বৃটিশ ত্রাণতৎপরতা সম্পর্কে পররাষ্ট্র সচিবের বক্তব্য

Posted on Posted in 13
শিরোনামসুত্রতারিখ
বৃটিশ ত্রান তৎপরতা সম্পর্কে পররাষ্ট্র সচিবের বক্তব্যকমনস সভার কার্যবিবরনী১৮ই অক্টোবর,১৯৭১

 

যুক্ত রাজ্যের হাউস ওফ কমন্সে  পররাষ্ট্র ও কমনওয়েলথ সচিব, স্যার এলেক ডগলাস হিউমের বিবৃতি

১৮ই অক্টোবর,১৯৭১

মি. করম্যাক পররাষ্ট্র ও কমনওয়েলথ সচিবকে তৎকালীন সময়ে পূর্ব পাকিস্তানের শরণারথীদের জন্য সরকার কর্তৃক কৃত সহযোগীতা্র ব্যাপারে জিজ্ঞেস করেন ।

স্যার এলেস ডগলাস হিউম- পূর্ব পাকিস্তানের সাথে পাকিস্তান সরকার ও জনগনের রাজনৈতিক মীমাংসার দ্বায়িত্বের ব্যাপারে আমি বার বার বলেছিলাম। প্রকৃতপক্ষে মানবিকতার ক্ষেত্রগুলই আন্তর্জাতিক চাপা উদ্বেগের মূল কারন, এবং উ থান্ট এর বর্তমান আবেদন এবং ১১ই অক্টোবরের যুবরাজ সাদরুদ্দিন খানের আবেদন এর প্রেক্ষিতে আমি সন্তুষ্টি জ্ঞাপন করছি যে, গভর্নমেন্ট ভারতে শরণার্থী দের জন্য ৭.৫ মিলিয়ন পাউন্ড এবং পূণরায় পূর্ব পাকিস্তানের জন্য ১ মিলিয়ন পাউন্ড ত্রাণের ব্যবস্থা করা হয়েছে ।

এতে আমাদের পক্ষ থেকে সর্বমোট ১৪,৭৫০,০০০ পাউন্ড শরণার্থীদের ত্রাণের জন্য এবং ২ মিলিয়ন পাউন্ড পূর্ব  পাকিস্তানের সাহায্যের জন্য দেয়া হয় । আমি আশা করব অন্যান্য দেশ গুলোও উ থন্ট এর এই আবেদনে মহত্বের পরিচয় দিবে।

মিঃ প্রিন্টিস – পররাষ্ট্র সচিব কি সম্ভাব্য ব্যয়ের হিসাবের সঙ্গে সম্মত হবে যে শরণার্থীদের জীবিত রাখার জন্য প্রতিদিন ১ মিলিয়ন পাউন্ডের চেয়েও বেশি খরচ হচ্ছে এবং যতটা সাহায্য বাইরের দেশ থেকে এসেছে গত ছয় মাসের খরচ তার দ্বিগুণের চেয়েও বেশি হয়েছে।

অদূর ভবিষ্যতে ব্রিটেন ও অন্যান্য দেশ থেকে এর চেয়ে আরও বৃহত্তর পরিসংখ্যান প্রয়োজন হতে যাচ্ছে ।  

স্যার এলেস ডগলাস হিউম- আমরা আমাদের মতো যথাসাধ্য করে যাবো কিন্তু আমি মনে করি অন্যান্য দেশের প্রচেষ্টা ও আমাদের প্রচেষ্টার সাথে যেন মিলে ।