রফিকুন্নবী

Posted on Posted in 4

প্রথমেই আমি ক্ষমা চাচ্ছি লিও এবং সজীব বর্মন ভাইয়ের কাছে।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধঃ দলিলপত্র থেকে বলছি পেইজের পোস্ট গুলা নিয়মিত ফলো করতাম এবং অজান্তেই একটা ইচ্ছা জেগেছিল (বলা চলে হুজুগে) যে আমিও এই প্রজেক্টের সাথে কাজ করব। অষ্টম খণ্ডের ইউনিকোডেড ফাইল বের হবার সাথেসাথেই আমি লিও-র কাছে কাজের প্রস্তাব জানাই এবং সপ্তম খণ্ডে বাংলা কম্পাইল করার কাজে আলিমুল ফয়সাল ভাইয়ের সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়। সেখানে ফয়সাল ভাইয়ার গাইডেন্সের জোড়ে যথেষ্ট ডেডিকেশনের সাথেই বাংলা অংশগুলোর কম্পাইল করি। এখানে কাজ করতে ঢুকেছিলাম মূলত প্রজেক্টের সাথে সম্পৃক্ততা রাখার জন্য। সাথে বাই প্রোডাক্ট হিসেবে পেলাম বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সঠিক সত্য ইতিহাস জানার ক্ষেত্র এবং কিছু অসাধারণ মানুষের সাথে পরিচয়।

সপ্তম খণ্ডে আমার কাজ শেষ হলে আবার যাই লিও ভাইয়ের কাছে এবং উনি চতুর্থ খণ্ডে অনুবাদের কাজ অফার করেন। কোন কিছু না ভেবেই রাজি হয়ে গেলাম। যখন সজীব ভাই কাজ দিলেন,একটা পৃষ্ঠা পড়েই এমন নাকানি চুবানি খেলাম যে সজীব আর লিও ভাইয়ের কাছে গিয়া কান ধরে উঠবস করা লাগল! সজীব ভাইকে বলে বাংলা কম্পাইল করার কাজ নিয়েছিলাম। সমস্যা হচ্ছে সজীব ভাইকে অনেক বিরক্ত করেছি। জানতাম উনার উপর চাপ প্রেশারকুকারের মত ভীষণ আওয়াজ করে শব্দ করে উঠছিল। তবুও কারণে অকারণে কখনও কাজ করতে বিলম্ব করেছি,ভুল কাজ করে সাবমিট করে দিয়েছি,বিরক্ত করেছি ইত্যাদি। এর জন্য আমি লজ্জিত এবং ক্ষমাপ্রার্থী।

এই প্রজেক্ট সফল হচ্ছে এবং হবে এই অসাধারণ ডেডিকেটেড মানুষগুলার জন্যই যারা তাদের চরম ব্যস্ততার ফাকেও এতটা পার্সিস্টেন্সের সাথে বিরামহীনভাবে কাজ করে যাচ্ছে এবং এই অসাধারণ মানুষ গুলোর এমন ধরণীসম ডেডিকেশনের মাঝেও আমার অতি সামান্য পিপীলিকাতুল্য অবদানের জন্য আমি বেজায় গর্বিত।
আমাদের পরিচয় হোক একটাই,মুক্তিযুদ্ধ।