3

রিমি দাস

ছোটবেলা থেকেই মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে অনেক আগ্রহ ছিল, কিন্তু খুব সামান্যই জানতাম। বড় হতে হতে নিজের আগ্রহেই মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে পড়াশোনা করতে থাকি প্রথমে বই থেকে, তারপর ব্লগ এবং ফেসবুকে। এভাবেই ফেসবুকে একদিন লিও-র সাথে পরিচয় এবং উনাদের কাজ দেখে নিজ আগ্রহেই এই প্রকল্পের অংশীদার হই। যুদ্ধদলিলের মত এত নির্ভরযোগ্য একটা জায়গা থেকে দেশ এবং মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে জানার ইচ্ছে তো ছিলই। কিন্তু ১৫ খণ্ডের এত বড় দলিল পড়ার সাহস হচ্ছিলো না। এই প্রকল্পে অংশগ্রহণ আমার সেই ইচ্ছের বাস্তবায়নকে অনেক সহজ করে দিয়েছে। এখন আমি এই সত্যিকারের ইতিহাস জানছি যাতে আমি আমার সন্তানকে সঠিকভাবে জানাতে পারি এই দেশের ইতিহাস। নিজের কাজ এবং সংসারের মাঝে খুব সামান্যই সময় দিতে পারি এই প্রকল্পকে। আরও বৃহৎ আকারে এই প্রকল্পের অংশ হতে চাই ভবিষ্যতে। দলিল পড়তে পড়তে প্রায় শিহরিত হই সেই সময়ের কথা ভেবে। কি অদম্য মনোবল নিয়ে সেসময় মানুষ লড়াই করেছে। তবে এই প্রজন্ম কেন এত পিছিয়ে থাকবে তাদের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনে? ইচ্ছে আছে ছোটরা যাতে সহজেই দেশ এবং মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে জানতে পারে, সবাইকে নিয়ে তেমন কিছু কর্মশালা করার। তাহলে হয়তো আমরা আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে ইতিহাস বিকৃতির হাত হতে রক্ষা করতে পারবো এবং দেশকে সত্যিকারভাবে ভালোবাসতে শেখাতে পারবো।