(১) স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র(২) কুমিরার লড়াই সাক্ষাতকারঃ মেজর এম এস এ ভূঁইয়া

Posted on Posted in 9

<৯, ২.৫, ৪৬-৫১>

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে ক্যাপ্টেন ভূইয়া- মেজর এম,এস,এ,ভূঁইয়া

(১৯৭১ সালে ক্যাপ্টেন পদে কর্মরত ছিলেন। বিবরণটি তাঁর রচিত ‘মুক্তিযুদ্ধে নয়মাস’ গ্রন্থ, ঢাকা, ১৯৭৪ থেকে সংকলিত)

২৬শে মার্চ দুপুরে ক্যাপ্টেন রফিকের সাথে আলাপের সময় আমি জানতে পারি যে, একটি বেতার কেন্দ্র আমাদের দখলে রয়েছে। ২৮শে মার্চের সন্ধ্যা থেকে ২৯শে মার্চের রাত পর্যন্ত আমি এই বিপ্লবী বেতার কেন্দ্রে ছিলাম। আমার সে সময়কার প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতার রূপায়নই এই আলেখ্য।

 

বলা বাহুল্য বিপ্লবী বেতার কেন্দ্র এবং পরে মুজিবনগর থেকে প্রচারিত স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র নামে পরিচিত এই ঐতিহাসিক বেতার কেন্দ্র গোড়াতে খোলা হয়েছিল চট্টগ্রামে।

 

বেতার কেন্দ্রটি খোলা হয়েছিল চট্টগ্রামের কালুরঘাটে। ২৮শে মার্চ সকালে কালুরঘাটে মেজর জিয়ার সাথে সাক্ষাৎ করে চট্টগ্রাম শহরে ফেরার পথে আমি প্রথমবারের মতো বেতার কেন্দ্রটিতে প্রবেশ করি। কিছুক্ষনের মধ্যেই ঐ বেতার কেন্দ্রে কর্মরত স্টাফের সাথে আমার পরিচয় হয়। সেখানে ৮ম বেঙ্গল রেজিমেন্টের লেফটেন্যান্ট শমশের-এর সাথেও আমার দেখা হলো লেফটেন্যান্ট শমশের সে সময়ে মেজর জিয়াউর রহমানের লিখিত ভাষন বারবার প্রচার করছিলেন।

 

সেদিন পশ্চিম কমোডোর মমতাজের বাসা আক্রমণের পর আমি বেতার কেন্দ্রে ফিরে আসি এবং লেফটেন্যান্ট শমসেরের স্থলাভিষিক্ত হই। মেজর জিয়ার নির্দেশ অনুযায়ী লেফটেন্যান্ট শমশের সে সময়ে কালুরঘাটে ফিরে যান।

 

