোগাযোগ বিঘ্নিত করে।

 

(৪) ২৭ আগস্ট কুমিল্লা জেলার কসবায় পাক অবস্থানে মুক্তিবাহিনী অভিযান চালালে ২০ জন আহত হয়। দুটি বাংকার ধ্বংস করা হয়।

 

(৫) ৩০ আগস্ট ময়মনসিংহ জেলার বেরিগাও এলাকায় পাক বাহিনীর সাথে মুক্তিবাহিনীর গুলি বিনিময়ে ৪ পাকসেনা নিহত হয়।

 

(৬) ২৮ আগস্ট ময়মনসিংহের ইসলামপুরে বদর বাহিনীর ক্যাম্পে মুক্তিবাহিনী অভিযান চালিয়ে ৪০০ মণ পাট জব্দ করে। ৪ জন নিহত হয়।

 

(৭) রংপুর লালমনিরহাট বিমানঘাঁটিতে রাজাকারদের প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে মুক্তিবাহিনী অভিযান চালিয়ে ৭ রাজাকার হত্যা করে। রেলসেতুর পাহারায় থাকা পাকপোস্টেও আক্রমণ করে। ফলে পাকসেনারা পোস্ট ছেড়ে পালিয়ে যায়। পরে ব্রিজটি উড়িয়ে দেয়া হয়। ২৬ আগস্ট নাগেশ্বরী-রায়গঞ্জ রাস্তায় ১০ জন পাকসেনা নিহত হয় এবং ৪ জন আহত হয়।

 

(৮) ২৭ আগস্ট ভবানীপুর, ঝারবাড়ি এবং বিরাইতের মধ্যে মুক্তিবাহিনী ৭০ ফুট রেলওয়ে ট্র্যাক ধ্বংস করে।

 

 

 

——————সিল, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স, ১ সেপ্টেম্বর ১৯৭১

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

সেপ্টেম্বর

 

মুক্তিবাহিনীর গেরিলা কার্যক্রম বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতে ব্যাপক ভাবে বলবত আছে।

গত কয়েক দিনের অপারেশনে মুক্তিবাহিনী ১০৪ জন পাকসেনা হত্যা এবং ৫৭ জন আহত হয়। একই সময় ৬০ জন রাজাকার, ১২ জন পুলিশ ও ৫ জনসহযোগীকে হত্যা করা হয়।

 

প্রধান কিছু অপারেশন-

২৮ আগস্ট ঢাকায় সবচেয়ে সাহসী কিছু মাইন অপারেশন করা হয়। মুক্তিবাহিনী ২ টি সেনা ট্রাক ও ১ টি জিপ উড়িয়ে দেয়। অন্তত ২৪ জন পাকসৈন্য এবং রাজাকার নিহত হয় এবং ৪১ জন আহত হয়।

 

২৪ আগস্ট এবং ২৭ আগস্টের মধ্যে মুক্তিবাহিনী ৯ জন পাকসৈন্য, ১২ জন রাজাকার ও কুমিল্লা জেলার লাকসাম এলাকায় ৯ পুলিশ হত্যা করে।

 

২৮ আগস্ট ব্রহ্মপাড়া ও সালদানদী এলাকায় মুক্তিবাহিনী ৫ টি দেশী নৌকায় আক্রমণ করে ১ অফিসারসহ ২৩ জন পাকসৈন্য ও রাজাকারদের হত্যা করে।

 

২৬ আগস্ট সিলেট জেলায় ফুল্টন অঞ্চলে মুক্তিবাহিনী আক্রমণে ৩ জনকে হত্যা করে এবং বেশ কিছু শত্রু বাংকার ধ্বংস করে।

 

২৮ আগস্ট সিলেটের লাটু এলাকায় মুক্তিবাহিনী ও পাক বাহিনীর মধ্যে গুলি বিনিময়ে ৫ জন পাকসৈন্য আহত হয়।

 

২৫ আগস্ট মুক্তিবাহিনীর সেট করা মাইনে ৪ টি ট্রেনবগি সিলেট জেলার জুড়ী এলাকায় লাইনচ্যুত হয়।

 

২২ আগস্ট আরেকটি মাইন অপারেশনে মৌলভী বাজার এলাকায় একটি আর্মি ট্রাকে আক্রমণে কমপক্ষে ৬ পাকসৈন্য নিহত হয় এবং বেশ কিছু আহত হয়।

 

২৯ আগস্ট মুক্তিবাহিনী কামারশাল পাকসৈন্য অবস্থানে অভিযান চালায়। এতে ৫ জন পাকসেনা আহত হয়।

 

২৯ আগস্ট রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহীতে পাক প্যাট্রোলে মুক্তিবাহিনীর অতর্কিতে আক্রমণে তাদের মধ্যে ৬ জন নিহত হয়।

 

৩০ আগস্ট মুক্তিবাহিনী ভতেমারিতে পাকসৈন্যদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে ৫ জন হত্যা করে। একই দিনে দানুর এলাকায় ৩ জন পাকসেনা নিহত এবং ৪ জন আহত হয়।

 

এই সময়ে মুক্তিবাহিনী ৫০ টি শত্রু যানবাহন ধ্বংস করে এবং প্রচুর অস্ত্র ও গোলাবারুদ জব্দ করে। তারা কয়েকটি সেতু ধ্বংস করে।

এ সময়কালে ৪২ জন রাজাকার সিলেট জেলার মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে।

 

 

——————সিল, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স, ২ সেপ্টেম্বর ১৯৭১

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

সেপ্টেম্বর

 

 

বাংলাদেশের অধিকৃত এলাকায় মুক্তিবাহিনীর গেরিলা কার্যক্রম আরও গতিবান হয়েছে। রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টরের মুক্তিযোদ্ধারা ভতেমারিতে পাকসৈন্য অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ৪ জনকে আহত হয়। মুক্তিবাহিনী অমরখানা এবং জগদালহাটে পাকসৈন্য অবস্থানের উপর মর্টার হামলা করে। এই আক্রমণে ৫১ জন পাকসেনা নিহত ও ১৩ জন আহত হয়।

 

যশোর-খুলনা এলাকায় মুক্তিযোদ্ধারা পানিঘাট, কারামার, পশ্চিম বাগ ও শ্যামপুর এ সিরিজ আক্রমণ সম্পন্ন করে এবং এক কর্মকর্তা এবং ২০ জন পাকসেনা নিহত হয়। মুক্তিবাহিনীর এক জন জখম হয়।

 

ঢাকা-চট্টগ্রাম-কুমিল্লা সেক্টরে মুক্তিবাহিনী দুর্গাপুর, ছাগলনাইয়া, লোডাগাও এবং সোহাগপুর এ তাদের আক্রমণ চালিয়ে শত্রু অবস্থানের ১৫ জন পাকসেনা হত্যা, ৩ শত্রু বাংকার ধ্বংস করে।

 

মনোহরদীতে আক্রমণে ১২ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করা হয়। ঢাকা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া রুট এ একটি রেল ট্রলিবাস মুক্তিবাহিনী সফলভাবে অ্যামবুশ করে। এতে এক আর্মি অফিসার এবং ৫ জন সৈন্য নিহত হয়।

 

সিলেট-ময়মনসিংহ সেক্টরে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে পুটিছেরা, জাগাদা এবং বান্দরকাটাতে সংঘর্ষে ৯ জন পাকসেনা নিহত হয়। বিরিশিরিতে মুক্তিবাহিনীর মাইনে একটি শত্রু গাড়ি বিস্ফোরিত হয়ে দুই জন শত্রুসৈন্য নিহত হয় এবং গাড়িটি সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

 

 

——-এসডি / নজরুল ইসলাম, গণসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ বাহিনী ৩ সেপ্টেম্বর ১৯৭১

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

সেপ্টেম্বর

 

বাংলাদেশের বীর মুক্তিযোদ্ধারা উল্লেখযোগ্যভাবে সকল ফ্রন্টে সফলতার সাথে তাদের তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। এবং গত দুই দিন সময়ে ২ কর্মকর্তাসহ আরো ২৫০ জন পাকসেনা নিহত হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ কিছু অবস্থান শত্রুমুক্ত হয়েছে। শত্রুরা স্থানচ্যুত, তাদের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়েছে। বিভিন্ন জায়গায় রেল লাইন এবং সেতু ধ্বংস করা হয়েছে।

 

পূর্ব ফ্রন্টে ধারাবাহিক আক্রমণে মুক্তিবাহিনী দারিয়াপুর, বল্লভপুর, কুশাডাঙ্গা, মিয়াবাজার, কালিকাপুর, কোটেশ্বর, মিরপুর, গুথুমা এবং মাইঝখার এ মুক্তিবাহিনী পাকবাহিনীকে আক্রমণে করে ৬০ জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং অনেক আহত হয়। মুক্তিযোদ্ধারা এছাড়াও নয়নপুর এবং সাশিদালে মর্টার হামলা চালায়। সেখানে ৩৬ জন পাকসেনা নিহত হয়েছে। ২ টি সফল আক্রমণে মুক্তিযোদ্ধারা শনিরহাট এবং নাগাইসে ৫০ জন পাকসেনা হত্যা করে, ১২ টি নৌকা ডুবিয়ে দেয়। আসাম পাড়ায় মুক্তিবাহিনীর মাইনে একটি শত্রু ট্রাক ও ৩ জন পাকসেনা নিহত হয়।

 

উত্তর সেক্টরে সাগ্নি এবং বচবা গায়ের মধ্যে রেলওয়ে ট্র্যাকে মাইন সেট করে উড়িয়ে দেয়া হয়। একটি পাকবাহী জিপ আক্রমণে এক কর্মকর্তা ও চার সৈন্য নিহত হয়। পিলাকান্দিতে মুক্তিবাহিনীর মাইনে ১ টি ট্রাকসহ ৭ জন নিহত হয়। তীব্র যুদ্ধে বেরিগাও ও ট্যাংরাটিলাতে ৩৩ জন পাকসৈন্য এবং আখাছরিতে ২২ জন পাকসেনা নিহত হয়েছে। উলিপুর এ পাক ক্যাম্পে সাহসী আক্রমণে মুক্তিযোদ্ধারা ২০ জনকে আহত হয় এবং ভারী যন্ত্রপাতি ধ্বংস করে।

 

পশ্চিম সেক্টরের মুক্তিবাহিনী গেরিলারা প্রহরারত ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দরের উপর একটি সাহসী আক্রমণ করে ও নিয়ন্ত্রণ রুমে গ্রেনেড ছুঁড়ে ২ পাকসেনা হত্যা করে। বর্দিতে মুক্তিবাহিনীর মাইনে ১ টি পাকিস্তানের জিপ, ১ জন অফিসার এবং ৫ জন সৈন্য নিহত হয়।

 

পার্বতীপুর ও সৈয়দপুরে মুক্তিবাহিনী গেরিলারা রেলওয়ে স্থানচ্যুত করে যোগাযোগ নষ্ট করে। বারাছাড়াতে ৭ জন পাকসেনাকে হত্যা করে।

নির্ভরযগ্য তথ্য মতে পাঠান ও পাঞ্জাবি সৈন্যদের মধ্যে দ্বন্দ্ব আরও প্রকট আকার ধারণ করেছে। সিলেটে কাদিম নগরে মালামাল বিতরণের উপরকেন্দ্র করে পাঠান ও পাঞ্জাবি সৈন্যদের মধ্যে তীব্র বিরোধ দেখা দেয়।

 

———-স্বাঃ /-জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স, ৪ সেপ্টেম্বর, ৭১

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে তাদের গেরিলা কার্যক্রম চালু রেখেছে। এখানে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী তারা ১১৩ জন পাকসেনা, ৩২ জন রাজাকার ও ১৪ জন পাকপুলিশ হত্যা করে এবং প্রচুর হতাহত হয়। বিভিন্ন সেক্টর থেকে প্রতিদিন ব্যাপক ক্ষতি সাধনের সংবাদ পাওয়া যাচ্ছে। সম্প্রতি একটি মুক্তিবাহিনীর অভিযানে পাকসেনা বহনকারী ৩ টি নৌকা ডুবিয়ে দেয়া হয়।

রংপুরে, দিনাজপুর ও রাজশাহী সেক্টরে মুক্তিযোদ্ধারা খাজানপুর, বালদিয়া, শাইনপুকুর, ভাড়াটের ছড়া, জামালগঞ্জ ও বাহানপুরে পাকসৈন্যদের উপর অতর্কিতে আক্রমণে ২৮ জন পাকসেনা ও ১৫ জন রাজাকার হত্যা করে। পূর্ব শ্যামপুড় এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের মাইনে একটি শত্রু ট্রাক উড়ে যায় এবং ৬ জন পাকসৈন্য নিহত হয়। মুক্তিবাহিনী পার্বতিপুর গ্রাম ও ফুলবাড়ীর মধ্যে রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা ধ্বংস করে।

 

রিপোর্ট করা হয়েছে যে সম্প্রতি পাকসৈন্যরা কুদানবাজার ঘিরে বেসামরিক নাগরিকদের উপর গুলি ও অগ্নিসংযোগ করছে। তারা ২১ জন বেসামরিক লোক হত্যা এবং ৩৫কেজন আহত হয়। এই বাজারে তারা দোকান লুট করে।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টরে মুক্তিযোদ্ধারা শিতালাইয়ের কাছাকাছি দারশায় অভিযান চালিয়ে ২ জন পাকসৈন্য হত্যা করে। তারা এই এলাকায় টেলিগ্রাফ অফিস পুড়িয়ে দেয় ও টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা ধ্বংস করে।

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টরে দুইটি সফল আক্রমণে ঢাকা ও চন্দ্রপুর রূপগঞ্জের ওসিসহ ৩০ জন পাকসেনা ও ৪ জন পাকিস্তানি পুলিশের প্রাণনাশ হয়। কাছাকাছি রূপগঞ্জে পাকবাহিনী এবং পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ বহনকারী ৩ নৌকা ডুবিয়ে দেয়া হয়। মুক্তিবাহিনী শীতলক্ষ্যা নদী ও চন্দ্রপুরে দুটি নৌকা ডুবিয়ে দেয়। ঢাকার কাছাকাছি মিরপুর ও চন্দ্রপুরে দুটি সফল অভিযান চালিয়ে মুক্তিবাহিনী ১০ জন পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ ও ১০ জন পাকসেনা হত্যা করে।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট-মৌলভী বাজার সেক্টরে শ্রীমঙ্গল, ভোগা, করিমপুর, কুরসাইলও নালিতাবাড়ী এলাকায় মুক্তিবাহিনীর একটি সিরিজ আক্রমণে ২১ জন পাকসেনা এবং ১৮ রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

করিমনগর ও জুড়ী বড়লেখায় মুক্তিবাহিনীর মাইনে একটি শত্রু ট্রাক ও একটি পাকবাহিনী বহনকারী জিপ আক্রান্ত হয়ে ১০ জন পাকসৈন্য নিহত হয়। ভিগাতে মাইন বিস্ফোরণে ৩ জন পাকসেনা নিহত হয়। নালিতাবাড়ীতে পাকসৈন্যদের উপর মুক্তিবাহিনীর অ্যামবুশে ১২ জন পাকসেনা নিহত হয়। দেওয়ানগঞ্জ থানা ধ্বংস করে ১ টি স্টেনগান ও একটি রাইফেল জব্দ করা হয়।

 

 

———-স্বাঃ /-জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স, ৫ সেপ্টেম্বর, ৭১

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

৯ সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে তাদের গেরিলা কার্যক্রম জোরদার রেখেছে। বিভিন্ন সেক্টর থেকে পৌঁছনো খবর মতে মুক্তিবাহিনী ৩১ আগস্ট এবং ৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ১১৪ জন নিয়মিত পাকসেনাসহ ২৪২ জনকে হত্যা করেছে।

 

মুক্তিবাহিনী ঢাকা ও এর আশপাশে তাদের গেরিলা কার্যক্রম তীব্রতর করেছে। তারা সূত্রাপুর, আজিমপুর গেরিলা অপারেশনে ৪ পিএএফ প্রভোস্ট ও সূত্রাপুর সার্কেল ইন্সপেক্টরসহ ৫০ জনকে হতাহত হয়। ধোলাইখালে তারা ৩ টি রাইফেল উদ্ধার এবং আজিমপুর এলাকা থেকে কিছু গোলাবারুদ উদ্ধার করে।

 

শহরের পাক-সামরিক কর্তৃপক্ষ তাদের বিরুদ্ধে তীব্র গেরিলা কার্যক্রমের কারণে সারা শহরের রাস্তায় গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ব্যক্তিগত অনুসন্ধান শুরু করেছে বলে জানা গেছে।

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টরে মুক্তিবাহিনী সফলভাবে বিবির বাজার, কোটেশ্বর, চারনাল এবং পাঞ্চরাতে ১৮ জন পাকসৈন্য হত্যা করে। চন্দ এলাকায় ২ টি নৌকা ধ্বংস করে ২৫ জন পাকসৈন্য হত্যা করে এবং ২০ জন আহত হয়।

একই সেক্টরে মিয়ানবাজার, রাঙামাটিয়া, নয়নপুর এবং চান্দলাতে শত্রু অবস্থানের উপর অভিযান চালিয়ে মুক্তিবাহিনী ২৮ জন পাকসেনা হত্যা করে।

 

চট্টগ্রাম থেকে একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী চট্টগ্রাম বহির্নোঙ্গরে এক মেরিন কমান্ডো অপারেশন চালিয়ে বিদেশী জাহাজ ও ট্যাঙ্কার ডুবিয়ে দেয়।

 

মুন্সিরহাট এলাকায় একটি শত্রু ট্রাক মাইন বিস্ফোরণে ধ্বংস হয়। তিন জন পাকসৈন্য গুরুতর জখম হয়।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টরে বীর মুক্তিযোদ্ধারা গোয়ালবাড়ি, কোদাইলকাঠি, কামালপুর শত্রু অবস্থানের ওপর অতর্কিত হামলা করে। নারায়ণ শশ্মান, শ্রীবর্ণী, আতগ্রানা এবং জয়ন্তিপুরে ৩০ জন পাকসৈন্য ও কয়েকজন রাজাকার হত্যা করে। তারা ছারগাই, পাচগাও এবং জুগিলে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক সেতু ধ্বংস করে যোগাযোগ ব্যাহত করে।

 

বিলম্বিত তথ্য অনুযায়ী ময়মনসিংহ জেলার একটি এলাকায় মুক্তিবাহিনীর অবস্থানের উপর বিমান আক্রমণ করে পাকসেনারা। পাক বিমান ২ বার বোমা ফেলে। মুক্তিবাহিনী সরে যাবার আগে ৩২ ঘণ্টা যুদ্ধ চলে। এতে ২৩ জন আহত হয়। এক মেজরসহ এবং কয়েক রাজাকার নিহত হয়।

 

সিলেট অঞ্চলে বিশ্বনাথ রাস্তায় পাকসৈন্য বহনকারী একটি পাক আর্মি ট্রাক মুক্তিবাহিনীর মাইনে ধ্বংস হয়।

 

মুক্তিবাহিনী ২ সেপ্টেম্বর রংপুর জেলার ভুরুঙ্গামারী এলাকায় শত্রু অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ১০ জন হত্যা এবং ১৫ জন পাকসেনাকে আহত হয়। তারা রংপুর-দিনাজপুরের মধ্যে লাহিড়ী, খঞ্জনপুর, চিলহাটি, হাতি বান্ডা, জগদলহাট,পারুলিয়া, সাকাতি এবং আমারখানা শত্রু অবস্থানে আক্রমণ করে যার ফলে ১৫ জন পাকসৈন্য ও ২০ জন রাজাকার নিহত হয়। রাজশাহী সেক্টরে মুকুন্দপুর ও চিলাহাটিতে ৬ জন নিহত ও ৬ জন পাকসৈন্য আহত হয়েছে।

 

মুক্তিযোদ্ধা কুষ্টিয়ায় যশোর-খুলনা সেক্টরে দুলানিঘাটে পাক বাহিনীর সাথে যুদ্ধে ৫ জন হতাহত হয়। পরে এই এলাকা থেকে শত্রুসৈন্য সরে যায়। হানাদার বাহিনী এই এলাকায় অভিযান চালিয়ে লুটপাট চালায় খবর পেয়ে মুক্তিবাহিনী সেখানে ছুটে আসে এবং গ্রাম বাসিদের মুক্ত করে।

 

 

———-স্বাঃ /-জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স,

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

সেপ্টেম্বর

 

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে তাদের গেরিলা কার্যক্রম জোরদার রেখেছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী বিভিন্ন সেক্টর থেকে মুক্তিবাহিনী ১১৯ জন পাকসেনা হত্যা করে।

 

উল্লেখযোগ্য অপারেশনের মধ্যে কয়েকটি হল:

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টরে মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা জেলা, নাগালকোট এবং মহরিগঞ্জ, বিবির বাজারে মাইন দিয়ে অপারেশন চালিয়েছে। ফেনীতে একটি পাক আর্মি জিপ বিস্ফোরণে বিবির বাজার এলাকায় একজন ক্যাপ্টেনসহ ৩ জন পাকসৈন্য নিহত হয়। তারা বড়াইতে পাকসৈন্য বহনকারী দেশী নৌকায় অতর্কিতে আক্রমণ করে ৪ জনকে হতাহত হয় এবং নৌকা ডুবিয়ে দেয়। তারা বীথি দাউদপুর, রূপা, যাদিশার, নাওপুর বাজার ও মতুয়ায় ২৪ জন পাকসৈন্য হত্যা করে। তারা ঢাকা এলাকায় অ্যামবুশে একটি পাক গাড়ির ক্ষতি করে ৭ জন পাকসেনাকে হত্যা করে।

 

ময়মনসিংহ-সিলেটে-মৌলভী বাজার সেক্টরে মুক্তিবাহিনী নওগ্রাম, কুদাইল, চাল্পারা, শেরপুর ও নতুন বাজার এলাকায় ৫৮ জন পাকসৈন্য হত্যা করে ও অনেকে আহত হয়। মুক্তিবাহিনী সফলভাবে নওগ্রাম এলাকায় ১৩ জন পাকসেনা হত্যা ও ৬ পাকসৈন্যকে আহত হয়। কুদাইল ও চাল্পারা এলাকায় ১৭ জন হতাহত হয়। মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ শহরের ভিতরে পাকসৈন্যদের অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ১০ পাকসেনাকে হত্যা করে। তারা নতুন বাজারে গ্রেনেড ছুড়ে ৯ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

মুক্তিবাহিনী নাওকুচি-আহমেদনগর এলাকার মধ্যে দুইটি জায়গায় টেলিযোগাযোগ ও রেলওয়ে ট্র্যাক ধ্বংস করে। এতে বড়লেখা ও লাটুর মধ্যে ট্রেন যোগাযোগ বিঘ্নিত হয়।

 

যশোর-কুষ্টিয়া-খুলনা সেক্টরে আমাদের গেরিলা কমান্ডোরা কোটালিপুর এলাকায় ২ জন বেলুচ সৈন্যকে বন্দী করে। তারা বীরগোবিন্দপুর ও নিশ্চিন্তপুর অভিযান চালিয়ে ৪ পাকসেনাকে হত্যা করে। সাহসী মুক্তিযোদ্ধারা ভোমরাতে ৪ জন শত্রুসৈন্য হত্যা ও ৬ জনকে আহত হয়। এজন্য তারা মর্টার ব্যাবহার করে।

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টরে বরখাতা এলাকায় পাক বাহিনীর উপর মুক্তিবাহিনীর প্রবল গোলাবর্ষণের কারণে ২০ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়। আরেকটি অভিযানে ৩ শত্রুসৈন্য হতাহত হয়।

 

 

———-স্বাঃ /-জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স,

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে তাদের গেরিলা কার্যক্রম জোরদার রেখেছে।

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী বীর মুক্তিযোদ্ধারা ৮৭ জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং অনেক সৈন্যকে আহত হয়।

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টরের সাসিয়ালি, গাজীপুর, পান ছড়া, বাগবার, জামবাড়ি এবং কোটেশ্বর এলাকায় মুক্তিবাহিনী ৪৫ জন পাকসৈন্য হত্যা ও ১৫ জনকে আহত হয়।

 

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টরের শাসাইল এলাকায় পাক নিয়মিত এবং সামরিক পুলিশ কর্মীদের নিয়ে গঠিত একটি শত্রুসৈন্য কলাম এ অভিযান চালিয়ে ২৫ পাকসেনা হত্যা করে। গাজীপুর এলাকায় মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ৩ সেপ্টেম্বর ২ জন পাকসেনা হত্যা করে এবং পাঁচ পারায় ৩ জনকে আহত হয়। একই দিনে পানছড়া এলাকায় ৪ জন পাকসেনাকে হত্যা করে ও ১২ জনকে আহত হয়। কুমিল্লার বাগবারে ২ পাকসৈন্য নিহত ও ৪ জন আহত হয়। কোটেশ্বরএ ৩ জন আহত হয়। তারিখ ছিল ৩ সেপ্টেম্বর। শোলিয়াতে ৬ জন নিহত হয় একই দিনে। ৪ সেপ্টেম্বর পাক বাহিনীর ওপর হামলায় চার জন হতাহত হয়।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট-মৌলভী বাজার সেক্টরএ মুক্তিবাহিনী ৫ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহ অঞ্চলে গেরিলা কার্যক্রম চালু করে ৩০ টি চীনা রাইফেল জব্দ করে।

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টরের সাহসী মুক্তিবাহিনী বাসন্তিপুরে ৩ সেপ্টেম্বর ৬ জন পাকসেনাকে হত্যা করে। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন মতে ২৯ আগস্ট একই এলাকায় পাক সৈন্যের উপর অতর্কিতে আক্রমণে এক ক্যাপ্টেনসহ ৫ পাকসেনা নিহত ও দুই জন আহত হয়। ৬ সেপ্টেম্বর রাজশাহী জেলার রানি শংকইল হরিপুর রোডে পাকসৈন্য বহনকারী এক পাক গাড়ির বিস্ফোরণে ৫ জন নিহত হয়। একই এলাকায় ভিন্ন অপারেশনে আরও ৬ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

তারা রাত্নাই এলাকায় ট্রেন যোগাযোগ ব্যাহত করে।

 

৫ সেপ্টেম্বর দিনাজপুর জেলার পূর্ব গোদামারি-বড়খাঁটা এলাকায় মুক্তিবাহিনী ও পাক বাহিনীর মধ্যে গুলি বিনিময়ে ৩৪ পাকসৈন্য নিহত হয়।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টরে মুক্তিবাহিনী ৫ সেপ্টেম্বের গোয়ালহাটি এলাকায় পাক বাহিনীর সাথে গুলি বিনিময়ে ৫ জন শত্রুসেনা নিহত ও ৬ জন পাকসেনা আহত হয়। একই দিনে তারা আফ্রাতে আক্রমণে ১ পাকসৈন্য হত্যা করে।

 

 

———-স্বাঃ /-জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স,

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১০ সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে তাদের গেরিলা কার্যক্রম জোরদার রেখেছে।

 

অসম্পূর্ণ প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী বর্তমান মাসের প্রথম সপ্তাহে ২৯০ জন নিয়মিত পাকসৈন্যসহ ৪৫৬ জনকে হত্যা করে। তারা বিভিন্ন সেক্টরে তাদের অপারেশনের সময় আরো ১৩০ জন পাকসৈন্যকে আহত হয়। মুক্তিবাহিনী এই সময়কালে শত্রুদের থেকে ৫০ টিরও বেশি রাইফেল জব্দ করে।

 

সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধারা গত বুধবার ময়মনসিংহ জেলার কামালপুরে আক্রমণ করে। এতে প্রচুর হতাহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী নাওকুচি-আহমেদনগরের মধ্যে এবং ময়মনসিংহে টেলিখালি-হলদিয়া ঘাটের মধ্যে টেলিফোন লাইন ধ্বংস করে ঐ জায়গার টেলিযোগাযোগ ব্যাহত করে। রায়গ্রাম এবং আটগ্রামে তারা একই দিনে পাকবাহিনীকে হতাহত হয়।

 

৬ সেপ্টেম্বর, মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার নালিতাবাড়ী থানায় অভিযান চালিয়ে পাক-সামরিক পুলিশ ক্যাম্প ক্ষতিগ্রস্ত করে।

 

৫ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহ এলাকায় অপারেটিং মুক্তিযোদ্ধা শত্রুদের থেকে ২০ টি চিনা রাইফেল জব্দ করে।

৫ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী ঐ এলাকায় গুরুত্বপূর্ণ সড়ক যোগাযোগ ব্যাহত করে। ইল্লুঘাট-আলিয়ালটি সেতু ধ্বংস করে। ৪ সেপ্টেম্বর নওগ্রামে ৬ জন পাকসেনাকে হত্যা ও ১৩ জনকে আহত হয়।

 

৪ সেপ্টেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা ছাতক ও সিলেটের গুরুত্বপূর্ণ স্থানের মধ্যে রেলওয়ে ট্র্যাক উড়িয়ে রেল যোগাযোগ নষ্ট করে। ৬ সেপ্টেম্বের দিল্কুশা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১২ জন পাকসেনা হত্যা করে।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টরের নওগ্রাম এলাকায় ৪ সেপ্টেম্বর ১৩ জন পাকসৈন্য হত্যা করে। একই দিনে তারা আট গ্রাম এলাকায় পাক বাহিনীর অবস্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের হতাহত হয়।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টরের মুক্তিবাহিনী ৭ সেপ্টেম্বের গোয়ালগ্রাম এলাকায় ৬ জনকে আহত হয়। ৫ সেপ্টেম্বর তারা যুদ্ধ করে ৫ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। আসরা এলাকায় একই দিনে এক পাকসেনাদল হত্যা করা হয়।

 

৬ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী ভোমরায় মর্টার দিয়ে ৪ জন পাকসেনা হত্যা করে। কাকদানিয়াতে তারা ৬ জন পাকসেনা আহত হয়।

৩ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টরে শীতলার কাছাকাছি দারসাতে ৬ জন পাকসেনা হত্যা করে।

 

রংপুর-দিনাজপুর সেক্টরে মুক্তিবাহিনী ঠাকুরগাঁও ও পীরগঞ্জের মধ্যে ৫ সেপ্টেম্বর ২ টি বৈদ্যুতিক পাইলন ধ্বংস করে।

৬ সেপ্টেম্বর দিম্পারা এলাকায় ৪ জন পাকসেনা নিহত হয়। আগে তারা ৫ সেপ্টেম্বর একই এলাকায় আরো ২ টি পাওয়ার পাইলন ধ্বংস করে।

৪ সেপ্টেম্বের শিরির বন্দর এবং পার্বতীপুরে ট্রেন লাইন ধ্বংস করে। তারা একই দিনে ফুলতলা-ঠাকুরগাঁও এর মধ্যে সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত করে।

 

মুক্তিবাহিনী পূর্ব গোদাগাড়ী-বড়খাঁটা এলাকায় চলন্ত যানে আক্রমণে ৮ জন পাকসেনা হত্যা করে।

 

৬ সেপ্টেম্বর রানি শংকইল-হরিপুর রোডে মুক্তিবাহিনীর মাইনে একটি গাড়ির বিস্ফোরণে গাড়ীসহ ৫ জন নিহত হয়। আরেকটি অ্যামবুশে ৬ জনের মৃত্যু এবং ৪ জন আহত হয়।

 

৪ সেপ্টেম্বর দিনাজপুর জেলার পারলিয়া এবং আমারকিয়ানা অভিযান চালিয়ে ৬ জন পাকসেনা নিহত করা হয়।

 

ঢাকা-চট্টগ্রাম সেক্টরের মুক্তিবাহিনী ৪ সেপ্টেম্বর কুমিল্লা জেলার হারাস পুরে এক পাকসেনাদল হত্যা করে। ৩ সেপ্টেম্বর তারা লতিফ পুর, গাজীপুর, বাঙ্গারা, বাগের, কোটেশ্বর, জাম বাড়ি, নয়াপুর, সোলাবাজারে অভিযানে ৫১ জন পাকসেনা হত্যা ও অনেককে আহত হয়।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১১ সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে তাদের গেরিলা কার্যক্রম জোরদার রেখেছে।

গত কয়েক দিন (৩ থেকে ৮ সেপ্টেম্বর) গেরিলা অপারেশনের অতিরিক্ত রিপোর্ট আজ এখানে পৌঁছেছে। এই অপারেশনে ১০২ জন শত্রু আক্রান্ত হয় যার মধ্যে ৫৯ জন পাক বাহিনীর নিয়মিত সদস্য।

 

সিলেট-ময়মনসিংহ সেক্টরে মুক্তিবাহিনী সোনারূপা, দিলকুশে অভিযান চালায়। এছাড়া মাধবপুর ও সিলেট জেলার লাটুবেনিয়া এলাকার পাকসৈন্যদের উপর অতর্কিত আক্রমণ করে।

 

৮ সেপ্টেম্বর আট গ্রামে মর্টার দিয়ে আক্রমণে ৮ জন হত্যা করে।

 

৬ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী ভোগড়া ও করিমপুর এলাকায় পাক বাহিনীর সাথে সম্মুখ যুদ্ধে ৩ পাকসেনা ও ৪ রাজাকার হত্যা করে। বুলিয়াতে অন্য একটি আক্রমণে ২০ জন আহত হয়।

 

৬ সেপ্টেম্বর দুলকুশে ৪ জন নিহত হয়। সিলেটের আভাবগিতে এক পাকসেনা ও দুই রাজাকার মাইনে নিহত হয়।

 

ময়মনসিংহ জেলার মুক্তিবাহিনী জাস্লান্দিতে সড়ক সেতু ধ্বংস করে এবং ৫ সেপ্টেম্বর হাতীগাওয়ে টেলিফোন লাইন ধ্বংস করে।

 

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী গত মাসে কিশোরগঞ্জের একটি পুলিশস্টেশনে অভিযান চালায় ও ৫ জন পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ হত্যা করে। তারা ৪ টি রাইফেল জব্দ করে। আরও ২ টি রাইফেল গৌরীপুর রেলওয়ে স্টেশনে জব্দ করা হয়।

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টরের মুক্তিবাহিনী ৮ সেপ্টেম্বর রংপুর জেলার ভুরুংগমারি-পাটেশ্বর এ পাক অবস্থানে অভিযান চালায় এবং ৩ জন পাকসেনা হত্যা করে। একই দিনে তারা পশ্চিম কুড়িগ্রাম এলাকায় ২ জন পাকসেনা হত্যা করে।

৫ সেপ্টেম্বর তারা চাতাইল স্কুলভবনে মুক্তিবাহিনী আক্রমণ করে ৫ জন পাকসেনাকে হত্যা করে ও ১৪ জন আহত হয়।

৭ সেপ্টেম্বর রংপুর জেলার লালমনিরহাটের উত্তরে মুক্তিবাহিনী একটি সড়ক সেতু ধ্বংস করে।

 

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী আগস্ট মাসের শেষ সপ্তাহে ঢাকায জেলার হরিরামপুর এলাকায় পাকসৈন্য বহনকারী একটি লঞ্চ অ্যামবুশে ১১ জন নিহত হয়। তারা লঞ্চটি ধ্বংস করে। সাহসী যোদ্ধারা গত মাসে লোহাগঞ্জ, শ্রীনগর, নবাবগঞ্জ, হরিরামপুর, ঘিওর পুলিশ স্টেশন দখল করে। প্রচুর পুলিশ নিহত ও আহত হয়। এতে তারা ১৯ টি রাইফেল জব্দ করে। বিলম্বিত রিপর্টে যানা যায়, চট্টগ্রাম পূর্ব মিরসরাইয়ে মুক্তিবাহিনী পাকসৈন্যদের অতর্কিতে আক্রমণে ২০ জন হতাহত হয়।

 

৩ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী ঢাকা-কুমিল্লা সেক্টরে মাতুয়া এলাকায় ৪ পাকসেনা হত্যা করে।

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টরএ খুলনা জেলায় ৬ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী ২ জন পাকসৈন্য ও ২ জন রাজাকার হত্যা করে।

 

 

———-স্বাঃ /-জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স,

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৫ সেপ্টেম্বর

 

বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে গেরিলা কার্যক্রমের রীপোর্ট আরও আসতে থাকে। কয়েকটি বড় অপারেশনের বিবরণ নিম্নে দেয়া হল-

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টরের মুক্তিবাহিনী ১০ সেপ্টেম্বর গহুডাঙ্গায় ৪ জনকে হত্যা করে। একই দিনে কুড়িগ্রামে ১০ জনকে হত্যা করে।

১১ ই সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী দরারকোটে আক্রমণ করে। বুরতাপ ও পাটেশ্বরে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ৬ জন পাকসেনা ও ২ জন রাজাকার নিহত হয়।

 

১২ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী মোঘলহাটে আক্রমণ করে। ৬ জন পাকসেনা নিহত হয়। এই সময়কালে তারা লালমনিরহাটে পার্বতিপুর-পিলুবারী রেল যোগাযোগ ধ্বংস করে।

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টরে মুক্তিবাহিনী ১০ সেপ্টেম্বর কুদালিয়ায় ১৫ জন পাকসেনা হত্যা করে। একই দিনে তারা চারনাইলে ৭ জন নিয়মিত পাকসৈন্যসহ ১০ জনের প্রাণনাশ করে।

 

১১ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী মানিক্ষাইলে রেল সেতু ধ্বংস করে রেল যোগাযোগ ব্যাহত করে।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টরে মুক্তিবাহিনী সিক্রিতে ৫ জন পাকসেনা হত্যা করে।

 

দেরীতে পৌঁছনো প্রতিবেদন অনুযায়ী, মুক্তিবাহিনী ৬ সেপ্টেম্বর কুষ্টিয়ার-যশোর-খুলনা সেক্টরের ঝাউডাঙ্গায় ২ জন পাকসেনা হত্যা করে ও ৪ জন আহত হয়। তারা ৬ টি রাইফেল জব্দ করে। ৮ সেপ্টেম্বর ব্রিত্তিয়াছারায় ৮ জন পাকসৈন্য নিহত হয় ও ৩ জন আহত হয়।

