ফাহিম রেজওয়ান অঙ্কুর

Posted on Posted in 7

ক্লাসে ফোরে পড়তাম মনে হয়। ২০০৫ সাল। একদিন রাতে সামাজিক বিজ্ঞান বইয়ে মুক্তিযুদ্ধের ঘোষণা পড়ছিলাম। আব্বু পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। হঠাৎ বইটা নিয়ে বললেন, এখানে তো ভুল আছে

প্রথমে ভেবেছিলাম ছাপতে ভুলে গেছে বুঝি। পরেরদিন বন্ধুদের বই চেক করে দেখলাম, কই! একই তো! আব্বুকে এসে বললাম। তখন আব্বু বুঝিয়ে দিলেন বিষয়টা ইতিহাস বিকৃতির। সেই ছোট্ট বয়সে ইতিহাস বিকৃতি কী অত বুঝতাম না। আব্বু ধীরে ধীরে বুঝিয়ে দিয়েছিলেন। বাংলাদেশের ইতিহাস যতটা জানতেন, জানিয়েছেন। বই পড়তে দিয়েছিলেন অনেকগুলো। তারপর থেকে আমাকে আর বিভ্রান্ত হতে হয় নি। আমার অন্তরে যে বাংলাদেশ নামটা লেখা আছে, তা খুঁজে বের করতে সময় লাগে নি।

এখন বড় হয়েছি। লেখালেখি করতে শিখেছি। যাকে যেভাবে পারি জানাতে চেয়েছি। এর থেকেই এই প্রজেক্টে আসা। মুক্তিযুদ্ধ আমার অস্তিত্ব। এই অস্তিত্ব সম্পর্কে সকলকে জানানো দরকার। নিজের জন্ম নিয়ে, অস্তিত্ব নিয়ে সন্দেহ থাকলে কেউ সামনে এগিয়ে যেতে পারে না। সবাই বিজয়ের কথাটা জানে, কিন্তু এর পেছনে যে কত দুঃখ, কত কান্না, কত হাহাকার লুকিয়ে আছে, তা অনেকেরই জানা নেই।