বেতার কেন্দ্রে অবস্থানকালে সেখানে আমার কাজ ছিল ঐ ‘বিপ্লবী বেতার-কেন্দ্রের’ চারদিকে মোতায়েন প্রতিরক্ষা বাহিনীকে কমাণ্ড করা ঐ কেন্দ্রের গোপনীয়তা রক্ষা করা এবং বেতার কেন্দ্রে প্রচারিতব্য সংবাদ, বুলেটিন ও নানা কথিকা পড়ে সেসব এ্যাপ্রুভ করে দেওয়া। আমার স্পষ্ট মনে আছে,বেতার-কেন্দ্রে থাকাকালীন আমাদের সাথে যারা কাজ করতেন তাদের বেতার কেন্দ্রের অভ্যন্তরে আসা যাওয়ার অনুমতি দিয়ে আমি ৭টি ‘পাস’ ইস্যু করেছিলাম। প্রথমে ৬টি পরে ১টি পাস ইস্যু করা হয়েছিল। মেজর জিয়ার নির্দেশ ছিল কোন সংবাদ বা কথিকা বেতার কেন্দ্রে প্রচার করার আগে অবশ্যই তা কোন অফিসারকে পড়ে চেক করে দিতে হবে। লেফটেন্যান্ট শমশের বেতার কেন্দ্র থেকে কালুরঘাট চলে যাবার সময় মেজর জিয়ার এই নির্দেশের কথা আমাকে বলে গিয়েছিলেন। সে সময় বেতার-কেন্দ্র থেকে আমি সেসব সংবাদ এবং কথিকা পাঠ করেছি তার সবগুলোতেই আমি আমার ইনিশিয়াল দিয়েছি। বলা বাহুল্য এসব কাজ করার সময় আমার এক অসাধারণ বিপ্লবী চেতনার জন্ম হয়েছিল। বলতে দ্বিধা নেই, সে সময় আরব জাহানের প্রখ্যাত গেরিলা নেতা ইয়াসের আরাফাতের কর্মধারা ও জীবন-চেতনা আমাকে অনুপ্রাণিত করে তুলেছিল। তার কথা তখন আমার বারবারই মনে পড়তো, মনে পড়তো তার বিপ্লবী সংস্থা ‘প্যালেস্টাইন লিবারেল ফ্রন্ট’-এর কথাও। মনে আছে একটি কথিকায় লেখক প্রদত্ত নামটি কেটে দিয়ে তার ওপর আমি লাল কালিতে আমাদের সংগ্রামী-সংস্থার নাম দিয়েছিলাম ‘বেঙ্গল লিবারেশন ফ্রন্ট’। পরবর্তীকালে সাংবাদিকরা এর বাংলা অনুবাদ করেছিলেন ‘মুক্তিফৌজ।”

 

২৮শে মার্চ সন্ধ্যায় লেফটেন্যান্ট শমসের ও আমি অনেকক্ষন আলাপ আলোচনার পর ব্লাক আউট ঘোষনার সিদ্ধান্ত নিই। সে অনুসারে বিপ্লবী বেতার কেন্দ্র থেকে ব্লাক আউট পালনের ঘোষণাও প্রচারিত হয়। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশে সবাইকে নিজ নিজ হাতিয়ার নিয়ে ক্যাপ্টেন মুহাসিন, ক্যাপ্টেন মুখলেস, ক্যাপ্টেন ইনাম, ক্যাপ্টেন ওয়ালী, ক্যাপ্টেন ভূঁইয়া ও অন্যান্যের কাছে রিপোর্ট করার আহবান জানানো হয়েছিল। অবশ্য এই ঘোষণায় কোন জায়গার নাম উল্লেখিত হয় নি।

 

আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণায় বলা হয়েছিলোঃ ‘নিজ নিজ অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে লালদীঘির ময়দানে ক্যাপ্টেন ভূঁইয়ার কাছে রিপোর্ট করুন। এই ঘোষণা রিপোর্ট করার স্থান হিসেবে লালদীঘির ময়দানের উল্লেখ ছিল কারণ ২৯শে মার্চ সকালে দেখা গেল যে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, চট্টগ্রাম-কাপ্তাই রোড ধরে হাজার হাজার লোক নিজ নিজ বাড়ির দিকে ছুটে যাচ্ছে। উল্লেখ করা আবশ্যক যে, ২৮-২৯ শে মার্চ রাতে পি,এন,এস জাহাঙ্গীর যুদ্ধজাহাজ থেকে পাঞ্জাবীরা চট্টগ্রাম শহরে অত্যাধিক শোলিং করেছিল। শেলিং এর দরুন কয়েক জায়গায় আগুন ধরে যায়। আগুনের ফুলকিতে মনে হয়েছিল চট্টগ্রাম শহরে বুঝি পাইকারী ধ্বংসলীলা চলছে। এ অবস্থা দেখে বেসামরিক লোকেরা যার হাতে বন্দুক বা অন্য অস্ত্র ছিল তাই নিয়ে প্রাণভয়ে গ্রামের দিকে ছুটে যাচ্ছিল। তাদের মধ্যে তখন নেতৃত্ব দেওয়ার মতো কেউই ছিলনা, তাই তারা অসংঘবদ্ধভাবে গ্রামের দিকে চলে যাচ্ছিল। ঐসব লোকদের আবার একত্রিত করে পুনর্গঠিত করার উদ্দেশ্যই বিপ্লবী বেতার থেকে অস্ত্র নিয়ে লোকদের আবার একত্রিত করে। পূনর্গঠিত করার উদ্দেশ্যেই বিপ্লবী বেতার থেকে অস্ত্র নিয়ে লালদীঘির ময়দানে ক্যাপ্টেন ভূঁইয়ার কাছে রিপোর্ট করার নির্দেশ প্রচারিত হয়েছিল। সত্বর তাদের এক জায়গায় জমায়েত করতে হলে এ-ধরনের ঘোষনা প্রচার ছাড়া গত্যন্তর ছিলনা। বলা বাহুল্য, এই ঘোষনা এ-সময়ে বেতার-কেন্দ্রে উপস্থিত কয়েকজনের সাথে আলোচনা করেই প্রচারিত হয়েছিল।