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টরের মুক্তিবাহিনী ৮ সেপ্টেম্বর পানছড়ায় আক্রমণ চালায়। এতে ৩ জন আহত হয়। ৭ সেপ্টেম্বর তারা ঢাকা জেলার চান্দলায় ৭ জনকে হত্যা করে ও ৮ পাকসৈন্য আহত হয়। ৮ সেপ্টেম্বর মনিপুরে তারা পাকসেনা বহনকারী ৩ টি নৌকা অ্যামবুশে ৭ পাকসৈন্য ডুবিয়ে মারে।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টরে মুক্তিবাহিনী আটগ্রাম, ছাড়গ্রামে ও বালায় মর্টার আক্রমণ করে এবং ৬ জন পাকসৈন্য নিহত হয় ও ৫ জন আহত হয়।

 

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী আগস্ট এর মধ্যবর্তী সময় বরিশাল জেলায় প্রচুর গেরিলা অপারেশন হয়েছে।

১৩ আগস্ট মুক্তিবাহিনী পিরোজপুরে পাকসৈন্য বহনকারী ২ টি নৌকা আক্রমণ করে এবং উভয় লঞ্চ ডুবিয়ে দেয়। ফলে বেশ কিছু পাকসেনা নিহত বা ডুবে মরল।

 

১৫ ই আগস্ট মুক্তিবাহিনী রাজাকারসহ পাকবাহিনীর এক প্লাটুন শক্তিকে আক্রমণ করে। লঞ্চ ডুবে যাবার কারণে শত্রুদের ৬ জন নিহত হয়। তারা ২৫ টি ৩০৩ রাইফেল জব্দ করে।

 

১৬ আগস্ট মুক্তিবাহিনী খুলনা জেলায় শত্রুদের হেফাজত থেকে মোড়লগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৫০ ছাত্র ও ৪ শিক্ষককে উদ্ধার করে। তাদের জোর করে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে বাধ্য করার জন্য গৃহবন্দী করে রাখা হয়। একই দিনে মুক্তি বাহিনী বরিশাল জেলার ভান্ডারিয়া ও কাঁঠালিয়া থানায় অভিযান চালিয়ে ১১৮ টি রাইফেল জব্দ করে। ১৮ আগস্ট তারা কাঙ্খালি থানায় অভিযান চালিয়ে ৫ জন পাকসেনা হত্যা করে এবং কয়েকজন রাজাকার হত্যা করে। তারা ৪৫ টি রাইফেল জব্দ করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী কোটালীপাড়া থানার আক্রমণে ৩ জন পাকসৈন্য ও ১০ জন রাজাকার হত্যা করে। তারা একটি লঞ্চ, ৩ টি বার্জ এবং ১২ টি রাইফেল জব্দ করে।

 

 

———-স্বাঃ /-জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স,

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৬ সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে তাদের গেরিলা কার্যক্রম জোরদার রেখেছে। গুরুত্বপূর্ণ অপারেশনের কিছু প্রতিবেদন নিচে দেওয়া হল:-

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টরের মুক্তিবাহিনী ১০ সেপ্টেম্বর আমজাদহাটে অ্যামবুশ করে। মাঝিগাছা ও চাঁদপুরে ১৬ জন পাকসৈন্য হত্যা করে।

 

৯ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী কোটেশর, অমরতলি এবং জামবাড়ি অঞ্চলে পাক অবস্থানের উপর আক্রমণ করে এবং ১৩ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

১১ সেপ্টেম্বের মুক্তিবাহিনী কালিকাপুরে অ্যামবুশ করে। এতে ৫ জন নিহত ও ১০ জন আহত হয়। আগে ৬ সেপ্টেম্বর আমজাদ হাটে গেরিলা অপারেশন চলায়। এতে ১৫ জন নিহত হয়।

 

৭ সেপ্টেম্বর থেকে ৯ সেপ্টেম্বর সময়কালে ফতেপুর, সালদাবাদ, বিনোদ পুর, বগুড়া বাড়ি আক্রমণে ১৬ পাকসেনা নিহত হয়।

 

১০ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী মুকুন্দ পুরের কাছাকাছি পাকসৈন্য বহনকারী একটি ট্রেন উড়িয়ে দেয়। ১০ রাজাকারদ ও ১৯ পাকসেনা নিহত হয়। ইঞ্জিন ও ট্রেনের ৩ বগি ধ্বংস হয়।

 

৯ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনীতেলিয়াপাড়া পাক বাহিনীর সঙ্গে গুলি বিনিময় করে ও ৯ জন নিহত হয়।

 

মুক্তিবাহিনী ১৩ সেপ্টেম্বর রাজেন্দ্রপুরে ৫ পাকসেনা নিহত এবং ৯ জন আহত হয়।

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টরে সাগরনাল ফুলতলা রাস্তায় এক পাকিস্তানি সেনা জীপ্ অ্যামবুশে ঘটনাস্থলেই এক মেজরসহ ৪ পাকসেনাক নিহত হয়।

 

১২ সেপ্টেম্বর আখাস্রিতে আক্রমণ করে। এতে ২ জন নিহত ও ৩ জন আহত হয়। ১৩ ই সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী সোহাগপুরে ২ পাকসেনাকে গুরুতরভাবে আহত হয়।

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টরের মুক্তিবাহিনী বামনপাড়া এবং আইহাইতে ১৫ জন পাকসৈন্য হত্যা করে।

 

১০ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী ভতেমারিতে পাক প্যাট্রোলএ অতর্কিতে আক্রমণ করে এবং ৭ জন পাকসেনা হত্যা করে। এছাড়াও মুক্তিবাহিনী রেল যোগাযোগ ব্যবস্থার ক্ষতি করে।

 

 

———-স্বাঃ /-জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স,

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৭ সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে তাদের গেরিলা কার্যক্রম জোরদার রেখেছে।

রিপোর্টের কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিবরণ নিচে দেওয়া হল-

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

১১ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনীর আলিপুরে যুদ্ধে লিপ্ত হয়। এতে তাদের ১২ জন হতাহত হয়।

 

১২ সেপ্টেম্বর ভোতেমারিতে পাক বাহিনীর সঙ্গে গুলি বিনিময়ে ১০ জন পাকসেনা নিহত হয়। একই এলাকায় ১৪ সেপ্টেম্বর পৃথক অপারেশনে ২ জন নিহত হয়। মুঘলা ঘাটে মুক্তিবাহিনীর অভিযানে ৬ পাকসৈন্য আহত হয়।

 

১২ ও ১৩ সেপ্টেম্বর ঠাকুরগাঁওয়ের উপ বিভাগীয় শহরে সড়ক যোগাযোগ ধ্বংস করা হয়।

 

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর:

১৩ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী ছতাছারায় পাক বাহিনীর উপর মর্টার নিয়ে আক্রমণ করলে ১৩ জন পাকসেনা নিহত হয়। আলফাপুর এলাকায় ৭ পাকসৈন্য ও ২০ জন অনিয়মিত সদস্য নিহত হয়। মুক্তিবাহিনী ১৬ টি রাইফেল ও ৭ বক্স চীনা গোলাবারুদ জব্দ করে।

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর:

১০ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী চারনালে ও লক্ষ্মীপুরে ৩ জনকে হত্যা করে। একই দিনে জাদিসারে ৪ জনকে হত্যা করে। ১১ বগাবাড়িতে ৫ জন পাকসেনা নিহত হয় এবং দুই জন আহত হয়।

 

১২ সেপ্টেম্বর ফতেপুরে মর্টার দিয়ে ১ জন পাকসেনাকে হত্যা করে। তাদের ৩ জন রাজাকার সাহায্য করছিল। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কাছাকাছি একই রকম আক্রমণ হয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও নবীনগরে টেলি যোগাযোগ ধ্বংস করা হয়।

 

১২ সেপ্টেম্বর দুই জন পাকসেনা ও তাদেরসহযোগী মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে নিহত হয়। এটি ছিল ছাগলনাইয়াতে। এই সেক্টরে একটি বড় সংখ্যক রাজাকার অস্ত্র নিয়ে আত্মসমর্পণ করে।

 

সিলেটময়মনসিংহ সেক্টর:

১২ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনীর গেরিলা দল আভাং এ পাকসৈন্যদের সাথে যুদ্ধে লিপ্ত হয়। এতে ৭ পাকসৈন্য নিহত হয়।

 

১৩ সেপ্টেম্বর ভোগা, করিমপুর ও কামারাইল এলাকায় ৪ জন পাকসেনা আহত হয়।

 

একটি দেরীতে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী কুড়িগ্রামে মুক্তিবাহিনীর অ্যামবুশে তিন জন পাকসৈন্য নিহত হয় এবং ৪ জন রাজাকার আহত হয়।

 

——–নজরুল ইসলাম, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৮ সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে তাদের গেরিলা কার্যক্রম জোরদার রেখেছে। আজকের বিশেষ অপারেশন নিম্নরূপ-

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর:

১৫ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী শীতল ডাঙ্গা এলাকায় পাক বাহিনীর উপর অভিযান চালিয়ে ৪ জন পাকসেনা হত্যা করে এবং ২ জন আহত হয়। একই দিনে ঘুপডাঙ্গায় ৮ জন নিহত হয়।

 

১৪ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী পাগলেদেওয়ান হাটে ৬ জন পাকসৈন্য ও ২ রাজাকারকে হত্যা করে। কারিয়াতে ৯ টি মাইনের আক্রমণে ৪ পাকসৈন্য ও ৩ রাজাকার নিহত হয়। এর আগে মুক্তিবাহিনী সেতাব গঞ্জ ও ঠাকুরগাঁও অঞ্চলে নৌকা ও টেলিযোগাযোগ বিঘ্নিত করে।

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর:

১৩ সেপ্টেম্বর হরিনগরে মুক্তিবাহিনী পাক বোটের উপর অ্যামবুশ করে। এতে বোটের চালক এবং রাডার অ্যান্টেনা ধ্বংস হয়। পরবর্তীতে ৪ টি লঞ্চ ডুবানো হয়। মুক্তিবাহিনী বানারীপাড়ায় ৩ টি লঞ্চ ডুবিয়ে দেয়। প্রায় ৪০ পাকসৈন্য নদীতে ডুবে মরল বলে অনুমান করা হয়। এই সেক্টরে গত কয়েক দিনে বিপুল সংখ্যক রাজাকার মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। কুষ্টিয়ায় একটি ইউনিয়ন শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান ২২ জন রাজাকার ও অস্ত্রসহ আত্মসমর্পণ করে।

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর:

১২ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী কাইউমপুর এলাকায় আক্রমণ করে ৫ জন পাকসেনা হত্যা করে ও ৭ জন আহত হয়। ১২ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী মন্দভাগে পাকসৈন্য বহনকারী ২ টি নৌকা ডুবিয়ে দেয়। অন্তত ১৫ জন পাকসৈন্য ডুবে মরে। ১২ সেপ্টেম্বর গুথুমা নদীতে ২ জন পাকসৈন্য নিহত ও ২ জন আহত হয়। ১২ সেপ্টেম্বর সাতারা নর্থে মুক্তিবাহিনী এক পাক জিপ মাইনে বিস্ফোরণ করে ৪ পাকসেনা হত্যা করে।

 

ময়মনসিংহসিলেট সেক্টরে:

১৫ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী কামারাইলে পাক অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ২ জন নিহত হয়। ১৫ সেপ্টেম্বর বউরামারিতে মাইন বিস্ফোরণে ১৫ জন পাকসৈন্য আহত হয়। এর আগে বউসি রেলস্টেশন ধ্বংস করে জামালপুর-জগন্নাথগঞ্জ ঘাট পর্যন্ত রেল যোগাযোগ ক্ষতিগ্রস্ত করে।

 

——–নজরুল ইসলাম, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৯ সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে আজকের গেরিলা কার্যক্রমের বিশেষ অপারেশন নিম্নরূপ-

কয়লা স্বল্পতার কারণে রেলপথে ধ্বংস চালানো সম্ভব হচ্ছিলনা।

 

মুক্তিযোদ্ধারা ঢাকা শহরের চারপাশে তাদের গেরিলা কার্যক্রম তীব্রতর করছে। ঢাকা থেকে বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী বীর মুক্তিবাহিনীর আগস্টের শেষ সপ্তাহে ও চলতি মাসের প্রথমার্ধে ঢাকা শহরের মধ্যে প্রচুর গেরিলা কার্যক্রম সম্পন্ন করে। আগস্টে শহরের ইস্কাটন এলাকায় একটি বাড়িতে অভিযান চালানোর সময় কিছু বীর মুক্তিযোদ্ধা শত্রুসৈন্য থেকে হঠাৎ স্টেনগান ছিনিয়ে নিয়ে আক্রমণ করে এবং ৪ জন পাকসেনা নিহত হয়। তারপর তারা সফলভাবে জায়গা ত্যাগ করে।

 

সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে মুক্তিবাহিনী শহরের নিয়মিত পাকসৈন্য ও পশ্চিম পাকিস্তানি পুলিশের অন্তত ১৪ জনকে হত্যা করে।

৬/৭ সেপ্টেম্বর রাতে ১৫০ ফুট দির্ঘ বৃহৎ পণ্যসম্ভারের একটি বজরা ঢাকার কাছাকাছি নরসিংদীতে অবস্থান নিচ্ছিল। এটা পাট ভর্তি ছিল। মুক্তিবাহিনী সেটাকে ডুবিয়ে দেয়।

 

৮ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহ জেলার মোহনগঞ্জ এলাকায় শত্রুসৈন্য ভর্তি তিনটি দেশী নৌকা মোহনগঞ্জে মুক্তিবাহিনীর অ্যামবুশে পরে। তিনটি নৌকা এবং অস্ত্র ও গোলাবারুদ রেখে পাকসেনারা পালিয়ে যায়।

 

৫ সেপ্টেম্বর সিলেট-ময়মনসিংহ সীমান্তে ধর্মপাশা এলাকায় পাকসৈন্য বহনকারী দেশী নৌকা মুক্তিবাহিনী আক্রমন করে। এতে একজন মেজরসহ ৬২ জন নিহত হয়।

 

——–সিল, জনসংযোগ কর্মকর্তা, হেডকোয়ার্টার, বাংলাদেশ ফোর্স।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২০ সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে গত কয়েকদিনের গেরিলা কার্যক্রমের বিশেষ অপারেশন নিম্নরূপ-

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

১৬ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী খানপুর এলাকায় পাক বাহিনীর উপর অভিযান চালিয়ে ৭ টি শত্রু বাংকার ধ্বংস করে, ২ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

 

১৫ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনীর মাইনে একটি পাক জিপ উড়িয়ে দেয়া হয়। এক অফিসারসহ ৩ জন পাকসেনা নিহত হয়। ১৫ সেপ্টেম্বর মকারাম্পুর-আলীনগর এলাকায় ২ জন আহত হয়। ১৫ সেপ্টেম্বর হাতীবান্ধা এলাকায় ১৬ জনকে হত্যা করা হয়। একই দিনে গেরিলারা একটি রেলসেতুতে অভিযান চালিয়ে ৩ জন পাকসেনাকে হত্যা করে।

 

১২ সেপ্টেম্বর বড়খাঁটায় ১ জন পাকসেনা হত্যা করে। অন্যত্র ৩ সেনা নিহত হয়। একই দিনে নামি এলাকায় ২ ট্রুপ পাকসেনা ও ৫ জন রাজাকার নিহত হয়। মহেন্দ্রনগরের কাছাকাছি রেলওয়ে লাইন ধ্বংস করা হয়। এছাড়াও ডোমার, ডিমলা এবং রুহিয়াতে রাস্তা ও টেলি যোগাযোগ ধ্বংস করা হয়।

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর:

১৩ সেপ্টেম্বর মুক্তি বাহিনী দক্ষিণ যাসপুরে পাকসৈন্যদের উপর অতর্কিতে আক্রমণ করে। এতে ৩ সেনা ও ১ রাজাকার নিহত হয়। একই দিনে ধাক্সিন জাস্পুরে ১ সেনা নিহত হয়।

 

১৪ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী জাম্বারিতে একটি পাক পেট্রোল আক্রমণ করে। এতে ৫ জন নিহত হয়। আগে ১০ ও ১১ সেপ্টেম্বর কাশিম্পুর রেল স্টেশনে ৩ জন পাকসেনা নিহত হয়।

 

ময়মনসিংহসিলেট সেক্টরে:

১৩ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী মিন্তেসর এলাকায় আক্রমণে ২ জন সৈন্য হত্যা করে।

 

১৫ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী মহব্বতপুরে আক্রমণ করে ১ জনকে হত্যা করে।

 

১৬ সেপ্টেম্বর বাদীরটেকাতে মুক্তিবাহিনী ২ জনকে হত্যা করে। আগে ১২ সেপ্টেম্বর ঈশ্বরগঞ্জ একালায় আক্রমণ করে ৮ টি রাইফেল উদ্ধার করে।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টর:

১৬ সেপ্টেম্বর গজনী ব্রিজে মুক্তিবাহিনী আক্রমণ করে ৫ জনকে আহত হয়। ১৬ সেপ্টেম্বর ভোমরাতে ৪ জন পাকসেনা হত্যা করে।

 

——–সিল, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২১ সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে গত কয়েকদিনে গেরিলা কার্যক্রমের বিশেষ অপারেশন নিম্নরূপ-

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

১৮ সেপ্টেম্বর রংপুরে মুক্তিবাহিনীরা ৩ পাকসেনাকে হত্যা করে। একই দিনে দিনাজপুরের খানপুরে ২ জন সেনা নিহত ও ২ জন আহত হয়। একই দিনে মধু পারায় ৩ জন হতাহত হয়।

 

১৭ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী দিনাজপুরের হিলি চারকাটে টেলিযোগাযোগ বিঘ্নিত করে এবং ২ টি সড়ক সেতু উড়িয়ে দেয়। একই দিন ফুলবাড়ি-চারকাইের মধ্যে রেলওয়ে কালভার্ট, রেললাইন ও টেলিফোনের খুঁটি ভেঙ্গে ফেলে।

 

১৬ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী ডিমাপুরে ২ জন পাকসেনা হত্যা করে। তারা আখানাগাক রেলওয়ে স্টেশনে ও সড়ক সেতু ধ্বংস করে।

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টরে:

১৮ সেপ্টেম্বর সোনাবারিয়া পাকসৈন্যদের উপর অতর্কিতে হামলা করা হয়। কয়েকজন সেনা রাইফেলসহ আত্তসমর্পন করে। যশোরের ধোপাখালিতে পাকবাহিনী অভিযান চালিয়ে ২ পাকসেনা হত্যা করে। তারা বাঙ্কারও ধ্বংস করে। যশোর জেলাতে একই দিনে ২ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

 

ঢাকাচট্টগ্রামকুমিল্লা সেক্টর

১৬ সেপ্টেম্বর চামুবস্তি এলাকায় গরু নিয়ে যাবার সময় পাকসেনাদের উপর আক্রমণ করা হয়। এতে ৩ পাকসেনা নিহত এবং ৫ জন আহত হয়।

 

১৫ সেপ্টেম্বর মির্জানগর এলাকায় ৩ জন নিহত হয়। ১৪ ই সেপ্টেম্বর কাইম্পুরে ৩ জন পাকসেনা নিহত ও ৩ জন আহত হয়। নোয়াখালী জেলার লক্ষ্মীপুর এলাকায় অভিযানে ৬ পাকসেনা আহত ও ২ জন নিহত হয়। দেশী নৌকায় পাকসৈন্যদের উপর অ্যামবুশে ১ নৌকা ডুবে যায়; বাকিগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী গিতাবারি ও বিরিঞ্চিতে পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে ৩ জন পাকসেনা হত্যা করে। উত্তর জলিল্পুরে ৩ জন নিহত ও ৫ জন আহত হয়।

 

ময়মনসিংহসিলেটমৌলভীবাজার সেক্টর

জয়ন্তী পুরে একটি ব্রিজ উড়িয়ে দেয়া হয়। ১৮ সেপ্টেম্বর ২ জন সেনা নিহত হয়। ফারাঙ্গি পারা এলাকায় পাকবাহিনীর সাথে মর্টার যুদ্ধে ৪ জন নিহত হয়।

 

১৭ সেপ্টেম্বর সিলেটের লেবু ছড়ায় ২০ জন নিহত ও ৩০ জন আহত হয়। ৩ জন মুক্তিবাহিনীর সদস্য এই অপারেশনে আহত হয়।

 

 

——–নজরুল ইসলাম, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৩ সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে গত কয়েকদিনের গেরিলা কার্যক্রমের বিশেষ অপারেশন নিম্নরূপ-

 

ময়মনসিংহসিলেটমৌলোভী বাজার সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী ২০ সেপ্টেম্বর সিলেটের রাধানগরে পাকসৈন্যদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে ৫ জনকে হত্যা করে।

 

১৯ শে সেপ্টেম্বরে মণিপুর ও লক্ষ্মীপুরে ৩ সৈন্য নিহত হয়। একই দিনে মুক্তি বাহিনী সফলভাবে সিলেট জেলার বেরিগাও এবং বাদিপ্তাকে ৫ জনকে হত্যা করে। ১৯ সেপ্টেম্বর বড়গঞ্জে ৪ জনকে হত্যা করে। এর আগে ১৮ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী পাকবাহিনীর একটি দল এবং জয়ন্তী পুরে রাজাকার ও সমর্থনকারীদের আক্রমণ করে ৪ জন পাকসৈন্য ও অনেক রাজাকারকে হত্যা করে।

 

১৮ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী রাজকই চাবাগান ফ্যাক্টরীতে অভিযান চালিয়ে উৎপাদন বন্ধ করে দেয়।

 

১৩ ও ১৭ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী শাহবাজপুর চা বাগান এলাকার পাকসৈন্যদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে আট জনকে হত্যা করে।

 

ময়মনসিংহে ১৫ ও ১৮ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী সফলভাবে মুক্তাগাছা, কলমাকান্দা, শ্রীবড়দি, ইসলামপুর ও নালিতাবাড়ী দশ পাক-সামরিক হত্যাসহ বিভিন্ন থানায় অভিযান চালিয়ে ১০ পাক পুলিশ হত্যা করে।

 

১৭ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী গাইবান্ধার কাছাকাছি উলিবিহারে ২ পাকসৈন্য হত্যা করে ও ১ জন আহত হয়। ১৩ টি রাইফেল, ১ টি চীনা স্বয়ংক্রিয় গান এবং কিছু গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়।

 

আজ এখানে খবর পৌঁছে যে রাজাকার ও পাক বাহিনীর মধ্যে গুরুতর বিরোধের ইঙ্গিত বিদ্যমান। ৯ সেপ্টেম্বর কিছু রাজাকার উলিপুরে পাকসেনাদের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এর দরুন দুই পাকসেনা ও দুই রাজাকার নিহত হয়। পরে সি এলাকায় পাকসেনারা প্রায় তিনশো বেসামরিক ব্যক্তি হত্যা করে।

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর-

পাথরঘাটায় দুই পাকসেনা নিহত এবং ২ জন আহত হয়। একই দিনে মোঘল হাতে ১ জন নিহত হয়।

 

১৮ ই সেপ্টেম্বর তারিখে মুক্তিবাহিনী রংপুর টাউনে শত্রুদের সাথে গুলি বিনিময় করে। উদরশ্রীতে ৩ জন পাকসেনা নিহত হয়।

 

১৬ তারিখে মুক্তিবাহিনী একটি ব্রিজ উড়িয়ে দেয়। ১৭ সেপ্টেম্বর মহেন্দ্রনগর এলাকায় ১ পাকসৈন্য নিহত হয়।

 

১৫ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী ট্রেনের ২ টি বগি লাইনচ্যুত করে ও ২ জন পাকসেনাকে হত্যা করে।

 

 

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টরে:

১৬ সেপ্টেম্বর খাজুরিয়াতে ২ পাকসেনা ও ২ জন রাজাকার নিহত হয়। একই দিনে হুগলীতে যুদ্ধ হয়। ৩ জন নিহত ও ২০ জন আহত হয়।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টরে:

১৭ সেপ্টেম্বর পালিয়াতে ২ টি ট্রুপস নিহত হয়। সনাবারিয়া-মানদরাতে একটি জিপ ও অন্য একটি যান ধ্বংস করা হয়।

 

 

——–নজরুল ইসলাম, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৩ সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে গত কয়েকদিনে গেরিলা কার্যক্রমের বিশেষ অপারেশন নিম্নরূপ-

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

রংপুর সেনানিবাস ও রংপুর রেলস্টেশন এলাকায় গেরিলারা তাদের কার্যক্রম বৃদ্ধি করে। ১৬ সেপ্টেম্বর পাকসহযোগীদের মালিকানাধীন দোকান এর উপর গ্রেনেড ছুড়ে কিছু রাজাকার হত্যা করা হয়।

 

১৯ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী চড়কামারিতে ৫ জন পাকসেনা হত্যা করে। একই দিনে অন্য সংঘর্ষে বাওলিয়া এলাকায় ৬ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

১৮ সেপ্টেম্বর ফারসিপারা এলাকায় ৬ শত্রুসৈন্য নিহত হয়। ১৮ সেপ্টেম্বর কিন্দাখানে ৩ শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

১৮ সেপ্টেম্বর লাহিড়ীতে ২ পাকসৈন্য হত্যা করা হয়।

 

১৯ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনীর দিবার এলাকায় পাক বাহিনীর উপর অভিযান চালিয়ে এক শত্রুসেনাদল হত্যা করে। মুক্তিবাহিনী কিছু রেলপথ ধ্বংস করে। রংপুর জেলার নাগেশ্বরী ও ভতেমারি এলাকায় সড়ক ও রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা ধ্বংস করা হয়। সড়ক সেতু ও কালভার্ট ধ্বংস করা হয়।

মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলার ভুরুঙ্গামারী, মহেন্দ্রনগর, নাগেশ্বরী ও জয় মনিরহাট এলাকায় গেরিলা কার্যক্রম তীব্রতর করেছে।

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর:

১৭ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী কোটেশ্বর, বান মাংলা, চানাল এ শত্রু অবস্থানে অভিযান চালায়। এতে ৬ জন নিহত হয়। কুমিল্লায় ১৭ সেপ্টেম্বর তারা লহাইমারি এবং জাদিসারে ৩ শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

১৬ সেপ্টেম্বর কুমিল্লা জেলার প্যাঁচারা এলাকায় ২ পাকসেনা নিহত হয়। কুমিল্লা জেলার কসবায় শত্রুসৈন্য অবস্থানের উপর গুলিবর্ষণ করে। ১৩ সেপ্টেম্বর তারা আরাইবারিতে ২ পাকসেনা হত্যা করে।

 

 

ময়মনসিংহ সেক্টর:

২০ সেপ্টেম্বর চারিপারা এবং বেরিগাও ৩ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

১৭ সেপ্টেম্বর নাওকুচিতে মাইনে একজন নিহত হয়। শ্রীমঙ্গলে ১৫ সেপ্টেম্বর মাইনে এক পাক জিপ ধ্বংস হয়। নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে জানা যায় যে কান কাঁটা অবস্থায় প্রায় ৪০ জন রাজাকার ময়মনসিংহ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পাকসেনাদের সক্রিয়সহযোগিতার জন্য গ্রামবাসীরা এই শাস্তি তাদের দেয়।

 

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টরে:

২০ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনীর মানিকনগরে ২ কোম্পানি সৈন্যের সাথে যুদ্ধে ২ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

 

১৯ সেপ্টেম্বর তারা যশোর জেলার কামদেবপুরে এক জন পাকসৈন্য হত্যা করে।

 

 

 

——–নজরুল ইসলাম, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৪ সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে গত কয়েকদিনে গেরিলা কার্যক্রমের বিশেষ অপারেশন নিম্নরূপ-

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর:

২১ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী পাথরঘাটায় ৫ পাকসেনা হত্যা করে ও ৩ জন আহত হয়। একই দিনে চুকি পারায় ৩ জনকে হত্যা করে। একটি অ্যামবুশে ২ জন নিহত ও ২ জন আহত হয়।

 

১৯ সেপ্টেম্বর আমার খানায় ৮ জন আহত হয়। সেখানে সড়ক সেতু উড়িয়ে দেয়। মুক্তিবাহিনী দিনাজপুর জেলার ঠাকুরগাঁও উপ বিভাগীয় শহরে প্রায় ব্যাপক গেরিলা কার্যক্রম সম্পন্ন করে।

 

২০ সেপ্টেম্বর উত্তর ঠাকুরগাঁও মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ৬ জন নিহত এবং চার জন আহত হয়। একই দিনে ঠাকুরগাঁও পাওয়ার হাউসে তারা গ্রেনেড নিক্ষেপ করে।

 

১৮ সেপ্টেম্বর একটি পাক গাড়ি আক্রমণ করলে ২ জন নিহত হয়। আগে একটি অভিযানে মুক্তিবাহিনী ঠাকুরগাও সড়ক, রেল ও টেলিযোগাযোগের ক্ষতি করে।

 

১৭ সেপ্টেম্বর বান্ত্রায় মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ৬ জন নিহত ও ২ জন আহত হয়। তারা ৪ টি শত্রু বাংকার ধ্বংস করে। দক্ষিণ রায়গঞ্জে আক্রমণে ২ জন আহত হয়।

 

২০ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী একটি রেলওয়ে ব্রিজ ধ্বংস করে রেলওয়ে যোগাযোগ নষ্ট করে।

 

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর:

২১ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী বাড়াবাড়ি এলাকায় মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ৫ জন পাকসেনা নিহত হয়। অন্য একটি ঘটনায় ৫ জন পাকসেনা ও ৩ জনসহযোগী নিহত হয়।

 

২০ সেপ্টেম্বর হরিচন্দ্রপুরে ২ জন নিহত হয়। ২২ সেপ্টেম্বরতেনতুয়াবারায় ৩ পাকসৈন্য নিহত এবং পাঁচ জন আহত হয়।

 

 

ময়মনসিংহসিলেট সেক্টর:

২০ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী কালীঘাট চা বাগান এলাকায় পাক অবস্থানে মুক্তিবাহিনী অভিযান চালিয়ে ৫ পাকসেনা হত্যা করে।

 

২১ সেপ্টেম্বর গাজীপুর চা বাগানে ৫ পাকসেনা ও ৮ রাজাকার হত্যা করে। এছাড়া ৫ টি রাইফেল জব্দ করে। সামারবাগ চা বাগানে এবং মারিম্পুরে অভিযান চালিয়ে ৭ জন হত্যা করে। রংপুর জেলার সাইদুল্লাপুর থানায় অভিযান চালিয়ে ১২ টি শট গান জব্দ করে। বেশ কিছু পুলিশ কর্মকর্তা আহত হয়।

 

২০ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনীর গৌরীপুরের কাছাকাছি অভিযানে ৫ জন আহত হয়। ১৮ তিলাগাওয়ে মুক্তিবাহিনী গ্রেনেড ছুড়ে চার জন পাকসৈন্য হত্যা করে। বেতুয়ায় একই ভাবে দুই জন পাকসেনা নিহত হয়। জানা যায় যে, ময়মনসিংহ হাসপাতালে প্রায় ৫০০ জন আহত পাকসৈন্য ও রেন্জার্স ভর্তি করা হয়েছে। দেরীতে প্রাপ্ত রিপোর্ট অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী গফরগাঁও ও কাওরাইদে রেল সড়ক ধ্বংস করে।

 

 

ঢাকাচট্টগ্রাম কুমিল্লা সেক্টর

দেরীতে প্রাপ্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী কয়েকটি আক্রমণে শাল্ডাড়, জগন্নাথ ডীঘীম পরশ ও ডূড়ড়গাপূড়ে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ১৯ জন পাকসেনা নিহত হয়। আরও পরে যানা যায় যে, কাওড়াঈডে একটি আক্রমণে ৯ পাকসেনা ও ৪ রাজাকার নিহত হয়।

 

 

——–জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৭ সেপ্টেম্বর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে গত কয়েকদিনে গেরিলা কার্যক্রমের বিশেষ অপারেশন নিম্নরূপ-

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর:

২১ সেপ্টেম্বর ধর্মগরে মুক্তিবাহিনী সশস্ত্র পাকসৈন্যদের আক্রমণ করে একই দিনে আট শত্রুসৈন্য হত্যা করে। লকদিঘিতে ১ প্লাটুন সৈন্যকে মুক্তিবাহিনী আক্রমণ করে। ১৯ সেপ্টেম্বর খগেরহাটে রেশন বহনকারী একটি গরুর গাড়ী মাইনে বিস্ফোরিত হয়।

 

২৩ সেপ্টেম্বর খানপুরে ৩ শত্রুসৈন্য নিহত ও দুই জন আহত হয়। জানা যায় বিজনপুর-পঞ্চগ্রাফে মুক্তিবাহিনী সুশৃঙ্খল ভাবে আক্রমণ চালায়। এই অপারেশন ছিল পরিকল্পিত এবং নিয়মতান্ত্রিক পদ্ধতিতে। মুক্তিবাহিনী চার দিক থেকেই পাকসৈন্যদের ঘিরে ফেলে। শত্রুসৈন্য বিস্ময়ে পালানো শুরু করে। ৫৭ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয় এবং এক অফিসারসহ ৩৮ জন আহত হয়। ৩ টি পাক যানবাহন সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে গেছে। পাঁচটি অস্ত্র জব্দ ও ৫ জন শত্রুসৈন্যদের বন্দী করা হয়।

 

বোর্ড অফিস এলাকায় একটি অর্ধটন ট্রাক ও একটি জিপ অ্যামবুশে আক্রান্ত হয়। জিপটি সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে যায়, ৭ জন নিহত ও ৫ জন আহত হয়।

 

বিলম্বিত রিপোর্ট অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী দিনাজপুর জেলার অ্যাম্বারখানা এলাকায় অ্যামবুশ করে। প্যাট্রোল শত্রুসৈন্য চাকারমারি এলাকায় দিকে আসলে এমন সময় মুক্তিবাহিনী তাদের আক্রমণ করে। এতে ছয় জন নিহত এবং ৩ জন আহত হয়। পরে যানা যায়, ১৯/২০ তারিখ রাতে জাগদালিয়াত ও পঞ্চগড়ে শত্রুসৈন্যদের উপর হামলা হয়। এতে ১১ জন নিহত, ১৯ জন আহত হন এবং ৭৫০ রাউন্ড গুলিসহ ২ টি অস্ত্র জব্দ করে।

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টরে:

মুক্তিবাহিনী মানদা এলাকায় এম্বুশ করে। তারা চার জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে ও ২ জন আহত হয়। দত্তনগরে গ্রেনেড নিক্ষেপের ফলে একজন সেনা নিহত হয়।

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর

বিলম্বিত খবর মতে আজ মুক্তিবাহিনী সালদা এলাকার কাছাকাছি পাক বাহিনীর উপর মর্টার দিয়ে ২ জনকে হত্যা করে করে।

১৮ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী মর্টার দিয়ে শত্রুদের আক্রমণ করে। এতে ২ জন মারা যায়। সিতাদিয়াতে ৪ জন নিহত হয়।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট-মৌলোভী বাজার সেক্টর-২৩ সেপ্টেম্বর পাকসৈন্য বহনকারী এক নৌকা মুক্তিবাহিনীর দ্বারা নিমজ্জিত হয়। তারা লুভাছরা পাড় হতে চেষ্টা করছিল। এতে ১০ জন নিহত হয়। আগে ১৮ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহের বারহাতায় পাক শত্রুদের ছয় জন হতাহত হয়।

 

 

——–নজরুল ইসলাম, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

অক্টোবর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে গত কয়েকদিনে গেরিলা কার্যক্রমের বিশেষ অপারেশন নিম্নরূপ-

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

মুক্তিবাহিনী ২৮ সেপ্টেম্বর লিখাদেরি এলাকায় পাক বাহিনীকে আক্রমণ করে। এতে ৬ শত্রুসৈন্য নিহত ও ৩জন আহত হয়। ময়মনসিংহের দেওয়ানগঞ্জে পাক প্যাট্রোল আক্রমণে ২ জন নিহত হয়। বর্মি ও জয় দেবপুরে ২৮ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী আক্রমণে ১২ জন নিহত ও ৭ জন আহত হয়।

 

২৭ সেপ্টেম্বর তারিখে মুক্তিবাহিনী দিনাজপুর জেলার জয় মনিরহাটে অ্যামবুশ করে। তারা ৬ জন পাকসেনা হত্যা করে।

 

২৬ সেপ্টেম্বর দেবপুরে ৫ জন পাকসেনা নিহত হয়।

 

২৬ ও ২৭ সেপ্টেম্বর অন্য অপারেশনে মুক্তিবাহিনী উকসা এলাকায় ১৫ জন পাকসেনা হত্যা করে এবং ২ টি রাইফেল জব্দ করে।

এর আগে ২৫ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী এক জুনিয়র অফিসারসহ ১৫ জন পাকসেনা হত্যা করে সিলেট জেলার আন্ধারমানিক এলাকায়। একই দিনে আমাদের মুক্তিযোদ্ধারা গুতিরমালায় ৩ জন পাকসেনা হত্যা করে ও ৬ জন জন আহত হয়।

 

বিলম্বিত রিপোর্টে জানা যায় মুক্তিবাহিনী শইলপুকুর পাকুরিঘাট পামুরা ও সিলেট জেলার ঠনঠনিয়াতে পাক বাহিনীর উপর মর্টার আক্রমণ করে। এতে ১০ জন জন পাকসেনা নিহত ও ১৬ জন আহত হয়। এবং ৭ টি বাংকার ধ্বংস হয়।

 

 

——–নজরুল ইসলাম, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

অক্টোবর

 

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে গত কয়েকদিনে গেরিলা কার্যক্রমের বিশেষ অপারেশন নিম্নরূপ-

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর:

বিলম্বিত রিপোর্টে যানা যায় যে কাকডাঙ্গাতে সেপ্টেম্বরের শেষ দিকে মুক্তিবাহিনী কয়েকটি অপারেশন চালায়। মদ্র ও বোয়ালিয়াতে বিভিন্ন কর্মকর্তাসহ ২০০ জনেরও বেশী পাকসৈন্য নিহত হয়। মুক্তিবাহিনী কিছু অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ ৬ জন পাকসেনা বন্দী করে।

 

২৯ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী ভোমরাতে দুই পাকসেনা হত্যা করে এবং তিন জনকে আহত হয়।

 

২৮ সেপ্টেম্বের মুক্তিবাহিনী বর্ণী এবং জয়দেবপুরের মধ্যে পাক বাহিনীর উপর আক্রমণ করে। এতে ৬ জনের মৃত্যু হয় এবং ৭ শত্রুসৈন্য আহত হয়। একই দিনে দুটি পাকসেনাকে বর্ণীর কাছাকাছি নিহত করা হয়।

