12

Ashik Uz Zaman

আমি প্রথম যখন এই প্রোজেক্টের কথা জানতে পারি, নিজের মধ্যে তীব্র তাড়নায় যোগাযোগ করলাম নুসরাত আপুর সাথে। জানালাম আমার আগ্রহের কথা, আমিও এই প্রোজেক্টের সাথে যুক্ত হতে চাই। তিনি আমার কথা রাখলেন। যুক্ত হলাম নীল আপুর সাথে এবং এই প্রোজেক্টের ফেসবুক পেজের সাথে। অতিসত্বর কাজেও লেগে পড়লাম। খুবই সামান্য কিছু কাজ করার পর আমি একেবারেই উধাও হয়ে গেলাম!  উধাও মানে উধাও, নীল আপু আমাকে আর খুঁজেই পেলেন না। শেষ পর্যন্ত নুসরাত আপু জানতে চাইলে তাকে জানালাম আমার সাময়িক অপারগতার কথা। শুধু ওনাকেই জানালাম কারণ উনিই হয়তো বুঝতে পারবেন খানিকটা। এখানে সেইসব অজুহাত আর তুলতে চাই না। কেননা তাঁরা কোনো অজুহাতের আশ্রয় নেন নি, যাদের নিঃস্বার্থ আত্মত্যাগের কল্যাণে আজ আমার মতো স্বার্থপর একজন এই দেশের মুক্ত বাতাসে নিঃশ্বাস নিতে পারছে। তাই এই মুহূর্তে আমার অনুভূতি অনেকটা লজ্জার, তার চেয়েও বেশি হতাশার; কেননা এই প্রোজেক্টের কাজ আর খুব বেশি বাকি নেই। এই আফসোস আমার আজীবন থাকবে যে, যতোটা চেয়েছি তার প্রায় কিছুই করতে পারি নি। এক চিমটি সান্ত্বনা হয়তো এই যে, যেমন করেই হোক এই প্রোজেক্টের সাথে যুক্ত ছিলাম। হয়তো বাকি কাজেও কিছুটা যুক্ত থাকতে পারবো, এটাই প্রত্যাশা।