 

ঘোষনাটি কয়েকবার প্রচারিত হবার পর চট্টগ্রাম বিশ্ব বিদ্যালয়ের তদানীন্তন উপাচার্য এ,আর,মল্লিক আমাকে টেলিফোন করেন। লালদীঘির ময়দানে একত্রিত হওয়ার এই ঘোষনা সম্পর্কে তার সাথে আমার অনেক আলাপ হয়। তিনি আমাকে অবিলম্বে এই ঘোষনা প্রচার বন্ধ করতে বলেন। তিনি যুক্তি দেন যে, এই ঘোষনামতে যদি সবাই গিয়ে লালদীঘির ময়দানে একত্রিত হয় তাহলে হানাদাররা নিশ্চয় এই জমায়েতের ওপর পি,এন,এস জাহাঙ্গীর জাহাজ থেকে শেলিং করবে, এমনকি হাওয়াই হামলা করতে পারে। ডক্টর মল্লিকের এই যুক্তিপূর্ণ উপদেশে আবার আমাকে বেতার মারফত ‘লালদীঘির ময়দানে’ একত্রিত হওয়ার ঘোষনাটি বাতিল করে দিতে হয়।

 

দুনিয়ার ইতিহাসে যেসব বিপ্লব হয়েছে তাতে লক্ষ্য করা গেছে যে, প্রথমে অর্গানাইজ করা হয়েছে এবং ঘোষিত হয়েছে বিদ্রোহ, হয়েছে বিপ্লব। কিন্তু আমাদের বাংলাদেশে ব্যাপারটি ঘটেছে সম্পূর্ণ ভিন্ন রকম। এক্ষেত্রে প্রথমে ঘোষিত হয়েছে বিদ্রোহ, পরে হয়েছে সংগঠন-আমরা প্রথমে বিদ্রোহ করেছি, পরে শুরু করেছি বিদ্রোহীদের সংগঠন। ২৬শে মার্চ ভোরে যে আমাদের বিদ্রোহ করতে হবে তা আমরা অনেকেই ২৫শে মার্চের মধ্যরাতেও জানতাম না।

 

কুমিরার লড়াই- মেজর এম এস এ ভূঁইয়া

(‘মুক্তিযুদ্ধের নয় মাস’ গ্রন্থ থেকে সংকলিত)

 

ইচ্ছা ছিলো সন্ধ্যার আগেই ক্যান্টমেন্ট দখল করবো। কিন্তু শত্রুর শক্তি বৃদ্ধর জন্য কুমিল্লা থেকে যে ২৪নং এফ এফ (ফ্রন্টিয়ার ফোর্স) এগিয়ে আসছে তাকে বাঁধা দেওয়াই সর্বপ্রথম কর্তব্য হয়ে দাঁড়ালো।

 

