সিনেট কর্তৃক পাকিস্তানে সাহায্য বন্ধের প্রস্তাব

Posted on Posted in 14
শিরোনামসূত্রতারিখ
৯২। সিনেট কতৃক পাকিস্তানে সাহায্য বন্ধের প্রস্তাববাল্টিমোর সান১৫ অক্টোবর, ১৯৭১

 

Zulkar Nain

<১৪, ৯২, ২২৪২২৫>

 

বাল্টিমোর সান, ১৫ অক্টোবর, ১৯৭১

সিনেট কতৃক পাকিস্তানে সাহায্য বন্ধের প্রস্তাব

 

 

ওয়াশিংটন – সব জায়গায় প্রেসিডেন্ট নিক্সনের বৈদেশিক সাহায্যের অনুরোধ থেকে মিলিয়ন ডলার বাদ দিয়ে, গতকাল সিনেট ফরেন রিলেশনস কমিটি পাকিস্তানকে সব ধরনের সহায়তা প্রদান স্থগিত রাখতে সম্মত হয়েছে।

 

ইসরাইলের জন্য একটি বিশেষ ৮৫ মিলিয়ন ডলারের সাহায্য তহবিল কমিটির নজরে এসেছে। কিন্তু যুদ্ধ সংশোধনী সমাপ্তির উপর আগামী সপ্তাহে সংসদে মতপ্রদান পর্যন্ত ৩৫ বিলিয়ন ডলার অনুমোদন আইনের চূড়ান্ত কাজ স্থগিত রাখা হয়েছে।

 

স্বতন্ত্র সদস্যরা সাংবাদিকদের কাছে তথ্য দিয়েছেন। কিন্তু সিনেটর জে ডব্লিউ ফুলব্রাইট (ডি. আর্ক), চেয়ারম্যান, এবং কমিটি সহযোগীরা একটি চূড়ান্ত অধিবেশন না হওয়া পর্যন্ত সঠিক পরিমাণ নিশ্চিত করতে অস্বীকার করেছেন, যেটা পরের সপ্তাহে কোন একসময় হতে পারে।

 

সিনেটরদের সম্পৃক্ততা থাকায় কমিটি সকল ক্ষেত্র তথা সামরিক সহায়তা প্রোগ্রাম, উন্নয়ন ঋণ ও সমর্থন সহায়তায় ২০ শতাংশ বাদ দেয়ার জন্য ভোট দেয়।

 

সিনেটর ইয়াকুব জাভিটস (আরএনওয়াই) প্রতিবেদন করেন, কমিটি তার নিজস্ব সাধারন ভাগের পর ইসরাইলের জন্য ৮৫ মিলিয়ন ডলার সমর্থন সহায়তা ঋণ যোগ করে।

 

তিনি এবং সিনেটর ফ্রাঙ্ক চার্চ (ডি ইডাহো) বলেন, অগ্রগতির লক্ষ্যে মিত্রতার জন্য লাতিন আমেরিকায় ১৫ শতাংশ তহবিল হ্রাসেও কমিটি ভোট দেয়।

 

চার্চ বলেন, যতক্ষণ না প্রেসিডেন্ট কংগ্রেসে এই মর্মে প্রত্যায়ন করছেন যে, পাকিস্তান ভারতীয় উপমহাদেশে শান্তি স্থাপন এবং ভারত থেকে শরনার্থীদের পূর্ব পাকিস্তানে তাদের দেশে শান্তিপূর্নভাবে ফিরে যেতে সহযোগিতা করছে, ততক্ষন পাকিস্তানকে সর্বপ্রকার সামরিক, অর্থনৈতিক, অনুদান, ঋণ ও বিক্রয়োত্তর সাহায্য প্রদান বন্ধ রাখার বিধান করা হোক।

 

জনাব চার্চ বলেন, কেটে নেওয়া অর্থ পাকিস্তান পাইপলাইনের সাহায্যার্থে প্রযোজ্য হবে পাশাপাশি ভবিষ্যতের জন্য বরাদ্দ থাকবে।

 

পাকিস্তানি সাহায্যের ১১৮ মিলিয়ন ডলার অর্থনৈতিক উন্নয়ন সহায়তা কর্মসূচির জন্য এবং ৫ মিলিয়ন ডলার অস্ত্রের জন্য।

