১৪৬. ২১ সেপ্টেম্বর মাতৃভূমির বক্তব্য পেশের জন্য বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নিউইয়র্ক যাত্রা

Posted on Posted in 6

দীপংকর ঘোষ দ্বীপ

<৬,১৪৬,২৩৭-২৩৮>

সংবাদপত্রঃ বাংলার বাণী মুজিব নগর-৪র্থ সংখ্যা

তারিখঃ ২১ সেপ্টেম্বর, ১৯৭১

                                  আজ জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের বৈঠক

                                  মাতৃভূমির বক্তব্য পেশের জন্য বাংলাদেশ

                                        প্রতিনিধিদলের নিউইয়র্ক যাত্রা

                                          ( কুটনৈতিক সংবাদদাতা )

       বিংশ শতাব্দীর অপরাজেয় জাতীয়তাবাদী গণশক্তির আত্মপ্রতিষ্ঠার দুর্জয় সংগ্রামের নির্ভীক সিপাহশালার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে জাতীয় মুক্তিযুদ্ধ লিপ্ত বাংলাদেশের দশ দিগন্তে হানাদার পশ্চিম পাকিস্তানী সেনাদস্যুদের হিংস্র বর্বর গণহত্যাযজ্ঞের কালিমালিপ্ত পটভূমিতে আজ ( মঙ্গলবার )  নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশন শুরু হইয়াছে । এই অধিবেশনকালে বঙ্গবন্ধুর পক্ষ হইতে, স্বাধীন বাংলার পক্ষ হইতে ১৬ সদস্যবিশিষ্ট একটি প্রতিনিধিদল বিশ্বের দরবারে জননী বাংলার দুঃখ ও বেদনার বাহিনী, সংগ্রাম ও বিক্রমের কাহিনী পেশ করিবেন ।

       এই প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব করিবেন লণ্ডনস্থ বাংলাদেশ মিশনের প্রধান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বজনশ্রদ্ধেয় ভাইস চ্যান্সেলর বিচারপতি জনাব আবু সাঈদ চৌধুরী । ইতিপূর্বে শোনা গিয়াছিল যে, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী খোন্দকার মোশতাক আহমদ এই প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব করিবেন । কিন্তু অনিবার্য কারণে তিনি নিউইয়র্ক সফরসূচী বাতিল করিয়াছেন বলিয়া জানা গেছে ।

       প্রতিনিধিদলের ১১ জন সদস্য আজ মুজিবনগর হইতে নিউইয়র্ক পথে নয়াদিল্লী রওয়ানা হইয়া গিয়াছেন । ইহারা হইতেছেন আওয়ামী লীগ ওয়ার্কিং কমিটির সদস্য সর্বজনশ্রদ্ধেয় জননেতা শ্রী ফণীভূষণ মজুমদার এম,পি,এ, সৈয়দ আবদুস সুলতান এম,এন,এ, জনাব জিরাজুল হক এম,এস,এ, ডাঃ মফিজ এম, এন,এ, ডাঃ আজহারুল হক এম, পি, এ, জনাব সাহাবুদ্দিন আহমদ এম, পি, এ, জনাব এম, এ, সামাদ এম, এন, এ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর ডঃ এ, আর, মল্লিক, ন্যাপের সভাপতি অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ, বাংলাদেশের প্রতি আনুগত্য ঘোষণাকারী সাবেক পাকিস্তানী কূটনীতিক জনাব এ, এফ, এম, আবুল ফতেহ ও জনাব খুররম খান পন্নী । প্রতিনিধিদলের অপর ৫ জন সদস্য হইতেছেন বর্তমানে বিদেশে অবস্থানরত বিচারপতি জনাব আবু সাঈদ চৌধুরী,জনাব এম, আর, সিদ্দিকী এম, এন, এ, অধ্যাপক রেহমান সোবহান, জনাব এস, এ, করিম ও জনাব এ, এম, এ, মহিত । তাঁহারাও ইতিমধ্যেই নিউইয়র্ক পৌছিয়াছেন বা পথে রহিয়াছেন বলিয়া জানা গিয়াছে ।

       বাংলাদেশ সীমান্তে জাতিসংঘ পর্যবেক্ষক নিযুক্তির প্রস্তাব, জল্লাদ ইয়াহিয়া কর্তৃক সুকৌশলে বাংলাদেশ প্রশ্নে বিশ্বজনমত বিভ্রান্ত করার প্রয়াস এবং আপোষের জন্য বিভিন্ন দেশের দুয়ারে দুয়ারে মধ্যস্থতার ধর্নার জবাবদানের জন্যই বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল নিউইয়র্কে যাইতেছেন । এই প্রতিনিধিদল জাতিসংঘকে দ্ব্যর্থহীন ভাষায় এই কথাই জানাইয়া দিবেন যে বাংলার জনগণ ও সরকারের দৃষ্টিতে বাংলাদেশে জাতিসংঘ পর্যবেক্ষক বাহিনী প্রেরণের চেষ্টার উদ্দেশ্য হইতেছে হানাদার দুশমনদের সাহায্য করা । তাই এমন অবস্থার উদ্ভব হইলে মুক্তিযোদ্ধারা জাতিসংঘ পর্যবেক্ষকদের বিরুদ্ধেও চরম ব্যবস্থা গ্রহণে বাধ্য হইতে পারেন । প্রতিনিধিদল বিশ্বসংস্থাকে সুস্পষ্টভাবে আরও জানাইয়া দিবেন যে, একমাত্র বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বিনাশর্তে মুক্তিদান, বাংলাদেশকে স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসাবে স্বীকৃতিদান, হানাদার পশ্চিম পাকিস্তানী সেনাবাহিনী প্রত্যাহার এবং জঙ্গী বর্বরতায় ক্ষতিগ্রস্তদের পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ দানের পরই বিবেচনা হইতে পারে জঙ্গীশাহীর সঙ্গে কোন আপোষ-মীমাংসার প্রশ্ন আলোচনা করা যায় কিনা ।