তখন বিকাল ৫টা। ২৪নং এফএফ’কে প্রতিহত করার জন্য কুমিল্লার দিকে অগ্রসর হলাম। বেঙ্গল রেজিমেন্ট ও ইপিআর’এর মাত্র ১০২ যোদ্ধা সমবায়ে সংগঠিত দল নিয়ে এই অভিযানে আমরা বের হলাম। আধুনিক অস্ত্রে সজ্জিত পশ্চিমা হানাদার সৈন্যদলের মোকাবিলা করার আমাদের সম্বল মাত্র একটি এইচ এম জি, কয়েকটি এলএমজি আর বাকীসব রাইফেল। এতো অল্পসংখ্যক সৈন্য নিয়ে পুরো একটি সুসংগঠিত ব্যাটালিয়নের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে যাওয়ার ঝুঁকি যে কি বিরাট এবং তার পরিণাম যে কি মারাত্মক হতে পারে সেদিন তা আদৌ উপলব্ধি করতে পারি নি তা নয়। আসলে মনটা ছিলো তখন প্রতিশোধ স্পৃহায় উন্মত্ত, দেশের মুক্তি কামনায় উত্তপ্ত, ক্ষোভে ক্রোধে আবেগে উত্তেজিত। সুতরাং ঠাণ্ডা মাথায় অগ্র পশ্চাৎ বিবেচনা করে পরিকল্পনা করার আদৌ অবসর ছিলো না তখন। অন্য কিছু সম্বল না থাকলেও যুদ্ধে সবচেয়ে বড় যে জিনিস প্রয়োজন সেই সাহস, সেই উদ্দীপনা, সেই উদ্দীপ্ত প্রাণের আকাঙ্খা ছিলো আমাদের সম্বল। আমাদের এই অপরিমেয় মনোবল ও দুর্জয় আত্মবিশ্বাস সেদিন মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার শক্তি দিয়েছিলো। এছাড়া ছিলো পরম করুণাময়ের অপার করুনা যা বারবার নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে উদ্ধার করে আমাদেরকে সাফল্যের স্বর্ণদুয়ারে পৌঁছে দিয়েছে। আজ আমার এ প্রত্যয় দৃঢ়তা লাভ করেছে যে, সত্য ও ন্যায়ের সেই পবিত্রতা চিরদিনই অন্যায়কে প্রতিরোধ করতে এভাবেই সাহায্য করে থাকে।

 

আগেই খবর পেয়েছিলাম শত্রুবাহিনী ফেনীর কাছে শুভপুর ব্রিজ পেরিয়ে এগিয়ে আসছে। অতএব, যত দ্রুত তাদের অগ্রগতিকে প্রতিহত করা যায় ততই আমাদের জন্য মঙ্গল। আমার কথামত আওয়ামী লীগের কয়েকজন কর্মী পাঁচটি ট্রাক এনে হাজির করলেন। তখন আমাদের সৈন্যবাহিনী ও জনসাধারণের প্রত্যেকেরই যেনো একটা যুদ্ধাংদেহী ভাব। তাদের চেহারা দেখে মনে হচ্ছিলো যেনো অনেকদিনের পুঞ্জিভূত বেদনা বঞ্চনা ক্ষোভ, আক্রোশ বিদ্রোহের আগুনে ফুসে উঠেছে এবং তা দুর্জয় সংগ্রামের মাধ্যমেই যেনো স্ফুরিত হতে চায়। চব্বিশ বছরের পাকিস্তানী বুর্জোয়াদের শাসন শোষণ ও অত্যাচার উৎপীড়নের জগদ্দল পাথরকে টুকরো টুকর করে ভেঙ্গে ফেলতে আজ সবাই বদ্ধপরিকর।

 

