2

সরকারী তথ্য বিবরণীর অভিযোগঃ শেখ মুজিব আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম হোতা

Posted

<2.61.307>

শিরোনাম সূত্র তারিখ
সরকারী তথ্য বিবরণীর অভিযোগঃশেখ মুজিব আগরতলা মামলার অন্যতম হোতা দৈনিক পাকিস্তান ১৮জানুয়ারী,১৯৬৮

 

 

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র দফতরের প্রেসনোট

 শেখ মুজিব আগরতলা ষড়যন্ত্রের অন্যতম হোতা

 

ইসলামাবাদ, ১৮ ই জানিয়ারী (এ, পি, পি ) আজ এখানে স্বরাষ্ট্র ও কাশ্মীর বিষয়ক (স্বরাষ্ট্র বিষয়ক বিভাগ ) দফতর থেকে নিম্নলিখিত নোট জারি করা হয়েছে।

               আগরতলা ষড়যন্ত্রের দায়ে অভিযুক্ত যে ছয় জনের নাম ইতিপূর্বে ঘোষণা করা হয়েছে তাদের এ যাবঠ কাল পাকিস্তান প্রতিরক্ষা আইনে আটকে রাখা হয়েছিল । সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী এবং বিমান বাহিনীর আইনবলে তাদের ১৯৬৮ সালের জানুয়ারী মাসের ১৮ তারিখে গ্রেফতার করা হয়েছে। কারণ তারা এসব আইনের আওতাভুক্ত নির্দিষ্ট কয়েকটি অপরাধ করেছেন।কাজেই পূর্ব পাকিস্তানের প্রাদেশিক সরকার পাকিস্তান প্রতিরক্ষা আইনে তাদের আটকের আদেশ প্রত্যাহার করেছেন। এইব্যাপারে তদন্ত অব্যাহত রয়েছে । ষড়যন্ত্রের পরিকল্পনা ও পরিচালনার সাথে শেখ মুজিবর রহমানের জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। কাজেই অন্যান্যের সাথে তাকেও গ্রেফতার করা হয়েছে । পাকিস্তান প্রতিরক্ষা আইনে তিনি পূর্ব থেকেই জেলে ছিলেন।।

২২ শে জানুয়ারী ১৯৬৮/৯ই মাঘ ১৩৭৪,সংবাদঃ

 

আওয়ামী লীগ ওয়ার্কিং কমিগতির জরুরী সভায়

আত্নপক্ষ সমর্থনের সুযোগসহ শেখ মুজিবের প্রকাশ্যে বিচার দাবী

 

আগরতলা ষড়যন্ত্রের সহিত জড়িত থাকার অভিযোগে অভিযুক্ত শেখ মুজিবর রহমানকে আত্নপক্ষ সমর্থনের উপযুক্ত সুযোগ সুবিধা প্রদানপূর্বক প্রকাশ্যে বিচার অনুষ্ঠানের জন্য সরকারের প্রতি আবেদন জানানো হয়। অপর এক প্রস্তাবে শেখ মুজিবের স্বাস্থ্যের বর্তমান অবস্থা এবং তাহার অবস্থানের কথা প্রেসনোট আকারে প্রকাশের জন্যেও সরকারের প্রতি আবেদন জানানো হয়। ওয়ার্কিং কমিটির সভায় বিভিন্ন প্রস্তাবে বলা হয় যে ,আওয়ামীলীগ  নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনে বিশ্বাসীএবং ৬ দফা কর্মসূচী ও জনগণের অন্যান্য গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ে তাহারা নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন অব্যাহত রাখিবে। প্রস্তাবে দৃঢ়তার সহিত বলা হয় যে, ৬ দফার বাস্তবায়নই দেশের সত্যিকার অখন্ডতা  ও বৃহত্তর সংহতি রক্ষার একমাত্র ভিত্তি বলিয়া আওয়ামী লীগ বিশ্বাস করে।