বাঙ্গালী রাজাকার ও বদরবাহিনীর প্রতি মুক্তিযোদ্ধাদের আহবান

Posted on Posted in 11
শিরোনামউৎসতারিখ
৬৮। বাঙালী রাজাকার ও বদর বাহিনীর প্রতি মুক্তিযোদ্ধাদের আহ্বান।৬ নং সেক্টরের দলিলপত্র১৯৭১

 

কম্পাইল্ড বাই – রানা আমজাদ

<১১, ৬৮, ৫২৯>

 

বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধাদের তরফ থেকে

রাজাকার ও বদর বাহিনী বাঙ্গালীদের প্রতিঃ

 

সমগ্র বাঙ্গালী জাতি আজ মুক্তি সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েছে। ঘৃণ্য পশ্চিম পাকিস্তানী দখলদার সেনাবাহিনীকে সম্পূর্ণ পরাজিত নিশ্চিহ্ন করে মুক্ত করতে হবে সোনার বাংলাদেশ। তোমাদের চোখের সামনে তোমাদের ভাই, বন্ধু আত্মীয়-স্বজনকে হত্যা করেছে বিজাতীয় পাক সেনারা, বাঙ্গালী মা বোনদের উপরে এ সকল দস্যুরা করেছে পাশবিক নির্মম অত্যাচার, শহরে ও গ্রামের রাস্তায় রাস্তায় স্তূপীকৃত হয়েছে বাঙ্গালীর মৃতদেহ। ভাইসব বাঙ্গালী হয়ে দেশের ও জাতির এই সংকটময় মুহূর্তে তোমরা যোগ দিয়েছ বাঙ্গালীর বিরুদ্ধে বিদেশি শোষক শাসক গোষ্ঠীর সাথে। শত্রুর পুতুল সেনা হয়ে নিজের জাতির এবং নিজের ভাই-বোনদের উপর নির্যাতন মুখ বুজে মেনে নিতে এবং অন্যায় কার্যে শত্রুর সহায়তা করতে তোমাদের কি লজ্জা করেনা?

 

পাকসেনারা তাদের সাম্রাজ্যবাদী শাসন বজায় রাখার জন্য তোমাদের বলির পাঁঠা বানিয়েছে। তোমরা জীবনের বিনিময়ে তুমি তোমার আত্মীয় স্বজন ও স্বদেশবাসির নিকট পাবে ধিক্কার অপমান ও লাঞ্ছনা। তোমরা আমাদের ভাই , আমাদের জাতীয় স্বার্থ অভিন্ন। স্বেচ্ছায় তোমাদের অনেকেই হয়ত রাজাকার বা বদর হয়ে বাঙ্গালীর বিরুদ্ধে অস্ত্রধারণ করনি। অবস্থার চাপে পড়েই হয়ত করতে হয়েছে।

 

তোমাদের নিকট একান্ত অনুরোধ, তোমরা শত্রুর চক্রান্ত বানচাল করে দাও। তোমাদের অশ্ত্রশস্ত্র সঙ্গে নিয়ে নির্ভয়ে মুক্তিবাহিনীর নিকটস্থ শিবিরে চলে এসো। এ’পর্যন্ত রাজাকার ও বদর বাহিনীর বহু বাঙ্গালী যুবক মুক্তিবাহিনীর নিকট আত্মসমর্পণ করেছে। তারা প্রত্যেকে পেয়েছে ক্ষমা এবং তারা অনেকে আজ মুক্তিবাহিনীর বীর সৈনিক। তোমরাও মুক্তিবাহিনীতে যোগ দিয়ে দেশের ও জনসাধারণের সেবা করে তোমাদের জীবন ধন্য কর। প্রতি সপ্তাহে দুই শতাধিক রাজাকার ও বদর অনর্থক প্রাণ হারাচ্ছে মুক্তিফৌজের হাতে শুধু এই রণাঙ্গনে। পেশাদার ঝানু দালালদের আমরা ক্ষমা করি না, কিন্তু সে সময় বাঙ্গালী যুবক অবস্থার চাপে পড়ে বা ভুলবশতঃ শত্রুর চক্রান্তে পড়ে রাজাকার ও বদর দলে যোগ দিয়েছে তারা আমাদের কাছে চলে এলে পাবে ক্ষমা, বিশ্বাস, উপযুক্ত সম্মান ও স্নেহ।

 

জয় আমাদের অনিবার্য্য। বাংলাদেশের সকল জনসাধারণ, সকল দেশপ্রেমিক ও সকল চিন্তাশীল নাগরিক আমাদের পক্ষে। বিশ্বের সকল সৎ ও ন্যায়বান মানুষ আমাদের পক্ষে, কারণ আমাদের সংগ্রাম ন্যায়ের সংগ্রাম, মুক্তি সংগ্রাম ও অন্যায়ের বিরুদ্ধে নির্যাতিতের সংগ্রাম। পরম করুণাময় আল্লাহতায়ালা ন্যায়ের সংগ্রামে তিনিই আমাদের সহায়ক। লক্ষ লক্ষ শহীদের শক্তি আমাদের সহায়ক।

 

ইনশাআল্লাহ, বাঙ্গালী জাতি অচিরেই গৌরবের অধিকারী হবে। জয় বাংলা।*

 

 

 

*প্রচার পত্রটি হাতে লেখা ও সাইক্লোস্টাইলকৃত।