আমি আমার ক্ষুদ্র দলের ১০২ জন যোদ্ধাকে ৪টি ট্রাকে উঠালাম এবং বাকি ট্রাকটিতে গুলির বাক্য উঠিয়ে দিলাম। আমি নিজে মোটর সাইকেলে চড়ে সবার আগে চললাম। উদ্দেশ্যঃ এগোনোর সাথে সাথে পথের দুপাশে এমন একটি উপযুক্ত স্থান খুজে নেওয়া যেখান থেকে শত্রুর উপর সাফল্যের সাথে প্রচণ্ড আঘাত হানা যায়। শুভপুরে সেদিন আমাদের যাত্রাপথের দৃশ্য অবিস্মরণীয়। রাস্তার দুপাশে হাজার হাজার মানুষ ভীড় জমিয়েছে। তাদের মধ্যে কল কারখানার শ্রমিকই বেশী। মুখে তাদের নানান শ্লোগান। হাজার কণ্ঠের সেই শ্লোগান আকাশ বাতাস মুখরিত করে তুলেছিল। গত রাতে শহরের বিভিন্ন স্থানে ইয়াহিয়ার লেলিয়ে দেওয়া বর্বর বাহিনী কর্তৃক অতর্কিত আক্রমণ, নির্মম হত্যা, পাশবিক অত্যাচার, বিশেষতঃ বেঙ্গল রেজিমেন্টের জওয়ানদেরকে পাশবিকভাবে হত্যা করার খবর এরই মধ্যে প্রতিটি মানুষের কানে পৌঁছে গেছে। যে কোন ভাবে এই বিশ্বাসঘাতকতার উপযুক্ত শাস্তি দেওয়ার জন্য তারা প্রস্তুত। সুতরাং যখনই তারা দেখতে পেল খাকি পোষাক পরা বেঙ্গল রেজিমেন্ট ও ইপিআর এর জওয়ানরা অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে শত্রুর মোকাবিলা করার জন্য এগিয়ে যাচ্ছে তখন তারা আনন্দে আত্মহারা হয়ে উঠলো। মুহুর্মুহু শ্লোগান দিতে লাগলো। জয় বাংলা, বেঙ্গল রেজিমেন্ট জিন্দাবাদ, ইপিআর জিন্দাবাদ। এদিকে তাদের কেউ কেউ সৈনিকদের কি দিয়ে এবং কিভাবে সাহায্য করতে পারে তাই নিয়ে মহাব্যস্ত।

 

আমাদের সৈন্য বোঝাই ট্রাকগুলো তখন ধীরে ধীরে এগিয়ে চলছে। এমন সময় একজন বুড়ো লোক তার পথের পাশের দোকান থেকে সিগারেট নিয়ে এসে আমার হাতে তুলে দিলো। বললো, “স্যার আমি গরীব মানুষ, কিছু দেওয়ার মতো ক্ষমতা আমার নাই, এই নিন আমার দোকানের সিগারেট (সিগারেট ৩ কার্টুন ছিল); আপনার জওয়ানদের মধ্যে বিলিয়ে দিন।“ বৃদ্ধের এই সহানুভুতি ও আন্তরিকতায় তার প্রতি কৃতজ্ঞতায় আমার মন ভরে উঠলো। আরেকজন একটি ট্রাকে করে প্রায় এক ড্রাম কোকাকোলা নিয়ে এলো। কেউ কেউ খাদ্যসামগ্রীও নিয়ে এলো।

 

আন্তরিকতা আর ভালবাসার সেই উপহার আমাদের মনকে আনন্দে উদ্বেল করে তুলেছিলো। কেমন করে কিভাবে তারা সেসব জিনিস যে সেদিন সংগ্রহ করেছিলেন তা ভাবলে আজও বিস্মিত হই।

 

