খোন্দকার আবদুল্লাহ

Posted on Posted in 2

এই প্রোজেক্টের সম্বন্ধে জানতে পেরেছি ফ্রেন্ডলিস্টের অনেক মানুষের পোস্ট দেখে। প্রোজেক্ট রিলেটেড অনেকেই আছেন ফ্রেন্ডলিস্টে। দেখে এতে কাজ করার আগ্রহ হয়েছিল অনেক। কিন্তু এইচএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য তা আর করা হয়ে উঠছিল না। জানুয়ারি মাসে তাজকিয়া আপুর পোস্ট দেখে জানতে পারি যে দ্বিতীয় খণ্ডের কিছু ইংরেজি থেকে বাংলা অনুবাদ করে দিতে হবে। আগ্রহের বশেই কাজটা করতে যাই কিন্তু কঠিন লেভেলের ইংরেজি থাকায় মাত্র ২ পেজ করেই ক্ষ্যান্ত দেই, কারণ সে সময় পড়াশোনার চাপ একটু বেশি ছিল। এভাবেই প্রোজেক্টে আসা, আর এরপর একদিন এইচএসসি পরীক্ষা চলার মাঝেই তাজকিয়া আপু বলেন যে দলিলের কিছু পেজ কম্পাইল করে দিতে পারব কিনা! সে সময় ঘুর্ণিঝড় রোয়ানুর জন্য আমাদের পরীক্ষা পিছিয়ে যাওয়াতে কাজটা করতে রাজি হয়ে যাই।বাংলাদেশকে আমি ভবিষ্যতে খুব বেশি উন্নত দেখতে চাই না, খালি চাই যেজন্য ৩০ লক্ষ মানুষ জীবন দিয়েছিল সেটাই যেন পূরণ হয়।