 

২৬ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী উকসা এলাকার কাছাকাছি মর্টার দিয়ে ৭ জন পাকসেনাকে হত্যা করে।

 

২৪ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী কুতুবপুরে ২ জনকে হত্যা করে। এর আগে যশোরের রঘুনাথপুর, সারথা ও চুরামাঙ্কাতিতে অফিসারসহ ১১ জন পাকসৈন্যকে হত্যা করা হয়।

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

২৭ সেপ্টেম্বর সারপ্রাইজ অভিযানে মুক্তিবাহিনী উসালিয়াতে পাকসেনাকদের তাদের অবস্থান পরিত্যাগ করতে বাধ্য করে এবং ১৭ জন পাকসৈন্য নিহত হয়। মুক্তিবাহিনী কিছু অস্ত্র ও গোলাবারুদ দখল করে নেয়। এর আগে ২৫ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী একই এলাকায় পাক বাহিনীর সম্মুখীন হয় এবং চার শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

সেপ্টেম্বের ২৭, মুক্তিবাহিনী পাকসেনাদের খানপুরের কাছাকাছি ১৫ জনকে আহত হয়। মুক্তিবাহিনী চক্রামারিতে ৭ জন পাকসেনা হত্যা করে।

 

মুক্তিবাহিনী ২৭ সেপ্টেম্বর পারভতিপুর ও বদর গঞ্জের মধ্যে একটি রেলসেতু উড়িয়ে দিয়ে রেল যোগাযোগ বিঘ্নিত করে।

 

২৮ সেপ্টেম্বর লকিয়ালদেবিতে ৬ জন পাকসেনাকে হত্যা করে।

 

২৪ সেপ্টেম্বর শুলিপুকুর, পাকুরিঘাট, পাকিজ্রিয়া, ঠনঠনিয়া, বালানুর ও মাঞ্ছিওসাতে ৩২ সেনা ও ২১ রাজাকার হত্যা করে। শুধু পাকুড়িয়াতে ১৬ জন জখম হয়। মুক্তিবাহিনী এলাকায় সাতটি শত্রু বাংকার ধ্বংস করে। ২৪ সেপ্টেম্বর চালাহাতিতে ৩ জন হত্যা ও ৫২ জন আহত হয়। জাবাইতে ৭ জন নিহত হয়। ২৩ সেপ্টেম্বর বগুড়ার কাছাকাছি হিলি পাঁচবিবিতে ৬ সেনা ও ২ রাজাকার হত্যা করে। একই দিনে কারিয়ার কাছাকাছি ৭ জনকে হত্যা করা হয়।

ময়মনসিংহসিলেট সেক্টর:

২৭ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁওের কাছাকাছি একটি পাক প্যাট্রোল অতর্কিতে আক্রমণ করে ও ২ জন নিহত হয়। এবং পরের দিন তারা গফরগাঁও থানায় অভিযান চালিয়ে ২ পুলিশ সদস্যকে হত্যা করে।

 

২৭ সেপ্টেম্বর রহিম্পুরে ব্রিজে পাহারারত এক সেনাকে হত্যা করে।

 

২৬ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী কয়েকটি জায়গায় অ্যামবুশ করে। মোহনগঞ্জে তারা ৬ সৈন্য ও ৪ রাজাকার হত্যা করে। দশগ্রামে তারা ১০ সেনা হত্যা করে। নল্কুরা ও নলদিয়াতে ৪ জন নিহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী মহাব্বাতপুরের কাছাকাছি ৭ জনকে হতাহত হয়। ২৬ সেপ্টেম্বর পাকশিগঞ্জ-কামালপুর রাস্তায় ২ শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

২৫-২৬ সেপ্টেম্বের মুক্তিবাহিনী রাত্রিতে স্রিগারনাল ও কামারাইলে ১৫ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। সেপ্টেম্বর ২৭ বাটলিতে ৩ জনকে হত্যা করে। আগে ২৫ তারিখ এখানে অ্যামবুশে ৭ জন হত্যা করা হয়।

 

২৭ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী রাধানগরে পাক বাহিনীর ওপর হামলা চালায় এবং তাদের চার জন হত্যা করে। ২৬ সেপ্টেম্বর কাঠালপুরে দুই পাক যানবাহন ও দুটি ফেরি ধ্বংস করা হয়। সেপ্টেম্বর ২৪-২৫ তারিখে করিমপুর, হান্দাতলা, চালতাপুরে অ্যামবুশ হয় ও রাম্না দ্রাসা, ঠাকুরচর, বাত্যা ওকেন্দুয়াতে থানা দখল করে। এতে ১৬ পাকসেনা ও ৯ রাজাকার নিহত হয়। এর আগে মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ শহরের কাছাকাছি অবস্থান করে ৫ শত্রু হত্যা করে।

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর:

২৭ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী কাইম্পুর ৮ শত্রুসৈন্য হত্যা ও সাত জন আহত হয়। ২ টি শত্রুনৌকা ধ্বংস করা হয়। একই দিনে সিরপুর ও আজনাপুরে ১১ জন পাকসেনা নিহত হয়। মনোহরপুর ও কোটেশ্বর মুক্তিবাহিনী ৪ পাকসেনা হত্যা করে। ২৬ তারিখ দেবপুরে এম্বুশে ৫ জন নিহত হয়। মুক্তিবাহিনী ফেনী ও বিলোনিয়া মধ্যে একটি রেলসেতু ধ্বংস করে। ২৫ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী আন্ধারমানিকে কাছাকাছি পাক বাহিনীর উপর আক্রমণে ১ জেসিওসহ ৭ পাকসেনা নিহত হয়। বিলম্বিত রিপোর্টে জানা যায়, মুক্তিবাহিনী ৯ সেপ্টেম্বর মাইন দিয়ে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লাইনে একটি ট্রেন উড়িয়ে দেয়। পাঁচ পাক বাহিনী ও তাদের কিছুসহযোগী নিহত হয়। ইঞ্জিন ও ট্রেনের তিনটি বগি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

——–নজরুল ইসলাম, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

অক্টোবর

 

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে গত কয়েকদিনে গেরিলা কার্যক্রমের বিশেষ অপারেশন নিম্নরূপ-

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর

২ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী রাধানগরে অ্যামবুশে ছয় শত্রুসৈন্য হত্যা করে। দিনাজপুর জেলার ঠাকুরগাঁও এলাকায় ৬ পাকসৈন্য নিহত হয়। একই দিনে শেরপুরে ২ জন নিহত হয়। খুলনার ভোমরায় ২ জন ও বর্ণীতে ২ জন নিহত হয়।

 

আগে ২৮ সেপ্টেম্বর ৩ জন নিহত ও ৬ জন আহত হয়। ২৯ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী নোয়াখালীর নোয়াপুরে ছয় শত্রুসৈন্য হত্যা ও ১৫ জন আহত হয়। মুক্তিবাহিনী কোটেশ্বর এলাকায় পাক বাহিনীর অ্যামবুশে তিন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

৩০ সেপ্টেম্বর কুমিল্লার জাম্বারিতে চার পাকসেনা নিহত হয়। আগে ২৭ সেপ্টেম্বর কসবায় তিন শত্রুসৈন্য হত্যা ও তিন জন আহত হয়।

 

২৯ সেপ্টেম্বর আনন্দপুরে ৪ জন নিহত হয়। অন্য অপারেশনে মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা জেলার মনোহরপুর এলাকায় চার শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

আগে ২৮ সেপ্টেম্বর কুমিল্লা কসবার কায়ইয়ুম পুর ৩ ঘণ্টা মর্টার আক্রমণে ৩৫ জন নিহত ও ১৫ জন আহত হয়। এছাড়া তারা পাঁচটি বেয়োনেট এবং ২৫০ রাউন্ড চীনা বুলেট জব্দ করে। এক গেরিলা এই অপারেশনের সময় আহত হয়।

 

——–নজরুল ইসলাম, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

অক্টোবর

 

বীরমুক্তিযোদ্ধাদের বাংলাদেশ অধিকৃত এলাকার সব ফ্রন্টে গত কয়েকদিনে গেরিলা কার্যক্রমের বিশেষ অপারেশন নিম্নরূপ-

 

১ অক্টোবর বিরিশিরি-বিজয়পুর এলাকায় ২ জন পাকসেনাকে মুক্তিবাহিনী হত্যা করে। বদরকাটাতে আরেকটি বাহিনী মর্টার দিয়ে ৫ জনকে হত্যা করে। ২ অক্টোবর একই দিনে ময়মনসিংহ জেলার হালুয়াঘাট ফুলপুর-রাস্তায় মাইনে একটি ট্রাক বিস্ফোরিত হয়।

 

এর আগে ২৯ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী নোয়াখালী জেলার পূর্ব চ্যাঙ্গালনিয়ার কাছাকাছি ৫ পাকসেনা নিহত ও ৭ জন আহত হয়। তারা তিনটি বাংকার ধ্বংস করে। বিলম্বিত রিপোর্টে জানা যায়, কুলাউড়া-বড়লেখা রাস্তায় ১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী পটিয়াছরা এলাকায় পাক বাহিনীর উপর যৌথ অভিযানে ৩ শত্রুসৈন্য নিহত এবং এক জন আহত হয়। এর আগে ৩০ সেপ্টেম্বর সিলেট জেলার জাফ্লং বাজারে ৮ পাকসৈন্য নিহত হয়।

 

বুড়িচং উপশাখায়, তার আগে ২৭ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী মঞ্চপুর, আজনাপুর, কোটেশ্বর ও জাম বাড়িতে বিশ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। বিলম্ব সংবাদে জানা যায় ২৬ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী চৌদ্দগ্রামে ১২ জন নিহত ও ১ জন আহত হয়।

 

২৬ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী কানাসতলা এলাকায় ১২ জনকে হত্যা করে। ২৮ সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী ঢাকা চট্টগ্রাম রোডে মাইনে সেতু উড়িয়ে দেয়। বিলম্বিত খবরে জানা যায়, বুড়িচং এলাকায়তেইশ শত্রুসৈন্য নিহত ও অনেক পাকসেনা আহত হয়।

 

এর আগে ২৬ সেপ্টেম্বর পান ছড়ায় অ্যামবুশে ৩ জন নিহত হয়। ২৭ সেপ্টেম্বর একই এলাকায় এক জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

——–নজরুল ইসলাম, জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্স।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য কমান্ডো অপারেশনের উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

 

ময়মনসিংহ-সিলেট-মৌলভী বাজার সেক্টর:

৩রা অক্টোবর এক পাকবাহিনীর একটি গাড়ি ময়মনসিংহ জেলার জামালপুর মহকুমার কামালপুর-বকশীগঞ্জ সড়কে মুক্তিবাহিনীর মাইন দ্বারা আক্রান্ত হয় ও সাত জন নিহত ও ৬ জন আহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী টাঙ্গাইল জেলার ধনবাড়ী এলাকায় পাক অবস্থানে অভিযান চালায়। মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমণে সেখানে অনেক সৈন্য আহত হয়। ১  অক্টোবর এর আগে মুক্তিবাহিনী ঢাকা-ময়মনসিংহ রেল ট্র্যাক ধ্বংস করে।

 

জামালপুর ৫ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার ধানুযা এলাকার কাছাকাছি শত্রু সৈন্যের সঙ্গে গোলাগুলিতে আট জন হতাহত হয়। এক মুক্তিযোদ্ধা এই অভিযানে আহত হয়েছে।

 

এর আগে ২ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী রাইয়াপুর এলাকায় তাদের চার জন আহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী জ্বলিলখালা এলাকায় পাক টহলে অতর্কিত আক্রমণ চালিয়ে সাত জনকে হত্যা করে এবং বারো জন আহত হয়। একই দিনে যোদ্ধারা এই এলাকায় একজন সন্দেহভাজন আটক করে।

 

৪ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী বল্লভপুরের কাছাকাছি দুই জন টহলরত শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর-

মুক্তিবাহিনী ২ অক্টোবর চম্পকনগর পাক অবস্থানে দুই জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। এই এলাকায় আরেকটি অভিযানে মুক্তিযোদ্ধারা পাঁচ জন পাকসেনাকে হত্যা করে।

 

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর:

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধারা বৈদ্যনাথপুরে পাকসেনাদের অতর্কিত আক্রমণে এক কর্মকর্তা হত্যা করে। এবং পাঁচজন শত্রুসৈন্য আহত হয়। ১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী নয়াদিঘি এলাকায় অভিযান চালায়। ২ অক্টোবর এক শত্রুসেনা নিহত এবং দুই জন আহত হয়।

 

মুক্তিবাহিনী পাকসেনাদের তিনজনকে হত্যা এবং চার জনকে আহত হয়। এর আগে তারা একই এলাকায় বিভিন্ন সময়ে আক্রমণ চালায়, গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা ব্লক করে, কালভার্ট ধ্বংস করে। একই দিনে দিনাজপুর জেলার ঠাকুরগাঁও এলাকায় একটি গরুর গাড়িতে পাকসেনাদের জন্য রেশন বহন অবস্থায় মুক্তিবাহিনীর মাইনে বিধ্বস্ত হয়। এতে ২ জন যাত্রী নিহত হয়।

 

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টর:

৩ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী গভেসপুরের কাছে পাকসেনাদের আক্রমণে পাঁচ শত্রুসৈন্য নিহত ও চার জন আহত হয়। একই দিনে যশোরের চাঁদপুরে মাইনে সাত পাকসেনা মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে।

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী ২ অক্টোবর মাদ্রাতে আমাদের বীর মুক্তিযোদ্ধারা অ্যামবুশ করে। গোলাগুলিতে ৬ জন শত্রুসেনা নিহত হয়।

 

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য কমান্ডো অপারেশনের উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টর-

৫ অক্টোবর বেরিল্বাড়িতে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ৩৫ জন পাকসেনা নিহত হয় ও ৪ জন আহত হয়। একই দিনে বাক্সা-বালিয়াডাঙ্গাতে টেলিফোন লাইন ধ্বংস করে। একই দিনে নবতকাটতিতে একটি শত্রু জিপ ধ্বংস করে।

 

৩ অক্টোবর বরিশালের বাবুগঞ্জে মুক্তিবাহিনী অ্যামবুশ করে-এতে ৪ জন নিহত হয়।

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহি সেক্টর-

৪ অক্টোবর ভতেমারি একালায় মুক্তিবাহিনী একটি শত্রু জীপ খনি বিস্ফোরণে বিধ্বস্ত করে। বিলম্বিত খবর অনুযায়ী-মুক্তিবাহিনী দিনাজপুর জেলার চিরিরবন্দরে সেনা অধিষ্ঠিত এলাকায় আক্রমণ করে চার শত্রুসৈন্য হত্যা করে এবং তাদের কাছ থেকে একটি রাইফেল উদ্ধার করে। এতে আমাদের সাহসী মুক্তিযোদ্ধাদের সাহস অনেক বেড়ে যায়।

 

৫ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী খানপুরে নয়জন পাকসেনা আহত ও চার পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়।

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর:

প্রাপ্ত খবর মতে কুমিল্লায় ২৬ শে সেপ্টেম্বর মুক্তিবাহিনী সেনা বহনকারী একটি শত্রু জীপে অতর্কিত আক্রমণ করে এক অফিসারসহ তার দুই যাত্রী হত্যা করে।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট-মৌলভিবাজার সেক্টর-

৫ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী নুমেকানগর-নাওকুচি রোডের শত্রু চৌকিতে অতর্কিত আক্রমনে তাদের তিনজন হতাহত হয়। একই রাতে তারা নৌকুচিআতাল-আহমেদনগর টেলিফোন লাইন ধ্বংস করে। ৪র্থ অক্টোবর মুক্তিবাহিনীরঙরা এলাকায় দুই জন শত্রুসৈন্য বন্দী করে।

 

৩ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী রাতে তিন পাকিস্তানী সৈন্য ও পাঁচ রাজাকার হত্যা করে আজিমগঞ্জের কাছাকাছি। একই রাতে তারা চাতলাপুরএর কাছাকাছি শত্রু অবস্থানে আক্রমণ করে দুইজনের প্রাণনাশ এবং তিনজনকে আহত হয়। ৩ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার বাহাদুরাবাদ ঘাট সেনা অবস্থানের উপর একটি অভিযানে একটি পাকিস্তানি মটর লঞ্চ ক্ষতিগ্রস্ত করে এবং তাদের কিছু হতাহত হয়।

 

বিলম্বিত খবর অনুযায়ী ২৬ সেপ্টেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা গোপালগঞ্জ মহকুমার রামচন্দ্রপুরএর কাছে মধুমতি নদীতে খাদ্য কর্মী এবং শত্রুসৈন্য ও গোলাবারুদ বহনকারী চারটি কার্গো বিমানে হামলা চালায়। তারা দুইটি কার্গো ডুবিয়ে দেয়, পনের রাজাকার ও দুই পাঞ্জাব পুলিশকে হত্যা করে।

 

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

অক্টোবর ১৯৭১

 

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

 

৪ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা জেলার কসবার কাছাকাছি তৃতীয় পাঞ্জাব রেজিমেন্টের পাকিস্তানি সেনা বহনকারী একটি বড় লঞ্চে অতর্কিত আক্রমণে অন্তত ২০০ শত্রুসৈন্য নিহত হয়। লঞ্চ অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ একটি বৃহৎ লঞ্চ নিমজ্জত হয়েছিল। ৩ অক্টোবর পাকিস্তান সেনাবাহিনীর অন্য একটি লঞ্চ বাঞ্ছারামপুরে ১০ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে ও সেটি ডুবিয়ে দেয়।

 
একই এলাকায় প্রায় আরেকটি বিশাল গেরিলা অপারেশনে সাহসী মুক্তিযোদ্ধারা ৩ টি স্পিড বোট ডুবিয়ে দেয় এবং দখলদার বাহিনীর ১০ টি দেশী বোট ক্ষতিগ্রস্ত করে। এতে একজন লেফটেন্যান্ট কর্নেল এবং একজন ক্যাপ্টেনসহ ১৪ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়। তারা ৫ অক্টোবর ৪র্থ আমারাতলিতে সেনাবাহিনীর টহলে অতর্কিত আক্রমণ করে। এতে ৪ জন শত্রুর প্রাণনাশ হয়।

 

 

৩ অক্টোবর তারা নয়নপুরে রেলওয়ে স্টেশনের কাছে ৩ জনহানাদার সৈন্য হত্যা করে।

 

 

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী ২ অক্টোবর হোমনা থানায় অভিযান চালিয়ে ১১ জন পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ এবং ৫ জন রাজাকার হত্যা করে। এছাড়া, ১৫ জন রাজাকার অস্ত্রসহ মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। এর আগে ১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী বল্লার কাছে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর অবস্থানে আক্রমণ করে। তারা আসামপারা থেকে মোল্লা পর্যন্ত আক্রমণ করে। এতে ২৫ জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৪ জন আহত হয়।

 

 

চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে নোয়াখালী জেলার ফেনী এলাকায় মুক্তিবাহিনীর দ্বারা পরিচালিত একটি সাহসী আক্রমণাত্মক হামলায় তাদের রণকৌশলের উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন নির্দেশ করে।

 

 

৩ অক্টোবর মুক্তিবাহিনীতে ফেনীর কাছাকাছি মুইয়ারি নদী পার হয়ে পরশুরাম এবং অনন্তপুর এ প্রতিরক্ষা অবস্থান গড়ে তোলে। মরিয়া এবং বিভ্রান্ত পাকিস্তানি সেনাবাহিনী মুক্তিবাহিনীর প্রতিরক্ষা অবস্থানের উপর আক্রমণ করে। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের দারুণ সমন্বয়ের মধ্যে তীব্র জবাব দেয়া হয় এবং মর্টারসহ ছোট এবং ভারী অস্ত্র দিয়ে তাদের উপর নিবিড় হামলা চালানো হয়। প্রচণ্ড যুদ্ধ করার পর শত্রুরা তাদের কমরেডদের ১৯ টি মৃতদেহ ফেলে চলে যায়। এই বীরত্বপূর্ণ কাজে মুক্তিযোদ্ধাদের মনোবল আরও উন্নত এবং তাদের হামলা আরও জোরদার হয়। এই অপারেশনের সময় অন্যত্র তারা শত্রুসৈন্যদের সঙ্গে আরেকটি সরাসরি সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। ৪০ জন শত্রুসৈন্য এতে নিহত হয়।

 

 

একই জেলার অনন্তপুরে শত্রুসৈন্যদের উপর ত্রিধাবিভক্ত মুক্তিবাহিনী অবস্থানে আক্রমণ করে। এই যুদ্ধ বেশ কয়েক ঘন্টা চলে। এবং শত্রুসৈন্যদের একটি গ্রুপের প্রায় ৩০ জন হতাহত হয়। পরে মুক্তিবাহিনী প্রতিরক্ষা অবস্থানটি পদদলিত করে। আমাদের বীরত্বপূর্ণ মুক্তিযোদ্ধাদের এক জন প্রাণ হারায়। এতে পাঞ্জাব রেজিমেন্টের ৩০ জন পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়েছে। অবশেষে, হানাদার বাহিনী জায়গাটি ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়।

 

 

সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধা ও দখলদার সৈন্যদের মধ্যে ফেনী ও বিলোনিয়া এলাকায় ভারী যুদ্ধ অব্যাহত রেখেছেছিল। প্রতিবেদন নিশ্চিত যে এক জেসিওসহ ২৭ জন শত্রুসৈন্য মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে নিহত হয়। জানা গেছে যে দখলদার বাহিনীর মনোবল ধ্বংস হয়। এদিকে মুক্তিযোদ্ধারা ফেনী ও বিলোনিয়ার মাঝে রেল যোগাযোগ ব্যাহত করে। ফুলগাজী রেল ব্রিজ ভেঙ্গে ফেলে। তাদের বীরত্বপূর্ণ পদক্ষেপ এভাবে এগিয়ে চলে।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা,

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১০ অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর:

৫ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী খানজাহানপুরে শত্রুসৈন্যদের আক্রমণ করে ১২ জনকে হত্যা করে। আগে ৪ অক্টোবর শিবরামপুরে অ্যামবুশে ২ জন নিয়মিত সেনা এবং অনিয়মিত ৭ সৈন্য হত্যা করে।

 

একই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা রাজশাহী নবাবগঞ্জগামী ট্রেনে আক্রমণ করে ২৩ জনকে হত্যা করে।

 

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর-

মুক্তিবাহিনি নোয়াখালীর বেলনিয়া ও চিকনগুনিয়াতে অ্যামবুশ করে ৫ জনকে হত্যা করে। একই দিনে তারা মুরলীফাইদ এলাকায় শত্রু অবস্থানে আক্রমণ করে ৩ জন হত্যা এবং ৭ শত্রুসৈন্যকে আহত হয়। একই দিনে মকামিয়া বাজারে হানাদার বাহিনীর টহলে ত্তৎ পাতা মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমণে ২ শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

 

এর আগে ৬ অক্টোবর তারা পাকিস্তানি বাহিনীর উপর গ্রেনেড আক্রমণ করে। তখন তারা ঢাকা-চট্টগ্রাম রোড যানবাহন আনলোড করছিল-তাদের ৩ জন নিহত হয়।

 

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী ২ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী সালদা শত্রুসৈন্য অবস্থানে অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে পরশুরাম এবং চিতলিয়া এলাকায় ৪০ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে এবং বহুসংখ্যক আহত হয়।

 

৩ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী আনন্দপুর ও ধানিকান্দার মধ্যে শত্রু অবস্থানের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। তারা ৬০ জন দখলদার সেনা হত্যা এবং আরো অনেক আহত হয়। একই দিনে তারা একই এলাকায় শত্রু অবস্থানের উপর মর্টার দিয়ে আক্রমণ করে। এই অপারেশনে তারা ৩০ জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং শত্রুদের বিভিন্ন বাংকার ধ্বংস হয়।

 

কুমিল্লা জেলার মুক্তিযোদ্ধারা বিভিন্ন অঞ্চলে বৃহৎ গেরিলা কার্যক্রম চালিয়েছে। ৪ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী পানছড়া এবং কোটেশশর এলাকায় ৪ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। বিলম্বিত সংবাদ অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী মঅনলপুর এবং মোহনপুর এলাকায় শত্রুসৈন্যদের উপর অতর্কিতে আক্রমণ চালিয় ৯ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে ও দু’জন আহত হয়।

 

আজ রিপোর্ট পৌঁছায় যে সিলেট জেলার মুক্তিবাহিনী ৭ অক্টোবর রাতে কমেদপুর এলাকায় এক পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর মেজরসহ ২৫ শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

৬ অক্টোবর মুক্তিবাহিনীর চম্পক নগর এলাকায় ৩ পাকিস্তানি সেনা হত্যা করে। একই দিনে তারা এ কাবিয়াবাজারে ৩ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

অক্টোবর ৮ তারিখ, মুক্তিবাহিনী টাঙ্গাইল জেলার কাগমারি এলাকায় হানাদার বাহিনীকে অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে ৫ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। জানা গেছে যে একটি বড় যুদ্ধ মুক্তিবাহিনীর গেরিলা ও টাঙ্গাইল জেলার হানাদার বাহিনীর মধ্যে চলেছে।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১২ অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী কুছুমবির কাছে আক্রমণে পাকিস্তানি সেনাদের এবং অনিয়মিত একটি দলের চার জন হত্যা এবং দুই জনকে আহত হয়।

 

৮ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী পাকিস্তানি সৈন্য ও রাজাকারদের আরেকটি পেটি আক্রমণ করে এবং ৪ সৈন্য ও মেহেরপুরের কাছাকাছি দুইসহযোগী রাজাকারকে হত্যা করে। একই রাতে বালতিয়ার কাছাকাছি মুক্তিবাহিনী একটি পাক গাড়ির ওপর অতর্কিত হামলা করে এক সৈনিক হত্যা করে।

 

৪ অক্টোবর এবং ৫ টার সময় দশ জন পাকিস্তানি সৈন্যকে মাইন বিস্ফোরণে হত্যা করে ভুরুঙ্গামারী রাস্তায়। এর আগে গত ৬ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী দানিগাগ্লাতে পাক অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ৪ জন পাকসেনাকে হত্যা করে।

 

এর আগে ২ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী উলিপুর-কুড়িগ্রাম সড়কে ১ পাকসেনা হত্যা করে। মুক্তিবাহিনীরা সাতটি রাইফেল ও কিছু গোলাবারুদ উদ্ধার করে। পৃথক অভিযানে, মুক্তিবাহিনী পালটিয়া-হাতিবাঁধা এবং রাজারহাঁট-তগারি এলাকার মধ্যে রেল যোগাযোগ ব্যাহত করে।

 

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টর:

২৪ টি দেশি নৌকায় সিলেট জেলার হাকালুকি হাওরের কাছাকাছি দুটি গানবোটসহ চলন্ত অবস্থায় এই বড় শত্রু দলটিকে মুক্তিবাহিনী আক্রমণ করে। একজন মেজর এবং ক্যাপ্টেন নিহত হয় ও ১৫ জন আহত হয়। আরও ১০ শত্রুসৈন্য যুদ্ধে নিহত হয়। আমাদের সাহসী মুক্তিযোদ্ধাদের দুটি জন নিহত হয় ও ৩ জন আহত হয়।

 

৭ অক্টোবর মারকুলই সিলেটে একটি কলামে আক্রমণে ৪ পাকিস্তানি সৈন্য ও তাদের সঙ্গেসহযোগী ২ রাজাকার নিহত হয়। ৬ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী কামারসাইলের কাছে পাকিস্তানি সেনাদের উপর অতর্কিত আক্রমণে চার শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

 

৯ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী গেরিলাদের কলসিন্দূরের কছাকাছি একটি দল আক্রমণে দুই জন সৈন্য নিহত হয়।

 

এর আগে ১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী জামালপুর-ফেরিঘাটে (ময়মনসিংহ) কাছে পাকিস্তানি সেনা অবস্থানে অভিযান চালিয়ে তিন পাকিস্তানি সেনা হত্যা করে। মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার বকশিগঞ্জ-কামালপুর রোডের একটি সড়ক সেতু ভেঙ্গে ফেলে।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী কাগমারির কাছে পাকিস্তানের সৈন্যদের অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে ৫ জন হত্যা করে ও ৩ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। একই দিনে তারা কয়েমকলার কাছাকাছি শত্রু অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ২ জনকে হত্যা করে এবং ১০ জন আহত হয়।

 

অক্টোবর ৫ তারিখে মুক্তিবাহিনী পীরগাছা (খুলনা)র কাছে পাকিস্তানের অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ১ জেসিওসহ ৩ জন পাকিস্তানি সৈন্যকে হত্যা করে।

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী কাশিয়ানী ভাটিয়াপাড়ায় পাকিস্তানি সেনা অবস্থানের ওপর তিন দিক থেকে একটি সাহসী আক্রমণ করে। তারিখ ও স্থান-৪ অক্টোবর; গোপালগঞ্জ উপবিভাগ। এতে কমপক্ষে ৩০ জন পাকিস্তানি সৈন্য ও ২০ রাজাকার নিহত হয়। এখানে রাজাকারদের একটি গ্রুপ তাদের অস্ত্রসহ মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। মরিয়া হয়ে পাকিস্তানি সৈন্যরা এয়ার-কভার পাঠায়। পাকিস্তানি জেট বিমান দিনে দুইবার এলাকায় টহল দিত। সেনা বহনকারী একটি পাক হেলিকপ্টার সন্ধ্যার দিকে অবতরণের চেষ্টা করলে মুক্তিবাহিনী গুলি চালিয়ে তা ব্যার্থ করে দেয় এবং হেলিকপ্টারটি ঢাকা ফেরত যায়। পরদিন অতিরিক্ত পাকিস্তানি সেনারা প্রতিশোধমূলকভাবে এলাকায় গানবোট ও লঞ্চ নিয়ে আসে এবং বহু ঘর পুড়িয়ে দেয়।

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী ৪ ও ৫ অক্টোবর খাজুরিয়ার কাছে পাকিস্তানি সেনাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায় এবং ৪ জন নিহত হয়। এ সময়কালে, মুক্তিবাহিনী আজনাপুর এর কাছে পাকিস্তানি সেনাদের ওপর অতর্কিত হামলা দ্বিগুণ করে যাতে ১৩ পাকিস্তানি সৈন্য নিহত হয় এবং ৩ জন আহত হয়।

 

৫ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী নয়নপুরের কাছে পাকিস্তানি সেনাদের ওপর গুলিবর্ষণ করে এবং শত্রুদের ৫ জন হতাহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী জামবাড়ির কাছে পাকিস্তানি সেনাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায় এবং ২ জন শত্রু নিহত হয়।

 

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৩ অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী ১০ অক্টোবর রংপুর জেলার ভতেমারিতে হানাদার বাহিনীর অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ১০ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

এর আগে ৫ অক্টোবর তারা একই এলাকায় ছাপানির কাছাকাছি একটি সড়ক সেতু ক্ষতিগ্রস্ত করে।

 

৯ অক্টোবর হানাদার বাহিনী সোনামস্ক এলাকায় হামলা করে, কিন্তু মুক্তিবাহিনী পাল্টা জবাব দেয়। এতে ৭ শত্রুসৈন্য নিহত এবং বহুসংখ্যক আহত হয়। এসময় এক রাজাকার মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী জয়মনিরহাঁট এবং আন্দেরিঝর খামার এর মধ্যে আক্রমণে ৩ জন নিহত এবং ১০ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। তারা একই দিনে ছালমা এবং রংপুর জেলার কুড়িগ্রাম এর মধ্যে চান্দিজান সেতু ভেঙ্গে ফেলে। পরের দিন তাদের কাছে অস্ত্রসহ ৪ রাজাকার তিস্তা এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে আত্মসমর্পণ করে।

 

৯ অক্টোবর মাইন বিস্ফোরণের কারণে কাজলদীঘি এলাকায় দুই শত্রুসৈন্য নিহত হয়। একই দিনে তারা ছুড়লি এবংকেটার মধ্যে কালভার্ট ভেঙ্গে ফেলে। তারা এই এলাকায় টেলিযোগাযোগ বিঘ্নিত করে।

 

এর আগে ৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী শত্রুসৈন্যদের উপর অ্যামবুশ করে।

 

মচিঘরএলাকায় প্যাট্রোলরত এক শত্রুসৈন্য হত্যা করে। এবং একটি চীনা রাইফেল দখল করে নেয়।

 

 

যশোর-কুষ্টিয়া-খুলনা সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী ১০ অক্টোবর খুলনা জেলার ঘুগরিতে অ্যামবুশে ৭ হানাদার সৈন্য হত্যা করে। এতে আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের এক জন আহত হয়েছিল। একই দিনে মুক্তিবাহিনী খুলনা জেলার মদনকটি স্কুলে হানাদার বাহিনীর অবস্থানে অভিযান চালায় এবং ৪ জন নিহত এবং গুরুতরভাবে ৭ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

২ অক্টোবর তারা দসিতানার মধ্যে শত্রুসৈন্য অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ৫ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। একই দিনে যশোর জেলার কাপাসডাঙ্গাতে অতর্কিত আক্রমণে ১০ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। ১০ অক্টোবর এক রাজাকার তার রাইফেলসহ যশোরের কুটচান্দপুর এলাকার কাছে আত্মসমর্পণ করে। এর আগে, ৪ অক্টোবর দুই রাজাকার বেনাপোল এলাকায় অস্ত্রসহ মুক্তিবাহিনির কাছে আত্মসমর্পণ করে।

 

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী ৯ অক্টোবর জোরাগঞ্জ এবং নোয়াখালী জেলার ফেনীর মধ্যে ২ টি রেলওয়ে ব্রীজ ভেঙ্গে ফেলে এই দুই স্থানের মাঝামাঝি রেল যোগাযোগ ব্যাহত করে।

 

৪ অক্টোবর মুক্তিবাহিনি কুমিল্লা জেলার লাটমুরাতে টহলরত শত্রুসৈন্যদের অতর্কিত আক্রমণ করে ৩ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। একই দিনে তারা মজুমদ্বারহাঁট এলাকায় ৬ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। ৭ অক্টোবর চার্নাল এলাকায় একই দিনে একটি অতর্কিত আক্রমণে ২ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

নোয়াখালী জেলার গাবতলা এলাকায় অতর্কিত পাকিস্তানি সেনাদের টহলে আক্রমণ করে ৪ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। এতে তারা তিনটি এলএমজি দখল করে নেয়। এর আগে, অক্টোবর ৬ মুক্তিবাহিনী কাইয়াঁরা স্কুল এ হানাদার বাহিনীর উপর অ্যামবুশ করে তাদের মধ্যে ৬ জন নিহত হয়।

 

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী ১১ অক্টোবর হালুয়াঘাট ও ময়মনসিংহেরতেলিখালির মধ্যে টেলিফোন লাইন ধ্বংস করে টেলিযোগাযোগ অনুপযোগী করে ফেলে। এর আগে ৭ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা রাজাকার প্যাট্রোল একই এলাকায় অতর্কিত এবং তাদের মধ্যে ৬ জন নিহত হয়। এতে তারাও 2 চীনা রাইফেলস দখল করে নেয়।

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহ সময় শ্রীমঙ্গল এবং সিলেট জেলার কাকিছাড়ার মধ্যে একটি রেলওয়ে ব্রিজ ধ্বংস করে।

 

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলার হাতিবান্ধায় ১১ অক্টোবর দখলদার সেনাদের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হয় এবং ৫ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। আমাদের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ৩ জন আহত হয়।

 

৪ অক্টোবর শাহতে মাইনে দুই জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং দুই জন গুরুতর আহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী দেওদা এলাকায় প্যাট্রোল পার্টির সাথে যুদ্ধে লিপ্ত হয় ও ২ জন সৈন্য নিহত হয়। তারা একই দিনে রাজশাহী জেলার আটপাড়ায় রাজাকার ক্যাম্পে অভিযান চালিয়ে ৫ রাজাকার হত্যা করে।

 

এর আগে ৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী রাজশাহী জেলার নবাবগঞ্জ এলাকায় পেট্রোলরত শত্রুদের অতর্কিতে আক্রমণ করে এবং এক শত্রুসৈন্য হত্যা করে এবং কয়েকজন আহত হয়। একই দিনে রাইফেলসহ ৪ জন রাজাকার দিনাজপুর জেলার হামজাপুরে মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট-মৌলভীবাজার সেক্টর-

দখলদার সেনাবাহিনী ময়মনসিংহ এলাকায় ১১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনীকে আক্রমণ করে। এতে ১০ শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

 

৪ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী টিকাহোয়ারে রাজাকারদের প্যাট্রোলে আক্রমণ করে এবং এতে শত্রু সৈন্যেরসহযোগী ৬ রাজাকার নিহত হয়। ও তাদের ৪ জন আহত হয়।

 

বিলম্বিত রিপোর্ট অনুযায়ী এক হানাদার আর্মি ট্রাক মাধবপুর থেকে ময়মনসিংহে চলার সময় ৩ অক্টোবর পর্যন্ত মাইনে আক্রান্ত হয়। এতে ৩ শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

 

১০ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী সিলেট জেলার কুলাউড়াতে পাকিস্তানি সেনা অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ৫ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। এই সময় ২ জন রাজাকার তাদের রাইফেল দিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে আত্মসমর্পণ করে। একই দিনে, একটি শত্রুবাস পাগলা এলাকায় মাইন বিস্ফোরণে বিধ্বস্ত হয়। তারা অভিযান চালিয়ে একই দিনে জয়কালাস এবং দিরাই মধ্যে গমনরত একটি লঞ্চ ধ্বংস করে। এতে হতাহতের রিপোর্ট এখনো পাইনি। একই দিনে তারা ছাড়গ্রামে হানাদার বাহিনীর অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ২ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। পরের দিন ১১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী বুশগ্রামে একজন শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

৯ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী সিলেট জেলার বালা সেতু পাহারারত পাকিস্তানি সেনাদের উপর অভিযান চালিয়ে ২ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। তোকচা এলাকায় মুক্তিবাহিনী হানাদার বাহিনীর সাথে সম্মুখ যুদ্ধে লিপ্ত হয় এবং অনেক হতাহত হয়। দুই রাজাকার দক্ষিণকুলে একই দিনে মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে আত্মসমর্পণ করে।

