জেনিফার আলম

Posted on Posted in 7

মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে কথা বলেন, এমন বেশ কিছু মানুষ আমার ফেসবুক ফ্রেন্ডলিস্টে আছেন এবং তারা সবাই এই প্রজেক্টে জড়িত। আমি মুক্তিযুদ্ধ ব্যাপারটিকে একদম রুট লেভেল থেকে অবিকৃত হিসেবে দেখতে চাই এবং এই জন্যই যুদ্ধদলিল পেজের লেখাগুলো ফলো করতাম এবং মনে মনে ভাবতাম, ইশ! আমিও যদি কাজ করতে পারতাম তাদের সাথে! লিও ভাই এর মাধ্যমে আমি প্রজেক্টে আসি এবং কাজ করার চেষ্টা করছি। আমি যতবার জাতীয় সংগীত শুনি ততবারই গায়ের লোম দাঁড়িয়ে যায়। যখন সন্ধ্যায় বা রাতে একা রাস্তা দিয়ে হেটে আসি, ভাবি যে এই দেশে যদি মুক্তিযুদ্ধ না হতো তবে কি আমি এভাবে নিশ্চিন্তে হেটে ফিরতে পারতাম? আমি খুব কষ্ট পাই যখন অশিক্ষিত, শিক্ষিত, বুদ্ধিজীবী শ্রেণীর মানুষও ইতিহাসকে বিকৃত করেন। আমরা এই যুদ্ধের ইতিহাস এবং সত্য ঘটনাগুলো অবিকৃত রেখে মানুষের কাছে ছড়িয়ে দিতে চাই যেন কেউ কখনো আমাদের ইতিহাসকে ভুল ভাবে উপস্থাপনের সুযোগ না পায়। আমরা দিন দিন আরো শক্তিশালী হবো, অবিকৃত ইতিহাস ছড়িয়ে দেবো সবার কাছে। আমাদের শক্তি হচ্ছে বুকের ভেতর লালন করা এক টুকরো বাংলাদেশ আর যুদ্ধে শহীদদের প্রতি লালন করা গভীর মমতা।