15

তাজমুল আখতার

ইঞ্জিনিয়ার লিও ভাই একদিন ফেসবুকে একটা পোস্ট দিলেন যে, স্বাধীনতা যুদ্ধের দলিলপত্র তিনি ইউনিকোডে লিপিবদ্ধ করতে চান। আর এ জন্য কয়েকজনের সহযোগিতা দরকার, যারা তাঁকে বিভিন্ন দলিল কম্পাইল করতে সহায়তা করবে। তখন কোন চিন্তা ছাড়াই লিও ভাইকে নক করে জানালাম যে, এই ব্যপারে তাঁকে আমি কম্পাইলেশনে সহায়তা করতে আগ্রহী। এর প্রধান কারণ ছিল স্বাধীনতা যুদ্ধের দলিলপত্রকে মোটামুটিভাবে সর্বজনগৃহীত মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বলা চলে। কারণ এতে লেখকের কোন নিজস্ব ব্যাখ্যা নেই। আছে মুক্তিযুদ্ধকে প্রত্যক্ষভাবে উপলব্দিকারীদের বয়ান। তাই ভাবলাম কিছু কম্পাইল করে যদি মুক্তিযুদ্ধের বিশাল ইতিহাস-সাগরের কিছু নুড়ি আহরণ করতে পারি, তাতে ক্ষতি কী?

 

যখন প্রজেক্টের কাজ শুরু করলাম তখন পরিষ্কারভাবেই বুঝতে সক্ষম হলাম, আসলে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সাহিত্য কী আর আসল ফ্যাক্ট কী! প্রতিটি দলিল কম্পাইলের সাথে সাথে জানার দিগন্ত উন্মোচিত হতে থাকলো। পাশাপাশি অন্যদের লেখা পড়তে পড়তে উপলব্ধি করলাম যে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানার ব্যপারে আসলে আমরা কতোটা অজ্ঞ। সমস্যাটা আমাদের জানার পরিধির, সমস্যা আমাদের দেশের নীতিনির্ধারকদের, যারা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে জনতার কাছে সহজলভ্য করতে পারেন নাই। এই দলিলপত্রের বাজারমূল্য ১৫,০০০ টাকার কাছাকাছি। কে নিজের পয়সায় কিনবে এই দলিল? কয়জন? দলিলের মাঝে প্রায় ৬,০০০ পৃষ্ঠা আবার ইংলিশে লিপিবদ্ধ। কে করবে সেগুলোর অনুবাদ? কে বুঝিয়ে দেবে প্রশাসনিক মারপ্যাচের ভাষা? কে হবে সেই সূর্যসন্তান?

 

স্বপ্ন দেখি একদিন বাংলাদেশের প্রতিটা মানুষ মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত বীরদের সম্পর্কে জানবে, তাঁদের সম্মান করবে, নিজের দেশকে মুক্তিযোদ্ধাদের মতো করে ভালবাসবে আর ত্রিশ লক্ষ শহীদ ও লক্ষ লক্ষ মা বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে পাওয়া এই বাংলাদেশকে সোনার বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলবে। স্বপ্ন এটুকুই, বাস্তবে নিয়ে যাওয়া আপনাদের হাতে, শুধু আপনাদের হাতে…