 

৫ অক্টোবর তারা সাচা এবং সিলেট জেলার সুনামগঞ্জের মধ্যে টেলিযোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে।

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর:

 

মুক্তিবাহিনী আমানগণ্ডা এলাকায় ৯ অক্টোবর একটি এম্বুশে ৩ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

৪ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী নোয়াখালীর ফুলগাজীতে পাকিস্তানি সেনাঅবস্থানে অভিযান চালিয়ে ৩ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। এর আগে তারা একই এলাকায় একটি সড়ক সেতু ভেঙ্গে ফেলে। অনন্তপুর এলাকায় একই দিনে আরেকটি অভিযানে এক শত্রুসৈন্য নিহত হয়। মুক্তিবাহিনী বওহারা এলাকায় হানাদার বাহিনীর উপর আক্রমণে একই দিনে ৪ শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

৪ অক্টোবর কুমিল্লা জেলার জামবাড়িতে পাকিস্তানি সেনাদের ওপর অতর্কিত হামলায়, মুক্তিবাহিনী ৫ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। একই দিনে তারা পানছড়াতে ৩ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে একটি এম্বুশে। মুক্তিবাহিনী একই দিনে সইতশালা এলাকা থেকে হানাদার বাহিনীর তাড়িয়ে দেয়।

 

৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী চাঁদপুর-কুমিল্লা জেলা আক্রমণে ২ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। তারা একই এলাকায় শত্রুদের দুইটি বাংকার ধ্বংস করে।

 

এর আগে, ৬ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী একই এলাকায় হানাদার বাহিনী বহনকারী নৌকায় অতর্কিত আক্রমণ করে। এতে ৫ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয় এবং নৌকা সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস হয়ে যায়।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা এর দখল অঞ্চলের রিপোর্ট থেকে জানা যায় যে, প্রচুর রাজাকার মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে আত্মসমর্পন করে।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা,

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর:

১২ অক্টোবর দুই প্লাটুন শত্রুবাহিনী খালপারা এবং আলপুর এলাকায় মুক্তিবাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধে অবতীর্ন হয়েছিল। মুক্তিযোদ্ধারা সফলভাবে এই হামলায় তাদের ১০ জনকে হতাহত হয়। এই অপারেশনে এক গেরিলা নিহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী ক্যাঁতরা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৫ শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

এর আগে ১০ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী খালপারা এবং আলপুরে শত্রু চৌকিতে অতর্কিত আক্রমণ করে। এতে ৪ জন দখলদার সৈন্য নিহত হয়। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মেজর শেরখানকে গত সপ্তাহে রংপুর জেলার গাইবান্ধায় মুক্তিবাহিনী হত্যা করে। জানা গেছে যে যখন দখলদারী সৈন্যদল গাইবান্ধা সাব-সদর দপ্তর থেকে ভরালখালির দিকে অগ্রসর হয় মুক্তিযোদ্ধারা তখন তাদের ওপর অতর্কিত হামলা করে এবং দুই জুনিয়র কমিশন্ড অফিসারসহ মেজর শেরখান নিহত হয়।

 

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর:

আজ এখানে পৌঁছান বিলম্বিত খবর অনুযায়ী ৯ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী দাতিয়াশার এলাকায় শত্রু চৌকিতে অতর্কিত আক্রমণ করে এবং ৩ জন দখলদার সৈন্যকে হত্যা করে।

 

8 অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা গাবতলা এলাকায় ২ জন শত্রুসৈন্যকে অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে হত্যা করে।

 

 

ময়মনসিংহ-সিলেট-মৌলভী বাজার সেক্টর:

১২ অক্টোবর আমাদের বীর মুক্তিযোদ্ধারা সিলেট জেলার জৈন্তাপুরে শত্রু অবস্থানে অভিযান চালিয়ে কিছু চীনা গোলাবারুদ, সঙ্গে একটি রাইফেল উদ্ধার করে।

 

১১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী দেবালছড়া এলাকায় অভিযান চালায়। এই অপারেশনে তারা ২ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। তারা মুড়িয়াছড়াতে শত্রুসৈন্যদের উপর অতর্কিত আক্রমণ চালায় এবং তাদের ৩ জনকে হতাহত হয়। দখলদার সেনারা মুক্তিযোদ্ধাদের উপর একই এলাকায় আরেকটি অতর্কিত হামলায় তিন পাকিস্তানি সেনা হত্যা করে।

 

আজ একটি বিলম্বিত খবরে যানা যায় যে, ৫ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী গাইবান্ধার কাছাকাছি আলহাজ্ব জুট মিলসে অভিযান চালিয়ে দুই জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। এর আগে ৩ অক্টোবর আমাদের মুক্তিযোদ্ধারা গাইবান্ধার কাছাকাছি রসুলপুর এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর উপর অতর্কিত আক্রমণে চার পাকিস্তানি রেঞ্জার্সকে হত্যা করে।

 

কুষ্টিয়ার যশোর-খুলনা সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী ১১ অক্টোবর বাকশা এলাকায় একটি বৈদ্যুতিক পাইল ধ্বংস করে।

 

১২ অক্টোবর তারা মদনকাঠি এলাকায় ৫০০ গজ টেলিফোন লাইন সরিয়ে ফেলে এবং তারা কুষ্টিয়ার মেহেরপুর-চুয়াডাঙ্গা সড়কে চারটি বৈদ্যুতিক পাইলন ধ্বংস করে।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, চট্টগ্রাম শহরের বিশাল এলাকা মুক্তিবাহিনীর নিবিড় গেরিলা অপারেশনের কারণে অক্টোবরের ১ম সপ্তাহ জুড়ে বিদ্যুৎহীন ছিল। এ সময়কালে মুক্তিবাহিনী আছিরাবাদ, মাদিরবাড়ি, মদিনাঘাট এবং চাঁদপুরে ৪ টি বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র ধ্বংস করে। ৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী চট্টগ্রাম-কাপ্তাই লাইনে বিদ্যুৎ পাইলন ধ্বংস করে।

 

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী ১২ অক্টোবর রাদিনগর এর নিকটবর্তী পাকিস্তানি বাহিনীর উপর অতর্কিতে তাদের ৩ জন হত্যা করে। ৪ অক্টোবর গুথুমা এবং পূর্ব দেবপুরে পাক অবস্থানের উপর পৃথক অভিযান চালিয়ে, দুই পাকিস্তানি সেনা হত্যা করে এবং ৭ অক্টোবর ৪ জন আহত হয়। মুক্তিবাহিনী নোয়াখালী জেলায় ছাগলনাইয়া থানায় অভিযান চালিয়ে ৪ পাকিস্তানি সৈন্য ও পুলিশ হত্যা করে ও ৭ জন আহত হয়। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী সেপ্টেম্বর ১৭-১৯ তারিখে হরিরামপুর এবং ঢাকা জেলার শিবালয় থানার মালুছিম বাজারের কাছে পাক বাহিনীর উপর গুলিবর্ষণ করে। এই অভিযানে ২৫ পাকিস্তানি সৈন্য নিহত হয়।

 

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার হাতীভাঙ্গাতে ৯ অক্টোবর ২০ জন পাকিস্তানি সৈন্য হত্যা করে। ৯ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী মোহনগঞ্জে পাকিস্তানি রেঞ্জার্সে অতর্কিতে আক্রমণ করে এবং এদের মধ্যে চারজন নিহত হয়।

 

১০ অক্টোবর পাকিস্তানি সেনার ১ টি গাড়ি ফুলপুর-হালুয়াঘাট সড়ক পথে মাইনে আক্রান্ত হয় এবং চার পাকিস্তানি সৈন্য নিহত হয়। ময়মনসিংহ জেলায় মুক্তিবাহিনী ৪ অক্টোবর জামালপুর সরিষাবাড়ির মধ্যে রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে। দাঘি রেল স্টেশনের কাছেকেন্দুয়া-কালীবাড়ি এবং বয়রালির কাছাকাছি রেলওয়ে সেতু ধ্বংস করে। এর দ্বারা জামালপুর ও বাহাদুরাবাদ এর মধ্যে রেল যোগাযোগ ব্যাহত হয়। গত সপ্তাহে ২০ জন রাজাকার জামালপুরে তাদের অস্ত্রসহ ময়মনসিংহ জেলায় এবং সিলেট জেলায় দালুরাতে মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে।

 

রংপুর দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী পুখিলগাও এলাকায় পাকসেনাদের ওপর অতর্কিত হামলা করে এবং শত্রুসৈন্যদের ৩ জন আহত হয়। ৯ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ভতেশুরে পাকসেনাদের উপর অতর্কিত আক্রমণ করে, উত্তর অডিতমারিতে ৩ জন পাকসেনাকে হত্যা করে ও পাঁচজন আহত হয়। ৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ভবানীপুরে পাকসেনাদের সাথে যুদ্ধে দুই শত্রুসৈন্য নিহত হয়। ৯ অক্টোবর কিছু রাজাকার গাইবান্ধার কাছে মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। ১২ অক্টোবর একজন রাজাকার কমান্ডার, হলদিবাড়ির হাবিবুর রহমান (রংপুর জেলা) মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

সিলেট জেলায় মুক্তিবাহিনী ও পাকিস্তানি সেনাদের মধ্যে ভারী যুদ্ধ চলছিল। আমাদের সাহসী সৈন্যরা ইতিমধ্যে এই শিল্প শহরের একটি অংশ দখল করে আছে এবং ছাতক ও প্রতিবেশী শহরগুলির মধ্যে সব সড়ক ও রেল যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছে। গত দুই দিনের যুদ্ধে পাকসেনা হতাহতের পরিমান অনেক বেশী।

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনীতে মেরিন কমান্ডোরা গত ৮ অক্টোবর চট্টগ্রাম বন্দরে দুটি বড় জাহাজ ডুবিয়ে দেয়। এগুলো হল পাকিস্তানের নাসিম এবং অপরটি ছিল গ্রিক জাহাজ এভ্লস যা দুটি ট্যাংক এবং অন্যান্য অস্ত্র ও গোলাবারুদ পূর্ন ছিল।

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর:

৯ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লার সাদেকপুরে পাকসৈন্যদের উপর অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে ক্যাপ্টেনসহ ২৩ পাকিস্তানি সেনা হত্যা করে। মুক্তিবাহিনীরা ৬ টি শত্রুরাইফেল ও কিছু গোলাবারুদ দখল করে নেয়। এক পাকসৈন্য বন্দী করা হয়।

 

এর আগে গত ৮ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী বুড়িচং (কুমিল্লা জেলা) এর কাছে পাকসৈন্যদের অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে ৫ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

১১ অক্টোবর সাহসী গেরিলারা চাঁদপুর ফেরিঘাটে পাকসেনাদের উপর ঝটিকা আক্রমণ করে ৫ জন পাকসেনাকে এবং ৭সহযোগী রাজাকার কর্মিকে হত্যা করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী কুমিল্লার কাছে পাকিস্তানি সেনাদের ওপর মর্টার হামলা করে ৫ জনকে হত্যা করে এবং ৩৭ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী মাহেশকুন্দির কাছাকাছি ১৫ অক্টোবর পাকসৈন্যদের উপর আক্রমণ চালায় এবং ১০ জন পাকিস্তানি সৈন্যকে হত্যা করে।

 

১৪ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ভাগযতি এবং শুকরিয়াতে পাকবাহিনীর উপর অতর্কিত আক্রমণে ২০ শত্রুসৈন্য হত্যা করে ও ১০ জন আহত হয়। এবং একই দিনে মুক্তিবাহিনী রামকৃষ্ণপুরে পাকবাহিনীর অবস্থানে আক্রমণ করে ও ৫ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। গেরিলাদের আরেকটি গ্রুপ সাদিপুরএর কাছাকাছি শত্রুচৌকিতে গুলিবর্ষণ করে এবং ৩ জন পাকিস্তানি সৈন্যকে হত্যা করে।

 

১৩ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী বাকশাতে ৪ জন পাকসেনাকে হত্যা করে ও ২ জন আহত হয়।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৮ অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর:

১৬ অক্টোবর রাতে মুক্তিবাহিনী দিনাজপুর ভূপালগঞ্জের কাছে পাকিস্তানি সৈন্যদের ওপর মর্টার হামলা করে। এতে ১৭ জন হতাহত হয়। একই দিনে রাতে মুক্তিবাহিনী কারিয়া এর কাছে পাকিস্তানি সেনাদের সঙ্গে গোলাগুলি করে এবং ১০ শত্রুসৈন্য নিহত হয়। মুক্তিবাহিনী বগুড়া জেলার হিলি এবং পাঁচবিবি রেল লাইন উড়িয়ে দেয়।

 

১৬ অক্টোবর সকালে মুরাদপুরের কাছাকাছি টহলরত পাকসেনাদের সাথে সম্মুখযুদ্ধে ক্যাপ্টেনসহ ৫ পাকিস্তানি সৈন্য নিহত হয়। পাঁচবিবির কাছে পাকিস্তানি সেনাদের উপর পৃথক হামলায় ১৩ ও ১৪ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ৫সহযোগী রাজাকারসহ ১৬ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

১৩ অক্টোবর মুক্তি বাহিনী চক্রবেনিতে একটি পাকিস্তানি টহলে অতর্কিত আক্রমণ করে এবং শত্রুদের ৪ জন নিহত হয়।

 

১৭ অক্টোবর ১০ রাজাকার তাদের অস্ত্রসহ দিনাজপুরের কাছাকাছি মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে।

 

১৪ অক্টোবর ১২ জন রাজাকার কারিয়াতে আত্মসমর্পণ করে।

 

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর:

১২ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী পাকিস্তানি সেনাদের বগাবাড়ির কাছে অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে ৪ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

১১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী মজুমদারহাট পাক অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ৫ পাকসেনা হত্যা করে।

 

৯ অক্টোবর একটি অনুরূপ অভিযানে নোয়াখালী জেলার কালিবাজারে মুক্তিবাহিনী ১২ জন নিহত ও ৪ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

৬ ও ৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ১৩ জনকে হত্যা করে ও ১০ জন শত্রুসৈন্যকে আহত হয়। চাদলাতে পাকিস্তানি অবস্থানের ওপর দুটি পৃথক হামলা করে।

 

৮ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ১০ জনকে হত্যা করে এবং সাইসালা গ্রামে আক্রমণে ১৫ পাকিস্তানি সৈন্য আহত হয়।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টর:

 

১৪ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী দুর্গাপুর এবং নাজিরপুর এর মধ্যে পাকসেনাদের উপর অতর্কিত আক্রমণে ২ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী কিশোরগঞ্জ ও ময়মনসিংহের মধ্যে টেলিযোগাযোগ বিঘ্নিত করে। মুক্তিবাহিনী গেরিলাদের ১৩ অক্টোবর গৌরীপুর থানায় অভিযান চালিয়ে কিছু অস্ত্র উদ্ধার করে।

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী গেরিলাদেরা টাঙ্গাইল জেলায় তাদের কার্যক্রম জোরদার করেছে। সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহে, মুক্তিবাহিনী গোপালপুর এর কাছাকাছি পাঞ্চিকাম্পা পাকসৈন্যদের উপর আক্রমণে ২৫ জনকে হত্যা করে। গেরিলারা ঢাকা জেলা ও ময়মনসিংহ জেলার সরিষাবাড়ি কালিয়াকৈরে রাজাকার ঘাঁটি ধ্বংস করে। প্রায় ৬০ জন রাজাকার এই এলাকায় মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। চলতি মাসের গোড়ার দিকে টাঙ্গাইল থেকে গেরিলাদের ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়কে বিভিন্ন সেতু ধ্বংস করে।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৯ অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর:

মুক্তিবাহিনীর একটি দল ১৩ অক্টোবর জতস্মান এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর প্যাট্রোল এর উপর গোলাগুলি শুরু করে। এতে ২০ জন শত্রুসৈন্য হতাহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলায় ভুরুঙ্গামারী-পাগলাহাঁট সড়ক এর উপর পাকিস্তানি সৈন্যদের অতর্কিতে হামলা করে ৩ জন হত্যা করে এবং চার শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

১২ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী লালমনিরহাটে হানাদার বাহিনীর অবস্থানে আক্রমণ করে ৬ জনকে হত্যা করে এবং ১৫ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। একই দিনে তারা ভুরুঙ্গামারীতে শত্রুসৈন্যদের আক্রমণ করে ৩ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। তারা একই দিনে উলিপুর পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর প্যাট্রোলে অতর্কিত হামলায় ৪ শত্রুসৈন্য ও ৭ রাজাকার হত্যা করে।

 

এর আগে ১০ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী উলিপুরের কাছাকাছি রেলসেতু উড়িয়ে দিয়ে কুড়িগ্রাম-চিলমারী রেল ট্র্যাক ঘংস করে এবং ট্রেন যোগাযোগ ব্যাহত করে।

 

১২ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী দখলদার সৈন্যরা যখন নালা পার হচ্ছিল তখন অতর্কিতে হামলা করে এবং ৬ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

১০ অক্টোবর তিন রাজাকার হাবরার মধ্যে মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী ৭ অক্টোবর রাজশাহী জেলার মাগুরা পাড়ায় একটি মিশ্র পাকিস্তানি প্যাট্রোলকে আক্রমণ করে এবং ৩ শত্রুসৈন্য ও ৪ পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ হত্যা করে।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী ১৩ অক্টোবর মানদ এলাকায় পাকিস্তানি সেনাদের আক্রমণ করে এবং দুই জনের প্রাণনাশ করে এবং ৫ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

এটা একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র যে মুক্তিযোদ্ধারা ৯ অক্টোবর খুলনা জেলার বাগেরহাট মহকুমার হারিদিয়ায় হানাদার বাহিনীকে আক্রমণ করে ২০ শত্রুসহ এক কর্মকর্তা হত্যা করে। সৈন্যদের কাছ থেকে এটা জানা যায়।

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর: বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, সাহসী মুক্তিবাহিনী মর্টার দিয়ে কুমিল্লা শহরের সার্কিট হাউস বিল্ডিং, রাজগঞ্জ এবং কান্দিপুর পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর অবস্থানের উপর ১১ অক্টোবর আক্রমণ করে ১০ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী বুগণবাজার এলাকায় পাকিস্তানি সেনা অবস্থানে অভিযান চালিয়ে এক কর্মকর্তাসহ ৩ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

১০ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা জেলার আজনাপুর এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীকে অতর্কিত আক্রমণে ৩ শত্রু হতাহত হয়।

জানা যায় যে পাকিস্তানি বিমান ৯ অক্টোবর ঢাকা জেলার পার্শ্ববর্তী শিবপুর, কাপাসিয়া ও রায়পুরে গ্রাম ও বাজারের উপর আক্রমণ করে পুড়িয়ে দেয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী সাদিকপুর এলাকায় এক কর্মকর্তাসহ ৪ শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টর:

রাইফেলসহ তিন রাজাকার ১৪ অক্টোবর ময়মনসিংহ জেলার লারিগ্রাম-কামারগাও এলাকায় মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। ৯ অক্টোবর মুক্তিবাহিনীকেন্দুয়াতে হানাদার বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হয় এবং ধর্মপাশা সিলেট-ময়মনসিংহ সীমান্তে ৭ জন শত্রু হতাহতের খবর পাওয়া যায়। এতে আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের ৩ জন জখম হয়।

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনীর ৪ র্থ অক্টোবর কিশোরগঞ্জের একটি মার্কেটে পাকিস্তানি সেনাদের ওপর গ্রেনেড ছুড়ে মারে। এতে ২ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২১ অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

সালদানদীতে মুক্তিবাহিনী ও পাকসেনাদের মধ্যে যুদ্ধের আরো বিস্তারিত তথ্য পাওয়া গেছে। যুদ্ধ ১৬ অক্টোবর থেকে শুরু করে এবং ১৮ অক্টোবর পর্যন্ত অব্যাহত ছিল। পাক বাহিনীর কামান এবং এয়ারস্ট্রাফ সমৃদ্ধ ৩৩ বালুচ ব্যাটালিয়ন মুক্তিবাহিনীর অবস্থানের ওপর হামলা চালায়। বীর মুক্তিবাহিনীরা এর সমুচিত জবাব দেয় এবং ৭০ জন শত্রুসেনা হতাহত হয়। আরও অনেক আহত হয়েছে। পাকবাহিনী রাতে আর্টিলারি প্রোটেকশনে তাদের লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যায় কিন্তু ১৮ টি মৃতদেহ মুক্তিবাহিনী সংগ্রহ করে। পাকসেনারা সেগুলো ফেলে রেখে যেতে বাধ্য হয়েছিল।

 

১ অফিসারসহ তিন বন্দী সেকেন্ড লে পারভেজকে বন্দী করা হয়। পরে তাদের মৃত্যু হয়। শত্রুরা বিপুল পরিমাণ অস্ত্র এবং ৬ MMG সহ গোলাবারুদ পিছনে ফেলে রেখে যায়।

ছাতক টাউনএ বিমান আক্রমণ তখনো চলছিল। শত্রুরা এখনও চারিদিক বেষ্টিত রেখেছিল। পাকবাহিনী এই এলাকা য় পুনরায় তাদের বাহিনী এনেছে।

কসবা মধ্যে আরো এলাকা মুক্তিবাহিনী বিমুক্ত করেছে।

 

১১ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধাদের একটি মর্টার নোয়াখলি জেলার মজুমদারহাঁট এর, অনন্তপুর অ পরশুরামে হানাদার বাহিনীর উপর হামলা করে। এতে ৪১ শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৪ জন আহত হয়। এর আগে ৮ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী চিতলিয়ায়, একই জেলার পরশুরাম এবং নয়াপুর এলাকায় ৬ জনকে হত্যা করে এবং ১৭ শত্রুসৈন্য আহত হয় অ্যামবুশের মাধ্যমে। এছাড়া শত্রুপক্ষের এক বাঙ্কার ধ্বংস করে। এটা আজকে প্রাপ্ত একটি বিলম্বিত খবর।

 

বীরত্বপূর্ণ গেরিলারা ৬ অক্টোবর কুমিল্লা জেলার নয়নপুর এলাকায় একটি সাহসী অভিযান চালায়। মুক্তিযোদ্ধারা অ্যামবুশে ৪ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। একই দিনে তারা মর্টার দিয়ে পাকিস্তানি সেনারাদের উপর হামলা চালায়। ৯ জন শত্রু নিহত হয়।

 

৭ অক্টোবর তারা কায়ুম্পুর এবং জামবাড়ি এলাকায় ১৬ জনকে নিহত ও ৬ শত্রুসৈন্য আহত হয় একটি পেট্রোলে আক্রমণ করে।

 

৮ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা যেরনখলা এবং বুড়িচং এলাকায় হানাদার বাহিনীর উপর হামলা চালায় এবং এক মেজরসহ ৩৭ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। তারা একটি বৃহৎ পরিমাণ আগ্নেয়াস্ত্র ও গোলাবারুদ দখল করে বেয়। ৯ অক্টোবর বীর গেরিলারা সাদিকপুর এলাকায় পাকসৈন্যদের অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে ক্যাপ্টেনসহ ২৩ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। এছাড়া তারা একজন শত্রুসৈন্য, ৬ টি রাইফেল (৩০৩) ও ৭০০ রাউন্ড গোলাবারুদ দখল করে নেয়।

 

১১ অক্টোবর তারা একই এলাকায় শত্রুসৈন্যদের উপর মর্টার হামলা চালায়। ৫ জন হত্যা এবং ৩৭ শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

৫ অক্টোবর সকালে মুক্তিবাহিনীর সাতবাড়িয়া এলাকায় ৯ হানাদারকে হত্যা করে।

 

১১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী নৌ ইউনিট কমান্ডো ফরিদপুরের টেকেরহাট ফেরিঘাট এলাকায় দুই টি লঞ্চ ডুবিয়ে দেয়-এগুলো দখলদার সৈন্যরা ব্যবহার করত। এর আগে ৪ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী একই জেলার আমগ্রাম রোড ব্রিজের ওপর পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর পুলিশএর উপর হামলা চালায়। এতে ২ পশ্চিম পাঞ্জাবি পুলিশ নিহত হয়। একই দিনে হানাদার বাহিনী ফরিদপুরের পাকুল্লা এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্পে হানা দেয়। মুক্তিযোদ্ধারা তাদের প্রতিহত করে। এই যুদ্ধ চার ঘন্টা ধরে চলে। মুক্তিবাহিনীরা এতে ৪ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। ১৩ জন গুরুতর আহত হয় যাদের মধ্যে ৩ জন মাদারীপুর হাসপাতালে পরে মারা যায়। শত্রুরা ১ টি লাশ ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী ফরিদপুরের রাজৈর এর অধীনে সাঙ্কেরদি এলাকায় হানাদার বাহিনীর প্যাট্রোলএ মুক্তিবাহিনী অতর্কিত হামলা করে। এই অপারেশনে ৩ শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

 

মুক্তিযোদ্ধারা গৌরনদী বরিশাল জেলার কিছু কর্মকর্তাসহ পাকিস্তানি সেনাদের বহনকারী একটি বড় লঞ্চ অতর্কিত হামলা করে এবং প্রচুর হতাহত হয়। তারা ১৯ টি রাইফেল, ১ টি পিস্তল, বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদ দখল করে নেয়। লঞ্চ টি পরে ধ্বংস করা হয়। এক হাবিলদারসহ পনের জনসহযোগী মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে আত্মসমর্পণ করে।

 

১১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী যশোর জেলার ফকিরহাট এর অধীনে চুলকাটি হাইস্কুলে দখলদার সেনা ক্যাম্পে হামলা চালায়। যুদ্ধ বেশ কয়েক ঘন্টা চলে। ১০ জন শত্রু হতাহত হয়। মুক্তিযোদ্ধারা ১১ টি রাইফেল (৩০৩) ও প্রচুর পরিমাণ গোলাবারুদ দখল করে নেয়।

 

৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী খুলনা জেলায় রামপাল এলাকায় ৬ ঘণ্টার একটি ভারী যুদ্ধে ৫ শত্রুসৈন্য হত্যা। তারা ৫ টি রাইফেল (৩০৩) এবং বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদ দখল করে নেয়।

 

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টরঃ

মুক্তিবাহিনী ১৬ অক্টোবর রংপুরের বড় কিয়াটায় দখলদার বাহিনীর সাথে যুদ্ধে ৩ জন নিহত এবং এক শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

১৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী আমপারা এলাকায় শত্রু অবস্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের ৩০ জন হতাহত হয়। ১৭ অক্টোবর রাতে মুক্তিযোদ্ধারা রাইগাং এর কাছে পাকিস্তানি সেনাদের ১৭ জনকে নিহত ও ১৫ শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

১৫ অক্টোবর সকালে তারা একই এলাকায় ৩ শত্রুসৈন্য হত্যা করে এম্বুশ করে।

 

১৬ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলার ভুরুঙ্গামারী এলাকায় পাকিস্তানি সেনাদের উপর অভিযান চালায়-এবং এতে ৩ শত্রুসৈন্য নিহত এবং ১৮ জন আহত হয়।

 

১২ অক্টোবর চট্টগ্রাম জেলার মিরেশশর এলাকার উপর একটি অভিযানে মুক্তিবাহিনী ৩০ জন নিহত ও ১০ শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

১৮ অক্টোবরের মধ্যে মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহের বাওরামারিতে পাকিস্তানি সেনাদের এক জেসিওসহ ১৮ শত্রুসৈন্য হত্যা করে এবং এক কর্মকর্তা আহতসহ ৬ জন আহত হয়।

 

মুক্তিবাহিনী ১১ অক্টোবর নেত্রকোনা মহকুমার বারহাট্টার কাছাকাছি নৌ ইউনিটের উপর আক্রমণ করে শত্রুর নৌকা ডুবিয়ে দেয়।

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী টাঙ্গাইল জেলার আকাশরই এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২০ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

এসময় ১২ রাজাকার মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে।

 

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা,

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৪ অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী ২১ অক্টোবর রংপুর জেলার সিঙ্গিমারি এলাকায় পাকিস্তানি সেনাদের অবস্থানে হামলা করে ১০ জন শত্রুসেনাদের হত্যা করে। এই অভিযানের সময় আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের ২ জন আহত হয়।

 

২০ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী একই জেলার খেতিবারি এলাকায় প্রায় ৪০ জন সদস্যের একটি পাকিস্তানি দলে আক্রমণ করে। এতে তাদের ১১ জন হতাহত হয়। আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের ১ জন নিহত হয়। ১৯ অক্টোবর গেরিলা কার্যক্রম এই সেক্টরে চলতে থাকে। একই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা খরিবারিতে হানাদার বাহিনীর উপর অভিযান চালিয়ে ৭ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। একই দিনে তারা মুরাদপুর এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর সম্মুখীন হয় এবং ২ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। দিনাজপুর জেলায় মুক্তিযোদ্ধারা গোদাগড়িহাট এলাকায় হানাদার সৈন্যদের সঙ্গে একটি যিদ্ধে ৫ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। তারা একই দিনে হরগোবিন্দপুরে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর টহলে অতর্কিত আক্রমণে এক জন নিহত ও দুই শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

১৮ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলার লালমনিরহাটের নিকটবর্তী স্থানে পাকিস্তানি সেনাঅধ্যুষিত স্থান আক্রমণে ৪ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

১৭ অক্টোবর কুড়িগ্রামের কাছাকাছি ২ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। তারা কুড়িগ্রাম ও উলিপুর রেল ট্র্যাক ধ্বংস করে রেল যোগাযোগ ব্যাহত করে। একই দিনে তারা দিনাজপুর-সৈয়দপুর সড়কে পাট বোঝাই একটি পাকিস্তানী ট্রাক উড়িয়ে দেয়।

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর:

২০ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা জেলার মুকুন্দপুরে পাকিস্তানি সেনাদের অবস্থানের উপর মর্টার অভিযান চালিয়ে ১ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

১৯ অক্টোবর নালুয়া এলাকায় হানাদার বাহিনীর অবস্থানের ওপর মর্টার হামলা চালিয়ে ৩ শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

১৮ অক্টোবর গুথুমা নদী এলাকায় শত্রুসৈন্য অবস্থানের ওপর মর্টার হামলা চালিয়ে পাঁচ পাকিস্তানি সৈন্য আহত হয়। একই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা নোয়াখালী জেলার পাগলিরকুল এলাকায় পাকিস্তানি সেনা অবস্থান আক্রমণে ৪ শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

১৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী নোয়াখালীর ফুলগাজী এলাকায় ২ জনের প্রাণনাশ এবং ৪ শত্রুসৈন্যকে আহত হয়। এর আগে ১৬ অক্টোবর দুই পাকিস্তানি সৈন্য একই এলাকায় খুন হয়। একই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা শালদার এলাকায় হানাদার বাহিনীর উপর মর্টার হামলা চালায়। এতে ৮ শত্রুসৈন্য নিহত এবং দুইটি বাংকার ধ্বংস হয়।

 

 

ময়মনসিংহ-সিলেট-মৌলভীবাজার সেক্টর:

২১ অক্টোবর ময়মনসিংহ জেলার বাঘমারা এলাকায় মুক্তিবাহিনীর কাছে ৯ জন রাজাকার আত্মসমর্পণ করে।

 

২০ অক্টোবর তারা নাজিরপুর এলাকায় হানাদার সৈন্যদের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এতে ২ শত্রুসৈন্য ও ৪ রাজাকার নিহত হয়।

 

১৭ অক্টোবর সিলেট ও চিয়াতাকে ২ টি বিদ্যুৎ পাইলন ধ্বংস করে ইলেকট্রিকসাপ্লাই ব্যাহত করা হয়। একই দিনে তারা ফুলপুর এলাকায় পাকিস্তানি সেনারাদের আক্রমণে ৪ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টর:

মুক্তিবাহিনীর সেজালু এলাকায় ৩ জন শত্রু হত্যা করে এবং ১৮ অক্টোবর ৩ শত্রুসৈন্য আহত হয় একটি অ্যামবুশে।

 

এর আগে ১৬ অক্টোবর একই এলাকায় হানাদার বাহিনীর সাথে গোলাগুলিতে মুক্তিযোদ্ধারা ৩ শত্রুসৈন্য ও ৭ রাজাকার হত্যা করে ও ১৩ জন আহত হয়। জানা যায় যে পাকিস্তানি সামরিক কর্তৃপক্ষ মেজর মনসুর যে ঘুবরি এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর কমান্ডিং এর দায়িত্বে ছিল তাকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। এটা বিশ্বাস করা হয়, যে গেরিলা অপারেশনে অপারগতার জন্য তাকে সরান হয়। তাকে ১০ অক্টোবর ৭১ এ ৭ পাকিস্তানি সৈন্য নিহত হওয়ার জন্য দায়ী গেরিলাদের চেক করতে বলা হলেও তিনি ব্যার্থ হন।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৫ অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর: ২১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী চট্টগ্রাম জেলার বরপারুয়ার কাছে পাকিস্তানি বাহিনীর উপর অতর্কিত আক্রমণ চালায়। ১ জন অফিসারসহ ৭ জন পাকসেনাকে হত্যা করে। মুক্তিবাহিনী শত্রুদের থেকে ৪ টি এলএমজি দখল করে নেয়। কুমিল্লায় ২০ অক্টোবর চৌদ্দগ্রাম নিকটবর্তী এলাকায় অন্য একটি অতর্কিত হামলায় মুক্তিবাহিনীর গেরিলারা ৪ পাকিস্তানি সেনা হত্যা করে। ১৯ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী মিয়াবাজার এবং কুমিল্লা জেলার পানা পুকুরে পাকিস্তানি সেনাদের উপর আঘাত হানে। এতে ১৩ শত্রুসৈন্য নিহত এবং ২ জন আহত হয়। ১৩ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী নোয়াপুরের কাছে পাকিস্তানি সেনা অধ্যুষিত এলাকায় আক্রমণে ৫ জন শত্রু নিহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী শালদারে ৪ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। ১৭ অক্টোবর ১ টি পাকিস্তানি সেনাদের গাড়ি নোয়াখালীর নতুনবাজার এলাকায় মুক্তিবাহিনীর মাইন দ্বারা ধ্বংস করা হয়। ৭ পাকিস্তানি সৈন্য নিহত এবং ৩ জন এই বিস্ফোরণে আহত হয়।

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর: ২২ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী পাকিস্তানি সেনাদের রংপুর জেলার বড়খাতার কাছাকাছি এলাকায় আক্রমণ করে ২ জন হত্যা এবং ৩ শত্রুসৈন্য আহত হয়। ২১ অক্টোবর রাতে মুক্তিবাহিনী অমরখানা এবং দিনাজপুর জেলার গগদাল হাট এ একটি গুরুত্তপুর্ন সড়ক সেতু ধ্বংস করে। ২১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী দিনাজপুর জেলার চিন্তামন এ পাকিস্তানি সেনাদের ওপর মর্টার হামলা চালায়। ২ শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৩ জন আহত হয়।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টর: ২১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী পাকিস্তানি সেনাদের খুলনা জেলার বাকশা এলাকায় আক্রমণে ৪ জন হত্যা এবং ৬ জন শত্রুসৈন্যদের আহত হয়। ২৩ অক্টোবর পাকসেনারা যখন সাতক্ষীরা সাবডিভিশিনে কাকডাঙ্গার দিকে যাচ্ছিল এমন সময় দখলদার সৈন্যদের উপর মুক্তিবাহিনী অতর্কিতে মর্টার আক্রমণ করে। এতে ৪ জন নিহত ও ৫ জন মারাত্মক আহত হয়। এর আগে গত ১৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী খুলনা জেলার পাস্মেরি এলাকা থেকে শত্রু মোটর লঞ্চ দখল করে নেয়।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টরে: ২০ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী সিলেট জেলার মিরাশিয়ারে অভিযান চালিয়ে ৪ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। ১৮ অক্টোবর রাতে মুক্তিবাহিনী ঢাকা-ময়মনসিংহ লাইনে রেল ধ্বংস এবং রেল যোগাযোগ ব্যাহত করে। ১৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ঢাকা-ময়মনসিংহ এর মধ্যে টেলিযোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে। রাজাকারদের একটি দল ২১ অক্টোবর দেওয়ানগঞ্জ এ মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে।

 

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা,

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৭ অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

২৫ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা সিলেট জেলার গয়ান-সারিঘাট সেতু উড়িয়ে দেয়। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী ২২ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলার ভুরুঙ্গামারী এলাকায় হানাদার বাহিনীর উপর অভিযান চালায়। এতে বিশ জন নিহত এবং দশ জন আহত হয়। ২৩ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলার জগদ্দলহাঁট এলাকায় ৯ জন হত্যা এবং আট শত্রুসৈন্য আহত হয় একটি এম্বুশে। একই দিনে তারা দিনাজপুর জেলার টেঙ্গুরিয়াতে পাকিস্তানি টহলে আক্রমণে ৬ জনকে হত্যা করে ও চার জনকে আহত হয়। মুক্তিযোদ্ধারা এছাড়াও বর্নি এলাকাতে (কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা)শত্রু অবস্থানে আক্রমণে এক হানাদার সৈন্য হত্যা করে। এর আগে ২১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলার রায়গঞ্জ এ পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর সাথে যুদ্ধে জড়িত হয় এবং শত্রু র দিকে বাইশ জন হতাহত হয়।

 

রিপোর্ট করা হয়েছে যে 23 অক্টোবর হানাদার বাহিনী একটি বাংকার গড়তে আলীনগর গ্রামের ঘর থেকে টিন শেড খুলে নিয়ে যায়।

 

২৩ অক্টোবর ময়মনসিংহের বারহাট্টাতে গেরিলাদের শত্রুসৈন্য আক্রমণে চার অনিয়মিত সেনা হত্যা করে। এর আগে ২১ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা সিলেট জেলার কালনী এলাকায় হানাদার সৈন্য বহনকারী দুটি নৌকা ও একটি লঞ্চ ডুবয়ে দেয়। ২১ অক্টোবর শত্রুসৈন্যরা রংপুর জেলার জয়মনিরহাটে মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমণ করে। কিন্তু আমাদের বীর যোদ্ধারা সফলভাবে তা প্রতিহত করে। তাদের এক কর্মকর্তা, দুই JCOসহ প্রায় চল্লিশ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করা হয়। ২০ জন আহত হয়। এর আগে ২১ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা রংপুর জেলার ভুরুঙ্গামারী পাকিস্তানি অবস্থানে আক্রমণ করে। তারা এই অভিযানে দশ শত্রুসৈন্য নিহত এবং এক হানাদার বাহিনীর জীপ দগ্ধ করে। ২২ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী মৃধারবাজারে আক্রমণ করে এক কর্মকর্তাসহ তাদের দশ জনকে হতাহতের করে। প্রতিহিংসামূলকভাবে বর্বর শত্রুসৈন্যরা গ্রামবাসীর ঘর পুড়িয়ে দেয়।