 

কম্বোডিয়ার সহয়তায় সর্বোচ্চসীমা বেধে দিতে কমিটি মত প্রদানের একদিন পর ভোট হয়, রাষ্ট্রবিভাগ বলেন এমন পদক্ষেপ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার জাতিদের নিজেদের রক্ষায় সত্যিকার অর্থে হুমকি হতে পারে।

 

ধারাবাহিক সমভোট

 

কার্যক্রম কমানোর প্রচেষ্টার পর, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কতৃক অন্যজাতিদের সামরিক সাহায্য ৭০৫ মিলিয়ন ডলার থেকে ৫৬৫ মিলিয়ন ডলারে কমিয়ে নিতে কালকের কর্মসূচি ৬-৬ ধারাবাহিক সমভোটে পরাজিত হয়ে পুনরায় ব্যর্থ হয়।

 

টাইব্রেকার সিনেটর ক্লিফোর্ড কেস (আরএনজে) বলেন, এই টাকা কেটে নেওয়াতে প্রকৃতপক্ষে লোভীদের বিজয় সূচিত হয়েছে।

 

“সেখানে এমনও মানুষ আছেন যারা আরও বেশি টাকা কাটতে চেয়েছিলেন”, জনাব কেস বলেন।

 

“আমি মনে করি দেশের অনুভুতিতে এটা একটা সহনীয় প্রতিক্রিয়া প্রদর্শন করে, যা সারা পৃথিবীতে খুব বেশী কিছু করার চেষ্টা করতেছিল”, জনাব কেস বলেন।

 

শতাংশ কেটে নেওয়া বিদেশী সুবিধাভোগীদের তালিকায় কোথায় হ্রাস করতে হবে সে ব্যাপারে পেন্টাগনকে সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করবে।

 

ব্যতিক্রম হবে শুধুমাত্র নির্দিষ্ট কিছু হ্রাসের ক্ষেত্রে যা পূর্বে কমিটি কতৃক নির্ধারিত হয়েছে।

 

রাষ্ট্র বিভাগের প্রেস অফিসার, রবার্ট জে ম্যাকক্লোস্কি বলেন, কংগ্রেস অনুসারে সাহায্য তহবিল অথবা কম্বোডিয়ায় আমেরিকান কর্মকর্তার সংখ্যা উপর আরোপিত সর্বোচ্চসীমায় প্রশাসনের মাথা ঘামানো উচিত নয়।

 

বুধবার কম্বোডিয়াকে এই অর্থবছরে দেওয়া ২৫০ মিলিয়ন ডলার সামরিক ও অর্থনৈতিক সাহায্য সংক্রান্ত কমিটির মতপ্রদানে সমভোট প্রতিক্রিয়া ছিল।

 

কম্বোডিয়ায় আমেরিকান বেসামরিক এবং সামরিক ব্যক্তিদের সংখ্যাসীমা ২০০ করার পক্ষে ভোট দিয়েছে কমিটি।

 

কমিটিতে ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্র সচিব কতৃক বুধবার পাঠানো একটি চিঠির উল্লেখ করে, জন আরউইন ও জনাব ম্যাকক্লোস্কি বলেন, প্রশাসনের মতানুযায়ী ন্যূনতম ৩৩০ মিলিয়ন ডলার সাহায্যের প্রয়োজন।

 

জনাব ম্যাকক্লোস্কি বলেন, “কাম্বোডিয়ার স্বাধীনতা সুসংহত করতে এই পরিমাণ সাহায্য অপরিহার্য”।

 

জনাব ম্যাকক্লোস্কি বলেন, জরুরী অবস্থায় প্রয়োজনে আরো সাহায্য প্রদানে প্রেসিডেন্ট হিসেবে তার কর্তৃত্ব বজায় থাকা আবশ্যক, জনাব আরউইন এ ব্যাপারে তার চিঠিতে তুলে ধরেছেন।

 

পেন্টাগন সর্বমোট ৪৬টি দেশের কাছে সামরিক সাহায্য তহবিলের জন্য অনুমোদন চেয়েছে।