3

ইয়াসির আরেফিন

কুসুম আপু আমাকে প্রথম যেদিন জিজ্ঞাসা করলেন যে অনুবাদ করবো কি না, খুশিটা চেপে রেখে বলেছিলাম, অবশ্যই। কেমন খুশি অনুভব করেছিলাম তা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব না। আসলে খুশির চেয়ে বেশি গর্ব লেগেছিলো এই ভেবে যে আমার করা অনুবাদ একটা মানুষ হলেও পড়বে। আর একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে আমি অত্যন্ত গর্ববোধ করছিলাম এতো বড় একটা প্রকল্পের অংশ হতে পেরে। প্রজেক্টের জন্য পরামর্শ এই যে, চালিয়ে যান। বাঁধা বিপত্তি আসবে এটাই স্বাভাবিক, কিন্তু থেমে যাবেন না। বাকিটা আল্লাহ ভরসা। কারণ ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জানতে হবে যে তাদের পূর্ব পুরুষেরা এই দেশের জন্য কি করেছিলেন। একবার যখন আগামি প্রজন্মের মাঝে দেশপ্রেম গড়ে উঠবে, দেখবেন আর কেউ কোনদিন বাংলাদেশকে আটকাতে পারবে না। সেই নতুন দিনের অপেক্ষায়…ইয়াসির আরেফিন।