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা,

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৮ অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর: ২৪ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা ভবানীপুর এর কাছাকাছি রেলওয়ে কালভার্ট ভেঙ্গে ফেলে। ২৩ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী বৈদ্যনাথপুরে পাকিস্তানি টহলেআঘাত হানে। ৩ জন সৈন্য নিহত হয়।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টর: ২৬ অক্টোবর বীর মুক্তিযোদ্ধারা সফলভাবে খুলনা জেলার সাতক্ষীরা মহকুমার ভারটিয়া গ্রামে শত্রুসৈন্যদের আক্রমণ করে। এসময় তারা ৮ জন নিহত ও আরো অনেক শত্রুসৈন্য আহত হয়। আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের এক জন এই যুদ্ধে নিহত হয়। ২৪ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী একই জেলার শ্যামনগর থানা আক্রমণে ৩ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। ২৩ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা পাটকেলঘাটা এলাকায় হানাদার সৈন্যদের সঙ্গে একটি সম্মুখযুদ্ধে ১৫ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। মুক্তিযোদ্ধারা ২ য় সপ্তাহে খুলনার আশাশনি এলাকায় রাজাকার ক্যাম্পে হানা দেয়। তারা ৬৪ জন রাজাকার নিহত এবং ৩৫ জন আহত হয়। ৬ টি রাইফেলস গেরিলারা দখল করে। একই সপ্তাহে মুক্তি বাহিনী ফরিদপুরের ভেদেরগঞ্জ হানাদার বাহিনী অভিযান চালায়-এই অপারেশনে মুক্তিযোদ্ধারা নিয়মিত সৈন্য, প্রাক্তন সামরিক স্টাফ ও পাকিস্তানের পাঞ্জাবি পুলিশসহ একশত পঞ্চাশ জন শত্রুদের হত্যা করে। আরো ৯ জন মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। মুক্তিবাহিনী দু’শো চীনা রাইফেল, দুই টি LMG জব্দ করে। এই অপারেশনে আমাদের এক জন মুক্তিযোদ্ধা নিহত হয়েছেন।

 

অক্টোবর এর ১ ম সপ্তাহে হানাদার সৈন্যরা ঝালকাঠি থেকে বরিশাল জেলার কাওখালি মুক্তিবাহিনীর ক্যাম্প আক্রমণের জন্য যাচ্ছিল। কিন্তু বীরত্বপূর্ণ যুদ্ধে গেরিলারা তাদের যোগ্য জবাব দিয়েছিল ১৮০ জন শত্রু আহত ও ৩৫ জন নিহত হয়। আব্দুল মালেক, বানাদগুল ও পেশোয়ার জেলার জান গুল নামে ৩ জন শত্রুসৈন্য মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। মুক্তিযোদ্ধারা এছাড়াও বিভিন্ন LMG ও একটি বৃহৎ পরিমাণ গোলাবারুদসহ আট টি রাইফেল দখল করে নেয়।

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর-২১ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা কুমিল্লা জেলার সালদানদী এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর ওপর মর্টার হামলা করে। এতে সাইত্রিশ হানাদার সৈন্য নিহত এবং তাদের ত্রিশ জন আহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী সাল্গার ও শ্রীপুর এলাকায় শত্রুসৈন্যদের অতর্কিতে আক্রমণ চালায়। এই সম্মুখ যুদ্ধ দুই ঘন্টার জন্য অব্যাহত ছিল। শত্রুদের পঞ্চাশ জন নিহত হয়। এবং আরো অনেক আহত হয়। এসময় দুই জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। মুক্তিবাহিনীর ২০ অক্টোবর আমজাদের বাজার ও কুমিল্লার জগন্নাথ দীঘির মধ্যে শত্রুসৈন্য অবস্থানে অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে ২৮ জন নিহত এবং বারো জন আহত করা হয়। ২২ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী নোয়াখালীর ফেনী মহকুমার মুন্সিরহাট এলাকায় রাজাকারদের চৌকি আক্রমণ করে তাদের পনের জন আটক করে এবং চার টি রাইফেল জব্দ করে। ২১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী নোয়াখালীর ফুলগাজি এলাকায় এম্বুশে দুই জন শত্রুসৈন্য হত্যা এবং ৩ জন আহত হয়। এর আগে ১৮ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা একই জেলার নোয়াপুরে সেনা অবস্থানের ওপর মর্টার হামলা চালায় এবং পাঁচ জন নিহত ও ৯ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। এবং চার টি বাংকার ধ্বংস করা হয়। একই দিনে তারা সালদার এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর উপর মর্টার দিয়ে হামলা চালায়। এক হানাদার সৈন্য নিহত এবং দুই জন আহত হয়েছে। ১৭ অক্টোবর মুক্তি বাহিনী নোয়াখালীর নতুনবাজার মাইন বিস্ফোরণ করে শত্রুসৈন্য বহনকারী একটি ট্রাক বিধ্বস্ত করে। একই দিনে তারা এক জন শত্রুসৈন্য নিহত ও একই জেলার বদরপুর এলাকায় দুই জন আহত হয়।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট-মৌলভীবাজার সেক্টর-২১ অক্টোবর ময়মনসিংহ জেলার আহমেদনগর-রাংটিয়া এর মধ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের মাইন বিস্ফোরণে এক পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্স

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৯ অক্টোবর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর: ২৬ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী কায়ুমপুর এলাকায় মর্টার দিয়ে পাকিস্তানি সেনাদের উপর হামলা চালায় এবং ৬ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। ২৫ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী আনন্দপুরে ৪ সৈন্য নিহত এবং ২৪ অক্টোবর ৩ জন আহত হয় এম্বুশের মাধ্যমে। মুক্তিবাহিনী গেরিলারা পরশুরামে হানাদার বাহিনীকে অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে ৬ জন পাকিস্তানি সৈন্যকে হত্যা করে। একই দিনে, রাজাপুরের কাছাকাছি শত্রুসৈন্যদের ওপর অন্য অতর্কিত আক্রমণে ৪ জন শত্রু হতাহত হয়। এর আগে ২০ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা রাজামার দীঘি এলাকায় পাকিস্তানি সেনা অবস্থানে আক্রমণ করে ১০ জন নিহত ও ১১ জন পাকিস্তানি সৈন্যকে আহত হয়। ২১ অক্টোবর চাদস্রিতে পাকসেনাদের উপর অতর্কিত আক্রমণে ৬ জন নিহত ও তিন শত্রুসৈন্য আহত হয়। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন মতে বাতিসাতে পাক অবস্থানে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ১০ জন পাকসেনা নিহত হয়।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টর: গত সপ্তাহে মুক্তিযোদ্ধারা আন্দুলবেরিয়ার ২ মাইল পূর্বে পাকিস্তানি সেনাদের বহনকারী ট্রেন মাইন বিস্ফোরণে ট্রেনের তিনটি বগি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং ইঞ্জিন লাইনচ্যুত হয়। বিস্ফোরণের পর মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তানি সেনাদের সঙ্গে গোলাগুলি করে এবং ৫০ জন শত্রু হতাহত হয়। ২৬ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা গয়ালি আটি আক্রমণে প্রচুর পাকসেনা আহত হয়। এর আগে ১৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী গোয়ালাটিতে একটি যুদ্ধে দখলদার সেনাদের সঙ্গে গোলাগুলিতে ১৭ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। ২৪ অক্টোবর কুষ্টিয়ার শিকারপুর এলাকায় ১৫ টি রাইফেল ও ২৪ জন রাজাকারদের আটক করে।

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর: ২১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনীর গেরিলারা রায়গঞ্জে পাকিস্তানের সেনা অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ৯ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। একই দিনে, গেরিলারা ফরিদপুরে একটি কৌশলগত সড়ক সেতু ভেঙ্গে ফেলে শত্রুর যোগাযোগ ব্যাহত করে। ২৪ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী লালপুর থানা আক্রমণে অস্ত্র ও প্রচুর গোলাবারুদসহ আট রাজাকার আটক করেন।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা,

বাংলাদেশ বাহিনী

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর: ২৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী মর্টার দিয়ে পাক অবস্থানের উপর কুমিল্লা জেলার নয়নপুরে আক্রমণ করে ৫ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। একই দিনে, মুক্তিবাহিনীর গেরিলারা গিলাতলা য় ৩ সৈন্য হত্যা করে অ্যামবুশে। জয় নগরে অন্য একটি অতর্কিত হামলায় মুক্তিবাহিনী ২ জনকে নিহত এবং ৩ পাকিস্তানি সৈন্য আহত হয়। ২৬ অক্টোবর ছাগলনাইয়াতে এক পাকিস্তানি আর্মি ট্রাকে মুক্তিযোদ্ধারা মাইন দিয়ে ধ্বংস করে। এতে সাত নিয়মিত পাকিস্তানি সৈন্য এবং পাঁচটি অনিয়মিত ফোর্স নিহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী আবারকাল্ট এলাকায় পাকিস্তান বাহিনীর উপর অভিযান চালিয়ে পাকসেনাদের প্রচুর হতাহত হয় এবং পরে শত্রুরা অবস্থান থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয়। এর আগে মুক্তিবাহিনী এই এলাকায় অনেক অভিযান চালায়।

 

২২ অক্টোবর এক অভিযানে অনিয়মিতসহ একুশ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়। ১৯ অক্টোবর সকালে পাকসেনাবহনকারী একটি বাস মুক্তিযোদ্ধারা উড়িয়ে দেয় এবং শত্রুদের ১৫ জন আহত হয়।

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর:

২৭ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা জগতপুর এলাকায় একটি পাকিস্তানি টহলে অতর্কিত আক্রমণে ৯ জন শত্রুসৈন্য নিহত ও ৪ জনকে আহত হয়। ২৪ অক্টোবর সকালে মুক্তিবাহিনীতে আক্রমণ করে ৫ জন শত্রুকে হত্যা করে। ২৩ অক্টোবর মুক্তিবাহিনীতে ভালদাওতে পাক প্যাট্রোলে অতর্কিত আক্রমণ করে এবং এক পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়। একই দিনে, মুক্তিযোদ্ধারা বাজুমারার কাছাকাছি পালানখালিতে ১২ টি রাইফেলসহ ১৩ জন রাজাকারকে আটক করে। প্রায় একই সময়ে মুক্তিবাহিনী পাকিস্তানি সেনাদের লালমনিরহাঁট আক্রমণ করে ৫ জন শত্রু হত্যা করে। তারা কিছু চিনা অস্ত্র এবং গোলাবারুদ উদ্ধার করে।

 

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী রংপুর জেলার বনারিপারা এবং সুকর্নপুকুরে মুক্তিবাহিনীর দ্বারা ৪ কর্মকর্তাসহ ৪৮ জন পাকিস্তানি সৈন্য নিহত হয়। একটি বিশেষ পাকসেনাদের বহনকারী ট্রেন মাইন বিস্ফোরণে আক্রান্ত হয়।

 

১৩ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী পত্নীতলার কাছে পাকসেনাদের অবস্থানে অভিযান চালায়। এতে ১৭ জন অনিয়মিত ও ৬ জন পাকিস্তানি সৈন্য নিহত হয়। আমাদের ২ জন সাহসী মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টর:

২৮ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী গোয়ালাহাটে পাকিস্তানি সেনাদের উপর আক্রমণ করে। এতে দুই পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়। ১৭ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা দস্তানিয়া এলাকায় ৫ শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৭ জন আহত হয়। ২৬ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী যশোর জেলার গোদখালি-নভারনের মধ্যে রেলওয়ে ট্র্যাক উড়িয়ে দিয়ে শত্রুর যোগাযোগ লাইন ব্যাহত করে। একই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা ছুরমানকাঠিতে ১৪ রাইফেলসহ ১৮ জন রাজাকার বন্দি করেন। ২৫ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী রামনগর এলাকায় পাক প্যাট্রোলে অতর্কিত হামলা করে এবং ৩ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। বেতুল্লি এলাকায় একই দিনে আরেকটি অতর্কিত আক্রমণে মুক্তিবাহিনী পাকিস্তানি সৈন্য ও ৩ শত্রুসহযোগিতাকারী রাজাকার হত্যা করে। মুক্তিবাহিনী পদ্মাশঙ্কা তাদের অবস্থানের উপর আক্রমণ প্রতিহত করে। এতে ৮ জন সেনা নিহত হয়। ২৪ অক্টোবর কুতুব দিয়াতে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণে ৪ জন অনিয়মিত ও ১ পাকসেনা নিহত হয়।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টর:

অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে মুক্তিযোদ্ধারা নকলা, নালিতাবাড়ী, পূর্ব ধলা, দুর্গাপুরসহ ময়মনসিংহ জেলার কয়েকটি থানায় অপারেশনের সময় ১০ অনিয়মিত শত্রু নিহত এবং কিছু অস্ত্র দখল জব্দ করে। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, আকাশারি ও প্রিত্নির কাছে পাকিস্তানি বাহিনীর উপর অতর্কিত আক্রমণে শত্রুসৈন্যদের ১০ জন হতাহত হয়।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা,

বাংলাদেশ বাহিনী।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

৫ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধাদের ঢাকা শহরের ও তার চারপাশে গেরিলা কার্যক্রম সামরিক কর্তৃপক্ষ ও তাদের সহযোগীদের মধ্যে একটি প্যানিক তৈরি করেছে।

 

২২ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ঢাকারতেজগাঁও থানার কাছে একটি নৌকায় গমনরত পাকসেনাদের উপর আক্রমণ করে। এতে ৫ জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৬ জন আহত হয়েছে। নৌকা খুবই ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

 

১০ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ঢাকা শহরের ২০ মাইল উত্তরাঞ্চলে জয়দেবপুর এলাকায় এক হানাদার সৈন্য হত্যা করে। উল্লেখ করা যেতে পারে যে, এদিকে মুক্তিযোদ্ধাদের বৈদ্যুতিক ও শিল্প নদী শীতলক্ষ্যার উপর সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকার পাওয়ার সাপ্লাই ইনস্টলেশনের ক্ষতি করে। এতে ৯ ঘণ্টা ডেমরা কাঞ্চন শহরে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকে।

 

১৮ অক্টোবর গেরিলারা পিলখানা, যেখানে ২৫ শে মার্চের আর্মি ক্র্যাক ডাউনের আগে হেডকোয়ার্টার ছিল, ইপিআর সদর দপ্তরের কাছাকাছি মাইন সেট করে ৪ জনকে হত্যা করে। বর্তমানে এটি পশ্চিম পাকিস্তানী রেঞ্জার্স সদরে অনুষ্ঠিত হয়েছে, এটা জানা যায়। মুক্তিযোদ্ধারা অক্টোবরের দ্বিতীয় সপ্তাহে ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট এলাকার অদূরে মর্টার হামলা চালায়। নারায়ণগঞ্জ ঢাকা মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ শিল্প এবং বাণিজ্যিক শহর-বিভিন্ন রেলওয়ে, কালভার্ট ধ্বংস এবং বিভিন্ন স্থানে রেললাইন সরানোর দ্বারা ইতোমধ্যে তারা ট্রেন যোগাযোগ ব্যাহত করে। গত সপ্তাহে ১০ জনকে হত্যা করা হয় যাদের পরিচয় লক্ষণীয়ভাবে সেনা কর্তৃপক্ষ গোপন রাখে এবং তারা ৮ জনের হতাহতের ঘোষণা করে।

 

কুমিল্লা জেলায় ২৯ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী সিম্পুর এলাকায় ২ সৈন্য নিহত এবং ১৪ জন আহত হয়।

 

২৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লার কোতোয়ালি থানার কোটেসশর এলাকায় হানাদার বাহিনীর অবস্থানের ওপর মর্টার দিয়ে আক্রমণ করে। এতে ২ জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৩ জন আহত হয়। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধারা দাউদকান্দি থানায় অভিযান চালিয়ে ৪ টি রাইফেল জব্দ করে। মেহার, ফরিদগঞ্জ এবং মতলবে রাইফেলসহ ৫ রাজাকার আত্মসমর্পন করে।

 

২৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী আরবপুর এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর উপর অতর্কিত আক্রমণে ৩ জন নিহত এবং ৮ শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী যশোরের সাঞ্চানগা এলাকায় আরেকটি পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর উপর অতর্কিত আক্রমণ করে ৩ নভেম্বর। আরেকটি দল অ্যামবুশ করার চিন্তা করে। তারা মর্টার সঙ্গে গোলাগুলি করে। পরবর্তীতে তারা সৈন্য পালিয়ে যায়। এতে ৩ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়। মুক্তিবাহিনীর তিনটি চীনা রাইফেলস দখল করে নেয়। মুক্তিবাহিনীর টেলিফোন তারের অপসারণ করে এবং বিভিন্ন টেলিফোনের খুঁটি নষ্ট করে বাগদাঙ্গা এলাকায় টেলি-যোগাযোগ ব্যাহত করে।

 

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টর:

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী এখানে হানাদার বাহিনী অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে সিলেট জেলার গোয়াইন এলাকায় মুক্তিবাহিনীর সাথে যুদ্ধে ২৩ শত্রুসৈন্য নিহত এবং বহুসংখ্যক আহত হয়। রাজাকারদের বিপুলসংখ্যক নিহত হয়। ৩ জন মুক্তিযোদ্ধা হতাহত হয়।

১ লা নভেম্বর মুক্তিবাহিনী মাইন বিস্ফোরণে ময়মনসিংহ জেলার বিরিশিরি-বিজয়পুর রাস্তায় এক জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

২ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার স্রিবর্দ্দি থানার ভায়াডাঙ্গাতে আক্রমণে ১০ জন শত্রুকে হত্যা করে।

 

৩ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ভায়াডাঙ্গা-স্রিবর্দ্দি এর মধ্যে টেলিযোগাযোগ বিঘ্নিত করে। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী ২৮ অক্টোবর মুক্তি বাহিনী নান্দিনা পুলিশ ক্যাম্পে আক্রমণে দুই পশ্চিম পাকিস্তানি পুলিশ ও ৪ রাজাকাররা হত্যা করে।

 

স্বাঃ /-দুষ্পাঠ্য

পাবলিক রিলেশন অফিসার

বাংলাদেশ বাহিনী

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

৬ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টর:

২ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহে ছাতলাপুরে অভিযান চালিয়ে ৬ শত্রুসৈন্য হত্যার করে। ১ জন মুক্তিযোদ্ধা আহত হয়। হানাদার বাহিনীর সাথে সম্মুখ যুদ্ধে এই সময়কালে মুক্তিবাহিনী আনন্দপুরে ৮ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। ১ নভেম্বর ধূলিরগাও এলাকায় মুক্তিবাহিনী অভিযান চালায়। এতে তারা ১২ শত্রুসৈন্য ও বহু রাজাকারদের হত্যা করে।

 

৩ নভেম্বর মুক্তিবাহিনীতে একই এলাকায় ৪ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। মুক্তিযোদ্ধারা একই দিনে একই এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর সৈন্য বহনকারী নৌকায় অতর্কিত আক্রমণ করে এবং নৌকা ডুবে যায়। এতে ৪ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয় এবং কিছু গোলাবারুদ দখল করে। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদনে ২১ অক্টোবর ময়মনসিংহ জেলারকেন্দুয়া থানার বসুদেববাজারে হানা দিয়ে তারা ১২ টি রাইফেল ও ৪ রাজাকারকে আটক করেন।

 

ঢাকা-কুমিল্লা-নোয়াখালী সেক্টর:

১ নভেম্বর কাহুর এলাকায় মুক্তিবাহিনী পাকিস্তানি সেনাদের অতর্কিত আক্রমণে ২ জন শত্রুসৈন্য নিহত ও তিন জন আহত হয়। ২ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা জেলার কিম্পুরে সেনা অবস্থানের ওপর মর্টার হামলা চালায় এবং ২ জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং চার জন আহত হয়। হানাদার বাহিনী ২৯ অক্টোবর নোয়াখালী জেলার নিলখির মধ্যে মুক্তিবাহিনীর একটি ইউনিট অভিযান করার সময় বীরত্বপূর্ণ মুক্তিবাহিনীর হাতে ৪০ জন শত্রু নিহত হয়। এটি ৩ ঘণ্টা ধরে চলে। আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের ২ জন ছোটখাট আঘাত পায়। একই জেলার দুবলাচাঁদপুর এলাকায় আরেকটি অতর্কিত হামলায় ২৯ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ১২ জোন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। অস্ত্র ও বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদ দখল করে নেয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী নোয়াপুর এলাকায় ৬ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। তারা শত্রুর ২ টি বাংকার ধ্বংস করে। এর আগে ২৬ অক্টোবর মুক্তিবাহিনীর ফেনী মহকুমার কোতোয়ালী এলাকায় আক্রমণ করে এবং ৩ শত্রুসৈন্য নিহত এবং একটি বাঙ্কার সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস করে।

 

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী ২৪ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা ঢাকা জেলার হরিরামপুর থানার অধীনে লেসরাগঞ্জ এর পাকিস্তানি আর্মি ক্যাম্পে হানা দিয়ে ৪ ঘন্টার যুদ্ধে নিয়মিত পাকিস্তানি সৈন্য ও রাজাকারসহ ৮০ জন শত্রু হত্যা করে। তাদের পঞ্চাশ জনকে বন্দী করা হয় এবং তাদের দ্বারা ব্যবহৃত সিগনাল সেন্টার ধ্বংস করা হয়। মুক্তিযোদ্ধারা ৩ টি মেশিন গান এবং প্রচুর গোলাবারুদ দখল করে নেয়।

 

২৪ অক্টোবর ১ টি পাকিস্তানী আর্মি ট্রাক মুক্তিবাহিনী দ্বারা মাইন বিস্ফোরণের স্বীকার হয়। এটি ছিল কুমিল্লা-দাউদকান্দি রাস্তায়। এতে ৬ জন শত্রু নিহত এবং ট্রাক সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস হয়ে যায়। এর আগে ২৩ অক্টোবর মাইনে তিন শত্রুসৈন্য দাউদকান্দি থানা এলাকায় নিহত হয়।

 

 

 

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর:

২ নভেম্বরে মুক্তিবাহিনী দিনাজপুর জেলার টুনিরহাট এ আক্রমণে ১০ জন শত্রু হতাহত হয়। ৩০ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা নাজিমএর কাছে ৩ টি রাইফেল ও কিছু গোলাবারুদ, ২ জন রাজাকার আটক করে। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী ২১ অক্টোবর আলিন্ধি এলাকায় হানাদার বাহিনীকে অ্যামবুশ করে ৩ জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং এক জন আহত হয়।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

৭ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

মুক্তিবাহিনী সফলভাবে ৫ নভেম্বর রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টরের বাঁটারা এবং মোহনপুর ফাঁড়ি থেকে দখলদার সেনাদের তাড়িয়ে দিতে সক্ষম হয়। মুক্তিযোদ্ধারা এখন এই দুটি পোস্টের নিয়ন্ত্রণ করছে। এই পোস্ট ধরে রাখার জন্য তাদের অভিযানের সময়, এক জন শত্রুসেনা নিহত ও ১ জন আহত হয়। দুই চীনা রাইফেল, এবং এলএমজি এবং রাইফেলসহ বেশ কিছু রাজাকার বন্দী করা হয়। মুক্তিবাহিনী অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে নোয়াখালী জেলা (চৌমুহনী বাদে) পশ্চিম অংশে একটি সুবিশাল এলাকা সাফ করে। মুক্তিযোদ্ধারা হানাদার বাহিনী তাড়িয়ে গতকাল কুষ্টিয়ার ধর্মনন্দ এবং পলাশীপারা দখল করে। ৪ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা বার্নি এবং ডাক্তারবাড়ি-সিলেট জেলার-তাদের নিয়ন্ত্রণে আনে-এতে ২৩ জন নিয়মিত পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়।

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর:

২৯ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী একটি টহল দলের উপর আমরখানা এলাকায় বাংকার খননের সময় পাক বাহিনীর উপর হামলা চালায়। ৫ জন শত্রু হতাহত হয়। ৩ জন অন্যান্য সৈন্য আহত হয়। পাকসেনাদের দুটি মৃতদেহ ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয়।

 

২৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী একটি পাক যানবাহনে অ্যামবুশ করে এবং একটি জীপ এবং একটি ট্রাক ধ্বংস করে। এতে ২৫ জন পাঞ্জাব রেজিমেন্টের সৈন্য প্রাণ হারিয়েছে। পাঁচ জন শত্রু র মৃতদেহ এলাকা থেকে মুক্তিবাহিনী উদ্ধার করে। তাছাড়া চীনা অস্ত্রের একটি বড় অংশ দখল করে।

 

৩০ অক্টোবর রাতে দুই সাহসী মুক্তিবাহিনীর গেরিলা আক্রমণ করে জয় মনির হাট ডাক বাংলোতে। সেখানে ২৫ পাঞ্জাব রেজিমেন্টের একজন মেজর আব্দুল্লাহ আকবর ছিল এবং ঘটনাস্থলেই তাকে হত্যা করা হয়। এই সাহসী ছেলেরা সেনাবাহিনীর মূল্যবান কাগজপত্র দখল করে নেয়। এই নথিতে তথ্য পাওয়া যায় যে শত্রুদের নৈতিক বল খুব কম এবং পাকসেনা কর্মকর্তাদের পাসপোর্ট সিজ করা হয়েছে যাতে তারা ত্যাগ না করতে পারে।

 

৪ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী চকচান্দিতে হানাদার বাহিনীর অবস্থানে আক্রমণ করে ২৫জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। একই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা চরকাই এবং রংপুর জেলার ছিটামন এর মধ্যে টেলি ফোন তার নষ্ট করে টেলি যোগাযোগ ব্যাহত করে। এর আগে ৩ নভেম্বর তারা চরকাই এবং ঘোরাঘাট এর মধ্যে টেলি যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে। বিলম্বিত রিপোর্ট অনুযায়ী একটি বিশেষ পাকিস্তানি সেনা বহনকারী ট্রেন ভারতখালি-বনারপারা এর মধ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের দ্বারা পারা মাইন এর বিস্ফোরণের কারণে বিধ্বস্ত হয়। রেল ইঞ্জিন ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং ৬ টি বগি লাইনচ্যুত হয়। তারপর তারা ট্রেনের ৫০ জনের বেশী শত্রুসৈন্যদের হত্যা গুলি করে হত্যা করে।

 

সিলেটে জেলা মুক্তিবাহিনী ৫ নভেম্বর বাগবার এলাকায় হানাদার বাহিনীর সাথে সম্মুখীন যুদ্ধে লিপ্ত হয়। এতে ৩ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়। মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে এক রাজাকার বন্দী হয়। ৩ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ইলেকট্রিকসাপ্লাই লাইন ধ্বংস করে মৌলভী বাজার শহরে বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘ্নিত করে। মুক্তিযোদ্ধারা ২ নভেম্বর রঙরাতে ১২ টি রাইফেল দিয়ে ৮ জন রাজাকার আটক করে।

 

১ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী যশোরের নোয়াপারাতে অ্যামবুশে ৬ জন নিহত ও ৪ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। ৪ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা চান্দিপুরে আক্রমণে ২১ টি রাইফেলসহ ৯ কোন রাজাকার আটক করে।

 

ঢাকার মুক্তিবাহিনীর কাছ থেকে প্রাপ্ত একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী তারা ২৬ অক্টোবর হানাদার সৈন্যদের উপর অ্যামবুশে দুটি যানবাহন ক্ষতিগ্রস্ত করাসহ মনোহরদী থানা ও হাতিরদিয়াতে ৮ জন নিহত ও অনেক হতাহত হয়। ২ টি গাড়ি পুরো ধ্বংস হয়। স্মরণ করা যেতে পারে যে অক্টোবরের প্রথমার্ধে মুক্তিবাহিনী ঢাকা জেলার একই থানার দশ দোনাতে ১২ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

২৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনীর ঢাকা জেলার কালিয়াকৈরে মাইন বিস্ফোরণে শত্রুসৈন্য বহনকারী একটি গাড়ির এক মেজর এবং ক্যাপ্টেনসহ ১৭ দখলদার সৈন্য নিহত হয়। একই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা ২৫ রাজাকার নিহত এবং একই এলাকায় ২৩ টি রাইফেল জব্দ করে।

 

৩ নভেম্বর ময়মনসিংহ জেলার বকশীগঞ্জে-আলিপুর রাস্তায় এক আর্মি ট্রাক মাইন বিস্ফোরণে ৯ জন নিহত হয়।

 

২৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী মিফিল অন্দহ এবং মাহমুদপুর মধ্যে পাকিস্তানি সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষে ৪ শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী দখলদার সেনাদের বহনকারী দুটি রেলওয়ে বগি মুক্তিবাহিনীর দ্বারা পাড়া মাইন বিস্ফোরণের কারণে ধস হয় ও ঢাকা-ময়মনসিংহ রেল রুটের মাসাখালির কাছাকাছি অংশ সম্পূর্ণরূপে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ৪ শত্রুসৈন্য নিহত হয়। এই সময়কালে পাকিস্তানি সেনা ও রাজাকাররা ৭ জনকে নিহত ও ৪ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। উল্লেখ করা যেতে পারে যে বিভিন্ন রেলওয়ে ব্রিজ ও কালভার্ট ধ্বংস করায়, ঢাকা ও ময়মনসিংহ মধ্যবর্তী সমগ্র রেল রুট জুড়ে বিভিন্ন স্থানে রেললাইনের পাত সরানোয় ঢাকা ও ময়মনসিংহের রেল যোগাযোগ ধ্বংস হয়। রাইফেলসহ ৩৮ রাজাকারকে ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও এলাকায় বন্দী করা হয়। ভালুকা এলাকায় গত সপ্তাহে ৩০ জন শত্রুসৈন্য নিহত, ২০ টি রাইফেলসহ ১০ রাজাকারকে বন্দি করা হয়।

 

 

স্বাঃ / নাজিউল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

৮ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

মুক্তিবাহিনীর গত শনিবার ময়মনসিংহ জেলার হানাদার সৈন্যদের তেলিখালি পোস্ট দখল করে। এতে দখলদার বাহিনীর ভারী মর্টার দিয়ে আক্রমণের চেষ্টা ভেস্তে যায়। বরং তারা মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে বিপুল ভাবে হতাহত হয়। পোস্ট টি দখল করার পর শত্রুদের ৩০ টি লাশ পাওয়া যায়। মুক্তিবাহিনী ১ টি এল এম জি, একটি ২ ইঞ্চি মর্টার এবং ৮ টি রাইফেল (৩০৩) দখল করে।

 

৩০ অক্টোবর মুক্তি বাহিনী নৌ-কমান্ডোরা কুমিল্লা জেলার চাঁদপুরের লন্ডনঘাঁট ২ ক্রেন বিশিষ্ট আমেরিকান ফ্রিগেট Loren ডুবিয়ে দেয়। এটি অস্ত্র ও গোলাবারুদ চাঁদপুরে unloaded করছিল। মাইনে লন্ডন ঘাট ক্ষতিগ্রস্ত হয়। জাহাজ এবং ৫ জন সেন্ট্রি ক্রু ডুবে মরে। এর আগে ২৯ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা অভিযান চালিয়ে ৩ টি রেল ওয়াগন পুড়িয়ে দেয়। বুরমাহতেতেলের ডিপোতে অগ্নিসংযোগ করা হয়। এই সময়ে ৩ টি বোট পাকিস্তানি সেনাদের জন্য বিপুল পরিমাণ গম বহন করে। মেঘনা নদীর মধ্যে মুক্তিবাহিনীর দ্বারা এগুলো আটক করা হয়। এগুলো চাঁদপুর থেকে রায়পুরা নেয়া হচ্ছিল।

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, মুক্তিবাহিনী ২১ অক্টোবর ঢাকা জেলার মনোহরদীতে হানাদার বাহিনীর অবস্থানে হানা দিয়ে ২৫ জন নিহত ও একজন জে সি ওসহ তিন জনকে আটক করে। তারা ৪৫ টি রাইফেল, ২ টি মেশিনগান এবং একটি বাইনোকুলার জব্দ করে। স্মরণ করা যেতে পারে যে ২৬ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ঢাকা জেলার HATLRDIA থানায় আক্রমণ করে ৮ জন শত্রুসৈন্য নিহত ও অনেক শত্রু আহত হয়।

 

৩০ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী নোয়াখালীর হাজত খোলায় অ্যামবুশে শত্রুসৈন্যদের উপর আক্রমণে ক্যাপ্টেনসহ ৩৫ জনকে হত্যা করে। রেন্জার্স এবং অনিয়মিত সৈন্যসহ কমপক্ষে ৫০ জন আহত হয়। ৩১ অক্টোবর কুমিল্লার বিজয়পুরে অতর্কিত হামলায় ১৩ জন নিহত এবং ২১ শত্রুসৈন্য আহত হয়। এই সময় আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের এক জন প্রাণ দেন। ২৫ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী পাবনা-বগুড়া এলাকায় সাঘাট্টায় এম্বুশে এবং কর্নেল রহমাত খান ও পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর সুবেদার নবাব আলি নিহত হয়।

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী হামলায় পাকিস্তানি সেনা মোল্লাহাট থানার চাকুলিয়াতে ২৬ অক্টোবর থেকে পরপর ৩ দিন যুদ্ধ চালিয়ে এক কর্মকর্তাসহ শতাধিক শত্রুসৈন্য হত্যা করে। একই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা জেলার আশাশুনি এবং চাপড়া এলাকায় ১৭ টি রাইফেলসহ ১৮ জন রাজাকার আটক করেন। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধারা তুশখিয়ালিতে অক্টোবরের শেষ পনেরো দিন ১২ জন রাজাকার আটক করে এবং বরিশাল জেলার মঠবাড়িয়াতে ১৫ টি রাইফেল, ৪ পাঞ্জাবি পুলিশসহ ১৮ জন রাজাকার বন্দিউ করে।

 

মুক্তিবাহিনী পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর ২৫ পাঞ্জাব রেজিমেন্টের থেকে নথি থেকে জানতে পারে যে পাকসেনারা বাংলাদেশের অধিকৃত এলাকার নিরস্ত্র ও অসহায় বেসামরিক নাগরিকদের উপর ধর্ষণ ও ডাকাতি অব্যাহত রেখেছে। মানুষ নির্বিচারে হত্যা ও চলতে থাকে। এই তথ্য একটি চিঠি নং ০১০১/১৩/ এ / সি এস তারিখের ২৫ পাঞ্জাব রেজিমেন্টের ২০ অক্টোবর ৭১, ক্যাপ্টেন গোলাম মোস্তফা, রেজিমেন্টের অ্যাডজুট্যান্ট স্বাক্ষরিত থেকে প্রাপ্ত হয়।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ বাহিনী।

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

৯ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

রংপুরদিনাজপুর রাজশাহী সেক্টর:

৩ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা দাউদপুর এলাকায় অ্যামবুশে অনিয়মিত বাহিনীর ৫ জন এবং ৭ জন পাকসেনা হত্যা করে। এই অপারেশনে আমাদের ১ জন যোদ্ধা প্রাণ হারায়। ৪ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী পাকসেনা ও রাজাকারদের ক্যাম্প আক্রমণ করে চান্দিপুর এর কাছাকাছি এবং দুই রাজাকার নিহত হয়। ৯ জন রাজাকার ও ২১ টি রাইফেল আটক করা হয়।

 

মুক্তিযোদ্ধারা শ্যামপুর এর কাছাকাছি একটি পাক টহল অতর্কিত আক্রমণে দুই জন পাকসেনাকে এবং এক অনিয়মিত সৈন্যকে হত্যা করে। এটা ছিল ২ নভেম্বর। মুক্তিযোদ্ধারা আকিল্পুরের কাছাকাছি আরেকটি মিশ্র পাক টহল অতর্কিত আক্রমণে সাত অনিয়মিত সৈন্য নিহত ও তিন জন আহত হয়।

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর:

৫ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা হান্সাদহ এবং কোটচাঁদপুর এর মধ্যে ২০০ মিটার টেলিফোন তার ধ্বংস করে। তারা চুয়াডাঙ্গা ও দর্শনার মধ্যে টেলিফোনের খুঁটি ধ্বংস করে। সাহসী মুক্তিযোদ্ধারা নবীনগরে পাকসেনাদের ও রাজাকারদের ক্যাম্পে অভিযান চালিয়ে ৩ নভেম্বর তাদের প্রচুর হতাহত হয়। দুইটি লাশ ও ৬ টি রাইফেল রেখে পাকসেনারা পালিয়ে যায়। ২ নভেম্বর হাকিমপুরে পাকসেনা ও রাজাকারদের উপর মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমণ এ ৬ রাজাকার নিহত এবং তিনজন আহত হয়। আমরা এই সম্মুখযুদ্ধে আমাদের সাহসী মুক্তিযোদ্ধাদের ২ জনকে হারাই।

 

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর:

৩০ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা হাজতখোলা ও লাল্মারির কাছে পাকসেনা ও রাজাকাররাদের উপর অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে ক্যাপ্টেনসহ ১৫ জন পাকসেনাকে হত্যা ও ২০ জন আহত হয়। বিজয়পুর এলাকায় পাকসেনাদের ওপর অতর্কিত হামলায় ২০ জন আহত হয়। আমাদের ১ জন নিহত ও ১ জন আহত হয়। ৩ নভেম্বর পরশুরাম এলাকায় পাক অবস্থানের ওপর মর্টার হামলায় ৫ পাকসেনাকে হত্যা করে ও ৬ জন আহত হয়। ১ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা বেলছাড়ি এলাকায় পাকসেনাদের ওপর অতর্কিত হামলা করে এবং দুই জন পাকসেনাকে হত্যা করে এবং পাঁচ জন আহত হয়।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট-মৌলভীবাজার সেক্টর: ৪ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা আসগরাভারে পাকসেনা ও রাজাকারদের ক্যাম্প অভিযান চালিয়ে তাদের হতাহত হয়। এ অপারেশনে দুটি রাইফেল উদ্ধার করা হয়। ২ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা আলীনগর এলাকায় পাক বাহিনী ও রাজাকারদের একটি দলের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হয় এবং তিন পাকসেনা নিহত এবং ৫ জন আহত হয়। মুক্তিযোদ্ধারা ১ নভেম্বর ফুলপুর ও হালুয়াঘাট এর মধ্যে টেলিফোন লাইন ধ্বংস করে।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১০ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

