4

আসন্ন কনভেনশন সম্পর্কে নর্থ এ্যান্ড নর্থ-ওয়েস্ট লন্ডন শাখা এ্যাকশন কমিটির সভাপতি কর্তৃক বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরীকে লেখা চিঠি

<৪,৬৯,২৩>

অনুবাদকঃ ইফতি

শিরোনাম সূত্র তারিখ
৬৯। আসন্ন কনভেনশন সম্পর্কে নর্থ এ্যান্ড নর্থ-ওয়েস্ট লন্ডন শাখা এ্যাকশন কমিটির সভাপতি কর্তৃক বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরীকে লেখা চিঠি এ্যাকশান কমিটির দলিলপত্র ১৬ সেপ্টেম্বর ১৯৭১

 

বাংলাদেশের পক্ষে অ্যাকশন কমিটি

(উত্তর ও উত্তর-পশ্চিম লন্ডন)
৩৩ ডাগমার রোড, লন্ডনএন ২২

টেলি. ৮৮৯-৪৪৭৪

 

 

বাংলাদেশ সরকারের বিশেষ প্রতিনিধির উদ্দেশ্যে।
জনাব,

যুক্তরাজ্যে বাঙালি জনসাধারণের মধ্যে বিতরণকৃত আপনার ‘আবেদন’ আমি অত্যন্ত প্রশংসার সাথে পড়েছি। ইতোপূর্বে জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠানের বিপক্ষে পরিচালনা কমিটির কাছে আপনার পরামর্শের পেছনে উপস্থাপিত কারণগুলো অত্যন্ত অর্থবহ ও প্রশংসনীয়।

১০ এপ্রিল আমরা একটি স্থানীয় কমিটি গঠন করেছি এবং তখন থেকেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনে ভূমিকা রাখার সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

আপনার ‘আবেদন’ এবং পরিচালনা কমিটির আহ্বায়কের ‘আবেদন’ থেকে জানতে পেরেছি যে, শীঘ্রই জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এই প্রেক্ষিতে,  জাতীয় সম্মেলনে যাতে প্রতিটি কার্যকরী অ্যাকশন কমিটি সঠিক এবং সরাসরি প্রতিনিধিত্ব পায় মহামান্যের কাছে তার আবেদন জানাই। তথাকথিত প্রাদেশিক কমিটিগুলোর স্ব স্ব অঞ্চলে কাউন্সিলর নির্বাচনের মতো অগণতান্ত্রিক সিদ্ধান্ত আমাদের দৃষ্টিতে আইয়ুব খানের মৌলিক গণতন্ত্রের মতোই ঘৃণ্য। আমাদের আন্দোলনের দৃঢ়তায় আমরা বিশ্বাস করি এবং আমাদের স্বাধীনতার আন্দোলনে গড়ে ওঠা সংগঠনে সরাসরি অংশগ্রহণের অধিকার আমাদের আছে।

সম্ভবত আপনার দৃষ্টিগোচর হয়েছে যে, একদল ব্যক্তির ধারণা শুধুমাত্র তাদের সমর্থন ও অর্থে বাংলাদেশ স্বাধীন করা সম্ভব। তারা স্বাধীনতার আন্দোলনকে গতিশীল করার পরিবর্তে দলীয় রাজনৈতিক কর্মকান্ডে ব্যস্ত রয়েছে। আমার মতে,  উক্ত ব্যক্তিবর্গ আন্দোলনে সহযোগিতার নামে বরং বৃহত্তম ক্ষতি সাধন করছে। এ সকল ব্যক্তির উদ্দেশ্যে জনসমক্ষে নিন্দা জানাতে  আপনার কাছে আবেদন জানাই এবং আপনাকে নিশ্চয়তা দিচ্ছি, আপনি যুক্তরাজ্যে অবস্থানকারী সর্বস্তরের মানুষের অসাধারণ সমর্থন পাবেন।

আমি এছাড়াও জানতে পেরেছি যে, চারটি প্রাদেশিক কমিটির মধ্যে দুটিই বাংলাদেশ তহবিলে তাদের সংগ্রহ জমা করছেনা। কোনো বিশেষ কারণ ছাড়াই জনগণের অর্থ আটকে রাখা এ সকল ব্যক্তি সম্পর্কে জনগণকে জানিয়ে দেওয়ার আবেদন থাকবে আপনার কাছে। আমরা কোনো প্রকার আপত্তি ছাড়াই আপনাকে পথপরিদর্শক ও নেতা হিসেবে মেনে নিয়েছি। সফলতার পথে আপনার নেওয়া প্রতিটি পদক্ষেপের আমরা আবারও আন্তরিক সমর্থনের অংগীকার জানাই। ধন্যবাদ। জয়বাংলা।

 

আপনার বিশ্বস্ত,
(এস এম আইয়ুব)
সভাপতি।