সন্ধ্যা তখন ৬টা। আমরা কুমিল্লায় পৌঁছে গেলাম। শত্রুকে বাঁধা দেওয়ার জন্য স্থানটি খুবই উপযুক্ত বিবেচিত হলো। পথের ডানে পাহাড় এবং বামে আধ মাইল দূরে সমুদ্র। শত্রুর ডানে এবং বামে প্রতিবন্ধকতা আছে এবং শত্রুকে এগোতে হলে পাকা রাস্তা দিয়েই আসতে হবে। তাই সেখানেই পজিশন নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলাম। আমি যেখানে পজিশন নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেই তার পিছনে একটি খাল ছিল। ঐ খাল থেকে ৫০০/৬০০ গজ সামনে অর্থাৎ উত্তর দিকে আমি পজিশন নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেই। খালটি একটি পদাতিক বাহিনীর জন্য তেমন একটা বাঁধা নয়। তবুও এটা পিছনেই রাখলাম। উদ্দেশ্য ছিলো যদি বর্তমান পজিশন শত্রু আমাদের ছাড়তে বাধ্য করে তখন খালের পাড়ে পজিশন নিতে পারবো। এটা ছিলো আমার বিকল্প পরিকল্পনা। জমিনের সরূপ দেখে কয়েক মিনিটের মধ্যে পরিকল্পনা তৈরী করে নিলাম। আমার তিনজন প্লাটুন কমান্ডারকে ডেকে খুব সংক্ষেপে আমার পরিকল্পনার কথা জানালাম এবং নিজ নিজ স্থানে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব পজিশন নেওয়ার নির্দেশ দিলাম। আমার নির্দেশ অনুযায়ী এইচএমজি’টা ডান পাশে পাহাড়ের ঢালুতে ফিট করা হলো। স্বয়ং ইপিআর সুবেদার সাহেব ভারী মেশিনগানটির সঙ্গে রইলেন। কারণ এই ভারী মেশিনগানটিই আমাদের প্রধান হাতিয়ার এবং সবচেয়ে বড় সম্বল। আমি বামদিকের কয়েকটি এলএমজি’র পজিশন ঠিক করে দিলাম। আমার নির্দেশমত সবাই মাটিতে পজিশন নিয়ে নিলো। পজিশনের অবস্থাটা হলো অনেকটা ইংরেজী U-এর মতো। অর্থাৎ ডানে বামে এবং পিছনে আমাদের সৈন্য। যেদিক থেকে শত্রু এগিয়ে আসছে কেবল সেই সামনের দিকটা সাঁড়াশির হারের মতো খোলা।

 

কুমিরা পৌঁছেই মোটর সাইকেলযোগে একটি লোককে আমরা পাঠিয়েছিলাম শত্রুর অগ্রগতি সম্পর্কে খবর নিতে। এরই মধ্যে সে খবর নিয়ে এসেছে যে, শত্রু আমাদের অবস্থান থেকে আর বেশী দূরে নেই। মাত্র চার পাঁচ মাইল দূরে। তবে তারা ধীরে ধীরে গাড়ী চালিয়ে আসছে। যে লোকটিকে পাঠিয়েছিলাম সে পাঞ্জাবীদের নিকটে গিয়ে রাস্তার পাশের একটি দোকান থেকে সিগারেট কিনে ফিরে এসেছে। সে আমাকে জানালো যে, পাঞ্জাবীদের পরনে কালো বেল্ট, কাঁধে কালো বেজ এবং কি যেনো একটা কাঁধের উপরে তাও কালো। তখন আমার সন্দেহ রইলো না যে ফ্রন্টিয়ার ফোর্সের সৈন্যরাই এগিয়ে আসছে।

 

আমাদের অবস্থানের ৭০/৮০ গজ দূরে বড় একটি গাছ ছিলো। জনসাধারণের সাহায্যে গাছের মোটা ডালটা কেটে রাস্তার ঠিক মাঝখানে ফেলা হলো। গাছের ডাল দিয়ে আমাদের সুন্দর একটা ব্যারিকেড সৃষ্টি হয়ে গেলো। জনসাধারণ আশপাশ থেকে কিছু ইট এনে ইতস্ততঃ বিক্ষিপ্ত অবস্থায় রাখলো।