যশোরকুষ্টিয়াখুলনা সেক্টর:

মুক্তিবাহিনী গত মঙ্গলবার খুলনা জেলার বেতাগি এর মধ্যে হানাদার বাহিনীর সাথে গুলি করে ৫ শত্রুসৈন্য নিহত হয়। এর আগে ৮ নভেম্বর হানাদার বাহিনী হঠাৎ কৈখালী এলাকায় মুক্তিবাহিনীর আত্মরক্ষামূলক অবস্থানে আক্রমণ করে। মুক্তিযোদ্ধারা শত্রুর ২ জনকে হত্যা করে এবং অনেক শত্রুসৈন্য আহত হয়। একটি দেরীতে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে গোপালগঞ্জ মহকুমার কাশিয়ানী থানার ফুকরার কাছাকাছি পাকিস্তানি সেনা এবং রাজাকারদের উপর অ্যামবুশ করে। এতে ১২ জন পাকিস্তানি সৈন্য ও ১৫ জন রাজাকার নিহত হয়। মুক্তিযোদ্ধারা ৭ নভেম্বর একই জেলার শাহাপুরে ৩ রাইফেল সহ ৩ জন রাজাকারকে বন্দী করে। ৩ নভেম্বর যশোর জেলার চুরামনকাঁঠি এলাকায় রেললাইন মাইন দিয়ে ধ্বংস করে রেল যোগাযোগ ব্যাহত করে। তারা একই এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ অনুপযোগী কয়েকটি বৈদ্যুতিক পাইলন উড়িয়ে দেয়।

 

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর:

৬ নভেম্বর পাহাড় পুকুর এলাকায় মুক্তিবাহিনী পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর অবস্থানে আক্রমণ করে। ১০ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়। এই অপারেশনের সময় আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের এক জন নিজের প্রাণ দিলেন। একই দিনে রংপুর জেলার কারনাই এলাকায় মুক্তিযোদ্ধারা ৫ টি রাইফেল ও ৮ জন রাজাকার আটক করে।

 

৭ নভেম্বর দিনাজপুর জেলাড় গোসাইগঞ্জিহাটে মুক্তিবাহিনী অতর্কিত হামলা করে এক শত্রুসৈন্য নিহত ও তিন জন আহত হয়। মুক্তিযোদ্ধারা এই মাসের ১ ম সপ্তাহে কালীগঞ্জ-ব্রত্মারি এবং হাতীবান্ধা-ব্রত্মারি এলাকার মধ্যে রেললাইন সরিয়ে রেল যোগাযোগ ব্যাহত করে।

 

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর:

৭ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা জেলার সালদানদীতে পাকিস্তানি সেনাদের আক্রমণে ২ জনের প্রাণনাশ এবং ৪ শত্রুসৈন্য আহত হয়। একই দিনে, কাইম্পুর এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধে ৩ শত্রুসৈন্য নিহত হয়। আগে ৬ নভেম্বর  মাইন বিস্ফোরণে চন্ডিধর এলাকায় দুই শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৩ জন আহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী মর্টার আক্রমণে ২ জন শত্রুসৈন্য নিহত ও চারজন আহত হয়। ২ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী পানছোড়া এলাকায় পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর প্যাট্রোল এ অতর্কিত আক্রমণ করে। এতে ৩ জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৪ জন আহত হয়। পরের দিন, নয়ন পুর এলাকায় মুক্তিবাহিনী ৩ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। চান্দলা এলাকায় অতর্কিত হামলায় মুক্তিবাহিনী ২ নভেম্বর ২ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী এটা জানা যায়।

 

২৮ অক্টোবর ঢাকা জেলার আড়াইহাজার এলাকায় রাইফেলসহ ২ জন রাজাকার বন্দী করা হয়। ৩০ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা জেলার মিয়াবাজার এ অভিযানে পাকিস্তানি সেনাদের ৪ জন নিহত এবং ৭ শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

 

ময়মনসিংহসিলেট সেক্টর:

৬ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার জামালপুর মহকুমার মেলান্দহ-মাহমুদপুর এলাকায় হানাদার বাহিনীর সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এই সংঘর্ষের সময় এক জেসিওসহ ১২ জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং চারজন আহত হয়। আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের ১ জন প্রাণ দেয়। এর আগে ২৭ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী একই এলাকায় সাত শত্রুসৈন্য খুন করে। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, মুক্তিবাহিনী ২৪ অক্টোবর ময়মনসিংহ জেলার ঈশ্বরগঞ্জ থানায় অভিযান চালিয়ে ৫ জনকে হত্যা করে এবং ১০ শত্রুসৈন্য আহত হয়। আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের ১ জন নিহত হয়।

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১১ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী ২১ অক্টোবর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার বাজিতপুর থানা দখল করে রাজাকারদের এলাকা ক্লিয়ারিং করে। অপারেশনের সময় মুক্তিযোদ্ধারা কিছু গোলাবারুদ ও ১৭ টি রাইফেল দখল করে নেয়। স্মরণ করা যেতে পারে যে মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার কিশোরগঞ্জ মহকুমার ১২ টি থানার মধ্যে 8টি পুলিশ স্টেশন নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। রেল ও সড়ক যোগাযোগ উপবিভাগীয় হেডকোয়ার্টার সংযোগপথ ধ্বংস করা হয়েছে। সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী উপ বিভাগীয় শহরসহ অবশিষ্ট 3 টি থানা ধরে রাখার জন্য মুক্তিবাহিনী ও শত্রু সৈন্যের মধ্যে যুদ্ধ অব্যাহত রয়েছে। অনুসন্ধানে আরো জানা যায় যে কিছু সংখ্যক রাজাকারদের এই এলাকায় ধরা হয়েছে। 26 অক্টোবর একটি সফল কমান্ডো হামলায় মুক্তিবাহিনীর একটি বিশেষ টিম ময়মনসিংহ জেলার জগন্নাথ গঞ্জ ঘাট এবং সরিষাবাড়ী র মধ্যে পাকিস্তানি সেনাদের বহনকারী ট্রেনের 5 টি বগি লাইনচ্যুত করে। হানাদার বাহিনীর এতে ৪০ জন হতাহত হয়। 8 নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা একটি সড়ক সেতু ধ্বংস করে বিয়াডাঙ্গা এবং স্রিবর্দির মধ্যে। এতে সড়ক যোগাযোগ ব্যাহত হয়। পরদিন ৭ রাইফেলসহ ৬ রাজাকার বালা এবং গতগ্রাম এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের দ্বারা বন্দী হয়। ৫ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার মহান গঞ্জের কাছাকাছি আলুদা এলাকায় অ্যামবুশে 2 জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। পরে লেঙ্গুরা এলাকায় মুক্তিবাহিনী আক্রমণ করে ৩ নভেম্বর। এতে 15 শত্রুসৈন্য নিহত হয়। ২৬ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা ময়মনসিংহ জেলার 14 রাজাকাররাকে হত্যা করে পাচিম্পাতুলি রাজাকার ক্যাম্পে আক্রমণ করে। এছাড়া, মুক্তিবাহিনী 78 জন সশস্ত্র রাজাকার আটক করে। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, দখলদার সেনারা ২৫ অক্টোবর মুক্তিবাহিনীর বালি এলাকা আক্রমন করে।

 

অনেক লড়াইয়ের পর উভয় পক্ষে ক্লান্ত হয়ে পড়ে। তারপর তারা হাতাহাতি শুরু করে। ফলে অন্তত ২৫ শত্রুসৈন্য নিহত হয়। আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের দুজন এই তৎপরতা চালানোর সময় নিহত হয়। ২৪ অক্টোবর ১৪ রাইফেলসহ ১০ রাজাকার সিলেট জেলার মদনা এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের দ্বারা বন্দী হয়। আরেকজন রাজাকার একই জেলার রুপচাং এ রাইফেলসহ বন্দী হয়।

৭ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা জেলার মন্দ ভাগ এলাকায় হানাদার বাহিনীর উপর একটি বীভত্স হামলা করে। এতে ১৫ জন হতাহত হয়। আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের ৩ জন আহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী রাধানগর এ পাকিস্তানি সৈন্যদের উপর অ্যামবুশে ২ জনকে হত্যা করে ও ৩ শত্রুসৈন্য আহত হয়। লাটিমিয়া এলাকায় ২ জন শত্রু অ্যামবুশে নিহত হয় এবং ২ জন আহত হয়।

 

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১২ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

জানা যায় যে দখলদার বাহিনীকে টাঙ্গাইল জেলা উৎখাত করা হয়েছে। এখন মুক্তিবাহিনী টাঙ্গাইল জেলার নিয়ন্ত্রণ করছে। টাঙ্গাইলের স্বাধীনতা জোন পাবনা জেলার রায়গঞ্জ থানার দক্ষিণ থেকে ঢাকা জেলার মানিকগঞ্জ থানা পর্যন্ত বিস্তৃত। ঢাকা ও ময়মনসিংহ জেলা হেড কোয়ার্টারের পথে সংযোগ কালভার্ট ও সেতু মুক্তিযোদ্ধারা উড়িয়ে দিয়েছে এবং যোগাযোগ বাধাগ্রস্ত করেছে। জেলার কোনো চালু রেল যোগাযোগ নেই। তাই ঢাকার সঙ্গে সকল যোগাযোগের লিংক ধ্বংস হয়েছে।

ঢাকা জেলার মুন্সীগঞ্জ থানা এখন মুক্তিবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে।

 

৪ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার বারহাট্টা থানার টানটার এলাকা দখল করে নেয়। জানা যায় যে মুক্তিযোদ্ধারা পুলিশ স্টেশনের ও সি ও ১০৫ জন রাজাকারকে আটক করে। তারা ১ টি এলএমজি এবং পুলিশ স্টেশন থেকে ৮০ টি রাইফেল দখল করে নেয়। টানটার থেকে মুক্তিযোদ্ধারা ১২ টি বোমা ও কয়েকটি মর্টার দখল করে নেয়।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টর: ৮ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী যশোর জেলার মাশাল্লা এলাকায় এক পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর জীপ মাইনে ধ্বংস করে-এতে ৩ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়। ৩ নভেম্বর খুলনা জেলার লকারোড পুলিশ স্টেশনের কাছে খারদারির মধ্যে হানাদার বাহিনীর সাথে সংঘর্ষে ৬ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করা হয়। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, মুক্তিবাহিনী দখল বাহিনীর উপর বীভত্স হামলা চালায় ২৫ অক্টোবর খুলনার জেলার কচুয়া থানার কাশেরহাট এলাকায়। লুটপাট ও যুদ্ধ কয়েক ঘন্টার জন্য অব্যাহত থাকে। চৌদ্দ শত্রুসৈন্য নিহত এবং আরো অনেক আহত হয়। হানাদার সৈন্যরা তাদের কমরেডদের ১৪ লাশ ও ১৪ টি রাইফেল ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। আমাদের পক্ষে কোন প্রাণহানী ছিল না।

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টর: মুক্তিবাহিনীর ধলাই এলাকায় পাকিস্তানি সেনা অবস্থানে হানা দিয়ে এক কর্মকর্তাসহ অন্তত ২৫ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। এই অভিযানের সময় আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের এক জন শহীদ হন। এবং আরো ২ জন আহত হন।

 

এখানে প্রাপ্ত বিলম্বিত তথ্য মতে, মুক্তিবাহিনীর ৩১ অক্টোবর কুমিল্লা জেলার সালদানদী এলাকায় পাকিস্তানি সেনাদের বহনকারী নৌকায় অ্যামবুশ করে-এতে ৫ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়। তাদের বাকি রা পানিতে লাফ দিয়ে পালিয়ে যায়। নৌকা টি ডুবে গিয়েছিল। ের আগে ২৯ অক্টোবর গেরিলারা কুমিল্লা জেলার সরাইলে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর টহলে আক্রমণ করে ২ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী নোয়াখালী জেলার দেবপুর এলাকায় মুক্তিবাহিনীর আত্মরক্ষামূলক অবস্থানের দিকে আগুয়ান পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর সৈন্যদের অতর্কিতে আক্রমণ করে। এতে ১২ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর: ৮ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী পাবনা জেলার শাহবাজপুরে পাকিস্তানি সেনাদের আক্রমণ করে ৩ জন হত্যা এবং একই দিনে কাজল দিঘিতে একটি অ্যামবুশে ৩ শত্রুসৈন্য আহত হয়। এর আগে ৩১ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা শাঘাম এলাকায় ৯ রাইফেলসহ ১২ জন রাজাকার আটক করে।

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস

 

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৩ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

৯ নভেম্বরে মুক্তিবাহিনী সিলেট জেলার কমরগাও এলাকা থেকে দখলদার সেনাদের তাড়িয়ে দেয়। ময়মনসিংহ জেলার মদনা এখন মুক্তিবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে।

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর: ৮ নভেম্বরে মুক্তিবাহিনী রাসিকপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১৫ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। তারা শত্রুদের ৫ টি বাংকার ধ্বংস করে। ৯ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা দর্শনা ও কুষ্টিয়া জেলার কাপাসডাঙ্গার মধ্যে টেলিযোগাযোগ ধ্বংস করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর জরাপুকুর এলাকায় সেনা বহনকারী গাড়ির ওপর অতর্কিত হামলা করে। গাড়িটি ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং ১১ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। ৭ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী রামকৃষ্ণ এলাকায় পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর টহলে অতর্কিত হামলায় ৫ জনকে হত্যা করে ও ৩ শত্রুসৈন্য আহত হয়।

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর: ৯ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা ডোমার ও রংপুর জেলার চিলাহাটি রেল ট্র্যাক উড়িয়ে দেয়। তারা ডোমার-চিলাহাটি সড়কের একটি সড়ক সেতু ক্ষতিগ্রস্ত করে। ফলস্বরূপ, উভয় রাস্তা এবং রেল যোগাযোগ ব্যাহত হয়।

 

ঢাকাকুমিল্লানোয়াখালী সেক্টর: ৮ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লার কোতোয়ালি থানার মধ্যে কোটেশ্বর এলাকায় ঘুমন্ত পাকিস্তানি সেনাদের ওপর গুলিবর্ষণ করে। এতে ২০ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়। ৫ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কায়ুম্পুরে অ্যামবুশে ৭ শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৩ জন আহত হয়। অনন্তপুর এলাকায় ৪ নভেম্বর অন্য অতর্কিত হামলায় আমাদের বাহিনী ২ জন শত্রু নিহত এবং ২ সৈন্য আহত হয়।

 

৫ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী দখলদার বাহিনীর উপর বীভত্স হামলা চালায়। তখন তারা বেলুনিয়া এবং নোয়াখালীর পরশুরাম এলাকায় মুক্তিবাহিনীর আত্মরক্ষামূলক অবস্থানে হামলা করার চেষ্টা করে। প্রচণ্ড যুদ্ধ সংঘটিত হয়। ১ ক্যাপ্টেনসহ ৮ শত্রুসৈন্য নিহত হয়। আমাদের ২ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হয়। পরের দিন দখলদার সৈন্যদের অন্য ২ কোম্পানি মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে আসে কিন্তু অভিযান মুক্তিবাহিনী বানচাল করে দেয়। মুক্তিবাহিনীর মর্টার ও মেশিনগান দিয়ে দুই ঘণ্টা আক্রমণে ৩৫ শত্রুসৈন্য নিহত হয়। তারা এক চীনা এলএমজি এবং কিছু গোলাবারুদ দখল করে নেয়।

 

ময়মনসিংহসিলেট সেক্টর: ৯ ই নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহের বাহাদুরাবাদ ঘাট এ ৪ শত্রুসৈন্য হত্যার করে। ৩ নভেম্বর মুক্তিবাহিনীতে দুর্গাপুর-নাজিরপুর রোডে হানাদার বাহিনীর উপর অতর্কিত হামলায় চার জনকে হতাহত হয়। এর আগে ৭ নভেম্বর সোহাগপুর এলাকায় মুক্তিবাহিনীর সাথে পাকিস্তানি সেনাদের সংঘর্ষে ৩ শত্রুসৈন্যকে নিহত হয়। তিনটি রাইফেল জব্দ হয়।

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী টাঙ্গাইল জেলায় মির্জাপুর এর কাছাকাছি পাথরঘাঁটি এলাকায় পাকিস্তানি সেনাদের সঙ্গে যুদ্ধে ১ মেজরসহ ৭ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। ৩০ অক্টোবর এই সংঘর্ষ হয়। জানা গেছে দুই পশ্চিম পাকিস্তানি রেঞ্জার্স এবং ২৫ রাজাকার নিহত হয়। এসময় আমাদের ২ জন মুক্তিযোদ্ধা প্রাণ হারান।

 

১১ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী গৌরী নগর এলাকায় অভিযানে কিছু শত্রুসৈন্য হত্যা করে। কিছু গোলাবারুদ দখল করে নেয়।

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী ১২ রাইফেলসহ ৮ জন রাজাকার ময়মনসিংহ জেলা নেত্রকোনা মহকুমা এরকেন্দুয়ার কাছাকাছি বাউশের বাজার এলাকায় বন্দী হয়।

 

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৪ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর: ১১ ই নভেম্বর মুক্তিবাহিনী পাকিস্তান সেনাবাহিনীর কুমিল্লা জেলার কামালপুর অবস্থানে মর্টার অভিযান চালিয়ে ৫ জন হত্যা এবং ১২ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। মুক্তিবাহিনী চাউরা এলাকায় অ্যামবুশে ২ শত্রুসৈন্য নিহত ও তিন জন আহত হয়। তারিখ ছিল ৬ নভেম্বর। ৫ নভেম্বর অন্য একটি অভিযান চালিয়ে মুক্তিবাহিনী ৭ জন নিহত ৮ জন আহত হয়। এটি ছিল চট্টগ্রাম জেলার হরিণ খোলাতে। এর আগে ৪ নভেম্বর মুক্তিবাহিনীতে হুগলি চা বাগানে পাকিস্তানি সেনার অবস্থানে হানা দিয়ে ৪ শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৬ জন আহত হয়।

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর: মুক্তিবাহিনী আলীপুর এলাকায় ১০ নভেম্বর পাকিস্তানি বাহিনীর সাথে যুদ্ধে ৫ শত্রুসৈন্য নিহত হয়। এই অপারেশনের সময় আমাদের ১ জন শহীদ হলেন। একই দিনে ১৬ টি রাইফেল, ১১ টি রাইফেলের বেয়নেট এবং কিছু গোলাবারুদ এর সঙ্গে ১৬ জন রাজাকারতেরাইল এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের দ্বারা বন্দী হয়। এর আগে ৯ নভেম্বর ৪ রাইফেলসহ ২ জন রাজাকার রাজাপুর এলাকায় আটক হয়।

 

একটি বিলম্বিত রিপোর্ট অনুযায়ী, মুক্তিযোদ্ধারা ২৭ অক্টোবর পুকুরিয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২৫ পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ এবং ১৫ রাজাকাররা হত্যা করে। এর আগে তারা এক মেজর এবং ক্যাপ্টেনসহ ফরিদপুর জেলার দামুদিয়াতে ৩১ জন পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ হত্যা করে। এই সময়কালে মুক্তিযোদ্ধারা মোল্লাহাট এলাকা থেকে ৪০ জন রাজাকার আটক করে।

 

ময়মনসিংহসিলেট সেক্টর: ৯ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী সিলেট জেলার কমরগাও এলাকায় ১০ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। ৮ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী দখিঙ্গুল চা কারখানায় দখলদার সেনা ক্যাম্পে একটি ভারী যুদ্ধ করে। এতে ১৩ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করা হয়। একটি বিলম্বিত তথ্য অনুযায়ী, মুক্তিযোদ্ধারা ময়মনসিংহ জেলার ফুলবাড়ীর কাছাকাছি ভ্যাদার বাড়ি ক্যাম্প থেকে ৭০ টি রাইফেলসহ ৭০ জন রাজাকার আটক করে।

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর: ১২ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কাশিম্পুর পাকিস্তানি সেনা অবস্থানে অভিযান চালায়। একই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা আলীপুর এলাকায় টহলরত এক পশ্চিম পাকিস্তানী রেঞ্জার হত্যা করে। তারা ১ টি রাইফেল দখল করে নেয়। ৬ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলায় ৪ অনিয়মিত সৈন্যসহ ৫ জন শত্রু হত্যা করে। এটি ছিল সিঙ্গার দাবড়ি রেলওয়ে স্টেশনের কাছে পাকিস্তানি সেনাদের ওপর এম্বুশ। এর আগে ৪ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলার চিলমারী-কুড়িগ্রাম এর মধ্যে পাকিস্তানি সেনারা বহনকারী একটি ট্রেন অ্যামবুশ করে ৫ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। তারা ৪ টি রাইফেল জব্দ করে।

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৬ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

ময়মনসিংহসিলেট সেক্টর: মুক্তিবাহিনী ১২ নভেম্বর সিলেটের আরিয়াল এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর সাথে অ্যামবুশে ৭ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। এতে আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের এক জন আহত হয়।তেলিয়াপাড়া এলাকায় আরেকটি হামলায় একই দিনে মুক্তিবাহিনী ৪ পাকিস্তানি সৈন্যকে হত্যা করে জুরিগোয়াল বাড়িতে মুক্তিবাহিনী ৫ হানাদার সৈন্য ও ১ রাজাকার হত্যা করে। তারিখটি ছিল ১২ নভেম্বর। একই দিনে জৈন্তাপুর কালিনগর এলাকার মধ্যে একটি সেতু ধ্বংস করে। এর আগে ৮ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী সোনাপুর এবং সমানবাগ চা বাগানে পাকিস্তানি সেনারাদের উপর অভিযান চালিয়ে ৫ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

ময়মনসিংহ জেলায় ১২ নভেম্বর বিজাপুর-বিরিশিরি এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের মাইন বিস্ফোরণে এক দখলদার সেনা নহত হয়। ১০ নভেম্বর মুক্তিবাহিনীর ১৫ শত্রুসৈন্য হত্যা করা হয় এবং অস্ত্র ও বিপুল গোলাবারুদ জব্দ করা হয়। এটি ছিল বড়লেখা এলাকার অ্যামবুশ। আরেকটি অভিযানে একই দিনে মুক্তিবাহিনী কৃষ্ণনগর এলাকায় ৭ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। তারিখটি ছিল ১০ নভেম্বর। এর আগে ৯ নভেম্বর তারাকান্দা এলাকায় এক রাইফেলসহ এক রাজাকার কামাজানি এলাকায় মুক্তিবাহিনী আক্রমণ করে। এতে পাঁচ শত্রুসৈন্য ও ১০ রাজাকার নিহত হয়। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী কিশোরগঞ্জের থানার গাছিহাটা এলাকায় দখলদার বাহিনীর উপর বীভত্স হামলা চালায় আমাদের মুক্তিবাহিনী। এতে ১৫ পাকিস্তানি সৈন্য নিহত হয়। অক্টোবরের শেষ পনেরো দিন কিশোরগঞ্জ এলাকায় ৩৩ টি রাইফেলসহ ৩৫ জন রাজাকার মুক্তিযোদ্ধাদের দ্বারা বন্দী হয়। ১০ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী লক্ষ্মীবাজার এলাকায় অ্যামবুশে ৭ জনকে হত্যা করে এবং ১৭ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

ঢাকাকুমিল্লাচট্টগ্রাম সেক্টর: ১৩ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা জেলার ছাউড়া এলাকায় পাকিস্তানি সেনা অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ২ জন শত্রু হত্যা ও ৩ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। ১২ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কারনাইল বাজার এলাকায় ৮ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। এতে আমাদের সাহসী মুক্তিযোদ্ধাদের এক জন আহত হয়। চাইলাশিয়া এলাকায় আরেকটি হামলায় একই দিনে মুক্তিবাহিনী ৪ জনকে নিহত এবং ৫ শত্রুসৈন্য আহত হয়। একটি রাইফেল মুক্তিযোদ্ধারা জব্দ করে। ৮ এবং ১১ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী আরম্নির এলাকায় হানাদার বাহিনীর উপর ধারাবাহিক আক্রমণ করে। এতে ১৪ জন নিহত এবং ৮ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। ৯ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ছাপিতলা এলাকায় চলন্ত পাকিস্তানি বাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হয়। প্রায় ৬০০ সৈন্য মুভ করছিল। যুদ্ধ প্রায় ৫ ঘণ্টা ধরে চলে। এতে শত্রুদের প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়। এর আগে ৮ নভেম্বর অন্তত ১ অফিসারসহ অন্তত ৩১ জন পাকিস্তানী সেনা রাঙ্গিছড়া এলাকায় মুক্তিবাহিনীর দ্বারা অতর্কিত হামলায় নিহত হয়। আমাদের এক মুক্তিযোদ্ধা আহত হন।

 

কুষ্টিয়াযশোরখুলনা সেক্টর: মুক্তিবাহিনী ১২ নভেম্বর কুষ্টিয়া জেলার আলমডাঙ্গা এলাকায় অভিযান চালিয়ে এক পশ্চিম পাকিস্তানী রেঞ্জার, ১৯ রাজাকার ও এক পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ হত্যা করে। এর আগে ৭ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী জহরপুর এ পশ্চিম পাকিস্তানি রেঞ্জার্স এ অতর্কিত হামলা করে এবং তাদের ৫ জন নিহত হয়, একটি রাইফেল মুক্তিযোদ্ধাদের দ্বারা জব্দ হয়। ১১ নভেম্বর একটি রাইফেলসহ এক রাজাকার কাজীপুর এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের দ্বারা বন্দী হয়। ৯ নভেম্বরে মুক্তিবাহিনী সাতক্ষীরা উপ বিভাগীয় শহরের বাইরে উপর কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ কদম তলি সেতুতে পাকিস্তানি বাহিনীর উপর মর্টার দিয়ে হামলা চালায়। এতে ৩ জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং কয়েক জন আহত হয়। ৮ নভেম্বর খুলনা জেলার কলারোয়া থানার গওহর হাটা এলাকায় টহল রত দখলদার বাহিনীর উপর মুক্তিযোদ্ধাদের অতর্কিত হামলায় ৬ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়। এর আগে ২ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা সাতক্ষীরা থানার কাকডাঙা এলাকায় অস্ত্র এবং গোলাবারুদসহ ৫ জন রাজাকার বন্দী করে।

 

এই মাসের ১ ম সপ্তাহে ইয়াহিয়া খানের হতাশার শোধ এর প্রভাব পড়ে। মাহমুদপুর ও সাতক্ষীরা থানায় করবদলি এর কাশেম্পুর গ্রামে লুটপাট, শয়াবারিয়া, রামকৃষ্ণপুর ও কলারোয়া থানার কামাল পাশা এলাকায় শিশুসহ নির্বিশেষে নিরীহ মানুষ হত্যা করা হয়।

 

রংপুরদিনাজপুররাজশাহী সেক্টর: ১০ নভেম্বর কুড়িগ্রামের কাছে মুক্তিবাহিনীর মাইনে হানাদার সৈন্য বহনকারী ট্রেন আক্রান্ত হয় এবং এক কর্মকর্তাসহ ৮ পাকিস্তানি সৈন্য নিহত এবং ট্রেনের আট টি বগি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। একই দিনে চিল্মারি কুড়িগ্রাম থেকে পাকিস্তানি সেনাদের বহনকারী অন্য একটি গাড়ি মুক্তিযোদ্ধাদের অতর্কিত হামলায় ২ পাকিস্তানি সৈন্য, ৩ রাজাকার ও গাড়ির চালক নিহত হয়।

 

মুক্তিযোদ্ধারা ১১ নভেম্বর রংপুর জেলার বুড়রাবুড়ি এলাকায় ৩ টি রাইফেলসহ ৩ জন রাজাকার আটক করে।

 

মুক্তিবাহিনীর সাথে একটি ভারী যুদ্ধের পরে রংপুর জেলার ভুরুংগ মারি এলাকা মুক্ত হয়। ফলে জেলার একটি প্রধান অংশ মুক্তিবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে আসে। হামলার সময় পাকিস্তানি সৈন্যদের প্রচুর হতাহত হয়।

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৭ নভেম্বর ১৯৭১

 

মুক্তিবাহিনী ভুরুঙ্গামারী এলাকায় তাদের আক্রমণ অব্যাহত রাখে এবং পাকিস্তানী সৈন্যদের একটি ব্যাটেলিয়নের সঙ্গে ভারী লড়াইয়ের পর পাটেশ্বরি দখল করে। শত্রুরা ভারী মর্টার এবং মেশিন গান দিয়ে ও মুক্তিবাহিনীর আক্রমণ প্রতিরোধ করতে না পেরে পশ্চাত্পদ অবলম্বন করে। আমাদের বীর বাহিনী এখন দক্ষিণমুখী অগ্রসর হতে থাকে।

 

সালদানদী এলাকায় পাকিস্তানি সেনাবাহিনী গত দুই দিনে মুক্তিবাহিনী অবস্থানের উপর চার টি আক্রমণ পরিচালনা করে। এই সকল হামলায় শত্রুদের প্রচুর হতাহত হয়। এই অপারেশনের বিবরণ যুদ্ধক্ষেত্রে আমাদের সংবাদদাতা থেকে পাই।

২৭ অক্টোবর জগন্নাথ গঞ্জ ঘাটে মুক্তিবাহিনী শের আফগান নামক জাহাজ টি নিমগ্ন করে। নৌ কমান্ডোরা এই জাহাজ সৈন্য ও গোলাবারুদ বহন জন্য ব্যবহার করছিল।

 

জানা গেছে যে গেরিলা কমান্ডো কার্যক্রম ঢাকা শহরে তীব্রতর হয়েছে। বীর গেরিলারা গত সপ্তাহে রকেট লঞ্চার দিয়ে প্রধান স্টেট ব্যাংক ভবন আক্রমণ করে। একই সপ্তাহে মতিঝিল ন্যাশনাল ব্যাংকের সামনে বিভিন্ন সেনা যানবাহন মাইন বিস্ফোরণের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পাকিস্তানি সৈন্যরা এই ভবনের ভিতরে পোস্ট করে। পশ্চিম পাকিস্তানি পুলিশ বাহিনী পশ্চিম পাকিস্তানে তাদের ফেরত পাঠাতে অনুরধে ব্যার্থ হয়ে সেনা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে স্ট্রাইক করে। স্মরণ করা যেতে পারে যে এই পশ্চিম পাকিস্তানি পুলিশ ঢাকায় আনা হয় ৬ মাসের কাজের প্রতিশ্রুতি দিয়ে। শহর মধ্যে বিরাজমান একটি সঙ্কটাবস্থা সৃষ্টি হয়। সেনা কর্তৃপক্ষ এক সপ্তাহের জন্য সকাল সন্ধ্যা কারফিউ চালু করে এবং শহরের প্রতিটি ঘরে নির্বিচার অনুসন্ধান পরিচালনা শুরু করে। এই জন্য, সেনা কর্তৃপক্ষ শহরের মধ্যে প্রতিটি পুলিশ স্টেশনে এক ব্রিগেড সৈন্য মোতায়েন করে।

 

রংপুর দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর: ১৪ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলার আন্ধারিঝারখানার  এলাকায় ৩ পাকিস্তানি সেনা যানবাহন এ অ্যামবুশ করে দুটি গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত করে ও তাদের হতাহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী জয়মনিরহাটে অস্ত্র ও গোলাবারুদের একটি বৃহৎ পরিমাণ দখল করে নেয়। তারা রায়গঞ্জ এলাকায় প্রচুর অস্ত্র ও গোলাবারুদ আটক করে। এর আগে ১২ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী রাধানগর এলাকায় এক পাকিস্তানি টহল দলে অতর্কিত আক্রমণে ৩ হানাদার সৈন্য হত্যা করে।

 

৯ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা জেলার আকুল্পুরে পাকিস্তানি সেনা অবস্থানের ওপর মর্টার দিয়ে ৩ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। একই এলাকায় অন্য একটি যুদ্ধে ২ জন শত্রুসেনা নিহত এবং ৩ শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

একটি পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর জীপ এই মাসের ১ ম সপ্তাহে বড়লেখা-করমচিতনগর সড়কে মুক্তিবাহিনীর মাইন বিস্ফোরণে বিধ্বস্ত হয়। ফলে ৩ শত্রুসৈন্য নিহত হয়। মুক্তিবাহিনী কয়েকটি বিদেশী চিনহ যুক্ত অস্ত্র ও গোলাবারুদ জব্দ করে। ৮ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী সিলেটের সেকিঘাটে বোমা নিক্ষেপ করে এক পাকিস্তানি সেনা হত্যা করে। ৬ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কাউরি খোলাতে একটি পাওয়ার ট্রান্সফরমার উড়িয়ে দেয়। ফলে ৪ দিনের জন্য পাওয়ার সাপ্লাই ব্যাহত হয়। ১৩ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী সিলেট ও সুনামগঞ্জ মধ্যে দালর ফরি এবং একটি সড়ক সেতু ক্ষতিগ্রস্ত করে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে।

 

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী ২ নভেম্বর ময়মনসিংহ জেলার ঠাকুর কোনাতে হানাদার বাহিনীর ৭০০ মন মজুদ চাল জব্দ করে। ১৪ নভেম্বর ১১ জন সশস্ত্র রাজাকার উত্তর ময়মনসিংহে মুক্তিবাহিনীর দ্বারা বন্দী হয়।

 

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৮ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

 

মুক্তিবাহিনী ভারী আক্রমণে দখলদার সৈন্যদের থেকে ময়মনসিংহ জেলার ঘোষগাও মুক্ত করে। এবং এলাকায় এখন মুক্তিবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে। সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনীর ভারী আক্রমণের কারণে দখলদার সৈন্যরা একই জেলার হালুয়াঘাট থেকে নিজেদের প্রত্যাহার শুরু করে।

 

প্রতিবেদন অনুযায়ী পিয়েশরি দখলের পর মুক্তিবাহিনী আরও দক্ষিণে যেতে থাকে এবং নাগেশ্বরী থানায় গেরিলা কার্যক্রম শুরু করে হানাদার বাহিনীর মধ্যে আতঙ্ক তৈরি করতে থাকে। এদিকে মুক্তিবাহিনী পশ্চিম নাগেশ্বরী একটি কৌশলগত সড়ক সেতু ধবংস করে রিইনফোর্সমেন্ট বন্ধ করে দেয়।

 

রংপুর দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর: মুক্তিবাহিনী ১৬ নভেম্বর রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী এলাকায় পাকিস্তানি সেনা অবস্থানে আক্রমণের এর ফলে ৬ শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৪ জন আহত হয়। আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের দুই জন এই অপারেশনের সময় আহত হন। ১৫ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী দক্ষিণে ক্ষেতই বারি অ্যামবুশে তিন শত্রুসৈন্য নিহত এবং এক জন পাকসেনা আহত হয়। ১৪ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী হাতীবান্ধা এবং পারুলিয়ার মধ্যে রেললাইন ধ্বংস করে এলাকায় রেল যোগাযোগ ব্যাহত করে। ১৩ নভেম্বর বাহিনী গঙ্গালক্ষি র কাছে পাকিস্তানি সেনা এবং অনিয়মিত একটি মিশ্র প্যাট্রোলে অতর্কিত আক্রমণে শত্রুদের ৫ জন হত্যা করে। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মাইনে শত্রু ট্রেন বিস্ফোরণে দুই জন প্রাণনাশ এবং তিন দখলদার সৈন্য আহত হয়। এটি ঘটে সান্তাহার-আদমদীঘি লাইনের লাইনচ্যুত হবার জন্য।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টর: মুক্তিবাহিনী টুকারবাজার এলাকায় ৫ জন পাকসেনাকে এবং ৩ জন রাজাকার হত্যা করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী সাতিগাও এ পাক অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ৯ জন হতাহত হয়। এর আগে ৯ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার শ্যামগঞ্জ-শম্ভুগঞ্জ এলাকায় পাক প্যাট্রোল এ আঘাত হেনে সাত পাকিস্তানি সেনা নিহত এবং পাঁচজন আহত হয়। এ সময় আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের দুই জন আহত হয়। একই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা ময়মনসিংহ জেলার পিয়ার পুরের কাছাকাছি তিনটি আর্মির জীপ অ্যামবুশ করে তিন শত্রুসৈন্য হত্যা করে এবং তাদের যানবাহন দুটি ধ্বংস করে। মুক্তিবাহিনী শত্রুদের থেকে ৩ টি রাইফেল দখল করে।

 

কুষ্টিয়া-যশোর সেক্টর: মুক্তিবাহিনী ১২ নভেম্বর কুষ্টিয়া জেলার আলমডাঙ্গাতে পাকিস্তানি ক্যাম্পে অভিযান চালিয়ে ১৭ জন পাকিস্তানি সৈন্যকে হত্যা করে। দুই সাহসী মুক্তিযোদ্ধা শহিদ হয়। ১৪ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা আন্দুবাড়িয়াতে পুলিশ ফাঁড়িতে অভিযান চালিয়ে ১২ জন পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ হত্যা করে। ১১ নভেম্বর দশ হানাদার সৈন্য ও এক রাজাকার নাস্তি ঘূঁঘরি যাত্রাপথে মুক্তিবাহিনীর মাইন বিস্ফোরণে নিহত হয়। এর আগে ৭ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী নাস্তির কাছে অতর্কিত হামলায় ৭ জন পাকসেনাকে হত্যা করে। যখন মুক্তিবাহিনী গোরপাড়াতে শত্রু বাংকারএ হানা দেয় তখন কিছু অনিয়মিত সৈন্যসহ ৯ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয। বিলম্বিত রিপোর্ট অনুযায়ী খদাইরপুরে একটি বড় যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধারা হানাদার সৈন্যদের ১ জন ক্যাপ্টেনসহ ১৩ পাকিস্তানি সৈন্য হত্যা করে। এতে মুক্তিবাহিনীর ৩ জন হতাহত হয়। ১০ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী সাকুরা এবং মোহনপুরে শত্রুর প্যারা-মিলিটারি ক্যাম্পে অভিযান করে। এতে বেশ কিছু অনিয়মিত সৈন্য নিহত হয়। মুক্তিবাহিনী এই শিবির থেকে ৫৭ টি রাইফেল এবং বন্দুক দখল করে নেয়। ১২ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কামার খালি ঘাটের কাছে দুই টি খেয়া নৌকা ধ্বংস করে। একটি নির্ভরযোগ্য প্রতিবেদন অনুযায়ী, রায়পারায় পাকসেনা ও রাজাকারদের মধ্যে একটি বৃহৎ আক্রমণে অন্তত ৪০ জন রাজাকার নিহত হয। এই সংঘর্ষের কারণ জানা যায়নি।

