মনিরুল ইসলাম মণি

Posted on Posted in 7

মানুষ যখন দারুণ সুন্দর কোন জায়গা দেখে, দারুণ কোন গল্প শুনে, তার ভিতরে তখন থেকেই আকুলতা থাকে সেই অভিজ্ঞতা অন্যদের সাথে শেয়ার করার। কিশোর বয়স থেকেই নানা দেশের ইতিহাস পাঠের দিকে আমার ঝোঁক ছিল।যখন থেকে মুক্তিযুদ্ধের, মুক্তিযোদ্ধাদের কাহিনিগুলো জানা শুরু করি, তখন থেকেই এই ইতিহাসের সাথে নিজেকে রিলেট করতে পারি; অন্যদেশের, অন্যজাতির গল্প নয়, আমার গল্প, আমাদের গল্প হিসেবে। আর সেই সাথে চাওয়া- সবাই জানুক এই থ্রিলিং, বীরত্বের গল্পগুলো। সবাই অনুভব করুক কত বিশাল ব্যাপ্তির ঘটনা এই ১৯৭১। কিন্তু আমার পক্ষে পড়া ছাড়া আর কী-ই বা করা সম্ভব ছিল? তাই লিও যখন অনুবাদের কাজ ধরিয়ে দিলেন, তখন আপত্তি করার প্রশ্নই আসলো না। যদিও খুব অল্প কাজই করেছি, তবুও এই রকম একটা প্রজেক্টের অংশ হিসেবে থাকাটাই সবসময় একটা বলার মত বিষয় হয়ে থাকবে। আমি চাই আমাদের বীরদের কাহিনী বাংলাদেশের সবাই জানুক, এনিমেশন হোক, সিনেমা হোক-এই প্রকল্প এই সব কিছুর পথপ্রদর্শক হিসেবে থাকবে।