 

এত অল্প সময়ে জনসাধারণ কিভাবে ঐ মোটা গাছের ডালটা কেটে ফেললো এবং ইট সংগ্রহ করে ব্যারিকেড সৃষ্টি করলো তা আজ ভাবতে আশ্চর্য লাগে। সৈন্যদের জানিয়ে দেয়া হলো যে শত্রুসৈন্য যখন ব্যারিকেড সাফ করার জন্য গাড়ী থেকে নামবে এবং সাফ করার জন্য একত্রে জমা হবে তখন সকলে একযোগে শত্রুর উপর গুলি ছোড়া শুরু করবে। বিশেষ করে ভারী মেশিনগান দ্বারা অবিরাম গুলি ছুড়বে।

 

প্রায় এক ঘন্টা সময় আমাদের প্রতিক্ষার মধ্যে কেটে গেলো। সন্ধা তখন ৭টা। আমরা শত্রুবাহিনীর অপেক্ষায় ওৎ পেতে রইলাম। আমাদের সামনে শত্রুবাহিনীর উপস্থিতি প্রায় আসন্ন বলে মনে হলো। আরো কিছুক্ষণ প্রতিক্ষার পরই সম্মুখ সমরে ঝাঁপিয়ে পড়ার সুযোগ এলো। শত্রুবাহিনী ধীরে ধীরে এগিয়ে আসছে। ব্যারিকেড দেখে সামনের গাড়ীগুলো থেমে গেলো। কিছুসংখ্যক সিপাহী গাড়ী থেকে নেমে ব্যারিকেডের কাছে এলো। এবং কেউ কেউ ইটগুলো তুলে দূরে ফেলে দিতে লাগলো। পিছনের গাড়ীগুলোও তখন সেই দিকেই এগিয়ে আসছিলো।

 

সন্ধ্যা তখন সোয়া সাতটা। শত্রুরা যখন ব্যারিকেড সাফ করতে ব্যস্ত, ঠিক এমন সময় আমাদের ডান দিকের ভারী মেশিনগানটি গর্জে উঠলো। শুরু হলো শত্রু নিধন পালা। চারিদিক থেকে কেবল গুলির আওয়াজই শোনা যেতে লাগলো। ভারী মেশিনগানটি থেকে তখন মাঝে মাঝে ট্রেসার রাউণ্ড বের হচ্ছে। উহ! সে কী দৃশ্য! শত্রুকে এত কাছাকাছি অতর্কিত অবস্থায় পেয়ে আমার মন খুশিতে নেচে উঠলো। মনে মনে বললাম- তোমরা (পাঞ্জাবীরা) এতদিন মনে করতে বাঙালিরা যুদ্ধ করতে জানে না। এখন যুদ্ধ ক্ষেত্রেই বাঙালিরা তোমাদের জানিয়ে দিবে তারা যুদ্ধ করতে জানে কিনা। হানাদার বাহিনীর অগ্রগতি রোধ করাই ছিলো আমাদের লক্ষ্য। আমাদের আকস্মিক আক্রমণে তারা তখন হকচকিত। তাদের সামনের সৈন্যগুলির অনেকেই আমাদের গুলির আঘাতে মাটিতে লুটিয়ে পড়লো। তাদের মৃত্যুকাতর আর্তনাদ আমাদের কানে আসছিলো। যারা দিশেহারা হয়ে এদিক ওদিক ছোটাছুটি করছিলো তাদের অনেকেই মাটিতে লুটিয়ে পড়লো। কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই শত্রুদের পিছনের সৈন্যরা এ অবস্থা সামলে নিয়ে মেশিনগান, মর্টার এবং আর্টিলারী থেকে অবিশ্রাম গুলি শুরু করলো। এবার উভয় পক্ষে তুমুল লড়াই লেগে গেলো। কিন্তু বহু চেষ্টা করেও শত্রুরা আমাদের ব্যূহ ভেদ করতে পারলো না। তাদের সৈন্য বোঝাই তিনটি ট্রাকে আগুন ধরে গেলো। আমাদের মেশিনগান নিউট্রালাইজ করার জন্য প্রচুর পরিমানে আর্টিলারী গোলা নিক্ষেপ করলো। কিন্তু আল্লার মেহেরবাণীতে শত্রুর সকল প্রচেষ্টা মাঠে মারা গেলো। প্রায় দুই ঘন্টা প্রাণপণ লড়াই করে তারা শেষ পর্যন্ত দুই ট্রাক অস্ত্রশস্ত্র ফেলে রণে ভঙ্গ দিলো।