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর-মুক্তিবাহিনী ১৫ নভেম্বর নোয়াখালী জেলার ছাগলনাইয়াতে পাকিস্তানি অবস্থানের ওপর গুলিবর্ষণ করে পাঁচ পাকিস্তানি সৈন্য হত্যা করে। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী ৫ নভেম্বর কাবিল্পুর পাকিস্তানি অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ১ অফিসারসহ ৩ শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৭ জন আহত হয় এবং ঢাকা ও তাঁর বাইরে গেরিলা আক্রমণের জন্য পাক বাহিনী ১৭ নভেম্বর ভোর ৫ টা হঠাত কারফিউ আরোপ করে। পাক আর্মি কর্তৃপক্ষ ঘরে ঘরে সার্চ শুরু করে। বিভিন্ন স্থানে মুক্তিযোদ্ধা (অস্পষ্ট)

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১৯ নভেম্বর ১৯৭১

 

সমস্ত বাংলাদেশ জুড়ে সংঘটিত অসংখ্য গেরিলা অপারেশনের মধ্যে দুর্ধর্ষ ও বীরোচিত উল্ল্যেখযোগ্য অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

১৮ নভেম্বর রাজশাহী জেলার আগর হাট থেকে মুক্তিবাহিনীর আক্রমণের ফলে পাকসেনারা নিজেদের প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয়। ফলে তারা চাকলার দিকে যেতে থাকে। কিন্তু সেখানেও মুক্তিবাহিনী আক্রমণ করে তাদের সেখান থেকে সরে যেতে বাধ্য করে। ধবরা এলাকায় হানাদার বাহিনীর অবস্থানের উপর একটি অনুরূপ আক্রমণে মুক্তিযোদ্ধারা ধবরা থেকে শত্রুদের সরে যেতে বাধ্য করে। ১৬ নভেম্বর দখলদার বাহিনী কুষ্টিয়া জেলার বামন্দিয়ার কাছে মুক্তিবাহিনীর অবস্থানে আক্রমণ করে। মুক্তিযোদ্ধারা সাহসিকতার সাথে পাল্টা জবাব দেয় এবং শত্রুরা পশ্চাত্পদ হয়। শত্রুসৈন্যদের প্রচুর সৈন্য হতাহত হয়।

 

রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টর: ১৭ নভেম্বর হানাদার বাহিনী মুক্তিবাহিনীর রংপুর জেলার উলিপুর এর কাছে আক্রমণ করে। মুক্তিবাহিনীর এটা সফলভাবে প্রতিহত করে। এতে ২৪ পাকিস্তানি সেনা নিহত এবং দশজন আহত হয়। ১৫ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলার অন্ধরিজ-হারখামার এ ৩ পাকিস্তানি সৈন্য আটক করে। একই দিনে একই এলাকায় তারা অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ পাকিস্তান বাহিনীর ১ ট্রাক রেশন দখল করে। ১৩ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী দক্ষিণ কুড়িগ্রাম এ ১২ জন শত্রুসৈন্য অ্যামবুশে হত্যা করে। এর আগে ১১ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী লালমনিরহাটের নিকটবর্তী রেলওয়ে ট্র্যাক ধ্বংস করে। ১৩ নভেম্বর দোহাইপাড়াতে ২০ টি রাইফেলসহ দুই রাজাকার বন্দী করা হয়।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টর: ১৩ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী পাকিস্তানি সেনাদের রাজাপুর এলাকায় অ্যামবুশে ৪ জন নিহত এবং ২ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। ১৪ নভেম্বর পাকিস্তানি সেনাদের জন্য রেশন বহনকারী একটি যানবাহন কোলা এলাকায় মুক্তিবাহিনীর মাইনে বিধ্বস্ত হয়। ১৫ নভেম্বর ৪০ টি রাইফেলসহ ৪০ জন রাজাকার বারাগান্দিয়া এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের দ্বারা বন্দী হয়। ১৩ নভেম্বর কুষ্টিয়া জেলার প্রতাপপুর এলাকায় অতর্কিত হামলায় মুক্তিবাহিনীর ১১ জন শত্রুসৈন্য নিহত ও চার জন আহত হয়। তারা একই দিনে এই দুই স্থানের মাঝামাঝি বিভিন্ন কালভার্ট ধ্বংস করে চৌগাছা-যশোর সড়ক যোগাযোগ ব্যাহত করে। মুক্তিবাহিনী ১৪ নভেম্বর খুলনা জেলার সাতক্ষীরা কাছে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর জীপ অ্যামবুশে এক ক্যাপ্টেনসহ ৪ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। ১৫ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী সাতক্ষীরা বিদ্যুৎকেন্দ্র ক্ষতিগ্রস্ত করে শহরে বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যাহত করে।

 

ঢাকা-কুমিল্লা-চট্টগ্রাম সেক্টর: ১৭ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা জেলার চান্দলাতে পাকিস্তানি সেনাদের অবস্থানে আক্রমণে ৬ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। তারা শত্রুর ২ টি বাংকার ধ্বংস করে। ১৫ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী আরাইপারে পাকিস্তানি সেনা অবস্থানের ওপর মর্টার আক্রমণ করে ৩ শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৩ জন আহত হয়। ১৫ নভেম্বর মুক্তিবাহিনীর জয় নগরে অতর্কিত আক্রমণে হানাদার সৈন্যদের ২ জন হত্যা ও ৩ শত্রুসৈন্য আহত হয়। একই এলাকায় এর আগে ১২ নভেম্বর অন্য একটি অতর্কিত হামলায় মুক্তিবাহিনী ২ জন হানাদার সৈন্য হত্যা করে।

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধারা এই মাসের ১ ম সপ্তাহে কাপ্তাই এলাকায় বিভিন্ন বিদ্যুৎ পাইলন ধ্বংস করে চট্টগ্রামে ইলেকট্রিকসাপ্লাই ক্ষতিগ্রস্ত করে। এছাড়াও কাপ্তাই এলাকায় মুক্তিবাহিনীর ২ জন নিহত এবং ৯ নভেম্বর অতর্কিত হামলায় ৫ হানাদার সৈন্য আহত হয়।

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্সেস

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২১ নভেম্বর ১৯৭১

 

মুক্তিবাহিনীর নৌ-কমান্ডোরা নভেম্বর মাসে রুঢ়ভাবে শত্রুর নৌ কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত করে। কমান্ডোরা মেঘনা নদীর মধ্যে ৬ নভেম্বর একটি চীনা কোস্টার ও ৪ নভেম্বর একটি পাকিস্তানি জাহাজ ‘এমভি SHAMY’ নিমগ্ন করে। ৭ নভেম্বর রাতে কমান্ডোরা চাঁদপুর মহকুমার মোহনপুর এর কাছাকাছি একটি পাক জলপথ জাহাজ ‘এমভি Lili’ ডুবিয়ে দেয়। ১১ নভেম্বর তারিখে একটি পাকিস্তানী শিপিং কর্পোরেশন এমভি SHOBAN “একটি বজরা ‘গফুর’ চাঁদপুরের উত্তর ইখলাস্পুরের কাছাকাছি কাছাকাছি ডুবিয়ে দেয়। ১৩ নভেম্বর পাকিস্তানি গানবোট HARHAIM কমান্ডোরা নিমগ্ন করে। এটি ছিল চাঁদপুর বন্দরের দক্ষিণে। মুক্তিবাহিনী ইতিমধ্যে অনুরূপ অভিযান সুন্দরবন এলাকায় চালাত এবং এতে চালনা পোর্ট ও চট্টগ্রাম বন্দরে শত্রু কার্যক্রম ব্যাপকভাবে কমে যায়।

 

২০ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী পাকসেনাদের সাথে একটি ভয়ানক এনকাউন্টার করে খুলনা জেলার কালীগঞ্জ থানা মুক্ত করে। একই রাতে মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলার বারখাটাতে পাকিস্তানি অবস্থান দখল করে। শত্রুদের উভয় স্থানে হতাহতের পরিমান এর সঠিক চিত্র এখনো জানা যায়নি।

 

১৯ নভেম্বর পাকিস্তানি সেনারা সিলেট জেলার দখিঙ্গুলে কাছে মুক্তিবাহিনীর অবস্থানে আক্রমণ করে। মুক্তিযোদ্ধারা শত্রুর আক্রমণ প্রতিহত করে এবং এতে হানাদার বাহিনী সরে যেতে বাধ্য হয়। এতে ২০ পাকিস্তানি সৈন্য নিহত এবং তাদের বিপুল সংখ্যক আহত হয়। একই দিনে রাধানগর মুক্তিযোদ্ধাদের একই রকম একটি আক্রমণ হয়। এছাড়াও একই দিনে মুক্তিবাহিনী তাহিরপুর থেকে সাচিনা পর্যন্ত এলাকায় অ্যামবুশে পাকিস্তানি সেনাদের ৫ জনকে হতাহত হয়।

 

১৮ নভেম্বর রাজাকারদের একটি দলের সঙ্গে পাকিস্তানি সেনারা রাজশাহী জেলার আগ্রা পুকুর এলাকার দিকে অগ্রসর হয়। মুক্তিবাহিনী তাদের উপর একটি ঝটিকা আক্রমণে ১০ জন পাকসেনাকে হত্যা করে। এতে আমাদের এক জন সাহসী মুক্তিযোদ্ধা নিহত ও ২ জন সামান্য আহত হয়।

 

১৭ নভেম্বর ১ টি পাকিস্তানি আর্মি জীপ যশোর-কুষ্টিয়া সেক্টরের আমবাড়িয়ার কাছাকাছি মুক্তিযোদ্ধাদের মাইনে প্রস্ফুটিত হয়। এতে দুই পাকসেনা ও রাজাকারদের ৩ জন নিহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী ভোমরাতে পাকিস্তানি সেনাদের আক্রমণ করে এবং শত্রুর ৫ জন নিহত হয়। একই সেক্টরে মুক্তিবাহিনী ১৯ নভেম্বর আলোক দিঘি র কাছে দখলদার সৈন্যদের অতর্কিতে আক্রমণ করে ২ পাকসেনা নিহত এবং ৩ জন আহত হয়। একই দিনে ৪ জন রাজাকার যশোর জেলার বেটাই এর কাছে বন্দী করে।

 

কুমিল্লার জেলায় ১৭ নভেম্বর সালদানদী এলাকায় মুক্তিবাহিনীর উপর একটি মর্টার আক্রমণ হয়। মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরোধে শত্রুরা পিছু হটে। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন মতে ১ টি পাকিস্তানি আর্মি প্যাট্রোল ট্রেন ৯ ই নভেম্বর রাতে চাঁদপুর-লাকসাম লাইনে বারাসাত আলীর কাছাকাছি লাইনচ্যুত হয়। এতে ইঞ্জিন ও ট্রেনের দুই টি বগি ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং দুই পাকসেনা এবং ৫ রাজাকার নিহত হয়। একই রাতে মুক্তিবাহিনী একই এলাকায় টেলিযোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে।

 

ময়মনসিংহ জেলায় মুক্তিবাহিনী ১৬ নভেম্বর মুক্তাগাছা থানায় অভিযান চালিয়ে ৬ জন অনিয়মিত সৈন্য হত্যা করে। পরদিন পাকিস্তানি সেনারা অনিয়মিত সৈন্যদের উদ্ধার করতে আসেন। একটি সম্মুখযুদ্ধে ৪ শত্রুসৈন্য ও ৫ রাজাকার নিহত হয়।

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা, বাংলাদেশ ফোর্সেস

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২২ নভেম্বর ১৯৭১

 

মুক্তিবাহিনী তাদের জয় জয়কার সমস্ত বাংলাদেশে অব্যাহত রেখেছে। জানা যায় গতকাল মুক্তিবাহিনী ভারি যুদ্ধের পর অমরখানা ও জগদলহাট দখল করে। শত্রুর দিকে হতাহতের খবর এখনো পাইনি।

 

খুলনা থেকে প্রাপ্ত তথ্য মতে, মুক্তিবাহিনী ২০ নভেম্বর সাতক্ষীরা উপ বিভাগের কালীগঞ্জ থানার বসন্তপুর অবস্থানে অভিযান চালায়। সারাদিন যুদ্ধ করার পর মুক্তিবাহিনী বসন্তপুর দখল করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী কালীগঞ্জ থানার দিকে অগ্রসর অব্যাহত রাখে। ভারী যুদ্ধের পর বিনিময় করার পর দখলদার সেনারা কালীগঞ্জ থেকে পশ্চাদপসরণ করে।

কালীগঞ্জ এখন মুক্তিবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে। ১৯ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী শ্যামনগর আগাতে থাকে। ছোট যুদ্ধে তারা এটি দখল করে। তারপর নূর নগর এগিয়ে যায়। তারা ৭ টি বোমা, ৩ ইঞ্চি মর্টার ও প্রচুর গোলাবারুদ, সঙ্গে ১২ রাজাকার, একটি মটর লঞ্চ, একটি বিএস রকেট লঞ্চার দখল করে। এক বেলুচ সৈন্য এই অপারেশনের সময় মুক্তিবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী শঙ্করে আক্রমণ করে। ভারী যুদ্ধের পরে তারা এটি দখল করে। হানাদার বাহিনীর ৬ জন নিহত ও বেশ কয়েকজন আহত হয়। তাঁর সাতক্ষীরার দিকে পশ্চাদপসরণ করেন। সর্বশেষ প্রতিবেদন মতে খুলনা জেলার একটি মহকুমা শহর-সাতক্ষীরায় যুদ্ধ অব্যাহত আছে।

 

১৯ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলায় অ্যামবুশে ৩ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। মুক্তিবাহিনী ৩ টি রাইফেল ও জীপ টি দখল করে।

 

২০ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী বাহাদুরাবাদ ঘাটে একটি 3 শ ফুট লম্বা বার্জে হামলা চালায়। এটি যমুনা নদী দিয়ে রেইল ওয়াগন বহন করে।

 

১৭ নভেম্বর দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ৩ টি রাইফেলসহ ৪ জন রাজাকার বন্দী হয়।

 

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৩ নভেম্বর ১৯৭১

 

পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর সব সেক্টরে প্রতিরক্ষা অবস্থান নিয়েছে। এবং মুক্তিবাহিনীর আক্রমণের মুখে তাদের এডভান্সড পজিশন থেকে অপসৃত হয়েছে। গত কয়েক দিনের মধ্যে মুক্তিবাহিনী ৫০০০ বর্গ মাইলের অধিক এলাকা সম্পূর্ণরূপে শত্রু মুক্ত করেছে। খুলনা সেক্টরে মুক্তিবাহিনী গতকাল ভোমরা ও কুলিয়াতে শত্রু অবস্থানের দখল করে। ভয়ে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী সাতক্ষীরা ছেড়ে দেয়। কুলিয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে মুক্তিবাহিনী ১২ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

মুক্তিবাহিনী রংপুর-দিনাজপুর সেক্টরে ভুরুঙ্গামারী দক্ষিণে রায়গঞ্জ দখল করে। এই যুদ্ধে শত্রুদের ১২ জন হতাহত হয়। বীর মুক্তিযোদ্ধারা ৩ টি মেশিন গান, ১১ টি LMG, ৬ টি মর্টার, ৪ টি জীপ, ও প্রচুর গোলাবারুদ জব্দ করে। মুক্তিবাহিনী রংপুর জেলার হাতীবান্ধা মুক্ত করে।

 

২০ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী সিলেট জেলার বালা মুক্ত করে। মুক্তিবাহিনীর ক্রমাগত হয়রানির একই দিনে পাকিস্তানি সেনারা ময়মনসিংহ জেলার আহমেদনগর থেকে নৌকুচি পর্যন্ত নিজেদের প্রত্যাহার করে নেয়। মুক্তিবাহিনী বিজয় পুরে শত্রুসৈন্যদের চারদিক থেকে ঘিরে আছে। জানা যায় যে ১৭ নভেম্বর ণৌকুচিতে আহত পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মেজর রিয়াজ ২১ নভেম্বর হাসপাতালে মারা যান।

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, মুক্তিবাহিনীর নৌ-কমান্ডোরা ৩ নভেম্বর চট্টগ্রাম বন্দরে ১০০০ টনকেরোসিনতেল ও প্রায় ৩০ টন গ্যাসোলিন বহনকারী একটিতেল ট্যাঙ্কার দুনিয়ে দেয়। ইঞ্জিন রুমে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে এটি করা হয়। ট্যাঙ্কার সম্পূর্ণরূপে পোতাশ্রয়ে ডুবে ছিল। 11নভেম্বর ৮ টি রাইফেল (৩০৩) ও ৩০০ রাউন্ড গোলাবারুদেরসহ ১৯ রাজাকার চট্টগ্রাম জেলার মিরেরস এআরএম এ আটক করা হয়। এর আগে ১০ এবং ৩ নভেম্বর বেশ কিছু গোপন আক্রমণের মধ্যে মুক্তি-বাহিনী ৮ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

২১ নভেম্বর সিলেট জেলার সারিঘাট-গোয়াইনঘাট সড়কে একটি পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর জীপ মাইন বিস্ফোরণে বিধ্বস্ত হয়। এতে এক মেজরসহ ৬ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয় এবং গাড়ি টি ক্ষতিগ্রস্ত হয।

 

প্রাপ্ত বিলম্বিত তথ্য মতে, মুক্তিবাহিনী ৮ নভেম্বর পাবনার কালিয়াহাড়িপুরে পাকিস্তানি সেনা অবস্থানে আক্রমণে ৮ শত্রুসৈন্য নিহত ও ২০ টি রাইফেলসহ ২১ জন রাজাকাররা আটক করে।

 

২০ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টরের আলোক দিঘিতে হানাদার সৈন্যদের প্যাট্রোলে অ্যামবুশে ২ শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৩ জন আহত হয়। ১৮ নভেম্বর দখলদার সৈন্যরা আগ্রাপন্ড এলাকায় দিকে অগ্রসর হয় এবং তারা মুক্তিবাহিনীর বাঁধার সম্মুখীন হয়। সম্মুখযুদ্ধে ১০ শত্রুসৈন্য নিহত হয়। আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের এক জন শহীদ হয়। এবং ২ জন ছোটখাট আঘাত পায়।

 

যশোর-কুষ্টিয়া-খুলনা সেক্টর: মুক্তিযোদ্ধারা ১৭ নভেম্বর একটি পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর জীপ মাইন দ্বারা আমবাড়িয়া এলাকায় উড়িয়ে দেয়-এতে ২ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়। একই দিনে খুলনা জেলা মুক্তিবাহিনী সেলুয়া বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। এর আগে ১৪ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী আমবাড়িয়া এলাকায় ৬ পশ্চিম পাকিস্তানী রেঞ্জার হত্যা করে। ১৯ নভেম্বর হানাদার বাহিনী যখন বাগওয়ান থেকে মনিরনগর যাচ্ছিল তখন মুক্তিবাহিনীর দ্বারা আক্রমণের শিকার হয় এবং ৫ জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৭ জন আহত হয়। ১৭ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী খুলনা জেলার ভাতসালা এলাকায় হানাদার বাহিনীর সাথে গুলি বিনিময়ে ২ জন পাকিস্তানি সৈন্য হত্যা করে। ১৬ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী বাগেরহাট এলাকায় ১০ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে। বাকেরগঞ্জ এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর সঙ্গে আরেকটি সংঘর্ষে একই দিনে মুক্তিবাহিনী ৫ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। মুক্তিবাহিনী জগতির কাছে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর জীপে অতর্কিত হামলায় ৪ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। জীপ টি ধ্বংস করা হয়। মুক্তিবাহিনীর আরেকটি গ্রুপ ছিটিপুর থেকে গোয়ালাহাটি সরার পথে ২ জনকে হত্যা করে এবং ৩ শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টর: ২১ নভেম্বর হানাদার বাহিনী মর্টারসহ পূর্ব লিটুরা পৌছায়। মুক্তিবাহিনী তাদের আক্রমণ করে ৪ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। একই দিনে হানাদার বাহিনী একই এলাকায় অন্য মুক্তিবাহিনীকে আক্রমণ করে। মুক্তিবাহিনীর আক্রমণ প্রতিহত করে। এতে ১০ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়হয়। ১৭ নভেম্বর বিলাজপুর এলাকায় পাকিস্তানি সেনাদের ওপর হামলায় ৩ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়। ডাক্তার বাড়ি এলাকায় অতর্কিত হামলায় একই দিনে মুক্তিবাহিনী ৩ জন নিহত এবং ৪ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। ১৮ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী নিশ্চিন্তপুর এলাকায় অতর্কিত আক্রমণে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর ১৫ জন পশ্চিম পাকিস্তানী রেঞ্জার্স এবং ২ রাজাকার হত্যা করে। আমাদের মুক্তিযোদ্ধারাদের ১ জন আহত হয়। ১৭ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী বাদল পুরে পাকিস্তানি বাহিনীর উপর আক্রমণ করে ১৭ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। মুক্তিবাহিনীর এই অপারেশনের সময় ২ টি রাইফেল জব্দ হয়। ১৯ নভেম্বর সিলেট জেলার দখিন গুলে চা বাগানে একটি পাল্টা হামলায় মুক্তিবাহিনী ২০ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৪ নভেম্বর ১৯৭১

 

মুক্তিবাহিনীর নিয়মিত বাংলাদেশের সকল সেক্টরে পাকিস্তানি সেনাদের ওপর তাদের সব ধরনের আক্রমণ ও হামলা চালিয়ে যাচ্ছে।

 

নোয়াখালীর ফেনীতে মুক্তিবাহিনী হানাদার বাহিনীর উপর একটি ভারী হামলা চালায়। বকশিরহাটে এক ব্যাটেলিয়ন পাকসৈন্য মুক্তিবাহিনী ঘিরে ফেলে। এবং সব দিক থেকে আক্রমণ করে। ফলে এই ব্যাটালিয়নের যোগাযোগ সম্পূর্ণরূপে বিচ্ছিন্ন হয়।

 

সিলেট সেক্টরে, মুক্তিবাহিনী আটগ্রাম, রহিমপুর এবং শরিফগঞ্জ মুক্ত করার পর সিলেটের দিকে অগ্রসর হয়। জৈন্তাপুরের দক্ষিণে প্রচণ্ড লড়াই চলছে। জৈন্তাপুরের চারপাশে মুক্তিবাহিনী হানাদার বাহিনীকে ঘিরে ফেলেছে এবং তাদের সব সংযোগ লাইন বন্ধ করা হয়েছে।

 

যশোর সেক্টরে, মুক্তিবাহিনী মহেশপুর থানা মুক্ত করে যশোর ক্যান্টনমেন্টে যাচ্ছে। এদিকে মুক্তিবাহিনী যশোর বিমানঘাঁটির কন্ট্রোল টাওয়ার এর ক্ষতি করে শত্রুর আকাশপথ অচল করে দেয়।

 

ময়মনসিংহ জেলার উত্তরে নিজয়পুরে এবং বোয়াল মারিতে পাকিস্তানি সেনা অবস্থান মুক্তিযোদ্ধারা দখল করে।

 

২২ নভেম্বর হানাদার বাহিনী দিনাজপুরের দক্ষিণে ঘুঘুডাঙ্গাতে মুক্তিবাহিনীর অবস্থানে পাকসেনারা আক্রমণ করে। প্রচণ্ড যুদ্ধ করার পর পাকিস্তানি সেনারা সৈন্য প্রত্যাহার করে নেয়। এতে ৩০ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়। আমাদের সাহসী মুক্তিযোদ্ধাদের ২ জন নিহত হয় ও দুই জন ছোটখাট আহত হয়।

 

২১ নভেম্বর মুক্তিবাহিনীর গেরিলারা দুয়াপারা এলাকায় টহলরত ৫ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

ঢাকা জেলা থেকে সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী, মুক্তিবাহিনীর গেরিলারা মুন্সীগঞ্জ ও পার্শ্ববর্তী এলাকা মুক্ত করেছে। অপারেশন বিবরণ এখনো আসেনি। এর আগে ২০ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী শ্রীপুরের দক্ষিণে পাকিস্তানি অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ৫ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। গত কয়েক দিনে, মুক্তিবাহিনী তাদের অস্ত্রসহ ৮৫ রাজাকার দখল করে নেয়।

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৫ নভেম্বর ১৯৭১

 

 

নোয়াখালী জেলায় মুক্তিবাহিনীর প্রচণ্ড যুদ্ধের পর গত রাতে বকশিরহাট স্বাধীন করে। শত্রুদের ১৫০ জনের বেশি হতাহত হয়। এবং তাদের একটি বড় সংখ্যক সৈন্য বন্দী করা হয়। বাকি রা নিকটবর্তী জঙ্গলে পালিয়ে যায়। পাকসেনাদের একটি সংখ্যা পালানোর সময় গ্রামবাসী তাদের হত্যা করে।

 

মুক্তিবাহিনী কিশোরগঞ্জ শহরে সৈন্যদের বিরুদ্ধে তাদের চরম আক্রমণাত্মক অভিযান অব্যাহত রেখেছে। ফলে শত্রুরা দক্ষিণ পূর্ব ভৈরববাজার ঘাঁটি থেকে এবং ময়মনসিংহের উত্তর পশ্চিম অংশ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। রেললাইনের অপসারণ এবং ময়মনসিংহ জেলা শহরে এবং ভৈরববাজারের একটি গুরুত্বপূর্ণ রেলওয়ে জংশন লিঙ্ক রেল লাইনের রেল ও সড়ক সেতু ও কালভার্ট ধ্বংস করা হয়েছে। কিশোরগঞ্জ ও ময়মনসিংহ সংযোগ সড়ক ধ্বংস করা হয়েছে। ২০ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কিশোরগঞ্জের গচিহাটার কাছে একটি রেলওয়ে সেতু পুনর্নির্মাণের প্রয়াস বানচাল করে দেয়। এর আগে, জগদলপুর এবং গোচিয়াটার মধ্যে ২ মাইল রেললাইনের পাত সরানো হয়েছে। তারা রেল বাঁধ নির্মান করে। পরে তারা কিশোরগঞ্জের থেকে আসা দখলদার বাহিনীর সঙ্গে টায়ার বিনিময় করেন। পড়ে সৈন্যরা পশ্চাত্পদ অবলম্বন করে। এতে বুঝা যায় যে কিশোরগঞ্জ শহর একটি নো ম্যান্স শহরে পরিণত হয়েছে। ১৮ নভেম্বর একটি অভিযানে মুক্তিযোদ্ধারা শহরের সলঙ্গা রাজাকার ক্যাম্পে আক্রমণ করে ৫ জন রাজাকাররা ও রাইফেল দখল করে। ১৪ নভেম্বর পাকিস্তানি সেনাদের ওপর অতর্কিত হামলায় মুক্তিবাহিনী ৬ জনকে হত্যা করে ও কিশোরগঞ্জ থানার রামপুর এলাকায় ৪ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। ২২ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা নালিতাবাড়ী থেকে রাজাকারদের সাফ করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী হানাদার বাহিনী থেকে একটি এলএমজি এবং শ্যামগঞ্জ থেকে ১৩ টি ম্যাগাজিন দখল করে।

 

মুক্তিবাহিনীর আক্রমণাত্মক কার্যক্রম সাতক্ষীরা শহরে চলছিল। মুক্তিযোদ্ধারা মানদরাতে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর ২ টি সাতক্ষীরা শহর ও মাহমুদপুর মধ্যে কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা সেতু ধ্বংস করে। একই দিনে একটি পাকিস্তানি সেনা জীপ যশোর থেকে সাতক্ষীরার পথে পথে ২২ নভেম্বর যশোর-সাতক্ষীরা সড়কে মুক্তিবাহিনীর দ্বারা আক্রান্ত হয়। এতে এক ক্যাপ্টেনসহ ৩ শত্রুসৈন্য নিহত এবং জীপ ধ্বংস করা হয়। সাতক্ষীরা টাউন এখন খুলনা জেলার বাকি অঞ্চল থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।

 

মুক্তিবাহিনী দ্বারা ক্রমাগত হয়রানি হবার কারণে ২২ নভেম্বর হানাদার বাহিনী যশোর জেলার ছুটিপুর ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়। ২১ নভেম্বর মুক্তিবাহিনীর কুষ্টিয়া কাছে পাকিস্তানি সৈন্য ভর্তি ২ টি দেশি নৌকা ডুবিয়ে দেয়। এর আগে ১৭ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী একই এলাকায় ৫ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

২৩ নভেম্বর সিলেট জেলা মুক্তিবাহিনী লুবাছড়া এবং ধাকেরগুল থেকে হানাদার বাহিনীকে তাড়িয়ে দেয়। ২২ নভেম্বরে মুক্তিবাহিনী বিয়ানইবাজার পাকিস্তানি সেনারা অবস্থানে আক্রমণ করে ২ জন হত্যা এবং ৭ শত্রুসৈন্য আহত হয়। প্রচুর অস্ত্র ও গোলাবারুদ জব্দ করা হয়। এর আগে, ১৬ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী বালাগঞ্জ এলাকায় হানাদার বাহিনী বহনকারী ৫ টি দেশি নৌকা ডুবিয়ে দেয়। এতে ৭ পাকিস্তানি সৈন্য ও ১০ রাজাকার নিহত হয়।

 

মুক্তিবাহিনীর ক্রমাগত চচাপে দখলদার বাহিনী ২২ নভেম্বর রংপুর-দিনাজপুর-রাজশাহী সেক্টরের চাকচাঁদি এলাকায় তাদের অবস্থান পরিত্যাগ করে। মুক্তিবাহিনী এই অবস্থানে মর্টার দিয়ে ১০ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী ঘুঘুডাঙ্গা খাল এলাকায় শত্রু আক্রমণ প্রতিহত করে। এতে ৩০ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

ঢাকা থেকে প্রাপ্ত বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনীর কমান্ডোরা ৩ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর জীপে গ্রেনেড ছুড়ে মারে। ফলে ৪ শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৩ জন আহত হয়। নারায়ণগঞ্জের নবীগঞ্জ এলাকায় ৬ টি রাইফেলসহ ১১ জন রাজাকার বন্দী করা হয়। এর আগে ৩০ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধারা রূপগঞ্জ এলাকায় রাজাকারদের থেকে একটি মোটারবোট দখল করে নেয়। এর আগে মুক্তিবাহিনী ঢাকা শহরে পাকিস্তানি সেনাদের ওপর অতর্কিত হামলায় এক কর্মকর্তাসহ ৪ জনকে হত্যা করে ও ৪ শত্রুসৈন্য আহত হয়। মালিবাগ ও কমলাপুর এলাকার কাছে ৪ জনসহযোগী হত্যা করে।

 

২২ নভেম্বর উপর মুক্তিবাহিনীর ময়মনসিংহ জেলার বাজাইপুড়ের কাছে দখলদার সেনাদের জন্য রেশন বহনকারী একটি পাকিস্তানী কলামে অতর্কিত আক্রমণ করে। এতে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর ৫ অনিয়মিত সৈন্য নিহত হয়। ২ নভেম্বর একটি বিলম্বিত রিপোর্ট অনুযায়ী ময়মনসিংহ জেলা মুক্তিযোদ্ধারা ভালুরার কাছাকাছি আমখোলায় রাজাকার সঙ্গে একটি সম্মুখযুদ্ধে ৫ রাজাকার নিহত এবং ২৫ টি রাইফেল জব্দ করে।

 

১৮ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লাগামী নোয়াখালী সেক্টরের রামতলা এলাকায় পাকিস্তানি সেনা ও রাজাকারদের কলাম আক্রমণে ৩ পাকিস্তানি সৈন্য ও ৫ রাজাকার হত্যা করে। একটি বিলম্বিত তথ্য অনুযায়ী একটি বড় যুদ্ধে ৯ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি কাছে পাকিস্তানি সেনাদের মিশ্র কলামে আক্রমণে ৬০ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে এবং ৫০ জন আহত হয়। ২০ জন পাকিস্তানি সৈন্য ও রাইফেলসহ এক রাজাকার বন্দী করা হয়। ১৯ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কুমিল্লার রাজানগরে পাকিস্তানি সেনা ও রাজাকারদের একটি মিশ্র কলাম অ্যামবুশে ২ শত্রুসৈন্য হত্যা করে। মুক্তিযোদ্ধারা ২১ নভেম্বর জগন্নাথ থেকে রাইফেলসহ ৫ রাজাকার বন্দী করে। এবং ২০ নভেম্বর নোয়াখালী জেলার রহিম পুরে ৪৪ টি রাইফেলসহ ৪৭ জন রাজাকারদ আটক করে। মুক্তিযোদ্ধারা কুমিল্লার নতুন বাজার থেকে ২১ নভেম্বর রাইফেলসহ ১৩ জন রাজাকার দখল করে নেয়।

 

22 নভেম্বর মুক্তিবাহিনী নোয়াখালীর দুর্গাপুর এলাকায় পাকিস্তানি সেনা অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ৭ জন হত্যা এবং ১০ শত্রুসৈন্য আহত হয়।

 

চাঁদপুর থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী জানা যায় যে মুক্তিবাহিনীর নৌ-কমান্ডোরা চাঁদপুরের নদী এলাকায় সক্রিয় রয়েছে। চলতি মাসের প্রথম পক্ষকাল সময় নৌ-কমান্ডোরা শত্রুসেনা কর্তৃপক্ষ দ্বারা ব্যবহৃত চারটি কোস্টার নিমগ্ন করে। কোস্টার টি সম্প্রতি চীন সরবরাহ করেছিল। এছাড়া ২ টি মার্চেন্ট কোস্টার এবং বন্দরে বন্দরে যাতায়াতকারী পাকিস্তানি সেনারাদের ঘাঁটি টহলের একটি মার্চেন্ট জাহাজ মেঘনা নদীতে নিমগ্ন করা হয়। জানা গেছে চাঁদপুর পোর্ট রাতে আর কাজ করত না।

 

এই কোস্টার এ একটি বার্জ ডুবিয়ে দেয়া হয়। হানাদার সৈন্য ভর্তি একটি গান বোট ডুবিয়ে দেয়া হয়। মুক্তিযোদ্ধারা ৩ টি দেশী নৌকায় ৩০০ টন সয়াবিনতেল বহন করার সময় সেগুলো দখল করে নেয়। ১ টিতেল ট্যাঙ্কার পাবনা জেলার সিরাজগঞ্জের কাছাকাছি যমুনা নদীতে ডুবিয়ে দেয়া হয়। ৩ নভেম্বর নৌ-কমান্ডোরা কুমিল্লা জেলার মোহনপুর এলাকায় ম্যাটল্যাব বাজারের নিকটবর্তী স্থানে একটি স্টীমার ডুবিয়ে দেয়।

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৬ নভেম্বর ১৯৭১

 

বীর মুক্তিবাহিনী নিয়মিত পাকসেনাদের থেকে বিভিন্ন জায়গা দখল মুক্ত করছিল এবং তাদের পিছু হটতে বাধ্য করছিল। ২৫ নভেম্বর সিলেট জেলার গারা এলাকায় অভিযান চালিয়ে রাধানগর গোয়াইনঘাট মুক্ত করে। এই অভিযানের সময় মুক্তিবাহিনী১০ শত্রুসৈন্য নিহত এবং একটি এলএমজি, একটি টেলিফোন সেট, একটি অতিরিক্ত পিপা ও প্রচুর গোলাবারুদ দখল করে। যশোর শহরের উপকণ্ঠে তুমুল যুদ্ধ চলছে। ময়মনসিংহের কিশোরগঞ্জ মহকুমা শহরে ভারী যুদ্ধ চলছে। কুষ্টিয়া জেলার মুক্তিযোদ্ধারা শহরের দিকে আগাচ্ছে। জানা যায় তারা ইতিমধ্যে মেহেরপুর শহর ঘিরে আছে।

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী ১৯ নভেম্বর কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণবাড়িয়া মহকুমার মুকুন্দপুর রেলস্টেশন আমাদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। অভিযানের সময় মুক্তিবাহিনী ৩১ শত্রুসৈন্য, ২ টি স্টেনগান, ২ টি LMG ও ৩ ইঞ্চি 3 ইঞ্চি মর্টার দখল করে।

 

মুক্তিবাহিনীর অপারেশনের বিবরণ নিচে দেওয়া হল:-

২১ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী মর্টার দিয়ে রাজশাহী জেলার রাজারামপুরে পাকিস্তানি বাহিনীর উপর আক্রমণ করে। এতে এক অফিসারসহ ৯ জন নিহত এবং ১০ জন আহত হয। এছাড়া ৬০ জন আধাসামরিক লোক নিহত এবং তাদের ২০ জন আহত হয়। আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের ২ জন শহিদ হয়। ১৪ টি রাইফেলসহ ১২ জন রাজাকার বন্দী করা হয়। ২৪ নভেম্বর তারিখে পাবনা জেলার পিপুলবাড়ীয়ায় মুক্তিবাহিনী হানাদার বাহিনীর সাথে সংঘর্ষে ২ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে।

 

২৩ নভেম্বর খুলনার এর শ্রীরামপুরের কাছে মর্টার আক্রমণে ৬ জন শত্রুসৈন্য ও কিছু রাজাকার নিহত হয়।

২১ নভেম্বর কুমিল্লা জেলার মুক্তিবাহিনী লক্ষ্মীপুর এলাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর উপর অভিযান চালিয়ে ৭ শত্রুসৈন্য নিহত ও কিছু অস্ত্র ও গোলাবারুদ দখল করে।

 

একই দিনে মুক্তিবাহিনী কাইম্পুর এলাকায় ৬ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী ১৪ নভেম্বর একই জেলার আম্রাতলি এলাকায় ২ পাকিস্তানি সৈন্য হত্যা করে। কুমিল্লার মুক্তিবাহিনীর মইনপুর এলাকায় একটি অভিযানে এক কর্মকর্তাসহ ১৩ জন নিহত ও ১২ জন আহত হয়। তারিখটি ছিল ১৭ নভেম্বর। ১৬ থেকে ১৯ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কাঈম্পূড় এলাকায় সিরিজ হামলায় ৫ জন নিহত এবং ১২ শত্রুসৈন্য আহত হয়। ২১ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কামালপুরে ৫ শত্রুসৈন্য নিহত এবং ২ টি বাংকার ধ্বংস করে।

