4

মাহিয়া হাসান মীম

আমার বন্ধু সজীব একদিন ফেসবুকে নক করে জিজ্ঞেস করলো, আমি মুক্তিযুদ্ধের দলিল অনুবাদ করতে চাই কিনা।যেহেতু আমার কাছে মুক্তিযুদ্ধ খুব আবেগের বিষয় তাই কোন চিন্তা না করেই এ কাজের সাথে যুক্ত হলাম। যতটা সহজ ভেবেছি কাজটা ততটা সহজ ছিল না। এই দলিল অনুবাদ করতে গিয়েই বুঝেছি যে মুক্তিযুদ্ধের ব্যাপারে শুধু কিছু উপন্যাস পড়েই পাণ্ডিত্য দেখানো উচিৎ নয়।আরো অনেক বিষয় সম্পৃক্ত ছিল এর সাথে। আমার মনে দেশের প্রতি,মুক্তিযুদ্ধের প্রতি ভালোবাসার কোন কমতি নেই। কিন্তু আমি সবসময়ই হীনমন্যতায় ভুগেছি এটা ভেবে যে আমি আমার দেশ বা আমার অহংকার মুক্তিযুদ্ধকে পরবর্তী প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে কিছু করতে পারলাম না। সজীবের প্রতি কৃতজ্ঞ যে ও আমাকে আমার হীনমন্যতা দূর করার সুযোগ দিয়েছে। আমি খুবই অল্প সংখ্যক পৃষ্ঠা অনুবাদ করেছি। ফলে একটা অতৃপ্তবোধ রয়ে গেছে আমার। সামনের দিনগুলোতে এই অতৃপ্তি ঘোচাতে চাই। সবার জন্য শুভ কামনা রইল।