 

ঘন্টা দুয়েক এই লড়াই চলেছিলো। উভয় পক্ষের গোলাগুলির শব্দ স্তব্ধ হয়ে গেলো। তারপর তারা পিছু হটতে বাধ্য হলো। প্রথম দিনের লড়াইয়ে অর্থাৎ ২৬ তারিখের রাতেই শত্রুবাহিনীর ভীষণ ক্ষতি হয়েছিলো। শত্রুবাহিনীর কমান্ডিং অফিসার লেঃ কর্নেল ও একজন লেফটেন্যান্টসহ বিভিন্ন পক্ষের ১৫২ জন সাধারণ সৈনিক প্রাণ হারিয়েছিলো। আমরা শত্রদের দুই ট্রাক এম্যুনিশন কবজা করেছি। আমাদের পক্ষে চৌদ্দজন বীর সৈনিক শাহাদাৎ বরণ করেন।

 

কুমিল্লায় লড়াই চলেছিলো সর্বমোট তিনদিন। শত্রু এই সময়ের মধ্যে তাদের আর্টিলারী ও মর্টার দিয়ে বারবার আক্রমণ চালিয়েছিলো আমাদের বাহিনীর উপর। অবশেষে ২৮ তারিখে তারা ত্রিমুখি আক্রমণ চালায়। পিছন থেকে তারা নৌবাহিনীর মাধ্যমে আক্রমণ চালায়। সাগর থেকে গানবোট দিয়ে ফায়ার সাপোর্ট দেয়। রাতের আঁধারে শত্রুরা পহাড়ের উপর অবস্থিত টিবি হাসপাতালের নিকটে মেশিনগান বসায়। ত্রিমুখি আক্রমণের মুখে আমাদের সৈন্যরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যেতে বাধ্য হয়। ফলে ২৮ তারিখে কুমিরা পাকিস্তানী সৈন্যদের দখলে চলে যায়। কুমিরা পতনের পর হানাদার বাহিনী চট্রগ্রাম অভিমুখে রওয়ানা হয়। তারা অগ্রসর হওয়ার সময় রাস্তার দুপাশে অবস্থিত সমস্ত গ্রাম ও হাটবাজার জ্বালিয়ে দেয় এবং সামনে যাকে দেখে তাকেই গুলি করে হত্যা করে। লোকমুখে শুনেছি কুমিল্লা পতনের পর রাস্তার দুপাশে কয়েকদিন ধরে আগুন জ্বলেছিল।

 

আমার মনে হয় বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে কুমিরার যুদ্ধটাই একমাত্র প্রথম যুদ্ধ যেখানে বেঙ্গল রেজিমেন্ট ও তৎকালীন ইপিআর বাহিনী সম্মিলিতভাবে হানাদার বাহিনীর উপর এক প্রচণ্ড আঘাত হানতে সক্ষম হয়েছিলো। এই যুদ্ধে ২৪ নং এফএফ-এর একটা পুরো কোম্পানী একেবারে নিশ্চিন্ন হয়ে গিয়েছিলো। একথা আমি জানতে পেরেছিলাম ক্যাপ্টেন জাফর ইমামের কাছে। তিনি কুমিরার যুদ্ধে ২৪ এফএফ-এ কর্মরত ছিলেন।