 

নোয়াখালী জেলায় মুক্তিবাহিনী ২২ নভেম্বর দুর্গাপুর এলাকায় পাকিস্তানি সেনা অবস্থানে আক্রমণ করে ৭ জন হত্যা এবং ১০ শত্রুসৈন্য আহত হয়। ২৪ অক্টোবর কবিরহাট এলাকার কাছাকাছি কলামে মুক্তিবাহিনী অতর্কিত আক্রমণে ১৪ জন নিহত ও ২৭ শত্রুসৈন্য আহত হয়। তারা ২ টি রাইফেল ও কিছু গোলাবারুদ উদ্ধার করে। এর আগে, ২১ অক্টোবর চাপরাশিরহাট এলাকায় পাকিস্তানি সেনাদের ক্যাম্পে অভিযান চালিয়ে ২৬ জন নিহত এবং প্রায় ৬০ জন আহত হয়। আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের ২ জন শহিদ হয়।

 

চট্টগ্রাম জেলায় মুক্তিবাহিনী পার্বত্য অঞ্চলে পাকিস্তানি সেনাদের ওপর অতর্কিত হামলা করে এবং ৫ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। তারা এক পাকিস্তানি সেনাকে বন্দী করে। প্রাপ্ত বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী জানা যায় যে পাকিস্তানি সেনারা রাজাকারসহ ঢাকার কাছে মুড়াপাড়ায় স্পিড বোটে যাবার সময় মুক্তিবাহিনীর অতর্কিত হামলায় ১৮ জন নিহত ও তাদের ১০ জন আহত হয়। মুক্তিবাহিনী ১৩ টি রাইফেল এবং একটি স্টেনগান জব্দ করে।

 

সিলেট জেলায় মুক্তিবাহিনী সিলেটের বিশ্বনাথ সড়কে ১৫ ফুট রাস্তা উড়িয়ে দেয়। এতে সড়ক যোগাযোগ ব্যাহত হয়।

 

অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে মুক্তিযোদ্ধারা ময়মনসিংহ জেলার সরারচর এলাকা থেকে ২৮ টি রাইফেলসহ ৩৫ জন রাজাকার আটক করে।

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৭ নভেম্বর ১৯৭১

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা সব সেক্টরে তাদের আক্রমণাত্মক কার্যক্রম অব্যাহত রাখছিল এবং দখলদার সেনারাদের পিছু হটতে বাধ্য করছিল।

 

নোয়াখালী সেক্টরে মুক্তিবাহিনী ফুলগাজী ও ছাগলনাইয়া মুক্ত করার পর আরও দক্ষিণ পশ্চিমে ফেনী শহরের উপকণ্ঠে ভারী যুদ্ধ চালাচ্ছিল। উত্তরে দিনাজপুর জেলার পঞ্চগড়ে রিইনফোর্সমেন্ট অগ্রসর হবার সময় যুদ্ধ আরও বেড়ে যায়। সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী, মুক্তিবাহিনী গুরুত্তপূর্ণ ঝিকরগাছা এলাকায় তাদের যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে। কার্যত যশোর ক্যান্টনমেন্ট দখল প্রায়।

 

মুক্তিবাহিনী ২৫ নভেম্বর খুলনার জেলার বাসন্তিপুর মুক্ত করে। মুক্তিবাহিনী সিলেট জেলায় আটগ্রাম, রহিমপুর ও জকিগঞ্জ সড়ক বরাবর এলাকা মুক্ত করেছে।

 

২৩ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী গৌরি নগর এলাকায় পাকিস্তানি সেনা অবস্থানের দিকে অগ্রসর হয় ও সৈন্যদের সঙ্গে গোলাগুলি করে। মুক্তিযোদ্ধাদের আগুয়ান ইউনিট প্রতিরোধ করতে না পেরে পাকিস্তানি সেনারা রাজাপুর থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে নেয় এবং মুক্তিবাহিনীর পোস্টে টি দখল করে। রাজাপুর এলাকায় কয়েকটি যুদ্ধের মধ্যে মুক্তিবাহিনী ১১ শত্রু হত্র্যা করে। আমাদের কোন হতাহত হয়নি।

 

২৫ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার মোহনগঞ্জ থানায় পানিহাটা ক্যাম্প ঘিরে ফেলে। সিজ এখনো অব্যাহত রেখেছে।

 

এদিকে মুক্তিবাহিনীর সামুদ্রিক কমান্ডো ৭৫০০ টন COLUMBIA ট্রেডার নামে এক আমেরিকান জাহাজ এবং চালনা পোর্ট এলাকায় এক পাকিস্তানি গানবোট ডিবুয়ে দেয়। ২৪ নভেম্বর রাতে সাহসী নৌ-কমান্ডোরা ময়মনসিংহ জেলার যমুনা নদীর উপর বাহাদুরাবাদ ঘাটে অভিযান চালায়। শেল বিস্ফোরণের ফলে গোলাবারুদ ডাম্প বিস্ফোরণ হয় এবং একটি স্টীমার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পাকিস্তানি সেনারা আরও দক্ষিণে প্যাট্রোল বোটসহ সব জল যান সরিয়ে ফেলে।

 

২৫ নভেম্বর মুক্তিবাহিনীর কুষ্টিয়া জেলার মোহন খালি এলাকায় পাকিস্তানি অনিয়মিত বাহিনীর উপর অতর্কিত আক্রমণ করে। এতে ১২ জন রেন্জার্স নিহত হয় ও ১২ জন আহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী আমান্ডাঙ্গা এলাকায় হানাদার বাহিনীর উপর মর্টার আক্রমণে ২ জন প্রাণনাশ এবং ৪ শত্রুসৈন্য আহত হয়। যশোর জেলার মাগুরা মহকুমার শ্রীপুর থানায় ২৭ রাইফেলসহ এর আগে ২৭ পুলিশ মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে আত্মসমর্পণ করে। ২৫ নভেম্বর ময়মনসিংহ জেলার নেত্রকোনা মহকুমার নাজিরপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে মুক্তিবাহিনী ৩ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। মুক্তিবাহিনী রাজশাহী জেলার গোদাগাইরহাট এলাকায় পাকিস্তানি অবস্থানে আক্রমণ করে এবং ৮ শত্রুসৈন্য নিহত হয়। অন্য অভিযানে একই দিনে

 

ধোবরা এলাকায় মুক্তিবাহিনী ৪ শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। মুক্তিযোদ্ধারা পশ্চিম লালমনিরহাট এলাকায় রেললাইন উড়িয়ে দেয় এবং ট্রেন যোগাযোগের আরও চ্যুতি ঘটে।

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৮ নভেম্বর ১৯৭১

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা সব সেক্টরে তাদের আক্রমণাত্মক কার্যক্রম অব্যাহত রাখছিল এবং দখলদার সেনারাদের পিছু হটতে বাধ্য করছিল।

 

দিনাজপুর জেলার, মুক্তিবাহিনীরা গতরাতে কৌশলগত ভাবে গুরুত্তপূর্ণ থানা পঞ্চগড় থেকে শত্রুদের বিতাড়িত করে। এবং তারা শহরে অবস্থান নিয়েছে। ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় উপর তাদের নিয়ন্ত্রণ সুসংহত করেছে। ২৬ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী একই জেলার ভ্রামপুরা মুক্ত করে।

 

কুষ্টিয়া ও যশোর জেলা-মুক্তিবাহিনী জীবননগর, বাঘাছড়া, শার্শা ও নভারন এলাকায় শত্রুমুক্ত করেছে। যশোর শহর দখল প্রক্রিয়াধীন।

 

খুলনা জেলার, মুক্তিবাহিনীত রাজাপুর, মান্দ্রা, রঘুনাথপুর, গাগ্নি এবং নাবাতকাটি এলাকা থেকে শত্রুসৈন্য বিতাড়িত করে।

সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী, এখনো নোয়াখালীর ফেনী মহকুমা শহরে যুদ্ধ চলছে। ২৫ নভেম্বর কাইম্পুর, ছারুয়া এবং কুমিল্লা জেলার কাশিমপুরে ত্তৎ পাতা সিরিজ বোমায় ৮ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করে। ২৪ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী চাঁদপুর এলাকায় একটি পাক প্যাট্রোল অ্যামবুশে ৩ হানাদার সৈন্য হত্যা করে। ২৩ নভেম্বর চম্পকনগরের দক্ষিণ-পূর্বে একটি পাক প্যাট্রোলে অ্যামবুশ করে দুই শত্রুসৈন্য নিহত এবং ৩ জন আহত হয়।

 

রংপুর জেলায়, জেলার উত্তর অংশে তাদের অবস্থান সংহত করার পর মুক্তিবাহিনীর গেরিলারা শত্রুর যোগাযোগ লাইন ব্যাহত করে। ২৬ নভেম্বর তারা ডোমার এবং চিলহাঁটির মধ্যে একটি রেল সেতু ক্ষতিগ্রস্ত করে। একই এলাকায় তারা অস্ত্রসহ ৩ রাজাকার আটক করে। ২১ নভেম্বর পারলিয়া এবং ভতেমারি র মধ্যে রেল ট্র্যাক সরানো হয়। এর আগে, একই অপারেশন কাকিনাতে করা হয়। তিস্তা এবং মহেন্দ্রনগর, লালমনিরহাট এর আশেপাশে ‘ রেল যোগাযোগ ব্যাহত করা হয়। ২৩ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ফিলিয়া পাকসেনা অবস্থানে অভিযান চালিয়ে ৪ জন সৈন্য হত্যা করে।

 

রাজশাহীতে, মুক্তিবাহিনী নওগাঁর কাছে ২ জনকে হত্যা করে এবং ২০ নভেম্বর ৪ জনকে আহত হয়।

 

ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টরে মুক্তিবাহিনী তিলকপুরের কাছে ১৭ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে ২৪ নভেম্বর। ২৫ নভেম্বর বর্নিতে দুই পাকসেনা নিহত এবং তিনজন আহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী দিসয় এলাকায় পাকসৈন্য ও অনিয়মিত সৈন্যদের আক্রমণ করে তাদের ৩ জন হত্যা করে। ২৩ নভেম্বর গৌরিনগর পাকিস্তানি অবস্থানের ওপর একটি অভিযান চালিয়ে তিন শত্রুসৈন্য ও ২ রাজাকার নিহত করা হয়। মুক্তিবাহিনী দুই টি শত্রু বাংকার ধ্বংস করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী গৌরিনগর থেকে ১ মাইল দূরে ১১ জন শত্রুসৈন্য ও অনিয়মিত সৈন্য হত্যা করে। ২৩ নভেম্বর দুর্গাপুর এলাকায় মুক্তিবাহিনী দুই জনকে প্রাণনাশ এবং এক পাকসেনা আহত হয়। এর আগে ১৮ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ময়মনসিংহ জেলার বকশীগঞ্জের কাছাকাছি মাযেদ্দায় ২ প্লাটুন শত্রু কলাম আক্রমণ করে ১৭ জন নিহত ও ৯ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়। ২৩ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী জামালপুর মহকুমার ইসলামপুরের কাছাকাছি আক্রমণে অস্ত্রসহ ৭ রাজাকার আটক করে। ২২ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী নেত্রকোনা মহকুমা শহরে অভিযান চালিয়ে ৬ অনিয়মিত শত্রুসেনা হত্যা করে। সিলেট জেলায়, মুক্তিবাহিনী বড়লেখার কাছাকাছি এবং লংলা চা বাগান এলাকায় দুটি কৌশলগত সেতু ধ্বংস করে। তারা বালাগঞ্জ এলাকায় একটি খেয়া নৌকা ধ্বংস করে।

 

২৪ নভেম্বর কুষ্টিয়া জেলা মুক্তিবাহিনী মহেশকুন্দি শত্রু পল্টনে অতর্কিত আক্রমণ করে। খুলনা জেলার, মুক্তিবাহিনী সনাবাড়িয়াতে শত্রু অবস্থানে আক্রমণে ২৩ নভেম্বর ৭ শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

স্বাঃ / নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ ফোর্সেস

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২৯ নভেম্বর ১৯৭১

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা সব সেক্টরে তাদের আক্রমণাত্মক কার্যক্রম অব্যাহত রাখছিল এবং দখলদার সেনারাদের পিছু হটতে বাধ্য করছিল।

 

সিলেট জেলায়, মুক্তিবাহিনী গতকাল জৈন্তাপুর এর দক্ষিণ-পশ্চিমে ছোটাখেল মুক্ত করে। বৃহৎ যুদ্ধে পাকিস্তানী সেনাদের প্রচুর হতাহত হয়। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী সিলেট শহর থেকে ১২ মাইল দূরে যুদ্ধ চলছিল। মুক্তিবাহিনী কানাইঘাটে পাকসেনাদের আক্রমণের যোগ্য উত্তর দেয় এবং এখন সেটি মুক্তিবাহিনীর দখলে। এছাড়া মুক্তিবাহিনী রাধানগর মুক্ত করে।

 

২৬ নভেম্বর রাতে, মুক্তিবাহিনী সিলেট জেলার বাদীরটেকাতে পাকিস্তানি অবস্থানে আক্রমণ করে ২৫ জন শত্রুসৈন্যদের হত্যা করে। আমাদের সাহসী মুক্তিযোদ্ধাদের ৩ জন প্রাণ হারায়।

 

যশোর-খুলনা সেক্টরে, মুক্তিবাহিনী সাতক্ষীরা শহরের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে সোনাবাড়িয়া শত্রুমুক্ত করে।

 

২৬ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ধর্মদহার কাছে পাকিস্তানি বাহিনীর উপর অ্যামবুশে ৭ জন পাকিস্তানি সৈন্য হত্যা করে। ২৫ নভেম্বর রাতে মুক্তিবাহিনী কাজিপুর থানায় অভিযান চালিয়ে ১৬ পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ এবং অনিয়মিত শত্রুসেনা হত্যা করে। একই তারিখে মুক্তিবাহিনী যাদবপুর পাকিস্তানি সৈন্যদের উপর অতর্কিত হামলায় ৫ জনকে হত্যা করে ও কিছু অনিয়মিত সৈন্য আহত হয়।

 

ময়মনসিংহ-টাঙ্গাইল সেক্টরে ২৫ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী মধুপুর অঞ্চলের পাকিস্তানি সেনা অবস্থানে আক্রমণ করে ৬ শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

২৬ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ঈশ্বরগঞ্জ থানায় অভিযান চালিয়ে ২ পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ এবং ৩ রাজাকার হত্যা করে।

পাবনা থেকে বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী ১৬ নভেম্বর বাঘাইলের কাছাকাছি আক্রমণ করে ৫০ জনকে হত্যা করে। মুক্তিবাহিনী কিছু অস্ত্র উদ্ধার করে। ১৭ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ঈশ্বরদী থানায় অভিযান চালিয়ে ১১ পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ হত্যা করে। তারা ৮ টি রাইফেল উদ্ধার করে। তারা টেলিফোন এক্সচেঞ্জ এবং শহরে ভিআইপি গেস্ট হাউস ধ্বংস করে।

 

ঢাকা জেলায় মুক্তিবাহিনী ২১ নভেম্বর কাউয়াকইরের কাছে পাকিস্তানি সেনা কনভয় এর উপর অতর্কিত আক্রমণে ৪ জন পাকসেনাকে হত্যা করে। মুক্তিবাহিনী একটি শত্রু জীপ এবং কিছু গোলাবারুদ দখল করে। ১৫ নভেম্বর সকালে শত্রুর সঙ্গে এনকাউন্টারে মুক্তিবাহিনী ৭ জন অনিয়মিত সৈন্য হত্যা করে এবং একই এলাকা থেকে ৬ জন রাজাকার আটক করে। ১৮ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী জয়দেবপুরএর কাছাকাছি ঢাকার ২০ মাইল উত্তরে শত্রু চৌকিতে অতর্কিত আক্রমণে ১০ জন অনিয়মিত শত্রুসৈন্য হত্যা করে।

 

 

স্বাঃ /-নুরুর রহমান,

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

৩০ নভেম্বর ১৯৭১

 

বীর মুক্তিযোদ্ধারা সব সেক্টরে তাদের আক্রমণাত্মক কার্যক্রম অব্যাহত রাখছিল এবং দখলদার সেনারাদের পিছু হটতে বাধ্য করছিল।

 

সিলেট জেলায় মুক্তিবাহিনী সুনামগঞ্জ মহকুমার তাহেরপুর থানার মুক্ত করে। ২৮ নভেম্বর রাতে মুক্তিবাহিনী গৌরিনগর পাকসেনাদের আক্রমণ করে এবং শত্রু দখল থেকে গৌরী নগরের কিছু অংশ দখল করে নেয়। ১২ পাকসেনা অভিযানে নিহত হয়। ২৮ নভেম্বর কানাইঘাটের কাছাকাছি গৌরীপুরে একটি বড় যুদ্ধে একজন কর্মকর্তাসহ 75 জন পাকিস্তানি সৈন্যকে হত্যা করে। 7 পাকসৈন্যকে বন্দী করে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। সিলেট জেলার কানাইঘাট লড়াইয এখনও চলছে।

দিনাজপুর জেলায় মুক্তিবাহিনী পঞ্চগড়ে দক্ষিণে পুতুল্লার দিকে তাদের অবস্থান সংহত করে। রংপুর জেলায় মুক্তিবাহিনী নাগেশ্বরী যাওয়ার পথে পাকিস্তানি সেনার সম্মুখীন হয়। সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী নাগেশ্বরী থানার দুই মাইল উত্তরে একটি জায়গায় যুদ্ধ চলছে।

 

নোয়াখালী জেলায় মুক্তিবাহিনী ফেনীতে তাদের অবস্থান সংহত করার পর এখন শহরের ওপর প্রচণ্ড আক্রমণ শুরু করেছে। সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী, ভারী যুদ্ধ চলছে।

 

যশোরে মুক্তিবাহিনী জেলা হেড কোয়ার্টারের দিকে অগ্রসর হয়। বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী ১৫ নভেম্বর ভারী লড়াইয়ের পর টাঙ্গাইল জেলা শহর মুক্ত হয়েছে। এর আগে 17 নভেম্বর মুক্তিবাহিনী অভিযান চালিয়ে মির্জাপুর থানার মুক্ত করে। একই দিনে মুক্তিবাহিনী মির্জাপুর-টাঙ্গাইল সড়ক ধরে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করে। 12 নভেম্বর থেকে 18 নভেম্বরের মধ্যে মুক্তিযোদ্ধারা ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়কে ছয়টি রাস্তা সেতু ধ্বংস করে সম্পূর্ণরূপে শত্রুর শক্তিবৃদ্ধি লাইন ব্যাহত করে। টাঙ্গাইল শহর দখলের পরে মুক্তিবাহিনী ১৮ নভেম্বর বাসাইল পুলিশ স্টেশন দখল করে। একটি হিংস্র যুদ্ধের মধ্যে দিয়ে মুক্তিবাহিনী 18 জন পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ এবং 30 জন রাজাকার হত্যা করে ও বাসাইল মুক্ত করে। মুক্তিবাহিনী ১৭ নভেম্বর দুই পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর জীপ অতর্কিত আক্রমণে করে যখন তারা ময়মনসিংহ থেকে টাঙ্গাইল যাচ্ছিল। এতে এক কর্মকর্তাসহ আট পাকিস্তানি সৈন্য নিহত হয়। 18 নভেম্বর মুক্তিবাহিনী টাঙ্গাইল জেলার ভূঞাপুরের কাছে মুক্তিবাহিনীর অবস্থানের উপর একটি পাকিস্তানি আক্রমণ প্রতিহত করে। পাকিস্তানি সৈন্যরা পাঁচটি গানবোটে আসে। একটি ভারী যুদ্ধে, মুক্তিবাহিনী 35 শত্রুসৈন্য নিহত ও 50 জন আহত হয়। দুইটি নৌকা ডুবিয়ে দেয়।

 

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টরে, মুক্তিবাহিনী বাড়াগান্দিয়াতে পাকিস্তানি সেনা ও রাজাকারদের ওপর অ্যামবুশে 18 জন নিহত ও 15 জন আহত হয়। 23 নভেম্বর মুক্তিবাহিনী চুয়াডাঙ্গা মহকুমার মধ্যে দামুড়হুদা থানায় অভিযান চালিয়ে 11 পুলিশ সদস্যকে এবং 9 টি রাইফেল দখল করে নেয়। 20 নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা পাকসেনাদের ভাটিয়াপারা এলাকায় আক্রমণে 45 জন হতাহত হয়। তারা 2 টি মোটর লঞ্চ দখল করে নেয়। এক জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হয়। 18 নভেম্বর মুক্তিবাহিনী কালনীতে 7 শত্রুসৈন্য হত্যা করে একটি অ্যামবুশে। মুক্তিবাহিনী 48 টি রাইফেল, 1 টি এলএমজি এবং কিছু গোলাবারুদ উদ্ধার করে। গেরিলাদের একটি গ্রুপ একই এলাকায় 20 নভেম্বর 9 জন পাকসেনা হত্যা করে। মুক্তিবাহিনীর একজন বেসামরিক স্বেচ্ছাসেবক এতে শহীদ হয়। 17 নভেম্বর মুক্তিবাহিনী মিরেপারার কাছে পাক অবস্থানে মর্টার দিয়ে আক্রমণে 12 পাকিস্তানি সেনা হত্যা করে।

 

ময়মনসিংহ সিলেট সেক্টরে, মুক্তিবাহিনী 28 নভেম্বর কুরিখলায় পাক টহলএ অতর্কিত আক্রমণে দুই পাকসেনা এবং 3 রাজাকার হত্যা করে। 27 নভেম্বর পাকসেনারা বর্ণী এবং ডাক্তার বাড়ি এলাকায় মুক্তিবাহিনীর অবস্থানে আক্রমণ করে। মুক্তিযোদ্ধারা এই আক্রমণের জবাব দেন। এতে 3 পাকসৈন্য আহত হয়। একই দিনে মুক্তিবাহিনী বিয়ানীবাজার এলাকার কাছাকাছি হানাদার বাহিনী উপর আক্রমণে এক জনকে হত্যা করে এবং ৬ জনকে বন্দি করে।

 

একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী গফরগাঁও থানার কাছাকাছি আমিতলাতে অভিযান চালায় এবং 68 জন পাকসেনা হতাহত হয়। মুক্তিবাহিনী 25 টি রাইফেল ও প্রচুর গোলাবারুদ উদ্ধার করে। এতে এক জন মুক্তিযোদ্ধা নিহত হয়।

 

ঢাকা-কুমিল্লা সেক্টরে, মুক্তিবাহিনী কৃষ্ণপুর এলাকায় পাক অবস্থানের ওপর মর্টার হামলা করে দুই পাকসেনা নিহত ও দু’জন আহত হয়। এর আগে ২০ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা একই এলাকায় একটি রেল সেতু ভেঙ্গে ফেলে। ১৬ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী সংকলহাইলে পাকসৈন্যদের উপর অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে দুই জন পাকসেনাকে হত্যা করে। এর আগে ১৩ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা গাজীপুর এলাকায় পাকসেনাদের একটি লঞ্চে আক্রমণ করে এক কর্মকর্তাসহ ১৫ জন হত্যা করে এবং ২০ জন আহত হয়। লঞ্চ টি খারাপভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং মুক্তিবাহিনী 5 টি রাইফেল উদ্ধার করে।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

১ ডিসেম্বর ১৯৭১

 

মুক্তিবাহিনীর বিজয় বাংলাদেশের সকল মুখপত্র অপ্রতিহতভাবে অব্যাহত রেখেছে। জানা যায় যে মুক্তিবাহিনী গতরাতে একটি বড় যুদ্ধে সিলেটের দক্ষিণাঞ্চলে কৌশলগত শহর শমশেরনগরএ-আক্রমণ করে। শত্রুরা অপ্রস্তুত ভাবে যুদ্ধে জড়িত হয়। সর্বশেষ রিপোর্ট মতে মুক্তিবাহিনী ইতিমধ্যে শহরে প্রবেশ করেছে এবং আনন্দের সাথে শত্রমুক্ত করছে। স্মরণ করা যেতে পারে শমসেরনগর একটি বিমানবন্দরে রয়েছে। সিলেট ও শমসেরনগরের মধ্যে এবং অন্যান্য জায়গার সঙ্গে 25 মার্চ থেকে রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

 

উত্তর সিলেটে মুক্তিবাহিনী উত্তর-পূর্ব দিকে টেংরাটিলা, সুনামগঞ্জ শহরের পূর্ব দিকে দঊরাবাজার মুক্ত করে। জানা যায় যে মুক্তিযোদ্ধাদের ক্রমাগত আক্রমণে জেলার গারা, সেমুতানা, কারণি, আলিরগাও এবং পিরিজপুর এলাকা থেকে পাকসেনারা নিজেদের প্রত্যাহার করে নিয়েছেন এবিং গোলাবারুদ, কাপড়, ব্যাগএবং কিছু কাগজপত্র ফেলে গেছে। মুক্তিবাহিন সুলতানপুর এবং এরুখালি ও দখল করেছ।

 

ময়মনসিংহ জেলার কামালপুর এলাকায় যুদ্ধ চলছে। মুক্তিবাহিনী দিনাজপুর ও যশোর সেক্টর থেকে আরও অগ্রগামী হয়। প্রতিবেদন অনুযায়ী নোয়াখালীর ফেনী শহরে এখনো যুদ্ধ চলছে।

 

29 নভেম্বর মুক্তিবাহিনী, ময়মনসিংহ জেলার বারখালি এলাকায় হানাদার বাহিনীর একটি কলামের উপর আক্রমণ করে 12 জন পাকিস্তানি সেনা হত্যা করে। এই অপারেশনের সময় আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের 2 জন শহীদ হন। এছাড়াও ১৮ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী একই এলাকায় একটি সড়ক সেতু ধ্বংস করে।

 

হুসেইনপুর এলাকায় রাইফেলসহ 14 রাজাকার আটক করে। 11 নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা হুসেইনপুর থানার 15 পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ এবং 25 অনিয়মিত সৈন্য হত্যা করে। তারা 77 টি রাইফেল, 2 টি বন্দুক ও কিছু গোলাবারুদ দখল করে। এই অভিযানে আমাদের ৪ জন সাহসী মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হয়। এবং 4 জন আহত হয়। নভেম্বর প্রথম সপ্তাহে মুক্তিযোদ্ধারা গফরগাঁওের কাছাকাছি দত্তেরবাজার রেন্জার্স সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়ে 12 জন রেন্জার্স এবং 11 জন রাজাকার হত্যা করে। তারা 14 টি রাইফেল দখল করে নেয়। এই অপারেশনে আমাদের ২ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হয়।

 

ময়মনসিংহ জেলার বোয়ালিয়ায় মুক্তিবাহিনী ১২ নভেম্বর অ্যামবুশে 15 জন দখলদার সৈন্য হত্যা করে। তারা ১৪ নভেম্বর ধামসুর এলাকায় 6 পাকিস্তানি সৈন্য ও নয়জন রাজাকার হত্যা করে।

 

২৬ নভেম্বর সিলেট জেলায় দাকাদক্ষিন একালায় মুক্তিবাহিনী একটি ট্যাঙ্ক মাইন বিস্ফোরণে ধ্বংস করে।

 

চট্টগ্রাম জেলার মুক্তিবাহিনী ফেনুয়া ও হালদা চা বাগানে 17 নভেম্বর 5 জন সেনা হত্যা ও 4 পাকিস্তানি সৈন্য আহত হয়। তারা কিছু গোলাবারুদ ও একটি রাইফেল দখল করে নেয়। বীর মুক্তিযোদ্ধারা 20 নভেম্বর রাজঘাট চা বাগান থেকে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীরসহযোগীদের তাড়িয়ে দেয় এবং চা কারখানার কাজ বন্ধ করে দেয়।

 

মুক্তিযোদ্ধারা 17 নভেম্বর ফটিকছড়ি থানার সার্কেল অফিস অভিযান চালিয়ে 11 পুলিশকে আটক করে। তারা থানা ও সার্কেল অফিসে বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন। এই অভিযানের সময় মুক্তিযোদ্ধারা 6 টি রাইফেল, একটি এলএমজি, একটি স্টেনগান ও প্রচুর গোলাবারুদ দখল করে। মুক্তিযোদ্ধারা এই সময়কালে চট্টগ্রাম ও ফেনী এলাকায় রেল ট্র্যাক মুছে ফেলে, রেল সেতু ও কালভার্ট ধ্বংস করে এবং রেল যোগাযোগ ব্যাহত করে।

কুষ্টিয়া-যশোর-খুলনা সেক্টরে মুক্তিবাহিনী 27 নভেম্বর আব্দারহাট এলাকায় পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর প্যাট্রোলে অতর্কিত হামলা করে 7 জনের প্রাণনাশ এবং 2 শত্রুসৈন্য আহত হয়। 21 নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা সন্তোষপুর এলাকায় 3 টি রাইফেলসহ 9 পাকিস্তানি পুলিশ আটক করে।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা

বাংলাদেশ বাহিনী।

 

বাংলাদেশ বাহিনীর দপ্তর, মুজিবনগর

জনসংযোগ বিভাগ

যুদ্ধ বুলেটিন

২ ডিসেম্বর ১৯৭১

 

মুক্তিবাহিনী ধারাবাহিক বিজয়ী অব্যাহত রাখে-আরো নতুন স্থান দখল করতে থাকে এবং বাংলাদেশে পাকিস্তানি সেনাদের উপর প্রবল চাপ চলমান থাকে।

 

দিনাজপুর জেলার মুক্তিবাহিনীর পাচগরেরে ১০ মাইল দক্ষিণে বোদা থানার হেডকোয়ার্টার শত্রুমুক্ত করে এবং এখন ঠাকুরগাঁওয়ের দিকে অগ্রসর হয়।

 

রংপুর জেলার মুক্তিবাহিনী নাগেশ্বরী থানা শত্রুমুক্ত করে এবং আরও দক্ষিণে এগিয়ে যায়। মুক্তিযোদ্ধারা ভারলা নদীর উত্তরে এখন প্রায় পুরো এলাকায় তাদের অবস্থান সুদৃঢ় করেছে।

 

কুষ্টিয়ায় মুক্তিবাহিনী জীবননগরের উত্তরপূর্বে আন্দুল্বেড়িয়া গ্রাম স্বাধীন করে। জানা যায় যে মুক্তিবাহিনীর ভারী চাপের কারণে শত্রুরা ৯ম বিভাগীয় হেডকোয়ার্টার যশোরের থেকে মাগুরায় শিফট করে।

 

ময়মনসিংহে মুক্তিবাহিনী কামালপুরে শত্রু পোস্ট চারদিক দিয়ে ঘিরে ফেলেছে এবং শত্রুর সমস্ত যোগাযোগ লাইন ধ্বংস করেছে। কামালপুরের পতন অতি আসন্ন।

 

সিলেট জেলার মুক্তিবাহিনী বিমানবন্দর এবং শমসেরনগর ও তার পার্শ্ববর্তী এলাকায় অবস্থান সংহত করছে।

চট্টগ্রাম জেলার মুক্তিবাহিনীর গেরিলারা উত্তরে ও চট্টগ্রামের দক্ষিণে আনোয়ারাতে ফটিকছড়ি ও রাউজান থানার অধিকাংশ এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। মুক্তিবাহিনীর পটিয়া থানা ও হাতিয়া দ্বীপের প্রধান অংশে প্রাধান্য বজায় রেখেছে। সর্বশেষ রিপোর্ট মতে সীতাকুণ্ড ও মিরেশ্বরাই নিয়ন্ত্রণের জন্য যুদ্ধ চলছে। মুক্তিবাহিনীর রাঙ্গামাটির কাছে তাদের অবস্থানে প্রতিষ্ঠিত করে ফেলছে।

ময়মনসিংহ জেলার মুক্তিবাহিনী ২৪ নভেম্বর গোপালপুর এ পাকসেনাদের আক্রমণের জবাব দিচ্ছে এত ১৫ জন শত্রুসৈন্য নিহত হয়।

একই দিনে মুক্তিবাহিনী বিরিশিরি বিজয় পুর থেকে সরার সময় আক্রমণ করে ৫ জন শত্রুসেনা হত্যা করে। ২৯ নভেম্বর নালিতাবাড়ী এলাকায় ২১ টি রাইফেলসহ ২১ জন রাজাকার আটক করা হয়।

২৫ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী জামালপুর-ইসলামপুর লাইনে অভিযান চালিয়ে ২ পাকিস্তানি সৈন্যকে হত্যা করে। তারা ৮টি রাইফেল ও কিছু গোলাবারুদসহ ৮ জন রাজাকার আটক করে।

২৬ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী ভালুকা এলাকায় ৩ পাকিস্তানি সেনা ও ৪ জন রাজাকাররা হত্যা করে।

২৯ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী নেত্রকোনা মহকুমা শহরে থানায় অভিযান চালিয়ে ৬ জন পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশ হত্যা করে।

২৮ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা বারহাট্টা থানায় অভিযান চালিয়ে ১০ জন অনিয়মিত শত্রুসৈন্য হত্যা করে। এর আগে ২১ নভেম্বর মুক্তিবাহিনী নেত্রকোনার কাছাকাছি রেলওয়ে ক্রসিং এ পশ্চিম পাকিস্তানী রেঞ্জার্স ও রাজাকারদের আক্রমণ করে ৩ রেন্জার্স এবং ৫ জন রাজাকার হত্যা করে। আরেকটি অভিযানে একই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা নেত্রকোনার এসডিওর বাসায় পাহারারত ৭ জন রেন্জার্স এবং ১২ জন রাজাকারকে হত্যা করে।

২৮ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা মুন্সীবাজারে একটি পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর গাড়ি ধ্বংস করে। ২৭ নভেম্বর দখলদার বাহিনী ময়মনসিংহ-সিলেট সেক্টরের কালশনারচর এলাকায় মুক্তিবাহিনীকে আক্রমণ করে। বীরত্বপূর্ণ যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধারা ৮ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে আক্রমণ প্রতিহত করে। প্রতিহিংসামূলকভাবে পাকিস্তান বিমানবাহিনী এলাকায় বোমাবর্ষণ এবং বেসামরিকদের উপর অনেক অত্যাচার ও হতাহত সঙ্ঘটিত করে।

বগুড়া জেলার মুক্তিযোদ্ধারা ২৩ তারিখ সারিয়াকান্দি থানায় অভিযান চালায় ও কমান্ডিং অফিসারসহ ২২ জন পশ্চিম পাকিস্তানী পুলিশকে হত্যা এবং তাদের ২ জনকে আটক করে। তারা ৮ টি রাইফেল উদ্ধার করে।

২৪ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা রংপুর জেলার শাঁখাটা থানা আক্রমণে একজন কমান্ডিং অফিসারসহ ১০ পুলিশ এবং ২ টি রাইফেল এবং একটি স্টেনগানসহ ৩২ জন রাজাকার আটক করে। মুক্তিযোদ্ধারা লালমনিরহাট হানাদার সৈন্যদের একটি ঘাঁটির যোগাযোগ সম্পূর্ণ বিঘ্নিত করে।

২৬ নভেম্বর রাতে মুক্তিযোদ্ধারা মঘলাঘাট ও লালমনিরহাটে রেল ট্র্যাক সরিয়ে ফেলে।

২৮ নভেম্বর তারা অদিত্মারির পূর্বে কাছাকাছি এলাকায় রেললাইন উড়িয়ে দেয়। একই দিনে তারা লালমনিরহাটের পশ্চিমে কাকিনার কাছাকাছি দামাগিয়া রেললাইন ধ্বংস করে।

২৪ নভেম্বর রাতে মুক্তিযোদ্ধারা কাকিনার টেলি-যোগাযোগ ধ্বংস করে।

রাজশাহী জেলার মুক্তিযোদ্ধারা ২৭ নভেম্বর চারঘাট ও সারদার মধ্যে টেলি-যোগাযোগ ব্যাহত করে।

১৯ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা বগুড়া-গাইবান্ধার মধ্যে সিঙরা রেল সেতুতে অভিযান চালায় ব্রিজ পাহারারত রাজাকারদের হত্যা করে। ১০ টি রাইফেল দখল করে।

২৭ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা যশোর জেলার মুন্সীগঞ্জের কাছে রাইফেলসহ ৪ জন রাজাকার আটক করে।

কুমিল্লা জেলায় ২৩ নভেম্বর জাম্বাড়ি এলাকায় মুক্তিযোদ্ধারা ৫ জন শত্রুসৈন্য হত্যা করে ও ২ জন শত্রুসৈন্য আহত হয়।

২০ নভেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা রিশিমুখ এলাকায় ৩ টি রাইফেলসহ ৭ জন রাজাকার ও কিছু গোলাবারুদ দখল করে করে। একটি বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী চাপিতালা এলাকায় হানাদার বাহিনী উপর অভিযান চালায়। এই অভিযানে ২ কর্মকর্তাসহ ১৫ জন শত্রুসৈন্য নিহত এবং ২০ জন আহত হয়।

বিলম্বিত প্রতিবেদন অনুযায়ী মুক্তিবাহিনী গেরিলারা উজিরপুর ও মুলাদী সদর মহকুমা ও লালমোহন, চরফ্যাশন, ভোলা মহকুমা এবং স্বরূপকাঠি এর বোরহানুদ্দিন থানা শহর ও পিরোজপুর মহকুমার বানারিপারাসহ বরিশাল জেলার বিশাল এলাকা নিবিড় অপারেশন চালিয়েছে। এই অপারেশনের সময়, মুক্তিবাহিনী ২১ পাকিস্তানি সৈন্য ও ১১৫ জন অনিয়মিত শত্রুসৈন্য হত্যা করে। মুক্তিবাহিনী ৬০ টি রাইফেলসহ প্রচুর অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করে। তারা বিভিন্ন শত্রু গানবোট, তিনটি লঞ্চ ও দুই টি বার্জ ধ্বংস করে। এই এলাকার বেশীর ভাগ অংশ এখন মুক্তিবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে।

 

স্বাঃ /-নজরুল ইসলাম

জনসংযোগ কর্মকর্তা