রুশদি সাকিব হাসান

Posted on Posted in 8

সবকিছুরই যেমন একটি ভিত্তি দরকার হয়, ইতিহাসও তেমনি একটি দেশ কিংবা একটি জাতির ভিত্তি হিসেবে কাজ করে। আমি আমাকে কতটুকু উপরে দেখতে চাই এটি বিবেচনায় নেয়ার আগে নিজের ভিত্তির দিকে নজর দেয়া জরুরী। ভিত্তি মজবুত না হলে আর একটি রানা প্লাজা আমাদের সামনে চলে আসতে পারে। আর বাঙালি জাতির এই ভিত্তির নাম হলো মুক্তিযুদ্ধ। এটি একই সাথে আমাদের অহংকার ও গর্বের জায়গা। সেই যুদ্ধে অংশগ্রহন করতে না পারার যে বেদনা, তাকে লাঘব করার জন্য এর সম্পর্কে জানা এবং একই সাথে পরবর্তী প্রজন্মের জন্য কিছু একটি করার ইচ্ছা থেকেই আমার এই প্রজেক্টে অংশগ্রহন। মুক্তিযুদ্ধকে না জানলে কিংবা এটি নিজের মধ্যে ধারণ না করতে পারলে একজন ব্যক্তির পক্ষে দেশের জন্য কিছু করা সম্ভব বলে আমি মনে করি না। আজকে দেশে যে জঙ্গীবাদের উত্থান, এর পিছনেও আছে এই ইতিহাসকে না জানা। ইতিহাসকে আমাদের চোখের সামনে থেকে আড়াল করার যে প্রবনতা কিংবা ইতিহাস বিকৃতির যে খেলা আমাদের দেশে বিরাজমান ছিল, এরই ফসল এই বিশৃঙ্খলা। এই অবস্থা থেকে বের হয়ে আসার ক্ষেত্রে মূখ্য ভুমিকা রাখতে পারে আমাদের ইতিহাস চর্চা। অবশ্যই যুগের সাথে তাল মিলিয়ে আধুনিক উপায়ে। তাই এখানে অবদান রাখতে পারাটা আমার জন্য অত্যন্ত গর্বের। যদিও সময় স্বল্পতার জন্য খুব বেশি সহায়তা করা আমার পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না, তথাপি আমি ধন্যবাদ জানাই আমার খুব প্রিয় এক ছোট ভাই লিওকে, আসলে ওর আগ্রহেই আমার এই প্রজেক্ট আসা। যতদিন ওদের মত ছেলেরা আছে, ততদিন আমি নিশ্চিত, বাংলাদেশ একদিন সঠিক পথে হাঁটবেই। জয় বাংলা।